Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

তাল কেটে দিল দিল্লি একাই
হারাধন চৌধুরী

একটি মাত্র শব্দ। করোনা। সারা পৃথিবীর শিরোনাম দখল করেছে। খবরের কাগজের প্রথম পাতা। বিনোদনের পাতা। খেলার পাতা। টেলিভিশনের নিউজ চ্যানেল। সব রকম সোশ্যাল মিডিয়া। এমনকী সরকারি, বেসরকারি বিজ্ঞাপনগুলিও আজ করোনাময়! সকাল থেকে ঘুমোতে যাওয়ার আগে পর্যন্ত আমাদের কুশলাদি বিনিময়ের বিস্তৃত সংস্কৃতিতেও করোনা ভাগ বসিয়েছে পুরোমাত্রায়। আমাদের ব্যবসা-বাণিজ্য, শিক্ষা, গবেষণা, সাহিত্য সঙ্গীত এবং স্বপ্নের ঘোরটুকুতেও অগ্রাধিকার শুধু তারই। ঈশ্বরের কাছে প্রার্থনার কেন্দ্রেও সে। আজ করোনা বিনে গীত নেই! সে আমাদের কানুর জায়গাটাই দখল করে নিয়েছে সবার অগোচরে। করোনা মুছে দিয়েছে রাম রহিম নাস্তিক সুবিধাবাদী শাক্ত শৈব বৈষ্ণব শিয়া সুন্নি আহমেদিয়া বৌদ্ধ ঈশা ক্যাথলিক প্রোটেস্ট্যান্ট, ধনী গরিব, শিক্ষিত অশিক্ষিত, এমনকী বিজেপি কংগ্রেস তৃণমূল সিপিএম... রকমারি ভেদরেখাও। রাষ্ট্রগুলির কঠিন কঠোর প্রাচীর কাঁটাতারও কেমন হাস্যকর হয়ে উঠেছে করোনার দাপটে। করোনা আমার শত্রু। তোমার শত্রু। তার শত্রু। সবার শত্রু। শত্রুর শত্রু, তাই আমার মিত্র—রাজনীতির এই চেনা তত্ত্বটাকেও বাতিল করতে আমরা বাধ্য হয়েছি। আমরা একযোগে যুদ্ধ ঘোষণা করেছি করোনার বিরুদ্ধে। আধুনিক পৃথিবী দু’-দু’টি বিশ্বযুদ্ধ দেখেছে। বলা বাহুল্য, একটিবারও সার্বিক ঐক্য হয়নি। না মিত্রজোটের ভিতরে, না অক্ষশক্তির অন্দরে। আর এবার ঐক্যবদ্ধ যুক্তরাষ্ট্র চীন ভারত আরব ইউরোপ রাশিয়া আফ্রিকা লাতিন আমেরিকা...! প্রথম বিশ্ব দ্বিতীয় বিশ্ব তৃতীয় বিশ্ব...! ধনতান্ত্রিক রাজতান্ত্রিক সোশ্যালিস্ট কমিউনিস্ট...! সাদা কালো বাদামি মঙ্গোলীয়...! সকলেই।
আমাদের সকলের যুদ্ধ যার বিরুদ্ধে, সে কিন্তু দৃশ্যমান নয়। অন্তত খালি চোখে তাকে দেখা যায় না। তাকে দেখতে হয় যন্ত্রের সাহায্যে। আপাতনিরীহ, না-জড়, না-জীব গোত্রের এই আণুবীক্ষণিক বস্তুটিকে তখন যন্ত্রের কারসাজি বলে অগ্রাহ্য করার হিম্মত এই গ্রহের কারও হয় না। বস্তুটিকে হাতার মধ্যে পেয়েও তার নামকরণ করতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা (হু) ৪৩ দিন সময় নিয়েছিল। চীনের উহানে মানবদেহে নতুন করোনা সংক্রমণ পাওয়া গেল ২৯ ডিসেম্বর, ২০১৯। হু ১১ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ তারিখে তার নাম দিল কোভিড-১৯। প্রথম দিকে চীনও রোগটিকে পাত্তা দেয়নি। বাকি বিশ্বও অগ্রাহ্য করেছিল সমস্যাটি বিচ্ছিন্নভাবে চীনের ভেবে। পরিণামে কোভিড-১৯ থাইল্যান্ড দক্ষিণ কোরিয়া জাপান সিঙ্গাপুর হয়ে ইরান ইউরোপ আমেরিকা ভারত বাংলাদেশ পাকিস্তান প্রভৃতি দুনিয়ার সিংহভাগ দেশে অনুপ্রবেশ করল। গুপ্তচরবৃত্তিও এত স্মার্ট এবং নিখুঁত হয় না।
আমরা হাত-পা ছড়িয়ে কাঁদতে বসার অবস্থায় দেখছি, মাত্র তিন মাসের ভিতরে সারা পৃথিবীর ২০০টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে কোভিড-১৯। সংক্রামিত মানুষের সংখ্যা প্রতি মুহূর্তে বাড়ছে। ২৯ মার্চ ২০২০ তারিখে একদিনে (২৪ ঘণ্টায়) যোগ হয়েছে নতুন ১ লক্ষ করোনা রোগী! মহামারীর ইতিহাসের সমস্ত হিসেব গুলিয়ে গেল সেদিন। আক্রান্ত নর-নারীর সংখ্যা মাত্র কয়েক ঘণ্টার ভিতরে ৬ লক্ষাধিক থেকে ৭ লক্ষাধিক হয়ে গেল! যেখানে সংক্রামিত মানুষের সংখ্যা প্রথম ১ লক্ষ হতে সময় নিয়েছিল ৬৭ দিন (১৬০৮ ঘণ্টা)। কয়েকটি বিক্ষিপ্ত সংখ্যার দিকে নজর রাখা যাক: আক্রান্ত... ২৫ মার্চ ২ হাজার ১৫ জন, ২৫ ফেব্রুয়ারি ৮০ হাজার ৮২৮ জন, ২৫ মার্চ ৪ লক্ষ ৭১ হাজার ৩৫ জন।
অনুমান করা যায়, আজ ২ এপ্রিল সংখ্যাটি ৯ লক্ষ ছাপিয়ে অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে সর্বনাশের দিকে। বিশ্বজুড়ে মৃতের সংখ্যা বৃদ্ধির গ্রাফেও সাদৃশ্য লক্ষণীয়। আমরা অনুরূপভাবে চোখ রাখি আরও কয়েকটি বিক্ষিপ্ত পরিসংখ্যানে: মৃত... ২২ জানুয়ারি ১৭ জন, ২৩ জানুয়ারি ২৫ জন, ২৪ জানুয়ারি ৪১ জন, ২৫ জানুয়ারি ৫৬ জন, ৩১ জানুয়ারি ২৫৯ জন। সংখ্যাটি ২৯ ফেব্রুয়ারি ২ হাজার ৯৭৭-এ পৌঁছে যায়। মৃতের সংখ্যা ১২ মার্চ ৫ হাজারের দোরগোড়ায় পৌঁছায়। ১০ হাজার পেরিয়ে যায় ১৯ মার্চ। ৩০ হাজার পেরিয়ে যায় পরের ৯ দিনে। মার্চের শেষদিনে ৪২ হাজার টপকে তীব্র গতিতে ছুটছে!
এই যে অপ্রতিরোধ্য বিষাদ, তার পত্তন চীনের হাতে। দ্রুত চীনকে পিছনে ফেলে আর্তচিৎকার করতে থাকে ইতালি ও স্পেন। অথচ জনস্বাস্থ্য পরিষেবায় অগ্রণী দেশ হিসেবেই পরিচিত ইতালি। বিষণ্ণতা অক্টোপাসের মতোই জড়িয়ে ধরে ইরান ব্রিটেন ফ্রান্স জার্মানি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র-সহ অনেক স্বঘোষিত মুরুব্বি দেশকেই। আমাদের ভারতেও আক্রান্তের সংখ্যা দেড় হাজারের বেশি, মার্চের শেষদিনে। সেদিন সন্ধ্যা পর্যন্ত মৃতের সংখ্যা বেড়ে ৪৭ হয়ে গিয়েছে। একই সময়ে পশ্চিমবঙ্গে আক্রান্ত ৪৩ জন আর মৃত ৫ জন।
এত এত হতাশারই ভিতরে উঁকি দিয়েছে কিছু নিশ্চিত আশাও: বিশ্বজুড়ে সুস্থ হয়ে উঠেছেন পৌনে ২ লক্ষ নরনারী। ভারতে সুস্থ হয়ে উঠেছেন শ’দেড়েক মানুষ। পশ্চিমবঙ্গে সুস্থতার খবর পাওয়া গিয়েছে ৩ জনের ক্ষেত্রে। শেষোক্ত ক্ষেত্রে হাবড়ার তরুণীর জন্য কোনও প্রশংসাই যথেষ্ট নয়। তিনি স্কটল্যান্ডে পড়াশোনা করেন। রোগলক্ষণ নিয়ে কলকাতা বিমানবন্দরে নেমে তিনি নিজেই সোজা বেলেঘাটা আইডি হাসপাতালে গিয়ে যোগাযোগ করেন এবং তাঁকে সেখানেই ভর্তি করানো হয়। সেখানকার সুন্দর পরিবেশে চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে উঠে যারপরনাই অভিভূত তিনি। মঙ্গলবার ওই তরুণী বাড়ি ফিরে গিয়ে বস্তুত রাজ্যবাসীকেই আশ্বস্ত করেছেন, আশার আলো দেখিয়েছেন। অন্যদিকে, দেশে ২০০ করোনা হাসপাতাল নির্মাণের চেষ্টা চলছে। ক্রমান্বয়ে বাড়ছে করোনা পরীক্ষার পরিকাঠামোও। উপযুক্ত মাস্ক, পিপিই, ভেন্টিলেটর-সহ করোনা চিকিৎসার যাবতীয় সরঞ্জামের জোগান দ্রুত বাড়ানোর উপর গুরুত্ব দিয়েছে কেন্দ্র এবং রাজ্যগুলি। এজন্য কেন্দ্র সংশ্লিষ্ট পণ্য বা কাঁচামালের উপর আমদানি শুল্ক, আইজিএসটি, কাস্টমস ডিউটি প্রভৃতি সাময়িকভাবে প্রত্যাহার নেওয়ার কথা ভাবছে। সমাজের বিভিন্ন স্তরের মানুষ সামর্থ্যানুযায়ী আর্থিক সাহায্যের হাতও বাড়িয়ে দিচ্ছেন। সংশ্লিষ্ট মহলের আশা, করোনা পরিস্থিতি থেকে শিক্ষা নিয়ে কেন্দ্র এবং রাজ্যগুলি অদূর ভবিষ্যতে মেডিক্যাল রিসার্চের উপর জোর দেবে এবং বাজেট বরাদ্দ উল্লেখযোগ্য হারে বাড়াবে। এই ধরনের গবেষণাকে ভারতও আর বিলাসিতার তকমা দিয়ে দূরে সরিয়ে রাখতে পারবে না। এই প্রশ্নে চীনের সাফল্য ভারতকে অনুপ্রাণিত করবেই। চীনের যথার্থ প্রতিদ্বন্দ্বী শক্তি হয়ে ওঠার বাসনা পোষণ করলে এর অন্যথা করা চলে না।
এর ভিতরেই তাল কেটে গিয়েছে একাধিক ঘটনায়।
হু ৩০ জানুয়ারি এই বিপদটি নিয়ে পাবলিক হেলথ ইমার্জেন্সি অব ইন্টারন্যাশনাল কনসার্ন (পিএইচইআইসি) ঘোষণা করে। তাতেই থেমে থাকেনি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা। নোভেল করোনা ভাইরাস সংক্রমণ প্রবাহকে ১১ মার্চ সারা বিশ্বব্যাপী মহামারী (প্যানডেমিক) বলেও ঘোষণা করে দেয় তারা। কিন্তু তারপরেও ১১ দিন যাবৎ চালু ছিল ভারতের আন্তর্জাতিক বিমান পরিষেবা-সহ নানাভাবে এ-দেশ সে-দেশ যাতায়াত ব্যবস্থা। সংশ্লিষ্ট মহলের অনুমান, ওই ক’দিনে ইউরোপ, আমেরিকা ও পশ্চিম এশিয়ার বিভিন্ন দেশ থেকে ১৫ লক্ষাধিক মানুষ ভারতে ফিরেছেন! কিন্তু তাঁদের কতটা কী স্বাস্থ্যপরীক্ষা এদেশে হয়েছিল, তা নিয়ে সংশয় সন্দেহ এবং আতঙ্ক দুই-ই সচেতন দেশবাসীর রয়েছে।
ওইসঙ্গে যোগ হয়েছে দিল্লির দু’টি ঘটনা।
২৪ মার্চ মধ্যরাত থেকে দেশজুড়ে লকডাউন বলবৎ করা হয়েছে। তারই তিনদিন পর ২৮ মার্চ দিল্লির আনন্দবিহার বাস টার্মিনাস এবং গাজিয়াবাদে কয়েক হাজার পরিযায়ী শ্রমিক জড়ো হন উত্তরপ্রদেশ ও বিহারের বাড়িতে ফিরবেন বলে। এই ছবি দেখে সারা দেশ স্তম্ভিত হয়ে পড়ে।
এর দু’দিন পর ৩১ মার্চ ফাঁস হয় দিল্লিরই নিজামুদ্দিন বস্তি এলাকায় মুসলিমদের একটি ধর্মীয় সমাবেশে দু’হাজারের বেশি (বেসরকারি মতে, সংখ্যাটি ৭-৮ হাজার!) মানুষ জমায়েতের একটু পুরনো খবর। করোনার কারণে দিল্লির যে কোনও স্থানে ২০০ জনের বেশি মানুষের জমায়েত নিষিদ্ধ করে সরকার। তার পরেও সেখানে টানা তিনদিনের ওই সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়েছিল ১৩-১৫ মার্চ। পশ্চিমবঙ্গ-সহ ভারতের বিভিন্ন রাজ্য, এমনকী আন্দামান থেকেও তাঁরা গিয়েছিলেন। আর ট্যুরিস্ট ভিসা নিয়ে ২৮১ জন এসেছিলেন ইন্দোনেশিয়া বাংলাদেশ মায়ানমার মালয়েশিয়া ফিলিপিন্স ব্রিটেন আফগানিস্তান আলজিরিয়া কিরঘিস্তান শ্রীলঙ্কা নেপাল প্রভৃতি ১৬টি দেশ থেকে। সমাবেশ শেষ হওয়ামাত্র কিছু মানুষ নিজ নিজ দেশে, রাজ্যে বা এলাকায় ফিরে গিয়েছিলেন। আর লকডাউন ঘোষণার পরেও দিল্লির ওই মহল্লায় কয়েকশো ধর্মপ্রচারককে থাকতে দেখা যায়। একটি খবরে সবার বুক কেঁপে ওঠে যে, ওই সমাবেশ থেকে বাড়ি ফিরে কিংবা ফেরার পথে জানা দশেক মানুষ মারা গিয়েছেন। তাঁদের মৃত্যুর কারণ কোভিড-১৯! মৃতদের মধ্যে ৬ জন তেলেঙ্গানার, একজন করে কাশ্মীর, কর্ণাটক, তামিলনাড়ুর। একজন আবার ফিলিপিন্সের বাসিন্দা‌। ওই সমাবেশ ফেরত ৪ শতাধিক মানুষের মধ্যে করোনা উপসর্গ দেখা দিয়েছে। তাঁরা ক্যাজুয়ালি দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে গিয়েছেন। ৩১ মার্চ দিল্লির স্বাস্থ্যমন্ত্রী সত্যেন্দ্র জৈন জানান, দিল্লিতে ২৪ জনের দেহে কোভিড-১৯ সংক্রমণের প্রমাণ মিলেছে। নিজামুদ্দিনে যোগ দিয়েছিলেন বাংলারও ৭৩ জন। ৩১ মার্চ পর্যন্ত ১৪ জনকে শনাক্ত করে হোম কোয়ারেন্টাইনে পাঠিয়েছে রাজ্য সরকার। তবে বাংলার বাকিদের হদিশ এখনও মেলেনি। কলকাতা হয়ে আন্দামানেও ফিরে গিয়েছেন ১০ জন।
করোনা নিয়ে আমাদের ভরসা ছিল যে, রোগটার সঙ্গে বিদেশের কোনও-না-কোনও যোগ রয়েছে। গোষ্ঠী সংক্রমণের ভয়টা আমরা এতদিন পাইনি। এবার একটু একটু করে পেয়ে বসছে স্থানীয় স্তরেও রোগ ছড়াবার আশঙ্কাটি। দিল্লির ঘটনা দু’টি নিয়ে দায় এড়ানোর প্রতিযোগিতায় নেমেছে বিজেপি এবং আম আদমি পার্টি। তার ভিতরে সুরাহার কোনও দিশা নেই। ভারত আর ক’দিন স্টেজ-২ দখলে রেখে করোনামুক্ত হওয়ার লড়াইটা চালাতে পারবে, সেই ব্যাপারে বিরাট প্রশ্নচিহ্ন উঠে পড়েছে। আমরা কি বড্ড বেশি আত্মবিশ্বাসী হয়ে পড়ছি? ব্যাপারটি হঠকারিতার নামান্তর হয়ে উঠবে না তো? সামনে চীন ইতালি স্পেন ইরান ব্রিটেন আমেরিকার মতো বিভীষিকা রূপ একগুচ্ছ ঘটমান বর্তমানকে রেখেও আমরা এতটা বেপরোয়া হতে পারছি! ঈশ্বর কি আমাদের ক্ষমার যোগ্য মনে করবেন আর? চীন বা আমেরিকার মতো রূপকথার পাখির জান নিয়ে কি জন্মেছে ভারত রাষ্ট্র? আমরা যেন কোনওভাবেই ভুলে না যাই যে, ছিয়াত্তর (১৭৬৯ খ্রিস্টাব্দ বা ১১৭৬ বঙ্গাব্দ) আর পঞ্চাশের মন্বন্তরের (১৯৪৩ খ্রিস্টাব্দ বা ১৩৫০ বঙ্গাব্দ) ধাক্কা এখনও কাটিয়ে উঠিনি আমরা। কোথাও যেন দাগা দিয়ে চলেছে সেই ধূসর স্মৃতি। 
লকডাউনেই থামবে করোনার অশ্বমেধের ঘোড়া
সন্দীপন বিশ্বাস

 এ এক অন্য পৃথিবী। এই পৃথিবী দেখার জন্য আমরা কেউই প্রস্তুত ছিলাম না। কিন্তু হঠাৎই বিনা মেঘে বজ্রপাতের মতো অতি দ্রুত আমরা মুখোমুখি হলাম এই অন্য পৃথিবীর। যেখানে গাছের পাতা ঝরার মতোই ঝরে পড়ছে মানুষের প্রাণ। বিশদ

01st  April, 2020
ঘরে থাকতে অক্ষম যে ভারত
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 রণবীর সিং। বয়স ৩৮ বছর। ডেলিভারি এজেন্টের কাজ করতেন দিল্লিতে। প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি দেশজুড়ে লকডাউন ঘোষণার পর হাঁটতে শুরু করেছিলেন তিনি। জাতীয় সড়ক ধরে। যেভাবে হোক গ্রামে পৌঁছতে হবে। গ্রাম মানে মধ্যপ্রদেশের কোথাও একটা... দিল্লি থেকে বহুদূর।
বিশদ

31st  March, 2020
ভীরু এবং আধখেঁচড়া
ব্যবস্থা, তবু স্বাগত
পি চিদম্বরম

গত ১৯ মার্চ, শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী ঘোষণা করলেন যে ২২ মার্চ, রবিবার দেশজুড়ে ‘জনতা কার্ফু’ পালন করা হবে। আমি ভেবেছিলাম প্রধানমন্ত্রী জল মাপছেন, জনতা কার্ফুর শেষে তিনি নানা ধরনের লকডাউন ঘোষণা করবেন। কিন্তু রবিবার কোনও ঘোষণা শোনা গেল না। বিশদ

30th  March, 2020
 করোনা যুদ্ধের অক্লান্ত সৈনিক ডাক্তারবাবুরা,
দোহাই ওদের গায়ে আর কেউ হাত তুলবেন না
হিমাংশু সিংহ

পৃথিবীব্যাপী এক ভয়ঙ্কর যুদ্ধ চলছে। অদৃশ্য জৈবযুদ্ধ। এলওসিতে দাঁড়িয়ে মেশিনগান হাতে কোনও সেনা নয়, রাফাল নিয়ে শত্রু ঘাঁটিতে ক্ষেপণাস্ত্র হামলাও নয়। হাসপাতালের আইসিইউতে নিরস্ত্র ডাক্তারবাবুরা বুক চিতিয়ে এই নির্ণায়ক যুদ্ধ লড়ছেন রাতের পর রাত ক্লান্তিহীন। বিশদ

29th  March, 2020
এ লড়াই বাঁচার লড়াই,
এ লড়াই জিততে হবে
তন্ময় মল্লিক

 এখন দোষারোপের সময় নয়। এখন আঙুল তোলার সময় নয়। এখন সমালোচনার সময় নয়। এখন লড়াইয়ের সময়। এ এক কঠিন লড়াই। এ লড়াই বাঁচার লড়াই। এ লড়াই জিততে হবে।
বিশদ

28th  March, 2020
মিসাইল বানানোর চেয়ে ডাক্তার
তৈরি অনেক বেশি গুরুত্বপূর্ণ
মৃণালকান্তি দাস

লিউয়েনহুক যখন সাড়ে তিনশো বছর আগে আতশ কাঁচের নীচে কিলবিল করা প্রাণগুলোকে দেখতে পেয়েছিলেন, তখনও তিনি জানতেন না যে তিনি এক নতুন দুনিয়ার সন্ধান পেয়ে গিয়েছেন। তিনিই প্রথম আণুবীক্ষণিক প্রাণের দুনিয়াকে মানুষের সামনে উন্মোচিত করেন। ওই ক্ষুদ্রাতিক্ষুদ্র প্রাণগুলোর নাম দেন ‘অ্যানিম্যালকুলস’। বিশদ

27th  March, 2020
করোনা ছুটছে গণিতের অঙ্ক মেনে,
থামাতে হবে ‘হাতুড়ি’র ঘা দিয়েই
ডাঃ সৌমিত্র ঘোষ

 জানেন কি, গণিতের নিয়ম মেনেই ভারত সহ গোটা বিশ্বে ছড়িয়ে পড়ছে নোভেল করোনা ভাইরাস? একজন আক্রান্ত থেকে গুণিতক হারে অন্যদের মধ্যে ছড়াচ্ছে এই মারণ ভাইরাস! আর অসতর্কতার কারণে মাত্র এক-দু’সপ্তাহে আক্রান্তের সংখ্যা এক ঝটকায় অনেকটা বাড়ছে। ঠিক যেমন হয়েছে চীন, ইতালি, স্পেনের মতো দেশগুলিতে।
বিশদ

27th  March, 2020
পাহাড়প্রমাণ চ্যালেঞ্জ, অস্ত্র নাগরিক সচেতনতা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

ডাঃ সুশীলা কাটারিয়া। জাতির উদ্দেশে ভাষণে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি যাঁদের জন্য পাঁচটা মিনিট সময় বের করার আর্জি জানিয়েছিলেন, ডাঃ কাটারিয়া তাঁদেরই মধ্যে একজন। গুরুগ্রামে একটি হাসপাতালের ইন্টারনাল মেডিসিনের ডিরেক্টর তিনি। বয়স ৪২ বছর। গত ৪ মার্চ যখন তাঁকে বলা হয়েছিল, আপনার দায়িত্বে ১৪ জন ইতালীয় পর্যটককে ভর্তি করা হচ্ছে, তখনও তিনি রোগের নাড়িনক্ষত্র ভালোভাবে জানেন না। 
বিশদ

24th  March, 2020
মন্বন্তরে মরিনি আমরা, মারী নিয়ে ঘর করি
 সন্দীপন বিশ্বাস

পৃথিবীর গভীর গভীরতর অসুখ এখন। আর এই ‘অসুখ’ থেকে বারবার মানুষ লড়াই করে ফিরে এসেছে। প্রতিবার অস্তিত্বের সঙ্কটের মুখে দাঁড়িয়ে একযোগে লড়াই করে মানুষ এগিয়ে গিয়েছে উত্তরণের পথে। প্রকৃতির কোনও মারণ আক্রমণেই সে পিছিয়ে পড়েনি। তাই মানুষ বারবার ঋণী মানুষেরই কাছে।  
বিশদ

23rd  March, 2020
কোভিড-১৯-এর বিরুদ্ধে লড়াই এবং তারপর
পি চিদম্বরম

আপনি এই লেখা যখন পড়ছেন, ততক্ষণে পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে করোনা ভাইরাসের (কোভিড-১৯) মোকাবিলায় ভারত এগতে পারল না কি পিছনে পড়ে গেল। সরকার ব্যস্ত ভিডিও কনফারেন্সে, আক্রান্ত দেশগুলি থেকে ভারতীয়দের দেশে ফিরিয়ে আনতে এবং করোনা থেকে বাঁচার জন্য নির্দেশিকা (হাত জীবাণুমুক্ত করা, নাক-মুখ ঢেকে রাখা এবং মাস্ক পরা) জারিতে।  
বিশদ

23rd  March, 2020
ভয় পাবেন না, গুজব ছড়াবেন না, জনতা কার্ফুতে ঘরে থাকুন, বিশ্বযুদ্ধে ভাইরাস পরাজিত হবেই
হিমাংশু সিংহ

 এক মারণ ভাইরাসের ভয়ঙ্কর সংক্রমণের বিরুদ্ধে বিশ্বব্যাপী মহাযুদ্ধ চলছে। এই যুদ্ধের একদিকে করোনা আর অন্যদিকে গোটা মানবজাতির অস্তিত্ব। প্রবীণ মানুষরা বহু স্মৃতি ঘেঁটেও এমন নজির মনে করতে পারছেন না যেখানে দ্রুত ছড়িয়ে পড়া একটা রোগ ঘিরে এমন ত্রাস, আতঙ্ক দানা বেঁধেছে মানুষের মনে।
বিশদ

22nd  March, 2020
লড়াই
তন্ময় মল্লিক

 করোনা ভাইরাস। এই দু’টি শব্দই গোটা বিশ্বকে কাঁপিয়ে দিচ্ছে। করোনা আতঙ্কে থরহরি কম্প গোটা পৃথিবী। চীন, জার্মানি, ইতালি, আমেরিকা, ইংল্যান্ড, ফ্রান্স সহ বিশ্বের প্রথম সারির দেশগুলিকে ক্ষতবিক্ষত করে করোনা এবার থাবা বসাতে শুরু করেছে তৃতীয় বিশ্বের দেশগুলিতে।
বিশদ

21st  March, 2020
একনজরে
বিশ্বজিৎ দাস, কলকাতা: বড় বড় হাসপাতালগুলিকে করোনা যুদ্ধে শামিল হওয়ার আহ্বান করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেই অনুযায়ী এবার কলকাতার বড় বেসরকারি হাসপাতালগুলির তালিকা প্রস্তুত করছে রাজ্য।   ...

সংবাদদাতা, গঙ্গারামপুর: বুধবার দিল্লি থেকে হরিরামপুরে ফিরলেন চারজন। তাঁরা প্রত্যেকেই দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার হরিরামপুর ব্লকের হাড়িপুকর এলাকার বাসিন্দা। ভিনরাজ্যে কাজের জন্য গিয়েছিলেন।   ...

নয়াদিল্লি ও নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা, ১ এপ্রিল: করোনা সঙ্কট মোকাবিলায় যৌথভাবে ১ হাজার ১২৫ কোটি টাকা খরচ করার কথা জানাল তথ্যপ্রযুক্তি সংস্থা উইপ্রো লিমিটেড, উইপ্রো এন্টারপ্রাইজেস লিমিটেড এবং সংস্থার কর্ণধারের নামাঙ্কিত আজিম প্রেমজি ফাউন্ডেশন।   ...

সংবাদদাতা, কাঁথি: করোনা পরিস্থিতিতে দেশজুড়ে লকডাউন চলাকালীন ১০০ শতাংশ বকেয়া কৃষিঋণ আদায় করে নজির গড়ল কাঁথির দইসাই সমবায় কৃষি উন্নয়ন সমিতি। বকেয়া ১ কোটি টাকার বেশি কৃষিঋণ আদায় করেছে সমিতি। দেশজুড়ে লকডাউন চলায় সকলেই গৃহবন্দি।   ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

কর্মপ্রার্থীদের ধৈর্য্য ধরতে হবে। প্রেম-প্রণয়ে আগ্রহ বাড়বে। নিকটস্থানীয় কারও প্রতি আকর্ষণ বাড়বে। পুরোনো কোনও বন্ধুর ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯০২: ওস্তাদ বড়ে গুলাম আলি খানের জন্ম
১৯৩৩: ক্রিকেটার রনজিৎ সিংজির মৃত্যু
১৯৬৯: অভিনেতা অজয় দেবগনের জন্ম 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৪.৬৪ টাকা ৭৬.৩৬ টাকা
পাউন্ড ৭৬.৩৬ টাকা ৯৪.৮৪ টাকা
ইউরো ৮১.৭৩ টাকা ৮৪.৭৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
01st  April, 2020
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪১,৮৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৯,৭৩০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪০,৩৩০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৮০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৯০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]
22nd  March, 2020

দিন পঞ্জিকা

১৮ চৈত্র ১৪২৬, ১ এপ্রিল ২০২০, বুধবার, (চৈত্র শুক্লপক্ষ) অষ্টমী ৫৫/১৯ রাত্রি ৩/৪১। আর্দ্রা ৩৪/৫০ রাত্রি ৭/২৯। সূ উ ৫/৩৩/১, অ ৫/৪৮/১১, অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে পুনঃ ৯/৩৮ গতে ১১/১৬ মধ্যে পুনঃ ৩/২১ গতে ৪/২৯ মধ্যে। রাত্রি ৬/৩৫ গতে ৮/৫৬ মধ্যে ১০/৩০ মধ্যে। বারবেলা ৮/৩৬ গতে ১০/৮ মধ্যে পুনঃ ১১/৪১ গতে ১/১৩ মধ্যে। কালরাত্রি ২/৩৬ গতে ৪/৪ মধ্যে।
১৮ চৈত্র ১৪২৬, ১ এপ্রিল ২০২০, বুধবার, অষ্টমী ৪১/১৫/৩৫ রাত্রি ১০/৪/৫৮। আর্দ্রা ২২/৩০/৫২ দিবা ২/৩৫/৫। সূ উ ৫/৩৪/৪৪, অ ৫/৪৮/৩১। অমৃতযোগ দিবা ৭/১২ মধ্যে ও ৯/৩২ গতে ১১/১২ মধ্যে ও ৩/২১ গতে ৫/১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৫৫ মধ্যে ও ১/৩২ গতে ৫/৩৪ মধ্যে। কালবেলা ৮/৩৮/১১ গতে ১০/৯/৫৪ মধ্যে।
 ৭ শাবান

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
বিশ্বে করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা ১০ লক্ষ ছাড়াল 

12:02:29 AM

বিশ্বে করোনায় মৃতের সংখ্যা ৫০ হাজার ছাড়াল 

09:45:51 PM

মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিলে সোহিনীর এক লক্ষ 
করোনা মোকাবিলায় রাজ্য সরকারের পাশে দাঁড়ালেন অভিনেত্রী সোহিনী সরকার। মুখ্যমন্ত্রীর ...বিশদ

08:27:27 PM

দেশে করোনা আক্রান্ত ২৩৩১ জন, মৃত ৭৩: পিটিআই 

07:35:43 PM

রাজ্যে বর্তমানে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ৩৪ জন, নবান্নে জানালেন  মুখ্যসচিব
বিকেল সাড়ে ৪টে নাগাদ করোনা মোকাবিলায় নবান্নে স্পেশাল টাস্ক ফোর্সের ...বিশদ

06:34:00 PM

আজ কলকাতা, হাওড়া, হুগলি, পূর্ব বর্ধমানে বৃষ্টির সম্ভাবনা 

06:32:00 PM