বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
সম্পাদকীয়
 

স্বখাত-সলিলে বিজেপি

শাসন ব্যবস্থার যে সংসদীয় গণতান্ত্রিক মডেল ভারত গ্রহণ করেছে, সেখানে বিভিন্ন স্বীকৃত রাজনৈতিক দল অংশ নিতে পারে। দলবহির্ভূত নাগরিকও প্রতিযোগিতায় যোগ দিতে পারেন ‘নিদল’ প্রার্থী হিসেবে। এক্ষেত্রে সবচেয়ে উল্লেখযোগ্য বিষয় হল, প্রচারের মাধ্যমে মানুষের কাছে পৌঁছনোর জন্য প্রত্যেক প্রার্থীর সুযোগ সমান—জাতীয় দল, আঞ্চলিক দল, এমনকী নির্দল প্রার্থীর মধ্যেও কোনোরকম ভেদাভেদ করার সুযোগ নেই। নির্বাচন ব্যবস্থায় এই গ্যারান্টি দেওয়ার অধিকারী নির্বাচন কমিশন। তাই নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছে কোন রাজ্য বা কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের একজন প্রার্থী ভোটের প্রচারে সর্বাধিক কত টাকা খরচ করতে পারবেন। আয়তন ও ভোটার সংখ্যার তফাতের কারণে লোকসভা ও বিধানসভা আসনের প্রার্থীদের জন্য খরচের পরিমাণও আলাদা করে দেওয়া হয়েছে। কিন্তু কিছু দল এবং বহু প্রার্থী ভোট প্রচারের খরচে লাগাম রাখতে পারেন না। জাতীয় নির্বাচন কমিশনের বেঁধে দেওয়া অঙ্কের চেয়ে অনেক বেশি টাকাই এক একটি নির্বাচনে তাঁরা খরচ করেন। কোনও কোনও ক্ষেত্রে টাকা রীতিমতো ওড়ানো হয়! ভারতের সাধারণ নির্বাচনে সরকারিভাবে যে পরিমাণ খরচ-খরচা দেখানো হয়, তা অনেক ধনী দেশের কাছেও বাহুল্য, এমনকী অপচয় বলে মনে হয়—বিস্ময় বোধ করেন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মতো একটি অত্যন্ত ধনী গণতান্ত্রিক দেশের নাগরিকরাও! এর পাশে সীমাহীন কালোধান্দার খবরটি রাখলে তাঁরা নির্ঘাত মূর্ছা যাবেন!
স্বভাবতই, জাতীয় নির্বাচন কমিশন ভারতের ভোটে খরচে রাশ টানতে উদ্যোগী হয়েছে। এইরূপ নিয়ন্ত্রণ জারির আরও একটি উদ্দেশ্য হল, রাজনীতির দুর্বৃত্তায়নে লাগাম পরানো। কারণ ভোটে খোলামকুচির মতো খরচের টাকা কখনোই স্বচ্ছ পথে আসা সম্ভব নয়। সেগুলি কিছু রাজনৈতিক দল দুর্বৃত্তির মাধ্যমেই আত্মসাৎ করে। এই কালো টাকার একাংশ ব্যয় হয় নির্বাচনে সরাসরি কারচুপি করতে এবং বাকিটা ভোটারদের একটি অংশকে ‘কিনতে’। এখানেই চূড়ান্তভাবে পরাজিত হয়েছে ইলেক্টোরাল বন্ড। আমরা জানি, ভোটে কালো টাকার ওড়াউড়ি বন্ধ করার অজুহাতে মোদি সরকারই নির্বাচনী বন্ড চালু করেছিল। এই আজগুবি ‘স্বচ্ছ’ সরকারি ব্যবস্থা চালুর পর দেশজুড়ে অনুষ্ঠিত হয়েছে অনেকগুলি নির্বাচন। মোদি সরকারের অন্ধ সমর্থকরাও দাবি করতে পারবেন না, উক্ত নির্বাচনের একটিতেও কালো টাকার ছড়াছড়ি হয়নি। ঠিক যেমন কোনও নাগরিক দেখেননি—নোটবন্দি কিংবা জিএসটি চালুর পর কালো টাকার কারবারিরা দমেছে বলে। মোদি সরকারের ওয়ান পয়েন্ট এজেন্ডা হল ‘ভ্রষ্টাচার’ দমন। বিজেপির অভিযোগ, সরকারের এই ‘মহৎ’ উদ্দেশ্য সাধনের প্রধান অন্তরায় বিরোধী দলের বা সিঙ্গল ইঞ্জিন রাজ্য সরকারগুলি। এজন্য তারা চায় দেশের সর্বত্র ডাবল ইঞ্জিন সরকার। কিন্তু ভোটের লাইনে দাঁড়াবার আগেই জাতীয় নির্বাচন কমিশন প্রমাণ দিল, নির্বাচনকে সামনে রেখে কালো টাকার কারবারে আসল ‘চ্যাম্পিয়ন’ ডাবল ইঞ্জিন রাজ্যগুলিই!
সোমবার কমিশন জানিয়েছে, ১ মার্চ থেকে ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত সারা দেশে বাজেয়াপ্ত হওয়া নগদ ও অন্যান্য সামগ্রীর সর্বমোট অর্থমূল্য ৪,৬৫৮ কোটি টাকা। ৩৯৫ কোটি টাকা নগদের পাশাপাশি উদ্ধার হয়েছে বিপুল পরিমাণ উপহার, মূল্যবান অলংকার, মাদক দ্রব্য, মদ প্রভৃতি। এসব যে জায়গা বুঝে ভোটার এবং ‘ভোট-শিল্পীদের’ মধ্যে বণ্টনের উদ্দেশ্যেই জড়ো করা হয় তা নিয়ে সংশয় কিংবা বিতর্কের অবকাশ নেই। কমিশন জানিয়েছে, তারা ইতিমধ্যেই যা বাজেয়াপ্ত করেছে তাতে ভেঙে চুরমার হয়ে গিয়েছে দেশের নির্বাচন ব্যবস্থার ইতিহাসের যাবতীয় কালো রেকর্ড! আরও মজার খবর হল, ভোটকে প্রহসনে পরিণত করার এই মতলবি খেলায় সবচেয়ে ‘এগিয়ে’ তিন রাজ্যের নাম রাজস্থান, গুজরাত ও মহারাষ্ট্র! বলা বাহুল্য, এই তিন রাজ্যেই গড়গড়িয়ে চলছে মোদিজির সাধের ডাবল ইঞ্জিন সরকার এবং তার মধ্যে স্বয়ং মোদি-শাহ জুটি হলেন গুজরাতের ভূমিপুত্র। মানুষের কাছে এখান থেকেই পরিষ্কার হয়ে যাচ্ছে, মোদিজিরা মানুষের মন জয়ের জন্য উন্নয়নে কোনও আস্থা রাখেননি, কেবল ভ্রষ্ট বাঁকাপথেই তাঁরা স্বচ্ছন্দ। গেরুয়া শিবির একইসঙ্গে বেছে নিয়েছে গরিবের সঙ্গে শত্রুতার লাইন। যেমন—বাংলার গরিব মানুষকে মনরেগায় কাজ ও টাকা প্রদান বন্ধ করেছে কেন্দ্র এবং আটকে দিয়েছে পাকা বাড়ি তৈরির আবাস যোজনা। বাংলার গরিব মহিলাদের আর্থিক স্বনির্ভরতার পরিসর বৃদ্ধির জন্য মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার লক্ষ্মীর ভাণ্ডার চালু করেছে। মাথাপিছু অনুদানের পরিমাণটি দ্বিগুণও করা হয়েছে সম্প্রতি। এ নিয়েও গাত্রদাহ বিজেপির। তাদের এক নেতা ও নেত্রী রীতিমতো নির্বাচনী মঞ্চ থেকে ঘোষণা করে দিয়েছেন, বাংলায় তাঁদের শক্তিবৃদ্ধি হলে তাঁরা স‍টান বন্ধ করে দেবেন লক্ষ্মীর ভাণ্ডার এবং ফেলে দেবেন গরিব-দরদি তৃণমূল রাজ্য সরকারকেও! বস্তুত বঙ্গ বিজেপি ‘সিলমোহর’ দিল মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আশঙ্কাতেই। এসবই যে দলের রেকর্ড এবং রাজনৈতিক ভাবনা ও দর্শন—বাংলার মানুষ ভোটযন্ত্রে তাকে কী ‘ট্রিটমেন্ট’ দেবে, তা এখন থেকেই ভাবতে থাকুক বিজেপি।

17th     April,   2024
 
 
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ