বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

সজলধারায় মেলে না জল, ক্ষোভ বাসিন্দাদের

নিজস্ব প্রতিনিধি, হাঁসখালি: ময়ূরহাট-১ গ্রাম পঞ্চায়েত বিজেপির দখলে আসতেই রাতারাতি রং পরিবর্তন হল পঞ্চায়েত অফিসের। সরকারি ওই অফিসের রং পরিবর্তন নিয়ে পঞ্চায়েতের তরফে ডাকা হয়নি কোনও দরপত্র। বিষয়টি সামনে আসতেই রাজনৈতিক মহলে শুরু হয়েছে জোর চর্চা। বিজেপিকে কটাক্ষ করতেও ছাড়েনি তৃণমূল কংগ্রেস। পানীয় জলের প্রয়োজনীয়তা আগে, নাকি পঞ্চায়েত অফিসের রং পরিবর্তন? এই প্রশ্ন তুলে সরব হয়েছেন হাঁসখালি ব্লকের ময়ূরহাট-১ গ্রাম পঞ্চায়েত এলাকার বাসিন্দারা।
হাঁসখালির বিডিও সায়ন্তন ভট্টাচার্য বলেন, সরকারি দপ্তরে সংস্কার বা রংয়ের কাজ হয়ে যাওয়ার পর টেন্ডার ডাকা যায় না। ময়ূরহাট-১ পঞ্চায়েতের ক্ষেত্রে বিষয়টি কী হয়েছে খোঁজ নিয়ে দেখছি। প্রথমবার সংখ্যাগরিষ্ঠতার নিরিখে পঞ্চায়েতটি তৃণমূলের দখল থেকে নিজেদের দখলে নিয়েছে পদ্ম শিবির। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, চলতি বছরে পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফল প্রকাশ হতেই রাতারাতি ময়ূরহাট-১ গ্রাম পঞ্চায়েতের রং পরিবর্তন করে গেরুয়া করা হয়েছে। তবে এই কাজের জন্য পঞ্চায়েতের তরফে যে নিয়ম মেনে দরপত্র ডাকা হয়নি তা নিজের মুখেই স্বীকার করে নিয়েছেন খোদ পঞ্চায়েতের প্রধান দীপঙ্কর দাস। তিনি বলেন, পঞ্চায়েত বোর্ড গঠন হওয়ার পর পঞ্চায়েত সদস্যদের নিয়ে একটি বৈঠক হয়। তাতে পঞ্চায়েত অফিসের রং করানোর প্রয়োজনীয়তার কথা উঠে আসে। অফিসের রং কী হবে সেটাও ওই বৈঠকে সকলের মতামত নিয়ে ঠিক করা হয়েছিল। সেই মতোই অফিসের রং গেরুয়া করেছি। গেরুয়া মানেই যে বিজেপি বা কোনও রাজনৈতিক দলকে ইঙ্গিত করা হচ্ছে এমন কোনও বিষয় নেই। পাশাপাশি তাঁর আরও যুক্তি, রং করাটা এতটাই গুরুত্বপূর্ণ ছিল যে দরপত্র ডাকার সময় পর্যন্ত পাইনি। তবে যেহেতু বিষয়টি নিয়ে বিতর্ক তৈরি হয়েছে, তাই এবার দরপত্র ডাকা হবে।
স্থানীয় বাসিন্দারা বলেন, পঞ্চায়েতটি আগে তৃণমূলের দখলে থাকাকালীন পঞ্চায়েত অফিসের উল্টোদিকেই পানীয় জলের জন্য সজলধারার কল বসানো হয়েছিল। কিন্তু কল বসলেও সেখান থেকে কোনওদিনও জল মেলেনি। মিলবেই বা কী করে? সজলধারার উপরে সোলার প্যানেলই তো বসানো হয়নি। অথচ পানীয় জলের থেকে নতুন পঞ্চায়েত বোর্ড অফিসের রং করানোকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে করেছে। তাই ক্ষমতায় আসার পরেই সবার আগে পঞ্চায়েত অফিসের রং পরিবর্তন হয়েছে। এটা মেনে নেওয়া যায় না। বিষয়টি নিয়ে রানাঘাট সাংগঠনিক জেলা তৃণমূল কংগ্রেসের সভাপতি দেবাশিস গঙ্গোপাধ্যায় বলেন, পঞ্চায়েতের দখল নিতে না নিতেই নিয়মবহির্ভূতভাবে বিজেপি অফিসের রং বদলে ফেলছে। কাজ হয়ে যাওয়ার পর টেন্ডার ডাকা হবে। এটা যে বেআইনি সেটাও তাঁরা ভুলে গিয়েছেন। ১০০ দিনের কাজসহ বিভিন্ন প্রকল্পকে বন্ধ করে দিয়েছে কেন্দ্রের বিজেপি সরকার।  মানুষ ওদের সঙ্গে নেই। সেজন্যই পঞ্চায়েত অফিসের রং বদলে গেরুয়া করে ওদের বোঝাতে হচ্ছে যে পঞ্চায়েতটি বিজেপির দখলে রয়েছে।

6th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ