Bartaman Patrika
আমরা মেয়েরা
 

চণ্ডীতে দেবী দুর্গার প্রকাশময়ী মূর্তি 

দেবী বন্দনার সামগ্রিক বিকাশটি নিহিত আছে শ্রীশ্রীচণ্ডীতে। প্রথম, মধ্যম ও উত্তর ভেদে আদ্যাশক্তি মহামায়া চণ্ডিকা তিন রূপে প্রকাশিতা। গুণ ও কর্ম ভেদে তিনি কখনও মহাকালী, কখনও মহালক্ষ্মী, কখনও বা মহাসরস্বতী রূপে প্রকাশিতা।
সমগ্র পৃথিবী যখন প্রলয় জলে মগ্ন তখন ব্রহ্মপুরুষ ভগবান বিষ্ণু অনন্ত শয়নে যোগনিদ্রায় অভিভূত। তাঁর নাভিকমলে প্রজাপতি ব্রহ্মা সমাসীন। প্রলয়োত্তর পৃথিবীর নতুন সৃষ্টির ব্যাকুল প্রতীক্ষায় তিনি জাগরিত। হঠাৎ নিদ্রামগ্ন হরির কর্ণমল থেকে উদ্ভূত দুই দানব মধু ও কৈটভ উদ্যত হল ব্রহ্মার সংহারে। নিরুপায় ব্রহ্মা বিষ্ণুর জাগরণের জন্য যোগনিদ্রারূপিণী মহাকালিকার স্তবে নিমগ্ন হলেন। ভগবান বিষ্ণুর নিদ্রাভঙ্গ হল। যুদ্ধ আরম্ভ হল। সেই বলদর্পিত অসুরদ্বয় মহামায়া বিশ্বেশ্বরী ভগবতীর দ্বারা প্রভাবিত হয়ে বিষ্ণুকে আহ্বান করে বর প্রার্থনার জন্য।
মধ্যম চরিত্রে দেবী মহিষাসুরমর্দিনীর রাজসী মূর্তি মহালক্ষ্মী রূপে প্রসিদ্ধা। বলা হয়েছে, দৈত্যরাজ মহিষাসুরের অত্যাচারে ক্লান্ত ও বিধ্বস্ত দেবগণ পদ্মযোনি ব্রহ্মার নেতৃত্বে একত্র হয়ে বিষ্ণু ও শিবের শরণাপন্ন হলেন। দেবতাদের কাছ থেকে এই বিপত্তির কথা শুনে মধুসূদন ও মহাদেব অত্যন্ত ক্রোধান্বিত হলে তাঁদের মুখমণ্ডল হতে এক মহাতেজ নির্গত হতে লাগল। অন্যান্য দেবতার শরীর থেকেও বিপুল তেজরাশি বেরিয়ে এল। এই সম্মিলিত তেজঃপুঞ্জ থেকে আবির্ভূতা হলেন এক ভুবনমোহিনী দিব্য মাতৃমূর্তি। ক্রমে সমস্ত দেবতার পুঞ্জীভূত তেজ থেকে এই মহাদেবীর দেহের অন্যান্য অবয়ব গঠিত হল। তেজরাশিসমুদ্ভবা সেই সংঘশক্তিরূপিণী জ্যোতির্ময়ী মাতৃমূর্তিকে দর্শন করে অমরগণ অত্যন্ত আহ্লাদিত হলেন। তখন প্রত্যেকেই তাঁদের নিজ নিজ অস্ত্র, ভূষণ ও বাহনের দ্বারা সেই মহাবিদ্যা মহামায়াকে সুসজ্জিত করলেন। জগন্মাতার হুঙ্কারে ত্রিজগৎ কম্পমান। সেই ভীষণ যুদ্ধে দেবীর হস্তে সসৈন্যে মহিষাসুর বধ নিধনের পর স্বর্গভ্রষ্ট দেবতাগণকে এই মহাদেবী মহালক্ষ্মী দান করলেন ঐশ্বর্য, বিজয় ও প্রতিষ্ঠা।
উত্তর চরিত্রে দেবী জ্ঞানশক্তি রূপে প্রকাশিতা। এই মহাদেবীর আবির্ভাব মহাসরস্বতী রূপে। ত্রিভুবনের আধাররূপিণী এই মহাশক্তি ধুম্রলোচন, চণ্ড, মুণ্ড, রক্তবীজ সহ শুম্ভ-নিশুম্ভ নামক প্রবল পরাক্রান্ত ভ্রাতৃযুগলকে বিনাশ করেন। পার্বতীর দেহকোষ থেকে এই দেবী সম্ভূতা বলে কৌশিকী নামে তিনি পরিচিতা।
মহিষাসুরের ন্যায় মহাবলশালী শুম্ভ-নিশুম্ভ ও ইন্দ্রাদি দেবগণকে যুদ্ধে পরাজিত করে তাঁদের অধিকার কেড়ে নিলে দেবতারা তখন হিমালয়ে গিয়ে দেবী মহামায়ার স্তব করতে লাগলেন। এমন সময় দেবী পার্বতী উপস্থিত জাহ্নবীর জলে স্নান করার জন্য। দেবগণের সমবেত স্তবে দেবী চতুর্দিক আলোকিত করে জ্যোতির্ময়ীরূপে প্রকাশিতা হলেন। দেবীর ত্রিশূলাঘাতে নিশুম্ভ চলে গেল যমের সদনে। প্রাণপ্রিয় সহোদর নিশুম্ভ ও অপরাপর সৈন্যগণকে বিনষ্ট হতে দেখে শুম্ভ ক্রুদ্ধ হলেন। দেবীর অহংকারকে অযৌক্তিক বললেন। দেবী তখন মাতৃকাগণের শক্তি তিনি নিজ শরীরে অবলুপ্ত করে নিলেন। আবার শুরু হল ঘোরতর যুদ্ধ। দেবী চণ্ডিকা কর্তৃক শূলে বিদ্ধ হয়ে শুম্ভ নিহত হল। দেবতারা আবার হৃত রাজ্যে স্ব স্ব অধিকার গ্রহণপূর্বক পুনঃপ্রতিষ্ঠিত হলেন। গন্ধর্বেরা গান, অপ্সরারা নাচে মেতে গেলেন।
চৈতন্যময় নন্দ 
05th  October, 2019
বিজয়া দশমী 

দশমী তিথিতে সকাল বেলায় নির্ঘণ্ট অনুযায়ী পুরোহিত আচমন ভূতাপসারণ প্রভৃতি করে পঞ্চোপচারে দেবীর পুজো করেন। ওই দিন দেবীকে পান্তাভাত, কচুর শাক (নুন ছাড়া) ভোগ দেওয়া হয়। যাঁরা অন্নভোগ দেন না তাঁরা চিঁড়ে, মুড়কি, খই, বাতাসা, দই প্রভৃতি ভোগ দেন।  
বিশদ

05th  October, 2019
সেকালের পুজো 

সে ছিল এক অন্য কলকাতা— সেখানে কলুপাড়া, ডোমপাড়া, হাঁড়িপাড়া, গয়লাপাড়া, হাতিবাগান, বাদুড়বাগান, চালতাবাগান, হালসীর বাগান— ছিল অঞ্চলের নাম। সেই সাবেক কলকাতাতেও ছিল দুর্গাপুজো। সমাজের ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে প্রতিটি মানুষকে না শামিল করলে সেকালের দুর্গাপুজো পূর্ণতা পেত না। 
বিশদ

05th  October, 2019
মহিলা মৃৎশিল্পী
মনের টানে ঠাকুর গড়েন মালা পাল 

কুমোরটুলির এক জায়গায় বসে সবাই যখন ঠাকুর গড়ত, মুগ্ধ হয়ে দেখত মেয়েটি। আর মনে মনে ভাবত সেও একদিন ঠাকুর গড়বে। সেই মতো মেয়েটির যখন চোদ্দো বছর বয়েস, তখন সে বাবার স্টুডিওতে এসে বাবার সঙ্গে ঠাকুর গড়া শুরু করে।  বিশদ

28th  September, 2019
ম হা ল য়া র মধুর সুর 

মহালয়া মানে পিতৃপক্ষের সমাপ্তি আর দেবীপক্ষের সূচনা। শারদীয়া দুর্গোৎসবের পুণ্যলগ্ন হল মহালয়া। মহালয়ার ভোর মানেই দূরত্ব ছাপিয়ে আসা আলো। প্রত্যেক বাঙালিরই মহালয়া নিয়ে নানা স্মৃতি। আজ এই প্রযুক্তি অধ্যুষিত সময়ে দাঁড়িয়েও এই একটা দিনেই আমবাঙালি রেডিওতে মাতে। আগের রাতে ধুলো ঝেড়ে বের হয় বাবা বা ঠাকুরদার পুরনো রেডিও সেটটি।   বিশদ

28th  September, 2019
পার্লারে পার্লারে পুজোর প্যাকেজ 

পুজোর আগে লাস্ট মিনিটে সাজ-সাজেশনে রয়েছে বিভিন্ন পার্লারের আকর্ষণীয় অফার। পুজোর পাঁচটা দিন তাক লাগিয়ে দিন বন্ধুদের। হয়ে উঠুন পুজোর সেরা সুন্দরী। আর যাঁরা এখনও পার্লারমুখো হননি তাঁরাও করে নিন মেকওভার।  বিশদ

28th  September, 2019
মহাপূজার আঙিনায় হোম 

যজ্ঞানুষ্ঠান বৈদিক কর্মের অঙ্গ। অগ্নিকে প্রতীকরূপে উপাসনার প্রথা আদিকাল থেকে। এর উৎপত্তিস্থল ঋগ্বেদ। দেবতার অভিলাষে হব্যাদি যে কোনও অর্ঘ্যদান করতে গেলে অগ্নিতেই তা উৎসর্গ করতে হয়।   বিশদ

28th  September, 2019
আবাসনের পুজোয় মেয়েরাই সর্বেসর্বা 

শহর আর শহরতলি জুড়ে গড়ে উঠছে অসংখ্য আবাসন। সেখানে পুজোর ব্যবস্থাপনায় অগ্রণী ভূমিকা মেয়েদেরই। কয়েকটি আবাসনের মহিলা মহলের সঙ্গে কথা বলে লিখেছেন সোমা লাহিড়ী।  বিশদ

28th  September, 2019
মহাষ্টমী পুজো

 মহাষ্টমী পুজোর দিন সকালে পুরোহিত আচমন করে মায়ের পুজো শুরু করেন। আসনশুদ্ধি, ভূতশুদ্ধি, মাতৃকান্যাস, প্রাণায়াম, পীঠন্যাস সমাপ্ত করে মাকে দন্তকাষ্ঠ নিবেদন করেন। তারপর শুরু হয় মায়ের মহাস্নান।
বিশদ

21st  September, 2019
মহাপূজার আঙিনায়
বলিদান

 মহাপূজার অন্যতম অঙ্গ বলিদান। বলি শব্দের অর্থ উপহার। দেবীভাগবতের মতে, একমাত্র দেবী পূজাতেই বলিদান সম্মত। অন্যত্র নয়। কারণ ব্রহ্মবিদ্যাস্বরূপিণী দেবী আমাদের স্বরূপনিরোধক এই ঘোর জীববুদ্ধি নাশ করে ব্রহ্মকারা বৃত্তিতে প্রকাশমান হন। তাই মহাদেবী বলিপ্রিয়া।
বিশদ

21st  September, 2019
সেকাল একালের
আগমনী আড্ডা

দুর্গা পুজো মানেই নতুন পোশাক, খাওয়া-দাওয়া, রাত জেগে ঠাকুর দেখা আর নির্ভেজাল আড্ডা। আড্ডা পরিকল্পনাও থাকে নানারকম। আড্ডাবাজ বাঙালির আড্ডার আসর বসে পাড়ার পুজো, বাড়ির পুজো, বা আবাসনের পুজোমণ্ডপে। নব্য প্রজন্মের কেউ বা পছন্দ করে ঘুরে বেড়িয়ে আড্ডা দিতে। বিশদ

21st  September, 2019
মহিলা মৃৎশিল্পী
ঠাকুর গড়েন চায়না পাল

 ছোটবেলায় আঁকতে ভীষণ ভালোবাসতেন চায়না। পেন বা পেন্সিল দিয়ে পাতার পর পাতা ঠাকুর দেবতার ছবি আঁকতেন তিনি। টানা টানা চোখওয়ালা সাবেকি ঠাকুরের মুখ ভরে যেত তাঁর খাতার পাতায়। বাবা যখন ঠাকুর গড়তেন সেটাও হাঁ করে দেখতেন চায়না। বিশদ

21st  September, 2019
উৎসবের ভোজ, ভোজের উৎসব 

ভোরের প্রথম আলোয় শিউলি ফুলের মন মাতানো মিষ্টি গন্ধই শুধু নয়, ভোরের বাতাসেও অকারণ পুলকের স্পন্দন। পাড়ায় পাড়ায় বাঁশ আর কাপড়ের স্তূপ। যেন উৎসবের আর উৎসাহের জোয়ার। মায়ের আগমনী বার্তা বয়ে নিয়ে আসে এইসব খুঁটিনাটির অনুষঙ্গগুলো।   বিশদ

14th  September, 2019
মহিলা মৃৎশিল্পী 

সুস্মিতা রুদ্রপাল মিত্র: এক দশক মানে প্রায় বারো বছর হয়ে গেল সুস্মিতা রুদ্রপাল মিত্র প্রতিমা তৈরি করা শুরু করেছেন। সুস্মিতার বেড়ে ওঠা কুমোরটুলির এক মৃৎশিল্পীর পরিবারে। বাড়িতে বাবা-দাদাদের কাজ দেখতে দেখতে বড় হয়েছেন সুস্মিতা।  বিশদ

14th  September, 2019
মহাসপ্তমী পুজোর রীতি ও আচার 

দুর্গাপুজোর মহাসপ্তমী। এই দিন প্রথমে গৃহকর্তা পুরোহিতকে কাপড় ও নানা দ্রব্য দিয়ে বরণ করে নেবেন। তারপর নবপত্রিকা স্নান। গঙ্গা বা কোনও জলাশয়ে নবপত্রিকাকে স্নান করিয়ে নতুন কাপড় পরিয়ে যথাযথ মন্ত্র উচ্চারণ করে দুর্গামণ্ডপে প্রতিষ্ঠা করা হয়।   বিশদ

14th  September, 2019
একনজরে
জম্মু, ৯ অক্টোবর (পিটিআই): আরও একবার নিয়ন্ত্রণরেখায় সংঘর্ষ বিরতি চুক্তি লঙ্ঘন করে গুলি চালাল পাকিস্তান। বুধবার পুঞ্চের কৃষ্ণঘাঁটি ও বালাকোট সেক্টরে সারারাত ধরে গুলি চালায় পাক সেনা। ভারতীয় সেনা চৌকি লক্ষ্য করে গুলি চালানোর পাশাপাশি তারা সীমান্তবর্তী গ্রামগুলিকেও টার্গেট করে। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: নিজাম প্যালেসে সিবিআই দপ্তরে হঠাৎ হাজির হলেন ম্যাথু স্যামুয়েল। বুধবার সকালে তিনি নিজেই চলে আসেন এখানে। তাঁর দাবি, আইফোনের পাসওয়ার্ড জানতে চেয়েছে কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা। সেই জন্যই তিনি এসেছেন। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দমদম-বাগুইআটি-নারায়ণপুর এলাকার বেশিরভাগ প্রতিমার বিসর্জন হল দশমীতে। সল্টলেকের অনেকগুলো পুজোর বিসর্জন হয়েছে দশমীতেই। এছাড়া বুধবার একাদশীর দিনও বিসর্জন চলেছে। নিউটাউনে অ্যাকশন এরিয়া ১-এ বিসর্জন ঘাট, দমদমের ধোবিঘাট, ভিআইপি রোডের ধারে দেবীঘাটে দিনরাত ছিল চরম ব্যস্ততা।  ...

বিএনএ, জলপাইগুড়ি: জলপাইগুড়ি পান্ডাপাড়া সর্বজনীন দুর্গাপুজো কমিটির মণ্ডপে পাশাপাশি দেখা গিয়েছে দিদি-মোদির ফ্লেক্স। পুজো প্যান্ডেলে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, দেশের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ, বিজেপি’র রাজ্য সভাপতি দিলিপ ঘোষের অভিনন্দনজ্ঞাপক ফ্লেক্সের পাশে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও জলপারইগুড়ি পুরসভার চেয়ারম্যান মোহন ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বিদ্যার্থীদের বেশি শ্রম দিয়ে পঠন-পাঠন করা দরকার। কোনও সংস্থায় যুক্ত হলে বিদ্যায় বিস্তৃতি ঘটবে। কর্মপ্রার্থীরা ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

মানসিক স্বাস্থ্য দিবস
১৯৫৪: অভিনেত্রী রেখার জন্ম
১৯৬৪: অভিনেতা ও পরিচালক গুরু দত্তের মৃত্যু
২০১১: গজল গায়ক জগজিৎ সিংয়ের মৃত্যু  





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৩৪ টাকা ৭২.০৪ টাকা
পাউন্ড ৮৫.৩৯ টাকা ৮৮.৫৪ টাকা
ইউরো ৭৬.৬০ টাকা ৭৯.৫৩ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৭৭৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৭৯০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,৩৪০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৫,৮৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৫,৯৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৩ আশ্বিন ১৪২৬, ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৩৫/৪৩ রাত্রি ৭/৫২। শতভিষা ৫১/৩৮ রাত্রি ২/১৪। সূ উ ৫/৩৪/৩৩, অ ৫/১৩/১৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/৮ মধ্যে পুনঃ ১/২২ গতে ২/৫৪ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩ গতে ৯/২১ মধ্যে পুনঃ ১১/৪৮ গতে ৩/৬ মধ্যে পুনঃ ৩/৫৫ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ২/১৯ গতে অস্তাবধি, কালরাত্রি ১১/২৪ গতে ১২/৫৭ মধ্যে। 
২২ আশ্বিন ১৪২৬, ১০ অক্টোবর ২০১৯, বৃহস্পতিবার, দ্বাদশী ৩৫/৪৭/৪২ রাত্রি ৭/৫৩/৫২। শতভিষা ৫৪/১৮/১৬ রাত্রি ৩/১৮/৫, সূ উ ৫/৩৪/৪৭, অ ৫/১৪/৪৭, অমৃতযোগ দিবা ৭/১৩ মধ্যে ও ১/১৩ গতে ২/৪৪ মধ্যে এবং রাত্রি ৫/৫০ গতে ৯/১৩ মধ্যে ও ১১/৪৬ গতে ৩/১৫ মধ্যে ও ৪/১ গতে ৫/৩৫ মধ্যে, বারবেলা ৩/৪৭/১৭ গতে ৫/১৪/৪৭ মধ্যে, কালবেলা ২/১৯/৪৭ গতে ৩/৪৭/১৭ মধ্যে, কালরাত্রি ১১/২৪/৪৭ গতে ১২/৫৭/১৭ মধ্যে। 
মোসলেম: ১০ শফর 

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
২০১৮ সালে সাহিত্যে নোবেল পাচ্ছেন পোল্যান্ডের ওলগা তোকারজুক এবং ২০১৯ সালে সাহিত্যে নোবেল পাবেন অস্ট্রিয়ার পিটার হ্যান্ডকা

05:15:00 PM

দ্বিতীয় টেস্ট, প্রথম দিন: ভারত ২৭৩/৩ 

04:43:00 PM

সিউড়ি বাজারপাড়ায় পরিত্যক্ত দোতলা বাড়ির একাংশ ভেঙে পড়ল, চাঞ্চল্য 

04:27:12 PM

মুর্শিদাবাদে গায়ে আগুন লাগিয়ে আত্মঘাতী বৃদ্ধ 
রোগ যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে গায়ে আগুন লাগিয়ে ...বিশদ

03:34:00 PM

পাঁশকুড়ায় তৃণমূল নেতা খুনের ঘটনায় গ্রেপ্তার ১ 
পাঁশকুড়ায় তৃণমূল নেতা কুরবান শাহ খুনের ঘটনায় খালেক শেখ নামে ...বিশদ

03:32:26 PM

ফের সংঘর্ষবিরতি লঙ্ঘন পাকিস্তানের, পুঞ্চ সীমান্তে পাক সেনার গোলাগুলি 

01:49:47 PM