বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দেশ
 

কেসিআরের কুর্সিতে কি ‘হাত’ বসাবে কংগ্রেস? আজ তেলেঙ্গানার ভোট ঘিরে আগ্রহ তুঙ্গে

নিজস্ব প্রতিনিধি, নয়াদিল্লি: পাঁচ রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচনের সর্বশেষ পর্ব আজ সমাপ্ত হচ্ছে তেলেঙ্গানার ভোটগ্রহণের মাধ্যমে। আজ ভোটগ্রহণের সমাপ্তির পরই প্রকাশিত হবে একঝাঁক সমীক্ষক সংস্থার এক্সিট পোল। সুতরাং  ছত্তিশগড়, মধ্যপ্রদেশ, রাজস্থান, তেলেঙ্গানা এবং মিজোরামের ভোটের প্রকৃত ফলাফল রবিবার হলেও আজ বুথফেরৎ সমীক্ষায় মিলতে পারে পূর্বাভাস। আর রাজনৈতিক মহলের জল্পনায় সবথেকে চমকপ্রদ আগ্রহ তৈরি হয়েছে তেলেঙ্গানা নিয়েই। অর্থাৎ রাজ্য গঠনের পর থেকে তেলেঙ্গানা রাষ্ট্রীয় সমিতি (যা এখন ভারত রাষ্ট্র সমিতি) একের পর এক ভোটে একচ্ছত্র সাফল্য পেয়ে এলেও এবার নাকি তারা ধাক্কা খেতে চলেছে।  কংগ্রেসের দাবি অবশেষে বৃত্ত সম্পূর্ণ হচ্ছে। তেলেঙ্গানা গঠনের কৃতিত্ব ইউপিএ সরকারের। তাই এতদিন পর তেলেঙ্গানা কংগ্রেসকে ক্ষমতায় আনছে। যদিও আদৌ এই দাবি কতটা বাস্তবে প্রতিফলিত হবে সেটা জানা যাবে রবিবার। তবে আজ পাওয়া যাবে এক্সিট পোলের আভাস। ছত্তিশগড় এবং মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেস এগিয়ে আছে বলে রাজনৈতিক মহল এবং তাবৎ জনমত সমীক্ষার বার্তা ছিল। রাজস্থানে যেহেতু  প্রতি পাঁচ বছর অন্তরই সরকার বদলে যাওয়া নিয়ম, তাই এবার বিজেপির দিকে সামান্য পাল্লা ভারী বলেই সমীক্ষাগুলির দাবি।  তবে গরিষ্ঠতা না পেলে কংগ্রেস এখন থেকেই নির্দলদের নিয়ে সরকার গড়ার কৌশলে এগিয়ে থাকতে চাইছে। আজই এক্সিট পোলের ফলাফল দেখেই কংগ্রেস ঝাঁপাবে রণকৌশল নিয়ে। নির্দলদের সঙ্গে যোগাযোগ শুরু হয়ে গিয়েছে। একই আশা বিজেপিরও। মিজোরামে লড়াই প্রধানত ত্রিমুখী। মিজো ন্যাশনাল ফ্রন্ট বনাম জোরাম পিপলস মুভমেন্ট (জেভিএম) যুযুধান দুই পক্ষ তো আছেই, শক্তিশালী কংগ্রেসও রয়েছে লড়াইয়ে। মিজোরামে এবার ত্রিশঙ্কু হওয়ার কথাই বেশি শোনা যাচ্ছে। সেক্ষেত্রে নির্ধারক হবে জেভিএমের ভূমিকা। 
সবথেকে আগ্রহ তৈরি হয়েছে যে রাজ্যকে ঘিরে সেটি হল তেলেঙ্গানা। কে চন্দ্রশেখর রাওয়ের গদি এই প্রথম টলোমলো। বস্তুত হঠাৎ তেলেঙ্গানায় কংগ্রেসের পক্ষে জোরদার একটি হাওয়া বইতে দেখা গিয়েছে। যদিও আপাতভাবে চন্দ্রশেখর রাওকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে কংগ্রেসের সরকার গড়া নিয়ে চর্চা জোরদার হলেও শেষ মুহূর্তে গরিষ্ঠতা না পেলে চন্দ্রশেখর রাওকে বিজেপি সমর্থন দিতে পারে। সেক্ষেত্রে অবশ্য বিজেপিকে কিছু আসন পেতে হবে। কিন্তু যতটা আশা নিয়ে বিজেপি আসরে ঝাঁপিয়েছে, লড়াইয়ের ময়দানে সেই ঝড় নেই তাদের পক্ষে। 
পাঁচ রাজ্যের মধ্যে সিংহভাগই যদি কংগ্রেসের পক্ষে যায়, তাহলে তা শতাব্দী প্রাচীন দল তো ব঩টেই, ইন্ডিয়া জোটের জন্য‌ও বাড়তি অক্সিজেন জোগাবে। পক্ষান্তরে পাঁচ রাজ্যে ম্যাজিক দেখানো নরেন্দ্র মোদির নিজের ভাবমূর্তির জন্যই এবার সবথেকে বেশি জরুরি। কারণ এই পাঁচ রাজ্যেই কোনও সেনাপতি ছিল না রাজ্যস্তরে। সর্বত্রই মোদিকে সামনে রেখেই হয়েছে ভোট।  আজ দিনের শেষে জানা যাবে রাজনীতির গতিপ্রকৃতি। শুধু পাঁচ রাজ্যের নয়। ভারতেরও। 

30th     November,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ