Bartaman Patrika
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
 

প্র তি মা র বি ব র্ত ন
সোমনাথ দাস

বর্ষা আর শরৎ এখন মিলেমিশে একাকার। বিশ্ব উষ্ণায়নের কৃপাদৃষ্টিতে শহরবাসীর পক্ষে আর এই দু’টি ঋতুকে আলাদা করা সম্ভব নয়। তবে ভাদ্রের সমাপ্তি এবং আশ্বিনের সূচনা বাঙালির জীবনে নিয়ে আসে এক অনাবিল আনন্দ। মা দুর্গার আগমনবার্তায় আমাদের হৃদয় নেচে ওঠে। বাঁশ পোঁতা, বাটাম কাটার শব্দ, ত্রিপলের সোঁদা গন্ধ, পটুয়াপাড়ায় কাঠামোয় খড় বাঁধা এবং মাটি মাখার কসরৎ—এই অনুভূতিগুলি এখনও পুজো পাগলদের মধ্যে প্রবলভাবেই রয়েছে। প্যান্ডেল হপিংয়ের প্রধান আকর্ষণ বিভিন্ন রকমের প্রতিমা দর্শন। সে থিমই হোক কিংবা সাবেকি। কোথাও সপরিবারে জগৎজননীকে দেখলে দু’হাত আপনাআপনি মিলে যায়। আবার কোথাও বা স্রষ্টার সৃষ্টি নন্দনতত্ত্বে ভরপুর। প্রতিমার বিবর্তন নিয়েই তাই এই প্রতিবেদন।
গোপেশ্বর পাল
সর্বজনীন পুজোর প্রারম্ভিক পর্বে প্রতিমা হতো একচালার। টানা চোখ, ডাকের সাজই ছিল তার আকর্ষণ। ১৯৩৮ সালে গোপেশ্বর পালের হাত ধরেই চালার সংখ্যা এক থেকে পাঁচ হয়। নেপথ্যে রয়েছে একটি দুর্ঘটনা। কুমোরটুলি সর্বজনীনের মণ্ডপে তখন চলে এসেছে একচালার মা দুর্গা। কিন্তু পঞ্চমীর দিনই ঘটে গেল মহাবিপত্তি। সন্ধ্যায় হঠাৎই মণ্ডপে আগুন লাগে। সব পুড়ে ছাই। অথচ পরের দিনই বোধন। নেতাজি সুভাষচন্দ্র বসু ছুটে গেলেন শিল্পী গোপেশ্বর পালের কাছে। বললেন, যেভাবে হোক এক রাতের মধ্যে ঠাকুর তৈরি করে দিতেই হবে। ঠিক হল, আলাদা আলাদা করে প্রতিমা গড়া হবে। গোপেশ্বর পাল দুর্গা প্রতিমা গড়লেন। আর অন্যান্য শিল্পীরা গড়লেন লক্ষ্মী, সরস্বতী, কার্তিক, গণেশ। একচালা ভেঙে তৈরি হল পাঁচ চালার ঠাকুর। এক রাতের মধ্যেই সব তৈরি। ষষ্ঠীর দিন মণ্ডপেই তৈরি শেষ হল প্রথম পাঁচ চালার ঠাকুর।
রমেশ পাল
চারের দশকের গোড়ায় ফরিদপুরের পালঙ থেকে কলকাতায় শিল্পের পাঠ নিতে এলেন রমেশচন্দ্র পাল। তিনি দাবি করতেন, প্রতিমার ব্যবসা করতে কলকাতায় আসেননি। কিছু সর্বজনীন কর্তার ভালোবাসার চাপে তাঁকে প্রতিমা গড়তে হতো। পাঁচ ও ছয়ের দশকে কলকাতা দমকল বাহিনীর পুজোর প্রতিমা গড়তেন ভাস্কর রমেশ পাল। দমকল ছাড়াও পার্ক সার্কাস ময়দান, খিদিরপুর যুবক সঙ্ঘ ও একডালিয়ার এভারগ্রিনের প্রতিমায় রূপদান করতেন তিনি। আবার রমেশ পাল কুমোরটুলিতে আসার ঠিক পরেই ঢাকা-বিক্রমপুরের গ্রামের মৃৎশিল্পী রাখালচন্দ্র পাল কুমোরটুলিতে আসেন। প্রাক-স্বাধীনতা যুগ... ১৯৪২-৪৩ সাল। সঙ্গে তাঁর চার ভাই—হরিবল্লভ, গোবিন্দ, নেপাল ও মোহনবাঁশি। সেই সময় সর্বজনীন দুর্গাপুজোয় মারাত্মক জনপ্রিয় ছিল কৃষ্ণনগর-ঘুণীর ঘরানার প্রতিমা। তাই এপার বাংলার এই ঘরানাকে ছাপিয়ে ওপার বাংলার ঢাকা-বিক্রমপুর ঘরানার প্রতিমা জনপ্রিয় হতে প্রচুর সময় লেগে যায়।
অশোক গুপ্ত
১৯৫৬ সালে জগৎ মুখার্জি পার্কের পুজোয় অশোক গুপ্ত নামে এক শিল্পী আর্টের দুর্গা প্রতিমা প্রথম প্রচলন করেন। আর ১৯৭৫ সালে চিত্রকর নীরদ মজুমদারের হাতের ছোঁয়ায় ভবানীপুর বকুলবাগানে আর্টের দুর্গা প্রতিমার এক নতুন অধ্যায় রচিত হয়। পরবর্তীকালে আমরা এই আর্টের প্রতিমাকেই থিমের প্রতিমা হিসেবে চিহ্নিত করেছি।
উত্তর কলকাতার বাগবাজারের জগৎ মুখার্জি পার্কে অশোক গুপ্ত একটু অন্যরকম আর্টের প্রতিমা গড়তেন। তিনি ছিলেন বনেদি বাড়ির (অবিনাশ কবিরাজ বাড়ির) ছেলে। বাড়ির অমতে প্রতিমা বানানোর কাজ শিখতে গিয়ে গৃহত্যাগী হন এবং প্রখ্যাত ভাস্কর সুনীল পালের কাছে আশ্রয় নেন। ১৯৫৯ সালে প্রথমবার কুমোরটুলি থেকে একটি কাঠামো নিয়ে আসার পর তা ভেঙে অশোক গুপ্ত নিজেই প্রতিমা তৈরি শুরু করেন। তবে কিছু কিছু বিষয় তাঁকে বরাবর বিতর্কিত করে তোলে। যেমন সিংহর বদলে তাঁর দুর্গার বাহন ছিল বাঘ। বারবার উনি মা দুর্গার ফর্ম ভেঙ্গে সাধারণ মানুষের সমালোচনার মুখে পড়েছেন। ১৯৭৮ সালে তিনি থার্মোকলের প্রতিমাও বানান রাজবল্লভ পাড়ায় সারঙ্গ নামক একটি সর্বজনীন দুর্গাপুজোর জন্য। তখনও কিন্তু আমাদের কলকাতার মানুষ থার্মোকলের নাম খুব একটা শোনেননি।
অশোক গুপ্তের জন্যই অস্ত্রবিহীন দুর্গা দেখতে পেয়েছিলেন পুজো অনুরাগীরা। সবকিছুর ব্যবহার প্রতীকী। তাঁর হাতের ছোঁয়ায় থিমের প্রতিমার এক নতুন অধ্যায় রচিত হয়। ইন্ডিয়ান মাইথলজির সঙ্গে পশ্চিমী সংস্কৃতির একটা মেলবন্ধন লক্ষ্য করা যেত তাঁর কাজে, হাইরিলিফ পেন্টিংয়ের সঙ্গে নানারকম রঙের অকল্পনীয় ব্যবহার... যা কি না সেই সময় ভাবাই যেত না। প্রচারবিমুখ শিল্পী অশোক গুপ্তর মনের জোর ও সাহস ছিল মারাত্মক, বাগবাজার সর্বজনীনের জনপ্রিয় সাবেকি দুর্গাপ্রতিমা থেকে মাত্র ৩০০ মিটারের মধ্যে জগৎ মুখার্জি পার্কে থিমের প্রতিমা বানানো চাট্টিখানি কথা নয়! তাও আবার ছয়ের দশকে। অশোক গুপ্ত রবীন্দ্র সঙ্গীতের খুব ভক্ত ছিলেন, তাই প্রতিমা বানানোর সময় সারাদিন চলত দেবব্রত বিশ্বাসের গলায় রবীন্দ্র সঙ্গীতের ক্যাসেট। তিনি যখন প্রতিমা বানাতেন, সত্যজিৎ রায় এসে দিনের পর দিন বসে থাকতেন... শুধু ওঁর কাজ দেখার জন্য।
অলোক সেন ও
মোহনবাঁশি রুদ্র পাল
অলোক সেনের কথা না বললে বিবর্তন অসম্পূর্ণ থেকে যায়। আর্ট কলেজ থেকে পাশ করার পর অলোক সেন সাতের দশকে অন্যরকম আর্টের প্রতিমা গড়তেন। সামাজিক অনাচার, রাজনৈতিক হত্যা, শাসকের অত্যাচার নিয়ে প্রতীকী অসুর গড়ে তাক লাগিয়ে দিয়েছিলেন তিনি। মা দুর্গার সন্তান কার্তিক নেই, সেখানে দাঁড়িয়ে সুভাষচন্দ্র বসু। নেতাজির গায়ে পুরোপুরি সামরিক পোশাক। আর সবুজ-রঙা অসুরের বদলে একজন ইংরেজ মিলিটারি। ঠিক এই সময় কলকাতার দুর্গাপুজোতে এক আমূল পরিবর্তন ঘটায় ভবানীপুর বকুলবাগান সর্বজনীন। ১৯৭৫ সালে থিমের প্রতিমা গড়েন চিত্রকর নীরদ মজুমদার। তারপর থেকে কুমোরটুলির চৌহদ্দি ছাড়িয়ে বকুলবাগানের প্রতিমা নির্মাণ এসে পড়ে নামজাদা শিল্পীদের হাতে। বিকাশ ভট্টাচার্য, ইশা মহম্মদ, শানু লাহিড়ি, মীরা মুখোপাধ্যায়ের মতো নামজাদা শিল্পীরা থিমের প্রতিমা গড়েন। বর্তমানে কুমোরটুলি প্রতিমা শিল্পীদের মধ্য সবচেয়ে বেশি যাঁর অবদান, তিনি হলেন বিক্রমপুর ঘরানার কিংবদন্তি শিল্পী মোহনবাঁশি রুদ্র পাল। চারের দশকের শুরুর দিকটায় রাখাল, নেপাল ও মোহনবাঁশি ভাইয়েরা একসঙ্গে ‘রাখাল চন্দ্র পাল এন্ড ব্রাদার্স’-এর ব্যানারে ঠাকুর গড়তেন। এঁদের হাত ধরেই ঢাকা-বিক্রমপুর ঘরানার শিল্প ক্রমশ জনপ্রিয় হয়ে উঠতে থাকে। প্রায় চার দশকেরও বেশি সময় লেগে যায় ওপার বাংলার এই ঘরানাকে জনপ্রিয় করে তুলতে। আটের দশকের শুরুতে ভাইদের ব্যবসা আলাদা হয়ে যায়, রাখাল, নেপাল পাল ও মোহনবাঁশি পৃথক ব্যানারে প্রতিমা বানানো শুরু করেন এবং ধীরে ধীরে ঢাকা-বিক্রমপুর ঘরানা সুপরিচিত হতে থাকে। পরপর চার বছর এশিয়ান পেন্টস শারদ সম্মান পুরস্কার পেয়ে রাতারাতি বিখ্যাত হয়ে ওঠে আদি বালিগঞ্জ সর্বজনীন। মোট পাঁচবার তারা এই শারদ সম্মান লাভ করে। আদি বালিগঞ্জ বরাবর একটু অন্য ধাঁচের মণ্ডপ তৈরি করত, আর ওদের প্রতিমা গড়তেন ঢাকা-বিক্রমপুর ঘরানার শিল্পী মোহনবাঁশি রুদ্র পাল। তাঁর সুযোগ্য পুত্র প্রদীপ রুদ্র পালও অনবদ্য শিল্পী। তেলেঙ্গাবাগানের প্রতিমায় তাঁর বিভিন্ন ধরনের কাজ এখনও পুজো-পাগলদের চোখে ভাসে।
সনাতন দিন্দা ও ভবতোষ সুতার
১৯৯৮ এবং ২০০০—এই দু’টি বছরও প্রতিমা বিবর্তনের ইতিহাসে আলাদা জায়গা পাবে। কারণ, সনাতন দিন্দা এবং ভবতোষ সুতারের আবির্ভাব। ‘রুদ্র পাল’ জমানার রমরমার মধ্যেই এই দুই শিল্পী নিজেদের জাত চিনিয়েছেন। হাতিবাগান সর্বজনীনে পথ চলা শুরু হয়েছিল সনাতনের। এর দু’বছর পরে বড়িশার একটি ক্লাবে প্রথম প্রতিমা গড়েন ভবতোষ। বর্তমানে এই দু’জনের সৃষ্টি দেখতে পুজোপ্রেমীরা উপচে পড়েন। প্রথম বছর সনাতন করেছিলেন গণেশজননী। এরপর তাঁকে আর থামতে হয়নি। একাধিক পদ্মের উপর প্রতিমা, কিংবা চম্বাদেবী বহুল প্রশংসিত হয়েছিল। এরপর নলিনী সরকার স্ট্রিট, চেতলা অগ্রণী ও ৯৫ পল্লিতে সনাতনী প্রতিমা উৎকর্ষের অন্যতম উদাহরণ। পাশাপাশি বড়িশার সৃষ্টি এবং নাকতলা উদয়ন সঙ্ঘ, চেতলা অগ্রণীতে ভবতোষ সুতার বছরের পর বছর ভারতের বিভিন্ন শিল্পকে তাঁর প্রতিমায় ফুটিয়ে তুলেছেন। ২০০০ সালে হাতিবাগান সর্বজনীনে প্রথম এশিয়ান পেন্টস শারদ সম্মান পান সনাতন দিন্দা। আর চার বছর পরে এককভাবে শ্রেষ্ঠ শিল্পীর পুরস্কারে ভূষিত হন ভবতোষ সুতার।
 লেখক: দুর্গাপুজো গবেষক 
29th  September, 2019
পুজোর ফুলের যন্ত্রণা
বিশ্বজিৎ মাইতি

 বিশ্বজিৎ মাইতি: হাওড়া‑খড়্গপুর রেলওয়ে শাখার বালিচক স্টেশন। মার্চ মাসের এক শুক্রবারের সকালে বেশ কয়েকজনকে ধরেছেন টিটি। বিনা টিকিটে ট্রেন সফর। তাঁদের মধ্যে এক যুবকের হাতে গোটা চারেক বস্তা। হাতে একগুচ্ছ ব্যাগ। গাল ভর্তি দাড়ি। উসকো-খুসকো চুল। পরনে নানান দাগে ভর্তি জামা ও হাফপ্যান্ট। করুণ চোখে আচমকাই নিজের মানিব্যাগ টিটির মুখের সামনে দেখিয়ে ধরা গলায় বলল, ‘স্যার একটা টাকাও নেই। পুরো শরীর চেক করে দেখুন...।
বিশদ

22nd  September, 2019
ভো-কাট্টা

বিশ্বকর্মা পুজোর সঙ্গে ঘুড়ি ওড়ানোটা সমার্থক হয়ে গিয়েছে। বিশ্বকর্মা পুজো মানেই আকাশজোড়া ঘুড়ির আলপনা। অসংখ্য ঘুড়ির ভেলায় যেন স্বপ্ন ভাসে। বহু কৈশোর আর যৌবনের মাঞ্জায় লেগে আছে ঘুড়ি ওড়ানোর স্মৃতি। যে ছেলেটা কোনওদিন সকাল দেখেনি, সেও বিশ্বকর্মা পুজোর দিনে সূর্য ওঠার আগেই ঘুড়ি-লাটাই নিয়ে ছাদে উঠে যায়।  
বিশদ

15th  September, 2019
নির্মাণশিল্পী বিশ্বকর্মা
সন্দীপন বিশ্বাস

জরাসন্ধ তখন প্রবল প্রতাপান্বিত। বারবার মথুরা আক্রমণ করছিলেন। কিন্তু সপ্তদশ প্রচেষ্টাতেও মথুরা জয় করা তাঁর পক্ষে সম্ভব হয়নি। তাই ফের তিনি মথুরা আক্রমণের প্রস্তুতি নিতে লাগলেন। কৃষ্ণ অবশ্য জানতেন জরাসন্ধ কিছুতেই মথুরা জয় করতে পারবেন না।
বিশদ

15th  September, 2019
আগুন বাজার
বীরেশ্বর বেরা

 ‘কেন? আপনি যে পটল বেচছেন, এমন পটল তো আমরা ৩০-৩২ টাকায় কিনছি!’ গ্রাম্য যুবক তাঁর আপাত-কাঠিন্যের খোলস ছেড়ে সহজ হয়ে গেলেন হঠাৎ। তেলের টিনের উপর চটের বস্তা বেঁধে টুলের মতো বসার জায়গাটা এগিয়ে দিয়ে বললেন, ‘বসুন তাহলে, বলি। বিশদ

08th  September, 2019
সমাপ্তি
সমৃদ্ধ দত্ত

মহাত্মা গান্ধীর প্রকাশিত রচনাবলীর খণ্ড সংখ্যা ৯০ ছাড়িয়ে গিয়েছে। এ পর্যন্ত জওহরলাল নেহরুর লেখা নিয়ে প্রকাশিত যত রচনা আছে, তা প্রায় ৫০ খণ্ড অতিক্রান্ত। বাবাসাহেব আম্বেদকরের সারা জীবনের যাবতীয় রচনা সমন্বিত করে এখনও পর্যন্ত ১৬টি খণ্ডসংবলিত রচনাবলী প্রকাশ পেয়েছে। 
বিশদ

01st  September, 2019
রাজীব ৭৫
মণিশঙ্কর আইয়ার

 ছিয়াশি সালের ডিসেম্বর। অঝোরে তুষারপাত হচ্ছে। আমরা যাচ্ছি কাশ্মীর। কিন্তু একটা সময় আর্মি জানাল, আর যাওয়া সম্ভব নয়। এত তুষারপাতে হেলিকপ্টার ওড়ানো যাবে না। তাহলে? যাব কী করে? বাকিরাও বলল, দিল্লি ফিরে চলুন। কিন্তু প্রধাননমন্ত্রী বললেন, তা হয় না। যাব যখন বলেছি যেতে হবে। লোকেরা অপেক্ষা করে থাকবে যে!
বিশদ

25th  August, 2019
শতবর্ষে  সারাভাই
মৃন্ময় চন্দ

চন্দ্রযান-২’র সাফল্যে গর্বিত ভারত। অভিজাত মহাকাশ ক্লাবের সদস্যদেশগুলির সঙ্গে ভারত আজ এক পংক্তিতে। মহাকাশ গবেষণায় ভারতের ঈর্ষণীয় সাফল্যের রূপকার নিঃসন্দেহে ক্ষণজন্মা বিরল প্রতিভাধর মিতভাষী এক বিজ্ঞানী—বিক্রম সারাভাই। একার হাতে যিনি গড়ে দিয়ে গেছেন ভারতের বিপুলা মহাকাশ সাম্রাজ্য। ১২ই আগস্ট ছিল তাঁর জন্মশতবার্ষিকী। বিশদ

18th  August, 2019
জয় জওয়ান

ঝুঁকি শব্দটি যখনই উল্লেখ করা হয়, তখনই তার সঙ্গে আবশ্যিকভাবে যুদ্ধের বিষয়টি এসে পড়ে। কিন্তু শুধু যুদ্ধে নয়, ঝুঁকি রয়েছে প্রশিক্ষণ পর্বেও। একজন যুদ্ধবিমানের পাইলটকে নানাভাবে তৈরি হতে হয়। আকাশপথে সেই প্রশিক্ষণ যখন শুরু হয়, তখন প্রতিটি স্তরেই ঝুঁকি থাকে। সেগুলো অতিক্রম করে সাফল্য পাওয়াই একজন পাইলটের কাছে চ্যালেঞ্জ। বিশদ

11th  August, 2019
জাতীয়তাবাদ ও রবিঠাকুর 
সমৃদ্ধ দত্ত

জাতীয়তাবাদের সংজ্ঞা তাঁর কাছে আলাদা। বিশ্বাস করতেন, গ্রামই ভারতের চেতনা। সম্পদ। তাই শুধু ইংরেজ বিরোধিতা নয়, রবিঠাকুরের লক্ষ্য ছিল ভারতের উন্নয়ন। ভারতবাসীর উন্নয়ন। তাঁদের স্বনির্ভর করে তোলা। অন্যরকম তাঁর স্বদেশপ্রেম। আরও এক ২২ শ্রাবণের আগে স্মরণ এই অন্য রবীন্দ্রনাথকে। 
বিশদ

04th  August, 2019
গণহত্যার সাক্ষী
মৃণালকান্তি দাস

এ এক হিবাকুশার গল্প। পারমাণবিক বোমা হামলার পর হিরোশিমা ও নাগাসাকির যারা বেঁচে গিয়েছিলেন, তাদের বলা হয় হিবাকুশা। তাঁরা কেউই হিবাকুশা হতে চাননি, চেয়েছিলেন আর দশজন স্বাভাবিক মানুষের মতোই সুন্দর একটা জীবন কাটাতে। কিন্তু ‘ফ্যাট ম্যান’ ও ‘লিটল বয়’ নামে দুটি অভিশাপ তছনছ করে দিয়েছিল তাঁদের সাজানো সংসার, সাজানো স্বপ্ন সহ সবকিছু। তেমনই একজন হিবাকুশা সাচিকো ইয়াসুই। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ কেড়ে নিয়েছিল তার সর্বস্ব...।
বিশদ

28th  July, 2019
বদলের একুশ
জয়ন্ত চৌধুরী

 একুশে জুলাই। শহিদ স্মরণ। তৃণমূলের বাৎসরিক শহিদ তর্পণ। গত আড়াই দশকের বেশি সময় ধরে এটাই চল। ঝড়-জল-বৃষ্টি-বন্যা সবই অপ্রতিরোধ্য একুশের আবেগের কাছে। তাই কেন একুশ, এই প্রশ্নের চাইতে অনেক বেশি জায়গা দখল করে রয়েছে এই দিনকে ঘিরে বাঁধনহারা উচ্ছ্বাস।
বিশদ

21st  July, 2019
অচেনা কাশ্মীর
ফিরদৌস হাসান

 ২০১৪ সালের পর এই প্রথম এত তুষারপাত হয়েছে উপত্যকায়। সাদায় মুখ ঢেকেছিল ভূস্বর্গ। আর তার সঙ্গে তাল মিলিয়ে পাল্লা দিয়েছিল পর্যটনও। বরফঢাকা উপত্যকার নৈসর্গিক দৃশ্য উপভোগ করার সুযোগ কে-ই বা হাতছাড়া করতে চায়! তাই তো জানুয়ারিতে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের কোলাহলে উপত্যকা গমগম করছিল।
বিশদ

14th  July, 2019
জল সঙ্কট 

কল্যাণ বসু: দুধ সাদা ধুতি পাঞ্জাবি, মাথায় নেহরু টুপি, গলায় মালা ঝুলিয়ে মন্ত্রী দু’হাত জোড় করে হাসিমুখে মঞ্চের দিকে যাচ্ছেন। চারদিকে জয়ধ্বনি, হাততালি। মঞ্চে উঠে মাইক্রোফোন হাতে নিয়ে মন্ত্রী বলতে শুরু করেছেন সবে।  বিশদ

07th  July, 2019
জগন্নাথের ভাণ্ডার
মৃন্ময় চন্দ

‘রথে চ বামনং দৃষ্ট, পুনর্জন্ম ন বিদ্যতে’। অর্থাৎ, রথের রশি একবার ছুঁতে পারলেই কেল্লা ফতে, পুনর্জন্ম থেকে মুক্তি। আসলে সর্বধর্মের সমন্বয়ে বিবিধের মাঝে মিলন মহানের এক মূর্ত প্রতিচ্ছবি এই রথযাত্রা। সেই কারণেই নিউজিল্যান্ডের হট প্যান্টের গা ঘেঁষে সাত হাত কাঞ্চীপূরমীয় ঘোমটা টানা অসূর্যমপশ্যা দ্রাবিড়ীয় গৃহবধূও শামিল হন রথের রশি ধরতে। অর্কক্ষেত্র, শঙ্খক্ষেত্র আর শৈবক্ষেত্রের সমাহারে সেই মিলন মহানের সুরটিই সতত প্রতিধ্বনিত নীলাচলে। তাই নীলাচলপতির দর্শনে অক্ষয় বৈকুণ্ঠ লাভের আশায় ভিড়ের ঠেলায় গুঁতো খেতে খেতে চলেন সংসার-বঞ্চিত বাল্যবিধবারা। একই মনোবাসনা নিয়ে চলেছেন অন্ধ, চলেছেন বধির, চলেছেন অথর্ব।
বিশদ

30th  June, 2019
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: পুজো যত এগিয়েছে, ততই কমেছে বিদ্যুতের সর্বোচ্চ চাহিদা। সিইএসসি সূত্রের খবর, মূলত বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে ছুটি থাকায় এবং মাঝে-মধ্যে বৃষ্টির জেরে বিদ্যুতের সর্বোচ্চ চাহিদা ক্রমশ কমেছে।  ...

পুনে, ৯ অক্টোবর: ভারতের মাটিতে ‘টিম ইন্ডিয়া’কে হারানো কতটা কঠিন, তা বিলক্ষণ টের পেয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা। কারণ, প্রথম টেস্টের প্রথম ইনিংসে ভারতীয় দলের ৫০২ রানের ...

স্টকহোম, ৯ অক্টোবর (এপি ও এএফপি): লিথিয়াম-আয়ন ব্যাটারি তৈরির স্বীকৃতি। ২০১৯ সালে রসায়নে নোবেল পুরস্কার জিতে নিলেন তিন বিজ্ঞানী। আমেরিকার জন গুডএনাফ, ব্রিটেনের স্ট্যানলি হোয়াটিংহ্যাম ও জাপানের আরিকা ইয়োশিনো। বুধবার রয়্যাল সুইডিশ অ্যাকাডেমি অব সায়েন্সেসের তরফে একথা জানানো হল।  ...

বিএনএ, জলপাইগুড়ি: জলপাইগুড়ি পান্ডাপাড়া সর্বজনীন দুর্গাপুজো কমিটির মণ্ডপে পাশাপাশি দেখা গিয়েছে দিদি-মোদির ফ্লেক্স। পুজো প্যান্ডেলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপি’র রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষের অভিনন্দনজ্ঞাপক ফ্লেক্সের পাশে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও জলপারইগুড়ি পুরসভার চেয়ারম্যান মোহন ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের বেশি শ্রম দিয়ে পঠন-পাঠন করা দরকার। কোনও সংস্থায় যুক্ত হলে বিদ্যায় বিস্তৃতি ঘটবে। কর্মপ্রার্থীরা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

মানসিক স্বাস্থ্য দিবস
১৯৫৪: অভিনেত্রী রেখার জন্ম
১৯৬৪: অভিনেতা ও পরিচালক গুরু দত্তের মৃত্যু
২০১১: গজল গায়ক জগজিৎ সিংয়ের মৃত্যু  



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৪ টাকা ৭২.০৪ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৩৯ টাকা ৮৮.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৬.৬০ টাকা ৭৯.৫৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৭৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৭৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৩৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৮৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,৯৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৩ আশ্বিন ১৪২৬, ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৩৫/৪৩ রাত্রি ৭/৫২। শতভিষা ৫১/৩৮ রাত্রি ২/১৪। সূ উ ৫/৩৪/৩৩, অ ৫/১৩/১৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/৮ মধ্যে পুনঃ ১/২২ গতে ২/৫৪ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩ গতে ৯/২১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৮ গতে ৩/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৫ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/১৯ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/২৪ গতে ১২/৫৭ মধ্যে। 
২২ আশ্বিন ১৪২৬, ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৩৫/৪৭/৪২ রাত্রি ৭/৫৩/৫২। শতভিষা ৫৪/১৮/১৬ রাত্রি ৩/১৮/৫, সূ উ ৫/৩৪/৪৭, অ ৫/১৪/৪৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/১৩ মধ্যে ও ১/১৩ গতে ২/৪৪ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৫০ গতে ৯/১৩ মধ্যে ও ১১/৪৬ গতে ৩/১৫ মধ্যে ও ৪/১ গতে ৫/৩৫ মধ্যে, বারবেলা ৩/৪৭/১৭ গতে ৫/১৪/৪৭ মধ্যে, কালবেলা ২/১৯/৪৭ গতে ৩/৪৭/১৭ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/২৪/৪৭ গতে ১২/৫৭/১৭ মধ্যে। 
মোসলেম: ১০ শফর 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
আজকের রাশিফল  
মেষ: ব্যবসায় যুক্ত হলে ভালো। বৃষ: বিবাহের সম্ভাবনা আছে। মিথুন: ব্যবসায় বেশি বিনিয়োগ ...বিশদ

07:11:04 PM

ইতিহাসে আজকের দিনে 
মানসিক স্বাস্থ্য দিবস১৯৫৪: অভিনেত্রী রেখার জন্ম১৯৬৪: অভিনেতা ও পরিচালক গুরু ...বিশদ

07:03:20 PM

২০১৮ সালে সাহিত্যে নোবেল পাচ্ছেন পোল্যান্ডের ওলগা তোকারজুক এবং ২০১৯ সালে সাহিত্যে নোবেল পাবেন অস্ট্রিয়ার পিটার হ্যান্ডকা

05:15:00 PM

দ্বিতীয় টেস্ট, প্রথম দিন: ভারত ২৭৩/৩ 

04:43:00 PM

সিউড়ি বাজারপাড়ায় পরিত্যক্ত দোতলা বাড়ির একাংশ ভেঙে পড়ল, চাঞ্চল্য 

04:27:12 PM

মুর্শিদাবাদে গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী বৃদ্ধ 
রোগ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে গায়ে আগুন লাগিয়ে ...বিশদ

03:34:00 PM