দেশ

সম্প্রতি মহারাষ্ট্রের বুলধানা জেলার সিন্ধখেড় রাজা টাউনে ‘শেষশায়ী বিষ্ণু’র মূর্তিটি উদ্ধার করেছে এএসআইয়ের নাগপুর সার্কেলের একটি টিম। ছবি: পিটিআই 

‘বাজার চাঙ্গা করার গ্যারান্টি স্রেফ জুমলা’, মোদি-শাহ কি শেয়ার বাজারের দালাল? তোপ অর্থনীতিবিদের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী ৪ জুন ফলাফল ঘোষণার পর শেয়ার বাজার অনেকটা চাঙ্গা হবে। লোকসভা ভোটপর্ব চলাকালীন বুক ফুলিয়ে ঘোষণা করেছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ আবার আরও এক কদম এগিয়ে ঘোষণা করেছেন, ‘৪ জুনের আগে শেয়ার কিনে রাখুন। কারণ, ভোটের ফল প্রকাশ হলেই শেয়ারের দর চড়চড়িয়ে বাড়বে।’ স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী ও স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর এমন ভবিষ্যদ্বাণীতে রীতিমতো শঙ্কিত অর্থনীতিবিদরা। মঙ্গলবার কলকাতায় এসে সেই আশঙ্কার কথা স্পষ্ট করলেন বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অখিল স্বামী। তাঁর সাফ কথা, দেশের শীর্ষস্থানীয় নেতারা কি শেয়ার বাজারের দালাল? তা না হলে তাঁরা এমন মন্তব্য করবেন কেন? সাধারণ মানুষ তাঁদের কষ্টের রোজগারের টাকা শেয়ার বাজারে বা মিউচুয়াল ফান্ডে রাখেন ভালো রিটার্ন লাভের আশায়। ৪ জুনের পর যদি শেয়ার বাজারে ধস নামে, তাহলে তারা বিরাট আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বেন। তার দায় কি নরেন্দ্র মোদি বা অমিত শাহ নেবেন? শুধু তা-ই নয়, আরও এক ধাপ এগিয়ে স্বামী জানিয়ে দিয়েছেন, প্রধানমন্ত্রীর বাজার চাঙ্গা করার এই গ্যারান্টিও স্রেফ ‘জুমলা’!
মোদি সরকারের দাবি, ২০১৪ সালে তারা যখন ক্ষমতায় আসে, তখন বম্বে স্টক এক্সচেঞ্জের সূচক বা সেনসেক্স ছিল ২৫ হাজার। তাদের আমলে সেই সূচক ৭৫ হাজারে পৌঁছেছে। স্বয়ং নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা করেছেন, এটাও তাঁর সাফল্য। যদিও লোকসভা নির্বাচন পর্বে ভারতীয় শেয়ারবাজারে বড় রকমের ধস নেমেছে। তার দায় অবশ্য নিতে চায়নি কেন্দ্র। অমিত শাহ বলেছেন, ‘ভোটের সঙ্গে শেয়ারবাজারের ধসকে মিলিয়ে দেওয়া ঠিক নয়। যদি তেমন কথা ওঠে, তাহলে বলব, আগে থেকে শেয়ার কিনে রাখুন। ৪ জুনের পর দর অনেকটা বাড়বে।’ সেই দাবিকেই এদিন কটাক্ষ-বাণে বিঁধেছেন অর্থনীতিবিদরা।
এদিন শহরে এক সাংবাদিক সম্মেলনে এপ্রসঙ্গে অখিল স্বামী বলেন, ‘কিসের ভিত্তিতে এসব বলেছেন একজন দায়িত্বশীল কেন্দ্রীয় মন্ত্রী? তাঁর কথায় যদি সাধারণ মানুষ শেয়ার কিনে রাখেন এবং ৪ জুনের পর তার দর কমে যায়, তাহলে কোন আদালতে তাঁরা বিচার চাইতে যাবেন? এসব কথা তো ব্রোকার বলে থাকে।’ অনুষ্ঠানে হাজির বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ দীপঙ্কর দে বলেন, ‘শেয়ারবাজারে যে অস্থিরতা চলছে এবং শেয়ার সংক্রান্ত যে তথ্য বাজারে ছড়াচ্ছেন মোদি-শাহ, তা দেশের অন্যতম বড় দুর্নীতি হতে চলেছে।’
স্বামীর ব্যাখ্যা, অনেক ক্ষেত্রেই মুনাফা লোটার কারণে বাজারে ভালো বা মন্দ তথ্য ছড়িয়ে দেওয়া হয়। ভালো তথ্যের ভিত্তিতে শেয়ারের দাম বাড়তে থাকে। বড় কারবারিরা সেই সময় শেয়ার বেচে বড় অঙ্কের মুনাফা ঘরে তোলেন। এরপর মন্দ তথ্য ছড়িয়ে বাজারে ধস নামানো হয়। তখন ওই কম দামে বিক্রি করা শেয়ার কিনে নেন। এই অসাধু কারবার নিয়ন্ত্রণ করার জন্য সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ বোর্ড অব ইন্ডিয়া বা সেবি আছে। মোদি-শাহ যেভাবে বাজার চাঙ্গা হওয়ার আশ্বাস দিচ্ছেন, তার বিরুদ্ধে কেন ব্যবস্থা নেবে না সেবি? সেই প্রশ্নও তুলেছেন স্বামী। এমনকী কংগ্রেসের বিরুদ্ধে দুই শিল্পগোষ্ঠীর থেকে টাকা নেওয়ার যে অভিযোগ করেছেন মোদি, তা নিয়েও সরব হন দুই অর্থনীতিবিদ। এর জবাব চেয়ে তাঁরা চিঠি দিচ্ছেন রাষ্ট্রপতি দ্রৌপদী মুর্মুকে।
1Month ago
কলকাতা
রাজ্য
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

পরিবারের সদস্যদের পারস্পরিক মতান্তর, কলহে মনে হতাশা। কাজকর্ম ভালো হবে। আয় বাড়বে।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৭৭ টাকা৮৪.৫১ টাকা
পাউন্ড১০৪.১৬ টাকা১০৭.৬৩ টাকা
ইউরো৮৮.০৭ টাকা৯১.১৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
22nd     June,   2024
দিন পঞ্জিকা