বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

পূর্ব বর্ধমানে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডে ৮৩ কোটি টাকার ঋণ

সুখেন্দু পাল, বর্ধমান: মধ্যবিত্ত বাড়ির ছাত্রছাত্রীদের স্বপ্নপূরণের দিশা দেখাচ্ছে ‘স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড’। কয়েক বছর আগেও বাইরে বেসরকারি প্রতিষ্ঠানে ছেলেমেয়েদের ইঞ্জিনিয়ারিং বা নার্সিং পড়াতে গেলে অভিভাবকদের রাতের ঘুম চলে যেত। হয় জমি বিক্রি করতে হতো অথবা চড়া সুদে মোটা টাকা ধার নিতে অভিভাবক বাধ্য হতেন। কিন্তু বাংলায় এখন আর সেই দিন নেই। রাজ্য সরকারের দেওয়া ক্রেডিট কার্ড থেকে লোন নিয়েই অনেকেই উচ্চশিক্ষিত হচ্ছেন। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, পূর্ব বর্ধমান জেলায় এই কার্ড থেকে পড়ুয়ারা ৮২ কোটি ৯৯ লক্ষ ৮৩ হাজার ৮২৯ টাকা লোন পেয়েছেন। এখনও পর্যন্ত ৩ হাজার ৬৭৪ জন পড়ুয়া এই সুবিধা পেয়েছেন। 
রাজ্যের প্রাণিসম্পদ দপ্তরের মন্ত্রী স্বপন দেবনাথ বলেন, সরকার ছাত্রছাত্রীদের উচ্চশিক্ষা পাওয়ার জন্য লোন দেওয়ার পাশাপাশি ব্যবসা করতেও সাহায্য করছে। ভবিষ্যৎ ক্রেডিট কার্ড থেকে লোন নিয়ে অনেকে ব্যবসা করছেন। আবার স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড নিয়ে প্রত্যন্ত গ্রামের ছেলেমেয়েও উচ্চশিক্ষিত হয়ে চাকরি করছেন। এটাই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের অন্যতম সাফল্য। জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক বলেন, এই কার্ড থেকে পড়ুয়ারা ১০ লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন পেতে পারেন। এই টাকা ছাত্রছাত্রীরা পড়াশোনার জন্যই শুধু খরচ করতে পারবেন। পড়াশোনার জন্য মোবাইল, ল্যাপটপ বা অন্যান্য সামগ্রী তাঁরা এই টাকায় কিনতে পারেন।
স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডে বেশি সংখ্যক পড়ুয়াকে যুক্ত করতে জেলা প্রশাসন বিশেষ অভিযান চালায়। প্রশাসনের অফিসাররা ব্যাঙ্ক আধিকারিকদের সঙ্গে কথা বলেন। আবেদনপত্রে কোনও ভুল থাকলে তা সংশোধন করা হয়। যদিও পড়ুয়াদের একাংশের অভিযোগ, আবেদন করেও অনেক সময় স্টুডেন্ট কার্ড পাওয়া যাচ্ছে না। জেলা প্রশাসনের দপ্তরে ঘুরেও লাভ হচ্ছে না। 
জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক বলেন, আবেদন করলেই লোন পাবে, এমনটা ভাবার কারণ নেই। পরিবারের লোন পরিশোধ করার ক্ষমতা রয়েছে কি না, তা ব্যাঙ্কগুলির অফিসাররা দেখেন। এছাড়া কার্ড পাওয়ার জন্য আরও কিছু শর্ত রয়েছে। সেগুলি ঠিক থাকতে হবে। তবেই কার্ড এবং লোন দেওয়া হয়। পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ শান্তনু কোনার বলেন, স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড থেকে বহু ছাত্রছাত্রী উপকৃত হয়েছেন। তাঁদের কেউ কেউ ভিন রাজ্যে গিয়ে পড়াশোনা করছেন। এখন ছাত্রছাত্রীদের পড়াশোনার জন্য চিন্তা করতে হয় না। তাদের জন্য মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কন্যাশ্রী, ঐক্যশ্রী’র মতো প্রকল্প চালু করেছেন। শিক্ষাদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, পূর্ব বর্ধমান জেলায় সাত বছরে ১২ লক্ষ ৮৭ হাজার ১৭৪ জন সংখ্যালঘু ছাত্রছাত্রী ২৫২ কোটি টাকার স্কলারশিপ পেয়েছে। ঐক্যশ্রী প্রকল্প থেকে সাত বছরে পড়ুয়ারা ৩১৭ কোটি টাকা পেয়েছে। এছাড়া কন্যাশ্রী কে-১, কে-২ প্রকল্প থেকে বহু ছাত্রী সুবিধা পেয়েছে। শিক্ষাদপ্তরের অপর এক আধিকারিক বলেন, লোকসভা নির্বাচনের পর স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড নিয়ে আবার বিশেষ অভিযান চালানো হবে। বেশকিছু আবেদনপত্র জমা হয়ে রয়েছে। সেগুলি যাচাই করা হবে। প্রয়োজনে ব্যাঙ্ক কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও কথা বলা হবে।

29th     February,   2024
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ