Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

সাধু সাবধান 

করোনা দানবের তাণ্ডব চলছে বিশ্বজুড়ে। লাফিয়ে বাড়ছে আক্রান্তের সংখ্যা। মৃত্যু-মিছিল চলছে। এসময়ে এতটুকু গাফিলতি, নজরদারির অভাব বিপদ বাড়াতে পারে। যার জ্বলন্ত প্রমাণ রাজধানী দিল্লির ধর্মীয় সম্মেলনের ঘটনা। বলা যায় দেশে করোনা সংক্রমণের কেন্দ্র হয়ে উঠতে পারে দিল্লি। এই পরিস্থিতিতে কী করে বিপুল সংখ্যক জমায়েতের মাধ্যমে নিজামুদ্দিনে ধর্মীয় অনুষ্ঠানের আয়োজন হল, তা নিয়ে উঠছে প্রশ্ন। চূড়ান্ত গাফিলতি ও নজরদারির অভাব যে এক্ষেত্রে ছিলই, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। বিপদের এই দিনে দোষারোপ করে আকচা-আকচি করার সময় এটা নয়। তবে পর্যটক ভিসার শর্ত ভেঙে ওই ধর্মীয় সভায় যোগ দেওয়া বিদেশিদের উপর সরকারি নজরদারি যে যথেষ্ট ছিল না, তা স্পষ্ট। এর দায় অস্বীকার করতে পারে না দিল্লি প্রশাসন ও সেখানকার পুলিস। দিল্লি পুলিস আবার স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের অধীন। তাই এক্ষেত্রে শুধু ভর্ৎসনা যথেষ্ট নয়। দেশের এই জটিল পরিস্থিতিতে সতর্কতা অবলম্বনের ক্ষেত্রে এমন মারাত্মক গাফিলতিকে অপরাধ হিসেবে ধরা হলে কি খুব ভুল হবে? এমন পরিস্থিতিতে যাঁরা জমায়েত বা সমাবেশ করছেন, তার উদ্দেশ্য ধর্মীয় হোক বা অন্য কিছু, তাঁদেরও ভাবা দরকার ওই দায়িত্বজ্ঞানহীনের মতো আচরণ দেশের মানুষের বিপদ বাড়াবে। তাই এখন যে যার ধর্ম পালন করুন নিজ নিজ বাড়িতে, সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে। ভুলবেন না, আমাদের মূল ধর্ম কিন্তু মানবতা।
করোনার উৎপত্তি কোথায়, কীভাবে ছড়িয়ে পড়ছে, আক্রান্ত কত, মৃত্যু-মিছিলে নতুন কত সংখ্যা যোগ হল—এসব তথ্য পরিসংখ্যান নিয়ে যত আলোচনা বিশ্লেষণ হচ্ছে, আমরা সত্যি কি ততটা সচেতনও থাকছি? এতদিনে মানুষ জেনে গিয়েছে, মাস্ক-স্যানিটাইজার ব্যবহারের পাশাপাশি আর কী কী করণীয়। কী করলে করোনা সংক্রমণ ঠেকিয়ে মানুষ বাঁচতে পারে, তা স্পষ্ট করে দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ থেকে সরকার সব পক্ষই। এই ভাইরাসের সম্ভাব্য সংক্রমণ ঠেকাতে দিনরাত এক করে দিয়েছে কেন্দ্র-রাজ্যের সরকার এবং তাদের সৈনিকরা। হয়েছে লকডাউন। বারবার বলা হচ্ছে অপ্রয়োজনে বাড়ি থেকে না বেরতে। কারণ এটাই করোনা মোকাবিলার সর্বশ্রেষ্ঠ দাওয়াই। দুর্ভাগ্য যে, এখনও দেশ ও রাজ্যের বেশ কিছু মানুষ বেপরোয়া। অপ্রয়োজনে তাঁরা ঘোরাঘুরি করছেন, আড্ডা জমাচ্ছেন আর সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটে অহেতুক গুজব রটিয়ে পরিস্থিতি জটিল করে তুলছেন। এসব বন্ধ হওয়া দরকার। প্রয়োজনে সরকারকে আরও কঠোর হতে হবে। কারণ এই ভাইরাস সংক্রমণের ক্ষেত্রে কিছু মানুষের ভুলের প্রায়শ্চিত্ত কিন্তু সবাইকেই করতে হচ্ছে। প্রাথমিক পর্যায়ে করোনাকে তুচ্ছ-তাচ্ছিল্য করার ফল ভুগছে পশ্চিম দুনিয়ার বেশ কয়েকটি দেশ। এই ভুল আমরা যেন না করি।
সরকারের বীজমন্ত্র একটাই। আপনি বাড়িতে থাকুন। সমস্যার মোকাবিলায় সরকার রয়েছে প্রহরীর মতো। মানুষের জীবনযাত্রায় শিথিলতা এলে আক্রান্তের সংখ্যা বাড়বে। দিল্লির ঘটনাটি ভাবাচ্ছে। সরকার বা প্রশাসন নামক প্রবল ক্ষমতাশালীকেও কড়া চ্যালেঞ্জের মুখে ঠেলে দিয়েছে এই ভাইরাস। তাকে পাল্টা আক্রমণের মহৌষধি না থাকলেও মানুষকে বাঁচানোর যুদ্ধ শুরু হয়েছে এই রাজ্যেও। সেই যুদ্ধে সেনাপতির ভূমিকায় মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর নেতৃত্বে প্রতিদিন নবান্ন থেকে নতুন নতুন ঘোষণা হচ্ছে। সবই হচ্ছে মানুষকে সুস্থ ও সুরক্ষিত রাখতে। প্রায় একই ছবি গোটা দেশে। করোনা ধাক্কা দিয়েছে দেশের অর্থনীতিকে। অথচ, এই সমস্যার মোকাবিলায় প্রচুর অর্থের প্রয়োজন। অভুক্ত মানুষের জন্য চাই ত্রাণ। এই কাজে সরকারকে সহযোগিতা করতে দায়িত্বশীল নাগরিকের একটা ভূমিকা থাকা উচিত। বিপদের ঝুঁকি এড়িয়ে ত্রাণ বিতরণের চেষ্টা করতে হবে সরকারকে। আর বিলাসিতা ছেড়ে মানবিক হয়ে স্বচ্ছল নাগরিকদের সহযোগিতা করতে হবে সরকারের সঙ্গে।
দেশে করোনা ভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃতের সংখ্যা বাড়লেও সরকার জানিয়েছে, এখনও আমরা দ্বিতীয় স্টেজে রয়েছি। এর অর্থ, মারণ ভাইরাস থাবা বসিয়েছে স্থানীয়ভাবে। তবে এর মধ্যেই নিজামুদ্দিনের ঘটনা সামনে আসায় গোষ্ঠী সংক্রমণের সম্ভাবনা উড়িয়ে দিচ্ছেন না চিকিৎসকেরা। এতেই দুশ্চিন্তা বাড়ছে। নরেন্দ্র মোদি থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় সকলেই চান, দ্বিতীয় স্টেজেই থেমে থাকুক ভাইরাসের যাবতীয় জারিজুরি। তাই প্রশাসন কঠোর। আতস কাচের নীচের ছবিটা হল, সিংহভাগ জনতা অতি প্রয়োজন ছাড়া লক্ষ্মণরেখা অতিক্রম করছেন না। কিন্তু মুদ্রার উল্টোপিঠে সংখ্যা কম হলেও অন্য ছবি এখনও দেখা যাচ্ছে। বাজারে-দোকানে গায়ে গা লাগিয়ে কেনাবেচা, চায়ে পে চর্চা, পাড়ার মোড়ে আড্ডা, সান্ধ্যভ্রমণ সবই চলছে। কেউ কেউ আবার যাচ্ছেন নিজ ধর্মস্থানে। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, সরকার বলছে, সিংহভাগ জনতাও বলছে এসব বন্ধ করুন। মনে রাখুন, আপনার একটা ভুল, উপেক্ষা আরও বড় বিপদ ডেকে আনতে পারে। সরকারের দেওয়া গাইডলাইন বাঁচাতে পারে মানুষকে। কিছু মানুষের দায়িত্বজ্ঞানহীনতার জন্য আমরা কি এই লড়াইয়ে হেরে যাব? তা কখনওই হতে দেওয়া যায় না। আমরা তা হতে দেবও না। শেষ পর্যন্ত আমরাই করব জয়। 
ভুল পথ, ঠিক পথ

 রবিবার, ২৯ মার্চ দিনটি মহামারীর ইতিহাসে উল্লেখযোগ্য হিসাবে চিহ্নিত হয়ে রইল। কোভিড-১৯ সংক্রমণ ওই একদিনে (২৪ ঘণ্টায়) অতিরিক্ত ১ লক্ষ হল। সারা পৃথিবীতে আক্রান্ত মানুষের সংখ্যা সেদিন ছাপিয়ে গেল ৮ লক্ষ। অথচ তার আগের দিনও সংখ্যাটি ৬ লক্ষের কিছু বেশি ছিল। বিশদ

01st  April, 2020
উন্নত দেশ পারেনি, আমরা পারব

 আমরা কিছুটা সাবধান হয়েছি। এখন অনেক কিছুই অনেকে মেনে চলছি। কিন্তু আমাদের এখনও অনেকটাই সাবধান হতে হবে। সবাই আমরা যথার্থ স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলছি না। সকলকেই মনে রাখতে হবে, পৃথিবীজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে মৃত্যুর এক হানাদার।
বিশদ

31st  March, 2020
ভয়ের পরেই আসবে জয়

 করোনা ভাইরাসের প্রকোপে বিশ্বজুড়ে শুরু হয়েছে হাহাকার। শত চেষ্টা করেও তা আটকাতে পারছেন না কেউ। চীনের উহান থেকে শুরু হওয়া এই মৃত্যু মিছিল ইতালি, স্পেন ও ইরানকে বিধ্বস্ত করে এখন আমেরিকায় পৌঁছে গিয়েছে। বিশদ

30th  March, 2020
  সচেতন না হলে বিপদ বাড়বে

 সচেতনতার অভাব কীভাবে ঘরে বাইরে বিপদ ডেকে আনে তা চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিল নদীয়ার তেহট্টের ঘটনা। চিকিৎসকের পরামর্শ অগ্রাহ্য করার মাশুল গুনতে হচ্ছে ওই পরিবারটিকে। বিশদ

29th  March, 2020
দাঁতে দাঁত চেপে লড়াই চলুক

 এমন দৃশ্য কি সচরাচর দেখা যায়? স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী রাস্তায় নেমে আধলা ইট তুলে নিজেই সুরক্ষাবৃত্ত এঁকে দিচ্ছেন। সব্জি বিক্রেতাদের বোঝাচ্ছেন, দূরত্ব বজায় রেখে চলাটাই মূল সতর্কতা। বিশদ

28th  March, 2020
ভয়ঙ্কর সময়ের সামনে দাঁড়িয়ে

 অনেক বাধা আর প্রতিকূলতাকে দূরে সরিয়ে আবার আমরা পাঠকের মুখোমুখি। গত একশো বছরের ইতিহাসে মানবজাতির সামনে এমন অভূতপূর্ব সঙ্কট এসেছে বলে মনে পড়ে না। তিন মাস বয়সের এক মারণ ভাইরাসের সঙ্গে সারা পৃথিবীর সবচেয়ে উন্নত আধুনিক নাগরিক সমাজের অদৃশ্য লড়াই চলছে। বিশদ

27th  March, 2020
এ লড়াই শুধুই জয়ের জন্য

আমরা আজ যে যুগে বাস করছি, সেটাকে তথ্য ও সংবাদের যুগ বললে অত্যুক্তি হবে না। তথ্য ও খবর কোনও শ্রেণী বিশেষেরও কুক্ষিগত নয়। অন্তত সাধারণ তথ্য ও খবর এখন রীতিমতো সর্বজনীন। তাই আমাদের জানতে দেরি হয়নি গত ডিসেম্বরে সুদূর চীন দেশের হুবেই প্রদেশের উহান শিল্প-শহরে কী ভয়ানক কাণ্ড ঘটেছিল।
বিশদ

25th  March, 2020
সংযম পালনই হোক বাঁচার সংকল্প 

এক সূত্রে বাঁধিয়াছি সহস্রটি মন, এক কার্যে সঁপিয়াছি সহস্র জীবন— আজ গোটা দেশবাসী মনপ্রাণ দিয়ে সংযমের সঙ্গে একটাই সংকল্প পালন করে চলেছেন, আর সেটা হল স্বেচ্ছাবন্দিত্ব।  
বিশদ

24th  March, 2020
বাংলার মানুষ করোনা যুদ্ধে প্রস্তুত 

ভয় পাবেন না! এখনও যারা করোনায় আক্রান্ত হয়ে এরাজ্যের হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন, তাঁরা সকলেই ভাইরাসকে শরীরে ধারণ করে বিদেশ থেকে এসেছেন। তবে শিক্ষিত সমাজের অংশ হয়েও কিছু মানুষের দায়িত্বজ্ঞানহীন আচরণ কতটা সঙ্কট ডেকে আনতে পারে, তা নিয়ে চিন্তা আছে বইকি! বিদেশ ফেরতদের দায়িত্বশীল হতে আর্জি জানিয়েছেন স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও।  
বিশদ

23rd  March, 2020
এই ফাঁসিই শেষ নয়

দীর্ঘ সাত বছরের অপেক্ষা। অবশেষে ন্যায়বিচার পেলেন নির্ভয়া। নাঃ, একটু ভুল হল। এই বিচারের অপেক্ষায় শুধু সেই প্যারামেডিক্যাল ছাত্রীর মা আশা দেবী আর বাবা বদ্রীনাথ সিং ছিলেন না... প্রতীক্ষা ছিল গোটা দেশের। প্রত্যেক নারীর... সব নির্যাতিতার।
বিশদ

22nd  March, 2020
  এ বাঁচার তাগিদ

 পৃথিবীর গভীর অসুখ এখন। প্রতি মুহূর্তে বদলে যাচ্ছে মৃত্যুর পরিসংখ্যান। তাই বিশ্বব্যাপী করোনা মহামারীর মধ্যে সকলকে সতর্কভাবে পা ফেলতে আর্জি জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। শুধু তিনি একাই নন, পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় গোড়া থেকে যুদ্ধকালীন তৎপরতায় সরকারি তরফে নানা ব্যবস্থা নিয়েছেন, সেকথাও অনস্বীকার্য। বিশদ

21st  March, 2020
শাস্তি দরকার অবিবেচক প্রভাবশালীদেরও 

একেবারে অবিবেচকের মতো কাজ হয়েছে। উচ্চপদস্থ আমলার দায়িত্বজ্ঞানহীন কাজ সম্পর্কে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের করা এই মন্তব্যের সঙ্গে গোটা রাজ্য একমত।   বিশদ

20th  March, 2020
করোনা ও জাতি-বিদ্বেষের বিষ

 করোনা ভাইরাস সংক্রমণের শুরু চীন থেকে। ২০১৯-এর ১ ডিসেম্বর। হুবেই প্রদেশের উহান শহর। গত ১১ মার্চ, অর্থাৎ সাড়ে তিনমাসের কম সময়ের ভিতরে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) করোনাকে বিশ্বব্যাপী মহামারী হিসেবে ঘোষণা দিয়েছে। কারণ, এই মারণ ব্যাধি ছড়িয়ে গিয়েছে ১৬০টির মতো দেশে। বিশদ

19th  March, 2020
অপপ্রচারে কান না দিয়ে সতর্ক থাকুন

 বড় বিচিত্র এই দেশের কিছু মানুষ। বিশ্বের নানা প্রান্তের মানুষ এখন করোনা ভাইরাস আতঙ্কে ভুগছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে আমাদের দেশ ও রাজ্যের নানা জায়গায় জনজীবন প্রায় থমকে যাওয়ার উপক্রম। সরকারি তরফে নেওয়া হয়েছে নজিরবিহীন সতর্কতা। বিশদ

18th  March, 2020
এই কি তবে তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ!

 করোনা সারা বিশ্বে এক ভয়াবহ আতঙ্ক ছড়িয়েছে। সারা বিশ্ব দীর্ঘদিন এমনভাবে আতঙ্কে কেঁপে ওঠেনি। সেই পরিপ্রেক্ষিতে মনে হচ্ছে, লেগে গেল বুঝি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধ। ১৯৮২ সালে প্রকাশিত হয়েছিল স্যর জন হ্যাকেটের ‘দ্য থার্ড ওয়ার্ল্ড ওয়ার: দ্য আনটোল্ড স্টোরি’ বইটি।
বিশদ

17th  March, 2020
আতঙ্ক নয়, সচেতনতা জরুরি

ফোন করলেই এখন ‘খুক খুক কাশি’, সঙ্গে ভাইরাস সংক্রান্ত সচেতনতা বৃদ্ধির কেন্দ্রীয় সরকারের স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রচার। আতঙ্কের নয়া নাম ‘করোনা’। ফেসবুকে নানা পোস্ট। হোয়াটসঅ্যাপের ব্যক্তিগত সংযোগ এবং গ্রুপে বার্তা বিনিময়ে শুধুই আতঙ্কের করোনা।  
বিশদ

16th  March, 2020
একনজরে
নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এগিয়ে এল ওয়েস্ট বেঙ্গল স্মল ইন্ডাস্ট্রিজ ডেভেলপমেন্ট কর্পোরেশন লিমিটেড। এখনও পর্যন্ত তারা সরকারি বিভিন্ন দপ্তরে ৮০ হাজার লিটার স্যানিটাইজার সরবরাহ করেছে।   ...

সংবাদদাতা, গঙ্গারামপুর: বুধবার দিল্লি থেকে হরিরামপুরে ফিরলেন চারজন। তাঁরা প্রত্যেকেই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার হরিরামপুর ব্লকের হাড়িপুকর এলাকার বাসিন্দা। ভিনরাজ্যে কাজের জন্য গিয়েছিলেন।   ...

বিশ্বজিৎ দাস, কলকাতা: বড় বড় হাসপাতালগুলিকে করোনা যুদ্ধে শামিল হওয়ার আহ্বান করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই অনুযায়ী এবার কলকাতার বড় বেসরকারি হাসপাতালগুলির তালিকা প্রস্তুত করছে রাজ্য।   ...

লন্ডন, ১ এপ্রিল: কোভিড-১৯ থমকে দিয়েছে গোটা বিশ্বকে। স্তব্ধ হয়ে গিয়েছে খেলার দুনিয়াও। গৃহবন্দি দশায় হাঁপিয়ে উঠেছেন খেলোয়াড়রা। আর তার থেকে খানিক মুক্তি পেতে অভিনব ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের ধৈর্য্য ধরতে হবে। প্রেম-প্রণয়ে আগ্রহ বাড়বে। নিকটস্থানীয় কারও প্রতি আকর্ষণ বাড়বে। পুরোনো কোনও বন্ধুর ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯০২: ওস্তাদ বড়ে গুলাম আলি খানের জন্ম
১৯৩৩: ক্রিকেটার রনজিৎ সিংজির মৃত্যু
১৯৬৯: অভিনেতা অজয় দেবগনের জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৬৪ টাকা ৭৬.৩৬ টাকা
পাউন্ড ৭৬.৩৬ টাকা ৯৪.৮৪ টাকা
ইউরো ৮১.৭৩ টাকা ৮৪.৭৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
01st  April, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

১৮ চৈত্র ১৪২৬, ১ এপ্রিল ২০২০, বুধবার, (চৈত্র শুক্লপক্ষ) অষ্টমী ৫৫/১৯ রাত্রি ৩/৪১। আর্দ্রা ৩৪/৫০ রাত্রি ৭/২৯। সূ উ ৫/৩৩/১, অ ৫/৪৮/১১, অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে পুনঃ ৯/৩৮ গতে ১১/১৬ মধ্যে পুনঃ ৩/২১ গতে ৪/২৯ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৫ গতে ৮/৫৬ মধ্যে ১০/৩০ মধ্যে। বারবেলা ৮/৩৬ গতে ১০/৮ মধ্যে পুনঃ ১১/৪১ গতে ১/১৩ মধ্যে। কালরাত্রি ২/৩৬ গতে ৪/৪ মধ্যে।
১৮ চৈত্র ১৪২৬, ১ এপ্রিল ২০২০, বুধবার, অষ্টমী ৪১/১৫/৩৫ রাত্রি ১০/৪/৫৮। আর্দ্রা ২২/৩০/৫২ দিবা ২/৩৫/৫। সূ উ ৫/৩৪/৪৪, অ ৫/৪৮/৩১। অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১২ মধ্যে ও ৩/২১ গতে ৫/১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/৩৪ মধ্যে। কালবেলা ৮/৩৮/১১ গতে ১০/৯/৫৪ মধ্যে।
 ৭ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
ইতিহাসে আজকের দিনে 
১৯০২: ওস্তাদ বড়ে গুলাম আলি খানের জন্ম১৯৩৩: ক্রিকেটার রনজিৎ সিংজির ...বিশদ

07:03:20 PM

বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লক্ষ ছাড়াল 

12:02:29 AM

বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়াল 

09:45:51 PM

মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে সোহিনীর এক লক্ষ 
করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের পাশে দাঁড়ালেন অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। মুখ্যমন্ত্রীর ...বিশদ

08:27:27 PM

দেশে করোনা আক্রান্ত ২৩৩১ জন, মৃত ৭৩: পিটিআই 

07:35:43 PM

রাজ্যে বর্তমানে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৪ জন, নবান্নে জানালেন  মুখ্যসচিব
বিকেল সাড়ে ৪টে নাগাদ করোনা মোকাবিলায় নবান্নে স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের ...বিশদ

06:34:00 PM