বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

বোলপুরে বহিরাগত পিয়া সাহা হারবে ১ লক্ষ ভোটে

সংবাদদাতা, বোলপুর: লোকসভা নির্বাচনে বোলপুরের প্রার্থী হিসেবে সাঁইথিয়ার বিজেপি নেত্রী পিয়া সাহার নাম ঘোষণার পর থেকেই দলের অন্দরের ক্ষোভ ক্রমশ প্রকাশ্যে আসতে শুরু করেছে। বোলপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি নেতৃত্বের একাংশের অভিযোগ, বোলপুরে যোগ্য ব্যক্তি থাকতেও বহিরাগত পিয়া সাহাকে প্রার্থী করা মানে তৃণমূলকে ওয়াকওভার দেওয়া। এই মর্মে রবিবার সোশ্যাল মিডিয়ায় সোচ্চার হয়েছিলেন আর এক বিজেপি নেতা অনুপম হাজরা। এবার সেই বহিরাগত তত্ত্বেই সরব হলেন বোলপুরের প্রাক্তন বিজেপি প্রার্থী রামপ্রসাদ দাস। তিনি বলেন, বোলপুর কেন্দ্রে অনেক যোগ্য লোক রয়েছে। কিন্তু কোন যুক্তিতে বহিরাগত পিয়া সাহাকে প্রার্থী করা হল তা বুঝতে পারছি না। পিয়া সাহা বোলপুরে কম করে এক লক্ষের বেশি ভোটে হারবে বলে ভবিষ্যৎবাণী করে দিলেন তিনি। যদিও এই তত্ত্ব মানতে নারাজ খোদ প্রার্থী। তিনি বলেন দল ভালো বুঝেই আমাকে প্রার্থী করেছে, বাকিটা জনগণ বলবে।
প্রসঙ্গত, লোকসভা হোক বা বিধানসভা, বিজেপির ক্ষেত্রে বহিরাগত কাউকে প্রার্থী নির্বাচন করার বিষয়টি বোলপুর শহরে নতুন নয়। এর আগে বিধানসভা নির্বাচনে মন্ত্রী চন্দ্রনাথ সিনহার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দাঁড়িয়েছিলেন বিজেপি নেতা অনির্বাণ গঙ্গোপাধ্যায়। তাঁকে জেতাতে দিনরাত এক করে রাস্তায় পড়েছিলেন বিজেপির স্থানীয় নেতা থেকে শুরু করে কর্মী ও সমর্থকরা। কিন্তু গণনার দিন হার নিশ্চিত বুঝে ফলাফল ঘোষণার আগেই বোলপুর শহর ছেড়ে চম্পট দেন বিজেপি প্রার্থী। আর তাতে বিপদে পড়েন স্থানীয় বিজেপি কর্মীরা। শাসকদলের নেতাকর্মীরা তাঁদের উপর চড়াও হয়ে তাঁদের এলাকাছাড়া করেন বলে অভিযোগ। গণনার শেষ পর্যায়ে তাঁদের ফেলে প্রার্থীর পালিয়ে যাওয়ার বিষয়টি ভালোভাবে নেননি বিজেপির কর্মী সমর্থকরা। এবার লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী হয়েছেন বীরভূম লোকসভা কেন্দ্রের সাঁইথিয়ার বাসিন্দা পিয়া সাহা। আগের সেই তিক্ত অভিজ্ঞতা এখনও ভুলতে পারেননি বিজেপির কর্মী-সমর্থকরা। তাই তাঁরা সিঁদুরে মেঘ দেখে ডরাতে শুরু করেছেন। ফের বহিরাগত জুজু দেখছেন বোলপুরের বিজেপির কর্মী সমর্থকদের একাংশ। 
পিয়া সাহা রাজনীতিতে নতুন নন। এর আগে দু’বার বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির হয়ে দাঁড়ালেও তৃণমূল প্রার্থী নীলাবতী সাহার কাছে বড় ব্যবধানে হেরে যান। যিনি বিধানসভা নির্বাচনেই দাঁত ফোটাতে পারেন না, তাঁকে লোকসভা নির্বাচনে প্রার্থী করা কতটা যুক্তিসঙ্গত, এই প্রশ্ন তুলছেন বিজেপির স্থানীয় নেতৃত্ব। তার উপর তিনি সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের ভোটারও নন। এই নিয়ে সরব হয়েছেন অনেকে। ২০১৯ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির প্রার্থী ছিলেন রামপ্রসাদ দাস। সেবার তৃণমূলের অসিত মাল জিতলেও নড়বড়ে সংগঠন নিয়েও তাঁকে ভালোই বেগ দিয়েছিলেন রামপ্রসাদবাবু। তিনি বলেন, এবারের বিজেপির সংগঠন তুলনামূলক গোছানো। এবার আমি ছাড়াও পদপ্রার্থী হিসেবে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছিলেন অনুপম হাজরা, অধ্যাপক অমরেশ প্রামাণিক, বিশ্বভারতীর কর্মী শিশির দাস, শিক্ষক দীনেশ সাঁতরার‌ মতো ব্যক্তিরা। যাঁরা সবদিক থেকেই পিয়া সাহার থেকে এগিয়ে। তা সত্ত্বেও কোন অঙ্কে, কোন যুক্তিতে পিয়াকে প্রার্থী করা হল তা বোঝা যাচ্ছে না। ফলে এবারও এক লক্ষেরও বেশি ব্যবধানে তৃণমূল জিতে যাবে বলে আমার ধারণা। যদিও বিষয়টিকে পাত্তা দিতে নারাজ বিজেপি প্রার্থী পিয়া সাহা। তিনি বলেন, আমাকে নির্বাচন করার জন্য কেন্দ্র ও রাজ্য নেতৃত্বকে ধন্যবাদ জানাই। তারা কিছু বুঝেছে বলেই আমাকে প্রার্থী করেছে। তাছাড়া এটা প্রধানমন্ত্রী নির্বাচনের লড়াই। আমরা নরেন্দ্র মোদির সৈনিক মাত্র। ‌মানুষ ওঁকে দেখেই ভোট দেবেন। তাছাড়া বোলপুর লোকসভা কেন্দ্রের ভোটাররা যথেষ্ট সচেতন। প্রতিপক্ষ যতই শক্তিশালী হোক, জেতার ব্যাপারে আমি আশাবাদী। 
 লোকসভা ভোটের প্রচারে বোলপুরের বিজেপি প্রার্থী পিয়া সাহা।

5th     March,   2024
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ