বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
চারুপমা
 

শারদ সজ্জা

ঢাকে পড়ল কাঠি। পুজো এসে গেল, চারূপমার শ্যুটে সাজগোজও হল জমিয়ে। মহাসপ্তমীর শুভ লগ্নে কথায় কথায় পুজোর অভিজ্ঞতা ভাগ করে নিলেন অভিনেত্রী কনীনিকা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুনলেন অন্বেষা দত্ত। 

•আজ সপ্তমী। এবারের পুজো নিয়ে বিশেষ অনুভূতি বা ভাবনা? 
•• এখন আমার জীবনে প্রত্যেক বছরই পুজোর সংজ্ঞা বদলে যাচ্ছে। বড় হয়ে ছোটবেলার পুজোগুলোতে ফিরে যাই। ওই পুজোগুলো আমার কাছে এখনও স্পেশাল। আমি সবসময় এটা বলি...তখন হয়তো অনেক কম পেয়েছি। কিন্তু সেই কম পাওয়াতেই আনন্দ ছিল। এখন অনেক কিছু পাই, কিন্তু সেই আনন্দটা যেন পাই না। মন ভরে আকাশে পেঁজা তুলো দেখতাম, কাশফুল কতটা দেখতে পেতাম মনে পড়ে না, এত বাইরে যাওয়ার চল ছিল না তখন...। ছবিতে দেখতাম। ‘পথের পাঁচালী’ দেখে আবেগটা মনের মধ্যে ঢুকে গিয়েছিল। কাশফুলের গন্ধ, পুজোর নতুন জামার গন্ধ। আকাশে ঘুড়ি ওড়া শুরু হলেই বিশ্বকর্মা পুজো। তার মানেই পুজো এসে গেল। বর্ধমানের গ্রামের বাড়িতে পুজো দেখেছি। গোরুর গাড়িতে আত্মীয়স্বজন আসছে, ঠাম্মা পালকিতে যাচ্ছে। আমরা রেললাইনের পাশ দিয়ে দৌড়চ্ছি। মাটির নিকানো বাড়ি। একচালার মা দুর্গা।  সন্ধিপুজো আমার খুব প্রিয়। ওই সন্ধিক্ষণে চণ্ড ও মুণ্ড বধ হয়েছিল। মনে হয় এভাবেই সব নেতির ভাবনা কেটে যাবে। একবার গ্রামে ব্যান্ড এল। আমরা খুব নাচলাম! পুজোয় সন্ধেয় লণ্ঠনের আলোয় গল্প শোনা হতো। পুজোর পরে নাটক হতো। আমরাই করতাম। এ সময়ের পুজো অনেক পরিণত। এবার দীর্ঘ পাঁচ বছর পরে পুজোয় কলকাতায় থাকছি। সেই আনন্দটা আছে। সেইমতো দিনগুলো সাজানোর চেষ্টা করছি। অসম্ভব আনন্দের অনুভূতি। কিয়াকে (মেয়ে) নিয়ে সময় কাটাব। পরিবারের সঙ্গে থাকব। মা দুর্গার কাছে বসব। এই চারটে দিনের সেই আনন্দ আবার বেশ বুঝতে পারছি।  
•পুজো সংক্রান্ত অন্য কোনও বিশেষ স্মৃতি?
•• আমি ক্লাস সিক্সে পড়তে একবার থিয়েটার করতে বম্বে গিয়েছিলাম। সেইবারের পুজোটা একেবারে পছন্দের পুজো ছিল না যদিও। তার কারণ কলকাতা ছেড়ে যেতে হয়েছিল। তখনই মনে মনে ঠিক করে নিয়েছিলাম পুজোর সময় শহর ছেড়ে কোথাও যাব না। আর পুজোয় আমার মাকে ভারি সুন্দর লাগত দেখতে। লাল পাড় সাদা শাড়ি। সিঁদুর খেলায় মা নজরকাড়া। আমরা বিসর্জনে গেলে রসগোল্লা পেতাম! সেও মজার। 
• মেয়ে কিয়াকে নিয়ে পুজো দেখার অবকাশ হয়? ও কতটা বুঝছে?  
•• কিয়া এখন দুর্গা মাকে ‘দুগরা মা’ বলতে শিখেছে! এখনও ঠাকুরের সঙ্গে ওর সেভাবে আলাপ হয়নি। এবার ইচ্ছে আছে, একটা-দুটো ঠাকুর ওকে দেখাব। পুজোর মজা কাকে বলে, পুজোয় আসলে কী হয়— এগুলো তো ওর শেখার পালা। আশা করি সেটা ওকে বোঝাতে পারব। 
• কতটা বদলেছে পুজোর আমেজ? 
•• পুজো একেবারেই বদলে গিয়েছে। আমাদের ছোটবেলার সহজ সরল পুজো এখন ভীষণ বাণিজ্যিক। সব ক্ষেত্রেই বাণিজ্যটা এখন প্রাধান্য পায়। তবে এর একটা ভালো দিক তো আছেই। অনেক শিল্পী কাজ করার সুযোগ পাচ্ছেন। অনেক এমন শিল্পী আছেন যাঁরা সারা বছর অপেক্ষা করে থাকেন, এই সময়ে প্যান্ডেলের কাজ করবেন বলে। এখন থিম পুজো অনুযায়ী গানও বাঁধা হচ্ছে। তবু এখনও যেন সেই সাধারণ ফেলে আসা পুজোকেই মিস করি। সেখানে ভক্তি-শ্রদ্ধা একসঙ্গে মিশে যাওয়া ছিল। প্রতিযোগিতা থাকলেও এত বাড়াবাড়ি ছিল না। পুজোমণ্ডপের দুষ্টুমি, পিএনপিসি এগুলো ফিরে পাওয়া এখন বোধহয় দুষ্কর। আর এবার পুজোর পাশে অন্য একটা দুনিয়ার ছবি দেখছি প্রতিনিয়ত। যুদ্ধের ছবি। শিশু থেকে সব সাধারণ মানুষ, নির্বিচারে মেরে ফেলা হচ্ছে। এগুলো কবে শেষ হবে? পুজোর মধ্যে দিয়ে শান্তি ফিরুক।  
• পুজোর চার-পাঁচ দিনের জন্য সাজের লিস্ট?
•• অনেক আগে থেকেই সাজার প্ল্যান হয়ে যায়। বাঙালির সবচেয়ে বড় উৎসব বলে কথা। সাজব তো বটেই। যদিও এবার আমার সেভাবে কিছু তৈরি করা হয়নি। গত কয়েক বছরে অভ্যেসটা খানিক চলে গিয়েছিল। শেষ মুহূর্তে এখন ম্যানেজ করার চেষ্টা করছি। মেয়ের জন্য শপিং করে ফেলেছি। ও বড় হচ্ছে আস্তে আস্তে। ওকে সুন্দর করে সাজাতে ভালো লাগে। আর নিজের ক্ষেত্রে চার-পাঁচ দিন ঠিক ম্যানেজ করে সেজে বেরিয়ে পড়ব ঠিক করেছি। 
• বাঙালি মেয়েদের সাজগোজ নিয়ে কিছু টিপস?
•• এখন সাজগোজও বদলেছে। সোশ্যাল মিডিয়ার জন্য অনেকে অনেক কিছু আগে থেকেই জানে। অনেক স্মার্ট এখনকার প্রজন্ম। আমাদের কিছু বলতেই হবে না! এখন সবাই ফ্যাশনেবল। সবাই বেশ সুন্দর করে সাজে। খুব ভালো লাগে সবাইকে দেখতে শাড়িতে। 
• পুজোয় প্রেম। এ বিষয়টা কীভাবে দেখো?
•• পুজোয় প্রেম করার সাহস আমার কোনওদিনই ছিল না। কিন্তু আমার মনে হতো, পুজোয় প্রেম ব্যাপারটা বেশ ইন্টারেস্টিং। আমি অনেককে দেখেছি পুজোয় প্রেমে পড়তে, আবার বিজয়ার পরে সে প্রেম ভেঙেও গিয়েছে! ম্যাডক্স স্কোয়ার ঘুরে আড্ডা দিয়ে বড় হয়েছি। সেখানেও অনেক প্রেম হতে দেখেছি। বেশ ভালোই লাগত। ছেলেরাও এইসময় বেশ সাজগোজ করে। যদিও আমার সবাইকে দেখতে কেমন একরকম লাগত! তাই পুজোয় প্রেমটা আর হয়ে ওঠেনি। মেয়েরা মায়ের শাড়ি পরে বড় হওয়ার একটা চেষ্টায় থাকে। হাই হিলের সঙ্গে শাড়ি, দারুণ ব্যাপার। পুজোয় প্রেম ভালো, তবে আমার কাছে ওটা দূর থেকেই ভালো। 

21st     October,   2023
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ