বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
খেলা
 

শেষলগ্নের গোলে হার ইস্ট বেঙ্গলের
 

জামশেদপুর-২       :    ইস্ট বেঙ্গল- ১
(চিকাওয়া, মানজোরো)           (নন্দ)

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: এক গোলের লিড কখনওই নিরাপদ নয়। ফুটবলের এই আপ্তবাক্য বৃহস্পতিবার হাড়ে হাড়ে টের পেল ইস্ট বেঙ্গল। অ্যাওয়ে ম্যাচে জামশেদপুরের বিরুদ্ধে প্রথমার্ধে দলকে এগিয়ে দিয়েছিলেন নন্দ কুমার। কিন্তু বিরতির পরে ব্যবধান বাড়াতে ব্যর্থ কুয়াদ্রাত-ব্রিগেড। আর সেই সুযোগে দু’টি গোল দিয়ে ম্যাচ পকেটে পুরল খালিদ জামিলের দল। ১৭ ম্যাচে ২০ পয়েন্ট পেয়ে তারা এখন লিগ তালিকার ষষ্ঠ স্থানে। আর ১৫ ম্যাচে ১৫ পয়েন্ট সংগ্রহ করে অষ্টম স্থানে ইস্ট বেঙ্গল। এদিনের হারে প্রথম ছ’টি দলের মধ্যে থাকার সম্ভাবনা বেশ কিছুটা কমল ক্লেটনদের। 
একমাস আগেই খালিদ-ব্রিগেডকে হারিয়ে সুপার কাপ ফাইনালের টিকিট পায় ইস্ট বেঙ্গল। এদিন তার মধুর প্রতিশোধ নিলেন খালিদ জামিল।  ট্রান্সফার উইন্ডোতে সব দল নিজেদের গুছিয়ে নিয়েছে। ব্যতিক্রম ইস্ট বেঙ্গল। বোরহা ও সিভেরিওর পরিবর্তে জামাই আদর করে আনা হয়েছে ব্রাউন ও ভিক্টর ভাসকুয়েজকে। পার্থক্য গড়ার বদলে তাঁরা নিজেদের লুকিয়ে রাখতে ব্যস্ত। 
অ্যাওয়ে ম্যাচে ঘর গুছিয়ে প্রতি-আক্রমণের ভাবনা ছিল কুয়াদ্রাতের। কিন্তু ক্রেসপোর অভাবে ইস্ট বেঙ্গল মাঝমাঠের বাঁধুনি উধাও। তা অনুমান করেই প্রেসিং ফুটবলের রাস্তায় হাঁটেন খালিদ। বড় চেহারার ডিফেন্ডার এলসিনহোকে সেন্ট্রাল মিডফিল্ডার করে চমক দিলেন তিনি। প্রথম কুড়ি মিনিট প্রতিপক্ষের পরের পর আক্রমণে দিশাহারা কুয়াদ্রাত-ব্রিগেড। ম্যাচের পাঁচ মিনিটে পেনাল্টি পেতেই পারত জামশেদপুর। ইমরানকে আটকাতে ফাউল করেন হিজাজি। তবে স্পটকিকের আবেদনে সাড়া দেননি রেফারি। এই পর্বে ইমরান, মানজোরো, চিমা ও সিভেরিওর চতুর্ভুজ আক্রমণের রোলার চালালেও লক্ষ্যভেদে ব্যর্থ। পুরনো দলের বিরুদ্ধে বারবার বিপজ্জনক দেখাল সিভেরিওকে। এরই মধ্যে ১৭ মিনিটে সহজতম সুযোগ নষ্ট করেন নন্দ কুমার। ফাঁকায় দাঁড়ানো ভিক্টর ভাসকুয়েজকে পাস না বাড়িয়ে বল বাইরে মারেন তিনি। বিরতির ঠিক আগেই অবশ্য পাপস্খলন করেন দক্ষিণী ফুটবলার। ৪৪ মিনিটে ক্লেটন সিলভার শট প্রতিপক্ষ ফুটবলারের গায়ে লেগে দিক পরিবর্তন করে। বল ক্লিয়ার করতে ব্যর্থ হন সেমবই। এক্ষেত্রে আগুয়ান গোলরক্ষক রেহনেশকে পরাস্ত করে জাল কাঁপান নন্দ (১-০)।
দ্বিতীয়ার্ধে ক্লেটনকে উইথড্রন স্ট্রাইকার করে দাবার চালের মতো ভাসকুয়েজকে এগিয়ে দেন কুয়াদ্রাত। এই পর্বে কিছুটা হলেও ম্যাচে ফেরে মশাল বাহিনী। লাল-হলুদের মাঝমাঝে বল ঩ফিড করার ক্ষমতা রয়েছে ভিক্টরের। কিন্তু তাঁর ফিটনেসের অভাব স্পষ্ট। ক্লান্ত স্প্যানিশ মিডিওর পরিবর্তে ব্রাউনকে নামান কুয়াদ্রাত। গুঁতোগুতি ছাড়া তার অবদান শূন্য। ৭৪ মিনিটে নিশুর সেন্টার থেকে বিষ্ণুর হেড পোস্টে ধাক্কা খায়। মিনিট পাঁচেক পরেই ব্যবধান বাড়ানোর নিশ্চিত সুযোগ হারান নাওরেম মহেশ। প্রতিপক্ষ গোলরক্ষককে একা পেয়েও তেকাঠিতে বল রাখতে পারেননি তিনি। এরই খেসারত দিতে হল দলকে। এক মিনিট পরেই দুরন্ত হেডে জামশেদপুরকে সমতায় ফেরান সুপার-সাব চিকাওয়া (১-১)। এই গোলের জন্য দায়ী হিজাজি মাহের। এরপর সংযোজিত সময়ে ফ্রি-কিক থেকে জাল কাঁপিয়ে মশাল নেভালেন মানজোরো (২-১)।
অ্যাওয়ে ম্যাচে লিড নিয়েও দল হারায় হতাশ ইস্ট বেঙ্গল কোচ কার্লেস কুয়াদ্রাত। ম্যাচ শেষে তিনি বলেন, ‘নিজেদের ব্যর্থতায় প্রতিপক্ষকে এই জয় উপহার দিলাম। অনেক আগেই ম্যাচ পকেটে পুরে নেওয়া উচিত ছিল। তবে সুযোগ পেয়েও ব্যবধান বাড়াতে ব্যর্থ ছেলেরা। বরং শেষলগ্নে একের বিরুদ্ধে তিন অ্যাডভান্টেজেও প্রতিপক্ষকে ফ্রি-কিক উপহার দিল ডিফেন্ডাররা।’
ইস্ট বেঙ্গল: গিল, রাকিপ, পান্টিক, হিজাজি, নিশু (লালচুংনুঙ্গা), শৌভিক, অজয় (বিষ্ণু), নন্দ, মহেশ (সায়ন), ভাসকুয়েজ (ব্রাউন) ও ক্লেটন।

23rd     February,   2024
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ