চারুপমা

রকমারি ওড়না

জেনে নিন ওড়না বা দোপাট্টায় কী ধরনের ট্রেন্ড চলছে এখন। 

ভারতীয় মহিলাদের পোশাকের সঙ্গে ওড়না নেওয়ার রীতি নাকি সিন্ধু সভ্যতার যুগেও বহাল ছিল। সেই সময় ঋষিরা একে উত্তরীয় বলতেন। ক্রমশ তা-ই একটু বদলে ওড়নার রূপ নিয়েছে। 

ওড়নায় সুতোর কাজ
এহেন ওড়নার আবার নানা রূপ। কোথাও তাতে সুতোর কাজের প্রাধান্য, কোথাও বা প্রিন্টটুকুই উল্লেখযোগ্য। আবার কখনও ওড়নার সারা গায়ে কাজ না করে স্রেফ পাড়ের কাজেই তা অনন্য। পাঞ্জাবের বিখ্যাত সুতোর কাজ ফুলকারি, এখন ওড়নায় রীতিমতো হিট, জানালেন পাঞ্জাব এম্পোরিয়ামের বিক্রেতা জোনাকি সেন। ফুলকারি হল ফুলের নকশা। একরঙা কাপড়ে রঙিন সুতো বা উল দিয়ে বোনা হয় এই ডিজাইন। ফুল, পাতা, কলকা এই ধরনের নকশাই থাকে ফুলকারি কাজে। সুতোর কাজের মধ্যে কাঁথা, গুজরাতি, আড়ি ইত্যাদিও জনপ্রিয়। তবে কাঁথা বা গুজরাতি স্টিচে ভরাট কাজের চাহিদা থাকলেও আড়ি কাজের ক্ষেত্রে পাড়ে ভরাট নকশাই বেশি চাইছে অল্পবয়সিরা। 

প্রিন্টের নানারকম
প্রিন্ট একটা এমনই জিনিস যা সবকিছুর সঙ্গেই মানিয়ে যায়, বললেন ডিজাইনার মহুয়া রায়। কটন সিল্ক, র‌্য সিল্ক, তসর ইত্যাদি কামিজের সঙ্গে একই ফ‌্যাব্রিকের প্রিন্টেড ওড়না দারুণ লাগে। মলমল, সুতি, সিল্ক, তসর যে কোনও কাপড়েই উজ্জ্বল বা হালকা প্রিন্ট করানো সম্ভব। অনেক সময় প্রিন্ট এবং সেলাইয়ের মিলমিশও দেখা যায় ওড়নায়। কখনও বা প্রিন্টের সঙ্গে সিকুইন বা চুমকির কাজও দেখা যায়। 

ওড়নায় বাঁধনির কাজ
টাই অ্যান্ড ডাই বা বাঁধনির নকশা ওড়নায় খুবই জনপ্রিয়। যে কোনও একরঙা কামিজের সঙ্গেই এই ধরনের ওড়না মানানসই। একটু উজ্জ্বল রঙের ওড়নাগুলোয় সাধারণত সাদা বাঁধনির কাজ থাকে। বেগুনি, গাঢ় গোলাপি, সবুজ, হলুদ বা লাল রঙের বাঁধনির ওড়নার সিল্ক, তসর, সুতি সবরকম কামিজের সঙ্গেই মানানসই। শুধুই কুর্তা বা কামিজের সঙ্গেই নয়, ঘাগরা চোলির সঙ্গেও এই ধরনের ওড়না খুব মানানসই।

অর্গ্যাঞ্জার হালকা ফ্যাব্রিক
মেঘলা দিনে একটু অন্যরমক সাজতে ইচ্ছে হলে আপনার জন্য চাই হালকা অর্গ্যাঞ্জার ওড়না। এই ধরনের ওড়নায় রংবেরঙের ফ্লোরাল প্রিন্ট সবচেয়ে মানানসই। এই ফ্যাব্রিকের ওড়নার রং সাধারণত খুবই হালকা হয়। পেস্তা, হালকা গোলাপি, আকাশি নীল ‌রঙের উপর গাঢ় কমলা, লাল, খয়েরি, বাদামি, পেঁয়াজি রঙের ফুলেল নকশায় উজ্জ্বল এই ওড়নাগুলো। তবে এই ধরনের ওড়না একদমই রোজকার পরার জন্য। সঙ্গে অ্যাক্সেসরি হিসেবে সিলভার অক্সিডাইজড গয়না বা স্টোন জুয়েলারি ব্যবহার করতে পারেন। 

সাধারণ অনুষ্ঠান বা রোজকার পরার জন্য
কলমকারি, চান্দেরি, শিফন ইত্যাদি ওড়না রয়েছে রোজকার জন্য। এই ধরনের ওড়নায় সাধারণত প্রিন্টই বেশি চোখে পড়ে। কলমকারি প্রিন্টের ওড়না একটু গাঢ় একরঙা কামিজের সঙ্গে ভালো লাগে। আবার চান্দেরি ওড়না যে কোনও কামিজের সঙ্গেই চলে যায়। দৈনন্দিন অফিস লুকের সঙ্গে এই ধরনের ওড়না বিশেষ মানানসই। চান্দেরির ক্ষেত্রে একটা বৈচিত্র্য লক্ষ করা যায়, পাড়ের বৈচিত্র্য। অনেক সময় সরু গোল্ডেন বা সিলভার পাড় থাকে চান্দেরি ওড়নায়। সেক্ষেত্রে পাড়ের সঙ্গে মানানসই প্রিন্ট করা হয় ওড়নায়। শিফনের ওড়না নেহাতই রোজকার পরার। সুতির সালোয়ার কুর্তার সঙ্গে এই ধরনের ওড়না নেওয়া যায়। এগুলো একরঙা হতে পারে অথবা চওড়া টাই অ্যান্ড ডাই ডিজাইন থাকতে পারে।

বেনারসি ওড়না
বিয়েবাড়ির লুক তৈরি করতে চাইলে এই ধরনের ওড়নার জুড়ি মেলা ভার। সিল্ক বা তসরের একরঙা কামিজের সঙ্গে এই ধরনের ওড়না একেবারে লুক বদলে দেবে। জমকালো ঘাগরা বা প্লেন ব্লাউজের সঙ্গেও এই ওড়না নেওয়া যায়। বিয়েবাড়ির পক্ষে আদর্শ এই সাজ। 
লাল, মেরুন, ম্যাজেন্টা, বেগুনি ইত্যাদি সিল্ক বা র‌্য সিল্কের কাপড়ের উপর জরির কলকা, ফুল, বুটি বা জরির মীনাকারি অথবা জালের নকশায় অনবদ্য এই ওড়নাগুলো। সোনালি, রুপোলি তো বটেই, এখন এসেছে কপার জরির কাজ। সঙ্গে লাল, নীল মীনাকারি নকশায় অপূর্ব দেখতে লাগে এই ওড়না।
14d ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

গুরুজনের থেকে অর্থকড়ি লাভ হতে পারে। স্বার্থান্বেষী আত্মীয়-স্বজনের সঙ্গে দূরত্ব রেখে চলুন। মনে চাঞ্চল্য।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.২৩ টাকা৮৪.৩২ টাকা
পাউন্ড১০৬.৮৮ টাকা১০৯.৫৬ টাকা
ইউরো৯০.০২ টাকা৯২.৪৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা