বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

নির্মলের টিকিট নিয়ে সরব বিজেপির ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীরা

নিজস্ব প্রতিনিধি, বহরমপুর: বহরমপুর লোকসভা আসনে বিজেপির প্রার্থী হওয়ার দৌড়ে ছিলেন খোদ বিজেপি জেলা সভাপতি থেকে স্থানীয় বিধায়ক। কিন্তু রাজনৈতিক পরিসরের বাইরে থেকে এক চিকিৎসককে টিকিট দেওয়া নিয়ে দলের অন্দরে নেতাকর্মীরা অসন্তোষ প্রকাশ শুরু করছেন। অনেকে আবার প্রকাশ্যে সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করে নিজেদের ক্ষোভের বহিঃপ্রকাশ ঘটাচ্ছেন। এতে অস্বস্তিতে পড়েছেন গেরুয়া শিবিরের নেতারা। নিচুতলার কর্মীদের ক্ষোভের প্রশমন ঘটিয়ে লোকসভা ভোটে লড়াই করা এখন তাঁদের প্রধান চ্যালেঞ্জ।
এক বিজেপি কর্মী সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখেছেন, বহরমপুর লোকসভায় কে বিজেপি প্রার্থী হবেন, সিদ্ধান্ত নেওয়ার কোনও ক্ষমতা বা এক্তিয়ার আমার নেই। যাঁরা রাজনৈতিক দল করেন তাঁদের সবার কিছু ইচ্ছা থাকে। কেউ চান সংগঠনের দায়িত্ব নিতে, কেউ চান জনপ্রতিনিধি হতে। আবার কেউ শুধু কর্মী হয়ে দলের কাজ বা এলাকায় মানুষের কোনও উপকার করতে পারলেই খুশি হন। কিন্তু প্রার্থী যদি দলের বাইরের লোক হন, তাহলে দলের ভালো মন্দে তাঁর কী এসে যায়? তিনি তো দল কী চায় জানেন না। দলের জন্য তিনি কোনওদিন শ্রম বা সময় দেননি। এমনকী অর্থও দেননি। বিজেপি করার জন্য কোনও সমস্যায় পড়েননি। দলের কর্মীদের ভাবাবেগ জানেন না। দলের কর্মী বা জনগণের সঙ্গে যে কোনও সময় দূরত্ব তৈরি করে ফেলতে পারেন।
নিচুতলার কর্মীরা ক্ষোভের সঙ্গে জানিয়েছেন, দীর্ঘদিন দল করে মানুষের পরিষেবা দিয়ে যখন টিকিট প্রত্যাশীরা টিকিট পান না, স্বাভাবিকভাবেই ক্ষোভের সঞ্চার হয়। আমরা তো পতাকা বাঁধি। মিটিং মিছিল করে পুলিসের সঙ্গে ধস্তাধস্তি করে জেলে যাই। আমরা তো টিকিট চাই না। আমরা আমাদের নেতাদের জন্য লড়াই করি। কিন্তু নেতারা যখন টিকিটের দৌড়ে থেকে বঞ্চিত হন, খারাপ লাগে। তাই অনেকেই ক্ষোভের কথা দলের ভিতরে জানিয়েছেন। কেউ কেউ আবেগতাড়িত হয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় লিখছেন। 
এব্যাপারে বহরমপুরের বিজেপি সভাপতি শাখারভ সরকার বলেন, এখন অনেকেই তো অনেক কথা বলছে। তবে দল যোগ্য ব্যক্তিকেই টিকিট দিয়েছে। আমরা সকলে একত্রিতভাবে চিকিৎসক নির্মল সাহার হয়ে লড়াই করছি। এই লোকসভা আসনটি আমাদের বরাবরই পাখির চোখ। তাই গোটা দেশব্যাপী প্রথম দফায় যে প্রার্থী তালিকা ঘোষণা হয়েছে, সেখানে বহরমপুর রয়েছে। লড়াইয়ের জন্য আমরা প্রস্তুতি নিচ্ছি। তারপরও কেউ যদি কোথাও কোনও ব্যক্তিগত মতামত পেশ করেন, সেটা তাঁর একান্ত নিজস্ব ব্যাপার।
বর্ষীয়ান তৃণমূল নেতা অশোক দাস বলেন, এটা বিজেপির পার্টির ব্যাপার। এবার বিজেপি নিশ্চিতভাবে পরাজিত হবে। বিজেপির সঙ্গে তলায় তলায় কাদের যোগাযোগ বা সেটিং আছে, সেটা বহরমপুর কেন্দ্রের মানুষ জানেন। এখন ওদের দলের অভ্যন্তরে যে কাণ্ডকারখানা চলছে, সবাই বুঝতে পারছে। আমাদের বলার কিছু নেই। এবার নিশ্চিতভাবে অধীর চৌধুরীকে হারিয়ে এই কেন্দ্রে তৃণমূলের প্রার্থী ব্যাপক ভোটে জিতবেন। 
কংগ্রেসের মুখপাত্র জয়ন্ত দাস বলেন, প্রার্থীতালিকা ঘোষণা হওয়ার পর থেকেই বিজেপির অনেক নেতা হা-হুতাশ করছে। সেই নেতাদের হা-হুতাশ কমানোর জন্য চিকিৎসক প্রার্থী চিকিৎসা করবেন।

5th     March,   2024
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ