বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
বিশেষ নিবন্ধ
 

নারীদিবস, আর সামান্য কয়েকটি প্রশ্ন
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 

শ্রদ্ধেয় মোদিজি, প্রথমেই আপনাকে আন্তর্জাতিক নারী দিবসের জন্য অনেক শুভেচ্ছা। নারী দিবস বললেই চলত, তাও আন্তর্জাতিক শব্দটা ব্যবহার করাটা আমাদের মতো আম আদমির বাধ্যবাধকতা। কারণ, জি-২০ সম্মেলনের সময় থেকেই আপনাকে আর দেশের গণ্ডিতে বেঁধে রাখা যায় না। আপনি এখন আন্তর্জাতিক। বিশ্বগুরু। শুভেচ্ছার পাশাপাশি আপনাকে অনেক অনেক ধন্যবাদও। আরামবাগে প্রথম নির্বাচনী জনসভা থেকেই আপনি দেশবাসীর সামনে তুলে ধরেছেন সন্দেশখালির মা-বোনেদের কথা। কীভাবে তাঁদের উপর দিনের পর দিন অত্যাচার হয়েছে, সুন্দরবনের একটা দ্বীপ, একটা জনপদ কীভাবে তিন মূর্তিমানের দখলে চলে গিয়েছিল, তা আপনার কল্যাণে আজ গোটা দেশ জেনেছে। ১৪ কোটি জনসংখ্যার রাজ্যকে সাড়ে ৪ লক্ষ জনপদ দিয়েই যে বিচার করা যায়, সেটা আপনি দেখিয়ে দিয়েছেন। কিন্তু জানতে ইচ্ছে হয়, আপনি কি শুনেছেন ওই দুই স্প্যানিশ অভিযাত্রীর কথা? ‘মোটরবাইকে বিশ্বভ্রমণ’—এটাই তাঁদের ক্যাচলাইন। পাকিস্তান, নেপাল, বাংলাদেশ ঘুরে ভারতে এসেছিলেন তাঁরা। মোটরবাইকে। ৬০টি দেশ ঘুরেছেন তাঁরা। কিন্তু ভারতের অভিজ্ঞতা অভিশাপ হয়ে দেখা দিয়েছে তাঁদের কাছে। ঝাড়খণ্ডের দুমকায় ওই স্প্যানিশ যুবতীকে গণধর্ষণ করেছে সাতজন। কোনও জনসভায় আপনি কি এই নৃশংস নির্যাতনের প্রসঙ্গ তুলে ধরবেন? বলবেন কি, আমাদের সংস্কৃতির ভারতে, বৈচিত্র্যের ভারতে, আপনার নতুন ভারতে সুরক্ষিত নয় বিদেশিরা? নাঃ, আপনি সে কথা বলবেন না। আপনি খুব বেশি হলে দায় চাপাবেন ঝাড়খণ্ডের অবিজেপি সরকারের উপর। বলবেন, হেমন্ত সোরেন সরকারের অধীনে আইন-শৃঙ্খলা গোল্লায় গিয়েছে। যতদিন গেরুয়া শাসনের ছত্রচ্ছায়ায় ঝাড়খণ্ড নতজানু হচ্ছে, এই পরিস্থিতির বদল ঘটবে না। এর ত্রাতা হতে পারেন একজনই—নরেন্দ্র মোদি। ওই বিদেশি যুবতীর জন্য ন্যায়বিচারের ব্যবস্থা করবেন শুধুই আপনি। এরপর ঝাড়খণ্ডে ভোট চাইতে গেলে এটাই হয়তো হবে আপনার ভাষণের ভরকেন্দ্র। কিন্তু উত্তরপ্রদেশে ভোটপ্রচারে গিয়ে একবারও কি আপনার মনে পড়বে বাহরাইচের ছয় বছরের সেই মেয়েটির কথা? রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে গিয়ে তাকে ধর্ষণ করেছিল ১৮ বছরের এক কিশোর! কিংবা কানপুরের ওই দুই কিশোরীর কথা... ১৪ আর ১৬ বছর বয়স ছিল মেয়ে দু’টির। জোর করে মদ খাইয়ে গণধর্ষণ করা হয়েছিল তাদের। বিপর্যস্ত অবস্থায় বাড়ি ফিরে তারা সবটাই জানিয়েছিল। পরিবার ছুটেছিল প্রতিবাদ জানাতে... ওই অভিযুক্তদের বাড়িতে। কিন্তু এলাকার প্রভাবশালী কন্ট্রাক্টর তারা। ন্যায়বিচার? উল্টে বেধড়ক মার খেতে হয়েছিল তাঁদের। লজ্জায় ওই দুই কিশোরী আত্মঘাতী হয়েছে। নাঃ, এটা বিচ্ছিন্ন ঘটনা। রামরাজ্য উত্তরপ্রদেশ। সেখানে ধর্ষণ প্রবণতা হতে পারে না। উত্তরপ্রদেশের প্রতিটা জনপদে, প্রত্যেক পাড়ায় যদিও বা কিশোরী-যুবতীরা নিরাপত্তাহীনতায় ভোগে, তাহলেও না। ধর্ষণের সরকারি পরিসংখ্যানে দেশের মধ্যে প্রথম তিনে যদি যোগীরাজ্য থাকে... তাহলেও নয়। বিজেপির শাসনের এটাই ইতিবাচক দিক। চোখ বন্ধ রাখতে হয়। তাহলেই সব অ-দৃশ্য। কানপুর বা বাহরাইচ আর যাই হোক না কেন, সন্দেশখালি তো নয়!
কিন্তু মোদিজি মনে রাখতে হবে, সন্দেশখালি যেমন ভারতেরই অংশ, কানপুরও তাই। সন্দেশখালির মা-বোনেদের অধিকারের জন্য যেমন আপনি জনসভায় সরব হলেন, কানপুরের কন্যা সন্তানদের জন্যও হতে হবে। তাদেরও বেঁচে থাকার অধিকার আছে। সম্মানের অধিকার আছে। আপনার সরকার নারী সশক্তিকরণ করছে ঠিকই, কিন্তু এই ভাবগম্ভীর চিন্তাধারা প্রচারের জন্য ভালো। বেঁচে থাকার জন্য নয়। সম-অধিকার। এই একটি শব্দবন্ধের ভিতের উপর দাঁড়িয়ে ১৮৫৭ সালের ৮ মার্চ নিউ ইয়র্কে পথে নেমেছিলেন মহিলারা। শুধু মহিলা বলা ভুল হবে। তাঁরা ছিলেন মহিলা বস্ত্রশ্রমিক। চেয়েছিলেন তাঁরা উপযুক্ত কাজের পরিবেশ। ছেলেরা যেমন সুবিধা এবং ভাতা পেয়ে থাকে, ঠিক তেমনটাই দাবি করেছিলেন নারী সমাজের প্রতিনিধিরা। দেড়শো বছর আগের কথা। আমাদের দেশ তারও ৯০ বছর পর স্বাধীন হয়েছে। আধুনিকতার অলিন্দে প্রবেশ করেছে। ২০১৪ সালের আগে না হলেও এখন তো তেমনটাই হয়েছে বলে আপনি এবং আপনার বশংবদরা দাবি করে থাকেন। তারপরও তাহলে কেন সম-অধিকারের জন্য লড়তে হয় ভারতের মেয়েদের? কেন পুরুষতান্ত্রিক সমাজের ধ্বজাধারীরা সবসময় তাদের পিছনের সারিতেই ঠেলে রাখে? কেন একজন ধর্ষিতার অভিযোগ পুলিস নিতে চায় না? আসলে কী জানেন তো, অধিকার শুধু বেঁচে থাকার নয়, শরীরেরও। ১৪০ কোটি জনতার দেশে এই সুস্থ এবং স্বাভাবিক সচেতনতার প্রচারটাই কখনও হয় না। মেয়েদের যদি এখনও কানপুর, বাহরাইচ, গুজরাত বা সন্দেশখালিতে ভোগ্যপণ্য হিসেবে বিবেচনা করা হয়, তাহলে নারী দিবসের সেলিব্রেশনে আপনার পদযাত্রা না করাই ভালো। আপনি তিন তালাক বাতিল করেন, অথচ বিলকিস বানোদের ন্যায়বিচারের আশায় সম্মান জলাঞ্জলি দিয়ে ঘুরতে হয় আদালতের দরজায় দরজায়। কী অপরাধ ছিল মণিপুরের ওই দুই যুবতীর? কুকি আদিবাসী সম্প্রদায়ের প্রতিনিধি হওয়া? গণধর্ষণের পর নগ্ন করে হাঁটানো হয়েছিল তাঁদের। প্রায় ৮০০ জনতার একটা পাল তাদের তাড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছিল সেদিন। প্রতি পদক্ষেপে অপেক্ষা করছিল যৌন নির্যাতন। ভিডিও করছিল অনেকে। আর পুলিস ছিল দর্শক। মোদিজি... বছর ঘুরতে চলল, একবারও কি এই নৃশংসতার কথা ভেবে আপনার গা রিরি করে ওঠেনি? একবারও ভেতরটা মুচড়ে ওঠেনি? তাহলে কেন কোনও জনসভায় মণিপুরের যন্ত্রণার কথা তুলে ধরেননি আপনি? বিজেপি সেখানকার শাসক বলে? কেন মনে পড়েনি আপনার মণিপুরের মেয়েদের অধিকারের কথা। ওখানকার মা-বোনেদের সম্মানের কথা? তাঁদের ন্যায়বিচার পাইয়ে দেওয়ার কথা? কেন এই ১০ মাসে একবারও আপনি মণিপুরে গিয়ে সেখানকার মানুষের পাশে দাঁড়াননি? আপনি তো তাঁদেরও প্রধানমন্ত্রী।
মণিপুরও তো ভারতেরই অংশ।
আতঙ্ক, আর বুকে কাঁপুনি ধরিয়ে দেওয়ার পরিবেশ। এটাই পুরুষতান্ত্রিক সমাজের ফর্মুলা। শুরু হয়েছিল সৃষ্টির আদি থেকে। চলছে এখনও। তিনজন মাত্র পুরুষ সন্দেশখালিকে নিজেদের জমিদারিতে বদলে দিয়েছিল। জমি তাদের, টাকা তাদের, মানুষগুলোও তাদের। বাড়ির মেয়েদের ‘রাতের বৈঠকে’ ডেকে পাঠানো হতো। ‘অফিসঘরের’ বাইরে তাঁরা বসে থাকতেন... ঘণ্টার পর ঘণ্টা। আতঙ্ক গ্রাস করত তাঁদের... এই বোধহয় ডাক পড়ল। খুশি করে দিতে হবে বাবুদের। প্রাণভয়, আবার কখনও স্বামী-সন্তানকে ‘সরিয়ে দেওয়ার’ হুমকি। বসে থাকতেন তাঁরা। কদাচিৎ ভিতর থেকে ‘ডাক’ আসত। বেশিরভাগই চাকরবৃত্তির জন্য। ফুর্তির মদ-মাংস জোগানের জন্য। একবুক ভয় নিয়ে তরুণী, যুবতীরা বসে থাকতেন... এই বোধহয় ডাক এল। তারপর শেষ রাতে বলা হতো, ‘বাড়ি চলে যা।’ কিন্তু নেপথ্যে একমাত্র যে ফর্মুলাটা কাজ করত... তা হল আতঙ্ক কায়েম রাখা—‘ডরনা জরুরি হ্যায়’। সেই কারণেই শাহজাহান বাহিনীর ‘নিশির ডাক’। বলতে দ্বিধা নেই, একটি ঘরও যদি শেখ শাহজাহান বাহিনীর নারী নির্যাতনের শিকার হয়ে থাকে, তা ন্যক্কারজনক। তার জন্য চরম শাস্তিই ধার্য হওয়া উচিত। কিন্তু একই সাজা তো ধার্য গুজরাত, উত্তরপ্রদেশ বা মণিপুরের জন্যও। পশ্চিমের বহু দেশ পেরেছে। কারণ তারা সচেতন হয়েছে। আমরা হইনি। তাদের সরকারের কাছে গুরুত্ব পেয়েছে নাগরিক। আর আপনাদের কাছে ভোট। মোদিজি, আপনার এই নতুন ভারতে রাজনীতি মানুষের জন্য নয়। রাজনীতির জন্য মানুষ। তাকে ব্যবহার করে, ছিবড়ে করে ফেলে দিতে হবে। শেষ কথা ভোটই বলবে। দিনের শেষে আপনি গুনবেন, বিজেপির ঝুলিতে কতগুলি ভোট নিশ্চিত হল। আপনাকে এবার ৩৭০ পেতেই হবে। জম্মু-কাশ্মীর থেকে ৩৭০ অনুচ্ছেদ আপনি মুছে দিয়েছেন। তাই ৩৭০টি আসনই আপনাকে পেতে হবে। আপনি জানেন, মহিলা ভোট এবার আপনার জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ হতে চলেছে। আরামবাগ, কৃষ্ণনগরে একের পর এক বাসে চেপে সভায় পৌঁছেছেন মহিলারা। মাঠ আলো করে বসেছেন। আপনি তাঁদের অভিবাদন করছেন, তাঁরাও দেশের প্রধানমন্ত্রীকে সামনে পেয়ে উচ্ছ্বাস জানাচ্ছেন। আপনি হয়তো ভাবছেন, এই ভোটটা বিজেপির ঝুলিতে নিশ্চিত হলেই কাজ হাসিল। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় শুধুমাত্র এই মহিলা ভোটেই তাঁর বঙ্গজয়ের স্বপ্ন একুশে ধুলিসাৎ করে দিয়েছেন। এবার আমি পারব না? পারতেই হবে। আপনি ভাবছেন, সন্দেশখালি বাংলায় আপনাকে সেই সুযোগ করে দেবে। উত্তরপ্রদেশে রামমন্দির, গুজরাতে আপনার ক্যারিশ্মা, মধ্যপ্রদেশ-ছত্তিশগড়ে কংগ্রেসের প্রতি মানুষের অনীহা। মণিপুর? ওই দুটো আসন না হলেও চলবে। 
মণিপুরের মা-বোনেরা কি তাহলে ভারতের নাগরিক নয়?
আজ থেকে ঠিক ১০ বছর আগে কুয়ালা লামপুর থেকে বেজিংগামী একটি বিমান আচমকাই উধাও হয়ে গিয়েছিল। গোটা বিশ্ব নেমে পড়েছিল এই রহস্যের উদ্ঘাটনে। কিন্তু লাভ হয়নি। পুরো রুটের সর্বত্র তন্নতন্ন করে খুঁজেও বিমানটির হদিশ মেলেনি। বোয়িং বিমান। অন্যান্য দিনের মতো খুব স্বাভাবিকভাবেই রওনা দিয়েছিল সেটি। ২২৭ জন যাত্রী ছিল তাতে। কিন্তু আচমকা উধাও? কোটি কোটি ডলার খরচ করেও বিফল হাতে ফিরেছিল বিশ্ব। ওই ঘটনা বুঝিয়েছিল, সর্বশক্তিমানও ব্যর্থ হতে পারে। তার জন্য একটা অসতর্ক মুহূর্ত, সামান্য ওভার কনভিডেন্সই যথেষ্ট। মোদিজি, বিমানের নামটাও কিন্তু ছিল এমএইচ-৩৭০। 

5th     March,   2024
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ