বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

মিটারে গলদ থাকলে ক্ষতিপূরণ দেবে বিদ্যুৎ সংস্থা, সংশোধনী বিধি আনছে মোদি সরকার

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: যত বিদ্যুৎ ব্যবহার করা হচ্ছে, তার তুলনায় অনেক বেশি টাকা  দিতে হচ্ছে। অর্থাৎ ব্যবহারের সঙ্গে অসঙ্গতিপূর্ণ বিল আসছে। কেন? মিটার কি ত্রুটিপূর্ণ? এরকম অভিজ্ঞতা এবং সন্দেহ হওয়ার পর কোনও গ্রাহক যদি বিদ্যুৎ সংস্থার কাছে নালিশ জানায়, তাহলে  অভিযোগের সত্যতা পরীক্ষা করার জন্য পাঁচদিনের মধ্যে বিকল্প মিটার বসাতে হবে। বিদ্যুৎ সংক্রান্ত বিধির এমনই সংশোধন করেছে কেন্দ্র। সেখানে একঝাঁক নয়া বিধির মধ্যে এই ব্যবস্থাও রাখা হয়েছে। সরকারি সূত্রে জানানো হয়েছে, কোনও গ্রাহকের অভিযোগ পাওয়ার পর পাঁচদিনের মধ্যে নতুন বিকল্প মিটার বসিয়ে দেখতে হবে মিটার রিডিংয়ের কোনও পার্থক্য হচ্ছে কি না। এই ব্যবস্থা কার্যকর রাখতে হবে অন্তত তিন মাস। অর্থাৎ প্রকৃত মিটার এবং বিকল্প মিটার, দুই মিটারেরই রিডিং দেখতে হবে। এতে যদি প্রমাণিত হয়,সত্যিই মিটার ত্রুটিপূর্ণ ছিল, তাহলে ওই গ্রাহককে ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। বিদ্যুৎ আইনের এই সংশোধনী আগামী দিনে চালু হবে। 
এই সংশোধনী বিধিতে বিশেষ করে জোর দেওয়া হয়েছে  ছাদে সোলার প্যানেল বসানো নিয়েও। কোনও গৃহবাসী ছাদে সোলার প্যানেল বসানোর আবেদন করলে সেটি দ্রুত বসাতে হবে। ১০ কিলোওয়াট পর্যন্ত বিদ্যুৎ ব্যবহারের ক্ষেত্রে কোনও প্রযুক্তিগত কার্যকারিতা সমীক্ষা করতে হবে না। যাতে ওই সমীক্ষার নামে সোলার প্যানেল বসাতে দেরি না হয়। বিদ্যুৎচালিত গাড়ির চার্জিংয়ের জন্য পৃথক বিদ্যুৎ সংযোগ নিতে পারবে গ্রাহক। 
বিধির অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল, নয়া বিদ্যুৎ সংযোগের আবেদন করা হলে শহর এলাকায় সাতদিনের মধ্যে সেই সংযোগ দিতে বাধ্য থাকবে বিদ্যুৎ সরবরাহ সংস্থা। এটি এখন ১৫ দিনের মধ্যে দিতে হয়। আর গ্রামীণ এলাকায় আবেদনের ১৫ দিনের মধ্যেই বিদ্যুৎ সংযোগ দিতে হবে। যা এখন ৩০ দিন। পৃথক বিদ্যুৎ সংস্থাকে সরবরাহের জন্য বেছে নেওয়ার অধিকার থাকবে কোনও আবাসন বা সমবায় আবাসনের বাসিন্দাদের। সেই সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে গোপন ব্যালটের মাধ্যমে। একটি সংস্থা একটি এলাকায় বিদ্যুৎ দেবে এই একচ্ছত্র অধিকার আর থাকবে না। 
কেন্দ্রীয় বিদ্যুৎ মন্ত্রকের বক্তব্য, নতুন বিধি সংশোধন করা হয়েছে, সার্বিকভাবে গ্রাহকদের সুবিধার কথা চিন্তা করে। যদিও বেশ কিছু বিরোধী রাজ্যের অভিযোগ এসবই হল, আরও বেশি করে বেসরকারি সংস্থাকে বিদ্যুৎ সরবরাহের লাইসেন্স দেওয়ার কৌশল। অর্থাৎ এবার গ্রামীণ এলাকাতেও ঢালাও বেসরকারিকরণ হবে বিদ্যুতের। 

24th     February,   2024
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ