বিদেশ

পার্লামেন্ট ত্রিশঙ্কু: ধরাশায়ী ডানপন্থীরা, ফ্রান্সে বাম জোট সরকারের জল্পনা

প্যারিস: কট্টর দক্ষিণপন্থীদের ক্ষমতা দখলের স্বপ্ন ভেস্তে গেল। ফ্রান্সে প্রথম দফার ভোটে অতি দক্ষিণপন্থী জোট ‘ন্যাশনাল র‌্যালি’ এগিয়ে ছিল। দ্বিতীয় দফায় তাদের এক ধাক্কায় তৃতীয় স্থানে পাঠিয়ে প্রথম স্থানে উঠে এল বামজোট ‘নিউ পপুলার ফ্রন্ট’। ইউরোপীয় ইউনিয়নের দ্বিতীয় বৃহত্তম অর্থনীতির দেশ ফ্রান্সে বাম ও সহযোগী শক্তিগুলির চমকপ্রদ উত্থান এবং কট্টর দক্ষিণপন্থীদের পিছিয়ে পড়া আগামী দিনে বিশ্ব রাজনীতির মঞ্চে গুরুত্বপূর্ণ হয়ে উঠবে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। ত্রিশঙ্কু পার্লামেন্টে শেষ পর্যন্ত প্রধানমন্ত্রী কে হন, তা নিয়েও জল্পনা ক্রমশ বাড়ছে। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তী সময়ে ফ্রান্সে কোনও জোট সরকার হয়নি। এবার তেমন কিছু হয় কি না, সেটাই দেখার। প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁ ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন কট্টর বামেদের সঙ্গে তিনি জোট গড়তে পারবেন না। সেক্ষেত্রে সোশ্যালিস্টদের মতো দলের সঙ্গে তাঁর মধ্যপন্থী দলের জোট হতে পারে। কিন্তু সেখানে সমস্যা একটাই বাম জোট ভেঙে যাবে। আর কোনও জোটই না হলে ম্যাক্রঁ রাজনৈতিক দল বহির্ভূত ব্যক্তিদের দিয়ে সরকার তৈরি করতে পারেন। প্রধানমন্ত্রী ঠিক করার জন্য কোনও নির্দিষ্ট সময়সীমা নেই। আবার বৃহত্তম দলের নেতাকেই সরকার গড়ার জন্য ডাকতে হবে এমন নিয়মও নেই। অর্থাৎ, পুরো বিষয়টি নিয়ে ধোঁয়াশা থাকবেই।
সোমবার নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা হতেই প্যারিস সহ ফ্রান্সের বিভিন্ন জায়গায় উচ্ছ্বাসে মাতেন পপুলার ফ্রন্টের সমর্থকরা। প্রধানমন্ত্রী গ্যাব্রিয়েল অট্টল ইতিমধ্যে তাঁর পদত্যাগপত্র প্রেসিডেন্ট ইমানুয়েল ম্যাক্রঁর কাছে পাঠিয়ে দিয়েছেন বলে খবর। তবে প্রেসিডেন্ট এখনও তা গ্রহণ করেননি। আর সপ্তাহ তিনেক পর প্যারিসে শুরু হচ্ছে বিশ্বের বৃহত্তম ক্রীড়া প্রতিযোগিতার আসর, ওলিম্পিক্স। তার আগে ফ্রান্সে যে রাজনৈতিক ডামাডোল তৈরি হল, সেদিকে কৌতূহলী নজর রাখছে সব পক্ষ। এবারের ভোটে প্যালেস্তাইনে ইজরায়েলের আগ্রাসনের বিরুদ্ধে জোরালো বক্তব্য রেখেছিল বামপন্থীরা। সেই সঙ্গে সরকারের সাম্প্রতিক পেনশন বিল বাতিল, উচ্চবিত্তদের উপর বাড়তি কর চাপানো সহ বেশ কিছু অর্থনৈতিক প্রশ্নে ভোটে লড়েছিল তারা। ফলাফলের পর এসব  বিষয়ে ফ্রান্সের সরকারের মনোভাবে কিছু বদলও আসতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।    
ফ্রান্সের নির্বাচনে ৫৭৭টি আসনে এবার মূলত লড়াই হয়েছিল প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর মধ্যপন্থী জোট, মেরি লা পেনের অতি দক্ষিণপন্থী জোট ‘ন্যাশনাল র‌্যালি’ এবং বামপন্থী জোট ‘নিউ পপুলার ফ্রন্টে’র মধ্যে। সোমবার প্রকাশিত ফলাফলে দেখা যাচ্ছে, ১৮০টির বেশি আসন পেয়ে সবচেয়ে এগিয়ে রয়েছে পপুলার ফ্রন্ট। এই জোটে রয়েছে অতিবাম হিসেবে পরিচিত আনবোড পার্টি। তারাই সবচেয়ে বেশি আসনে জিতেছে। এছাড়া সমাজতান্ত্রিক দল, ফ্রান্সের কমিউনিস্ট পার্টি সহ একাধিক দল রয়েছে। ১৬০টির বেশি আসনে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে প্রেসিডেন্ট ম্যাক্রঁর মধ্যপন্থী জোট। প্রথম দফার ভোটে এগিয়ে থেকে যারা ক্ষমতা পাওয়ার কথা ভাবছিল, লা পেনের নেতৃত্বাধীন সেই জোট ১৪০টির বেশি আসন পেয়ে তৃতীয় স্থানে রয়েছে। অর্থাৎ, সরকার গঠনের জন্য প্রয়োজনীয় সংখ্যা ২৮৯-র থেকে অনেকটাই পিছনে রয়েছে সব পক্ষ। তবে অতি দক্ষিণপন্থীদের ক্ষমতা থেকে দূরে রাখার বিষয়টি ইতিমধ্যেই নিশ্চিত বলে মনে করা হচ্ছে।
15d ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

চল্লিশের ঊর্ধ্ব বয়সিরা সতর্ক হন, রোগ বৃদ্ধি হতে পারে। অর্থ ও কর্ম যোগ শুভ। পরিশ্রম...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.১৭ টাকা৮৪.২৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৯৩ টাকা১০৯.৬০ টাকা
ইউরো৯০.০০ টাকা৯২.৪৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা