বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
বিশেষ নিবন্ধ
 

৪০০ নামুমকিন, তবু মরিয়া ‘গোয়েবলস’
হিমাংশু সিংহ

নির্বাচন কত বড় ‘মাইন্ড গেম’ তার অকাট্য প্রমাণ এবারের লড়াই। নরেন্দ্র মোদি জানেন, কোনও অঙ্কেই ৪০০ আসন জেতা সম্ভব নয়। দক্ষিণ ভারত না সাথ দিলে ৩০০ অতিক্রম করাও কঠিন। উত্তর ভারতে দু’-চারটে রাজ্যে হিসেব না মিললে ২০০-র আগেই কিংবা সামান্য ওপরে থমকে যেতে পারে বিজেপির রথ। এমন আশঙ্কাও আছে, ২০ বছর আগে বাজপেয়ি সরকারের ‘শাইনিং ইন্ডিয়া’র মর্মান্তিক পরিণতির মতো বিসর্জনের বাজনা না বেজে ওঠে ৪ জুন ফল ঘোষণার দ্বিপ্রহরে। তবু সব জেনেও সকাল বিকেল এক ডজন কিংবা তারও বেশিবার একই স্লোগান তুলছেন প্রধানমন্ত্রী। ‘আব কি বার ৪০০ পার’। সজ্ঞানে সচেতনভাবে বুক চিতিয়ে। ৭৩ বছর বয়সের অদম্য জীবনীশক্তিতে ভর করে বিরোধীদের ফিনিশ করার নেশায়। উপস্থিত জনতাকেও ওই শব্দবন্ধের জাদুতে উদ্বেলিত করার চেষ্টা চলছে ষোলো আনার উপর আঠারো আনা। প্রশ্ন ওঠা স্বাভাবিক, আমরা কি ‘মহামান্য’ হিটলার ও তাঁর প্রোপাগান্ডা মন্ত্রী গোয়েবলসের গন্ধ পাচ্ছি এই উচ্চকিত প্রচারে? বার বার অলীক স্বপ্নের জাল বুনে বিরোধীদের মনোবল ভেঙে দেওয়া এবং শেষে মিথ্যেকে আপাত সত্যিতে বদলে প্রতিপক্ষকে ছত্রভঙ্গ করাই এই কৌশলের মূল কথা। সঙ্গে ফাউ মেরুকরণ। যাতে বিপক্ষের নিশ্চিত জয়ী প্রার্থীও ভয়ে নতজানু হতে বাধ্য হন রেফারি শেষ বাঁশি বাজানোর আগেই!
বেকারত্ব থেকে মুক্তি নয়। মূল্যবৃদ্ধির আঁচ 
এড়িয়ে পরিত্রাণের শপথ নয়। কাজ নয়, কারখানা নয়, শিক্ষা, স্বাস্থ্য নয় গরিবের জন্য কোনও সুনির্দিষ্ট আর্থিক আশ্বাসও নয়, শ্রমিক, কৃষকের দাবি পূরণ নয়, শুধু এআইয়ের (আর্টিফিসিয়াল ইনটেলিজেন্স) প্রসার, সঙ্গে ডিজিটাল উন্নয়নের শুকনো গ্যারান্টি ফেরি করে যাচ্ছেন সকাল বিকেল। কে না জানে, এআইয়ের দৌলতে আগামীতে চাকরির সুযোগ আরও কমবে। আইটি সেক্টর অচিরেই ধসে যাবে। চাকরি গেলে স্টার্ট আপ খুলে সফল হতে পারেন ক’জন? বেকারের কত শতাংশ? 
তবে দেশবাসী এখন গেরুয়া বাহিনীর সৌজন্যে নেশার ঘোরে। আর নেশাড়ুকে বাস্তবের কথা মনে করালে একটাই অভিব্যক্তি বেরিয়ে আসে, সব চুলোয় যাক! সেই মৌতাতেই গেরুয়া নেতারা মশগুল শুধু দেদার দল ভাঙানোয়। প্রচারে প্রতিদিন রুটিন করে দেশের উত্তর থেকে দক্ষিণ, পূর্ব থেকে পশ্চিম হাওয়াই জাহাজে চেপে তাঁর মৃগয়া অভিযানে আর কোনও ইস্যু নেই, ইস্যুও সীমিত। এক চামচ পরিবারবাদ। এক চামচ কংগ্রেসকে খতম করার আস্ফালন। বিরোধীদের দুর্নীতি নিয়ে ইডি-সিবিআইয়ের চোর-পুলিস খেলা। মন্দির ও ধর্ম নামক আফিমের মিশেল এবং ব্যাগ ভর্তি গ্যারান্টির ক্লান্তিহীন পরিবেশন! সবশেষে ‘আব কি বার ৪০০ পার’! ক্লিশে শব্দবন্ধের একঘেয়ে পুনরাবৃত্তি। ব্যস মঞ্চ থেকে নেমে ধুলো উড়িয়ে অন্য কোনও রাজ্যে উড়ে যাওয়া। আবার একই স্বপ্ন ফেরি। প্রতিশ্রুতির ওই ফানুসে গরিবের পেট ভরবে তো? না সমাজে বৈষম্যই আরও প্রকট হবে বিশ্বগুরুর জি ২০-র আকাশছোঁয়া সাফল্য আর চাঁদের মাটি ছোঁয়ার অতুল কীর্তি গায়ে মেখে।
একটা জিনিস স্পষ্ট, তিনি গরিবের ঘর থেকে উঠে এসে সযত্নে গরিবকেই আঘাত করছেন। তবে তাঁর প্রোপাগান্ডা মেশিনারিকে সপ্তমে নিয়ে যাওয়ার মরিয়া প্রয়াস চালালেও বাস্তবের দেওয়াল লিখনটাও বুঝতে পারছেন হাড়ে হাড়ে। সময় যত এগচ্ছে সেই দুশ্চিন্তা থেকেই আরও বেপরোয়া হয়ে উঠছেন। তিনি বিলক্ষণ জানেন, দক্ষিণ ভারতের ১৩০টি আসনের মধ্যে মাত্র কয়েকটিতে পদ্ম ফুটিয়ে ৪০০ কেন, ২৫০ আসন জেতাও বিরাট ঝক্কির কাজ। ৬ বার কেন আরও ৬০ বার গেলেও তামিলনাড়ু ও কেরলে বিজেপির পদ্ম ফোটানো এবারও নামুমকিন। 
ভারতীয় নির্বাচনের ইতিহাস যদি ফিরে দেখি তাহলে হালে মাত্র একবারই কোনও দল ৪০০ অতিক্রম করতে পেরেছিল। সালটা ছিল ১৯৮৪। আজ থেকে ৪০ বছর আগে। নিজের বাড়িতে রক্ষীর হাতে প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী খুন হওয়ার তিনমাসের মধ্যে অষ্টম সাধারণ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয় সেবার। রাষ্ট্রনেত্রীর মর্মান্তিক হত্যাকাণ্ডে গোটা দেশে শোকের দাবানল। সরকার, বিরোধী কেউ সেই ভয়ঙ্কর অভিঘাত এড়াতে পারেননি। নেহরু-কন্যার মর্মান্তিক পরিণতির ধাক্কায় দু’চোখ বেয়ে নেমে আসা অশ্রুসজল আবেগই জনসমর্থনের সুনামিতে বদলে জাতীয় কংগ্রেসকে চারশো আসনের ম্যাজিক ফিগার পার করেছিল। সেবার সারা দেশের সঙ্গে পাঞ্জাব ও অসমে ভোট হয়নি। ওই দুই রাজ্য বাদে প্রথম দফাতেই জাতীয় কংগ্রেস পায় ৪০৪টি আসন। পরে একবছর বাদে বাকি দুই রাজ্যে ভোট হলে কংগ্রেসের আসন সংখ্যা গিয়ে দাঁড়ায় ৪১৪-তে। তামিলনাড়ুতে সেবার কংগ্রেস পেয়েছিল ৩৯ আসনের মধ্যে ৩৭টি। কেরলে ২০টির মধ্যে ১৮টি। কর্ণাটকে ২৮টি আসনের মধ্যে ২৬টি। অর্থাৎ শুধু দক্ষিণ ভারত থেকেই তারা ৮১টিরও বেশি আসনে জেতে। একমাত্র অন্ধ্রে তেলুগু দেশম ছাড়া আর কোথাও কোনও বিরোধী শক্তি দাঁত ফোটাতে পারেনি সেবার। 
অথচ বিগত ২০১৯ সালে যেবার বিজেপি ৩০৩ আসন জিতে ক্ষমতায় আসে সেবারও দক্ষিণ ভারতে তারা ১৩০টির মধ্যে ৩০টির বেশি আসন পায়নি। ওই ৩০টি আসনের মধ্যে শুধু কর্ণাটক থেকেই এসেছিল ২৫টি। ৪টি আসে তেলেঙ্গানা থেকে। তামিলনাড়ু ও কেরল থেকে প্রাপ্তি ছিল শূন্য। এবারও তামিলনাড়ু ও কেরলে শূন্যের কলঙ্ক মেটানো সম্ভব হবে কি? তেলেঙ্গানায় এখন শাসন ক্ষমতা কংগ্রেসের হাতে। সেখানে বিজেপির ৪টি আসন জেতাও কঠিন। নতুন ঝাঁ চকচকে সংসদের গৃহপ্রবেশে তামিল ঐতিহ্য মেনে সেঙ্গল স্থাপন, গত ২২ জানুয়ারি ঐতিহাসিক রামমন্দির উদ্বোধনের আগে তামিলনাড়ুর একের পর এক মন্দিরে সপ্তাহব্যাপী প্রধানমন্ত্রীর পুজোঅর্চনা, সবই আঞ্চলিক ভাবাবেগকে উস্কে দেওয়ারই মরিয়া চেষ্টার নামান্তর। নতুন বছরে তিনি বারবার তামিলনাড়ু ও কেরল গিয়েছেন উত্তর ভারতের কোনও রাজ্যে আসন কমে গেলে তা ক্ষতিপূরণ করার তাগিদেই। এজন্য কোয়েম্বাটোরে রোড শো পর্যন্ত করতে দেখা গেল প্রধানমন্ত্রীকে।
তবু এতকিছু করেও কপালে চিন্তার ভাঁজ কিন্তু ঢাকতে পারছেন না নরেন্দ্র মোদি। উদ্বেগের কারণ বিহার, ওড়িশা, মহারাষ্ট্র, পশ্চিমবঙ্গ, তেলেঙ্গানা, কর্ণাটক, অন্ধ্র, কেরল, তামিলনাড়ু এবং অবশ্যই উত্তরপ্রদেশ। ইন্দিরার মৃত্যুর পর ভোটে কংগ্রেস সবচেয়ে রাজনৈতিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ উত্তরপ্রদেশে ৮৫টির মধ্যে ৮৩ আসনে জয়ী হয়েছিল। এখন উত্তরপ্রদেশে মোট আসন সংখ্যা কমে ৮০। ৬৫ আসন মিলবে তো বিজেপির! আরও দু’তিনটি বড় রাজ্য যেমন বিহার ও মহারাষ্ট্রের রাজনীতি এবার জটিল চেহারা নিয়েছে। মহারাষ্ট্রে গতবারের মতো ৪৮-এর মধ্যে ৪১ আসন জেতা কিংবা বিহারে ৪০-এর মধ্যে ৩৯ জেতা প্রায় অসম্ভব। দু’রাজ্যেই সিট কমতে বাধ্য। পাঞ্জাব এবারও বিজেপির উপর সদয় হবে বলে মনে হয় না। তেলেঙ্গানা একমাত্র রাজ্য যেখানে কংগ্রেস সুবিধাজনক অবস্থায়। কর্ণাটকে বিজেপির পক্ষে গতবারের মতো ২৫ আসন জেতা সম্ভব হবে না। আসন কমবেই। সিএএ’র প্রভাবে অসমে বিজেপির আসন ক’টা কমে তাও ভোট পণ্ডিতদের গবেষণার বিষয়। অন্ধ্রের রাজনীতি বিজেপির পক্ষে, একথা কোনও পাগলেও বলবে না। কেরল ও তামিলনাড়ুতে শূন্যেই থামতে হতে পারে আবার। 
সবচেয়ে বিস্ময়কর, পশ্চিমবঙ্গে অমিত শাহ নিজেই টার্গেট কমাচ্ছেন, ৩৫ থেকে ৩০ করেছেন নিজেই। টার্গেট কমতে কমতে আবার ২৫-এ। এখনও সব আসনে প্রার্থীই দিতে পারেনি বিজেপি। একের পর এক জেলায় প্রার্থী নিয়ে অসন্তোষ চরমে। 
একেই সংগঠন তলানিতে তার উপর প্রার্থী নিয়ে ক্ষোভের আগুনে প্রচার বহু জায়গায় থমকে 
যাচ্ছে। অর্ধেক জেলায় বুথওয়াড়ি সংগঠন নেই। তাই বাংলায় গতবারের জেতা আসনও হাতছাড়া হওয়ার ভয় চেপে বসছে ক্রমাগত। কমতে কমতে তা কোথায় দাঁড়ায়, দু’অঙ্কের আগেই থেমে যায় কি না তা জানা যাবে ৪ জুন, তার আগে শুধু টিভির পর্দাজুড়ে আলোচনা আর আলোচনা!
তবু মোদিজি জেতেন কিংবা জেতার কথা সদর্পে বলেন, কারণ তিনি স্বপ্ন বুনতে এবং সেই খোয়াবে দেশবাসীকে বুঁদ করে দিতে জানেন। নতুন নতুন অলীক টার্গেট। একটার পর একটা। কখনও বিশ্বের তৃতীয় বৃহত্তম আর্থিক শক্তি হওয়ার ঘোর। আবার কখনও রামমন্দির নির্মাণের স্বপ্ন সাকার করার দু’শো কৃতিত্ব। ৫০০ বছর পর নাকি ঘর পেলেন রাম, যা দেখেই ছুটছে ভক্তিতে গদগদ দেশবাসী। এখন আবার রামের নিজের বাড়িতে রামনবমী পালনের বর্ণাঢ্য পার্বণ পালনের অপেক্ষা, প্রথম দফার ভোটের ৪৮ ঘণ্টা আগে। ষোলো সালে ছিল কালো টাকার লেনদেন বন্ধের হুঙ্কার, যা উপহার দিয়েছিল নোট বাতিলের ফ্লপ শো। মানুষের দুর্দশা ছাড়া বিনিময়ে আর কিচ্ছু মেলেনি। সময় যায়, স্বপ্ন বদলায়। কারণ ভোটে চাই নতুন হুজুগ। কৃষকের আয় কতগুণ হল, কে খবর রাখে আজ? বছরে দু’কোটি চাকরি হল কি না, গরিবের খাতায় টাকা ঢুকল কি না, কারও মনে নেই। হিসেব বুঝে নেওয়ার সময়ও নেই। ক্ষোভ আছে, অসন্তোষ তীব্র তবে তাকে চাপা দিতে নতুন মনোহারি আকাশকুসুম স্বপ্নও এসে গিয়েছে বাজারে। পুরনোটা হারিয়ে গিয়েছে আস্তাকুঁড়ে। গেরুয়া অভিযানে এবার হিন্দুরাষ্ট্রের অঙ্গীকার। সঙ্গে ‘ওয়ান নেশন ওয়ান ভোট’। ‘ইউনিফর্ম সিভিল কোড’। আর বিরোধীদের বেছেবেছে গারদে ভরার বর্ণময় প্রস্তুতি। তাঁর নয়া স্বপ্নকে সবাই ছুঁতে পারবেন না, সাকার হতেও দেখবেন না। অনেকেই কালের নিয়মে অতীত হয়ে যাবেন। এখন তাঁর লক্ষ্য ২০৪৭। ২৪×৭ ফর ২০৪৭। আজ যাঁরা ভোট দেবেন তাঁদের মধ্যে প্রবীণরা অনেকেই ওই পর্যন্ত বেঁচেই থাকবেন না। গোলপোস্টটা ২৩ বছর দূরে ওই কারণেই। 
তবু প্রার্থনা করি, ভারত সমৃদ্ধ হোক, প্রথম তিনটি দেশের তালিকায় স্থান পাক। শুধু এই ভোট বৈতরণী পার করার জন্য নয়, প্রকৃত অর্থেই। ৪ জুন ফল বেরলেই যেন স্বপ্ন ফেরি শেষ হয়ে না যায়। নতুন সরকারের শপথ নিয়ে মন্ত্রীসান্ত্রিরা প্রচারের প্রতিশ্রুতি ও অঙ্গীকার যেন পাঁচবছরের জন্য না ভুলে যান। স্বপ্ন সাকার করতে যেন তাঁরা প্রাণপাত করেন। 
ইতিহাস কিন্তু কোনওদিনই গোয়েবলসদের ক্ষমা করে না। মিথ্যে অভিনয়ও না-পসন্দ। নাটক ছেড়ে সবাই বাস্তবের মাটিতে আসুন, গরিবের পাশে দাঁড়ান।

14th     April,   2024
 
 
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ