বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

মেদিনীপুর হোমে ৬ শিশুকে দত্তক

নিজস্ব প্রতিনিধি, মেদিনীপুর: হাওড়ার বালির বাসিন্দা রেণু বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিয়ে হয়েছিল প্রায় সাড়ে তিন দশক আগে। কিন্তু বিয়ের পর থেকে কোনও দিন ‘মা’ ডাক শোনেননি তিনি। নিঃসন্তান রেণুদেবী ২০১২ সালে হারিয়েছেন স্বামীকেও। বর্তমানে তাঁর বয়স ৫৭ বছর। তবে স্বামীর মৃত্যুর পর থেকে তাঁকে যে প্রশ্নটা সবচেয়ে বেশি তাড়া করে বেড়াত তা হল, এবার তিনি কী নিয়ে বাঁচবেন? এসব ভাবনা থেকেই বছর পাঁচেক আগে সন্তান দত্তক নেওয়ার জন্য নিয়ম মেনে আবেদন করেন তিনি। শনিবার মেদিনীপুর হোমের এক অনাথ কন্যাসন্তানকে কোলে তুলে নিলেন তিনি। শনিবার মেদিনীপুরের নানা হোমের একসঙ্গে ছয় শিশুকে দত্তক দিল জেলা শিশু সুরক্ষা দপ্তর। একসঙ্গে এত শিশু দত্তক দেওয়া জেলার ইতিহাসে এই প্রথম। রাজ্যের ইতিহাসেও নজিরবিহীন বলা চলে। এদিন ওই দপ্তরে সমস্ত আইনি প্রক্রিয়া মেনে ছয় শিশুকে নতুন পরিবারের হাতে তুলে দেওয়া হয়।
এদিন যাঁদের শিশুদের দত্তক দেওয়া হয়েছে, তাঁদের মধ্যে নিঃসন্তান দম্পতি যেমন রয়েছে, তেমনই রয়েছেন সিঙ্গেল মাদারও। এদিন হোমের এক শিশুকে দত্তক নেন ছত্তিশগড়ের রায়পুরের বাসিন্দা গীতাঞ্জলি ধনু্র্বেদ(৪৫)। গীতাঞ্জলিদেবী একজন বিজ্ঞানী। কর্মসূত্রে এরাজ্যে থাকেন। প্রতিরক্ষা গবেষণা ও উন্নয়ন সংস্থায় চাকরি করেন। বাড়িতে বাবা-মা রয়েছে। তবে জীবনে বিয়ে করেননি তিনি। বিয়ের কোনও ইচ্ছাও নেই। কিন্তু তাঁর প্রবল ইচ্ছে, কোনও পরিবারহীন শিশুকে দত্তক নিয়ে মাতৃস্নেহে লালনপালন করার। সেই শিশুকে বড় করে সমাজে প্রতিষ্ঠিত করে তার জীবন আলোকিত করে দিতে চান তিনি। সেই কারণেই বছরখানেক আগে শিশু দত্তকের জন্য আবেদন করেন। নিয়ম মেনে শনিবার তাঁর হাতে হোমের এক শিশুকে তুলে দেওয়া হয়েছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলাশাসক (উন্নয়ন) কেম্পা হোন্নাইয়া, জেলা শিশু সুরক্ষা দপ্তরের আধিকারিক সন্দীপ দাস, জয়ন্ত সিংহ, সমাজকল্যাণ দপ্তরের সুরক্ষা আধিকারিক পীযূষ রথ, ডেপুটি ম্যাজিস্ট্রেট অনির্বাণ সেনগুপ্ত সহ অন্যরা। জেলার শিশু সুরক্ষা দপ্তরের আধিকারিক সন্দীপ দাস বলেন, ওই শিশুদের কারও বাবা-মা জন্মের পরেই হাসপাতালে ছেড়ে দিয়ে চলে গিয়েছেন, কারও বাবা-মা মারা গিয়েছেন। কেউ আবার স্টেশন কিংবা মেলায় হারিয়ে গিয়েছিল। প্রত্যেকেরই ঠাঁই হয়েছিল পশ্চিম মেদিনীপুর জেলার বিভিন্ন হোমে। শনিবার সেরকম ছয় শিশুকে নতুন পরিবারের কাছে পৌঁছে দেওয়া হয়েছে। হুগলি, কৃষ্ণনগর, বারাকপুর, ও কলকাতার চার নিঃসন্তান দম্পতি চার শিশুকে দত্তক নিয়েছে। বাকি দু’জনই সিঙ্গেল মাদার। মেদিনীপুর বিদ্যাসাগর বালিকা ভবন হোমের সুপার সুদীপ্তা চক্রবর্তী বলেন, এই প্রথম দপ্তরের তরফে একসঙ্গে ছয় শিশু দত্তক দেওয়া হল। আমরা খুব খুশি। • নিজস্ব চিত্র

3rd     March,   2024
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ