বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

বাঁকুড়ায় বাবা ও ছেলেকে খুন, চার প্রতিবেশী গ্রেপ্তার, চাঞ্চল্য

নিজস্ব প্রতিনিধি, বাঁকুড়া: বাঁকুড়ায় বাবা ও ছেলেকে নৃশংসভাবে কুপিয়ে খুনের অভিযোগে প্রতিবেশী চার অভিযুক্তকে গ্রেপ্তার করল পুলিস। মঙ্গলবারই তাদের পাকড়াও করে পুলিস। ধৃতরা জেরায় মারধরের কথা স্বীকার করে নিয়েছে বলে পুলিসের দাবি। গত রবিবার রাতে নতুনচটি এলাকায় একই পরিবারের তিনজনকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয় বলে অভিযোগ। তারমধ্যে বাবা ও ছেলের মৃত্যু হয়। জখম প্রৌঢ়া চিকিৎসাধীন রয়েছেন। ঘটনার পর দ্রুত অভিযুক্তদের গ্রেপ্তারের দাবিতে সরব হন পরিবারের সদস্যরা। অবশেষে ঘটনার ৪৮ঘণ্টার মধ্যে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করেছে বাঁকুড়া সদর থানার পুলিস। 
এদিন রাতে বাঁকুড়ার পুলিস সুপার বৈভব তিওয়ারি বলেন, দুর্গাপুর বাসস্ট্যান্ড থেকে অভিযুক্তদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তারা অন্য কোথাও পালিয়ে যাওয়ার ছক কষেছিল। কিন্তু সেইসময় পুলিস তাদের ধরে ফেলে। জমি-জায়গা সংক্রান্ত বিবাদের জেরেই এই ঘটনা। ধৃতদের হেফাজতে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করে আরও তথ্য সংগ্রহ করা হবে।
উল্লেখ্য, দীর্ঘদিন ধরেই নতুনচটির ওই দুই পরিবারের মধ্যে জমি-জায়গা সংক্রান্ত বিবাদ চলছে। অভিযোগ, অবসরপ্রাপ্ত শিক্ষক মথুরামোহন দত্তর জায়গা দখল করে বাড়ি বানিয়েছিল প্রতিবেশী পিন্টু রুইদাস। তা নিয়ে আপত্তি জানিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে মামলা করেন মথুরাবাবু। আদালত পিন্টুর বাড়িটি ভেঙে ফেলার নির্দেশ দেয়। গত রবিবার রাতে মথুরাবাবু, তাঁর স্ত্রী মল্লিকা দত্ত ও ছোট ছেলে শ্রীধর দত্তকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে আঘাত করে পিন্টু ও তার পরিবারের তিন সদস্য। রক্তাক্ত অবস্থায় তাঁদের উদ্ধার করে বাঁকুড়া মেডিক্যালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু ওইদিন রাতেই বাবা ও ছেলের মৃত্যু হয়। এই ঘটনার পরই প্রতিবেশী পিন্টু রুইদাস সহ তার স্ত্রী নমিতা দুই ছেলে মহেশ্বর ও বিশ্বেশ্বর পালিয়ে যায়। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, অভিযুক্তরা নতুনচটির বাড়ি থেকে বাইক নিয়ে লালবাজারে এক আত্মীয়ের বাড়িতে চলে যায়। সেখান থেকে তারা একটি গাড়ি ভাড়া করে ভিনজেলায় আত্মীয়ের বাড়িতে চলে যায়। পুলিসের একটি তদন্তকারী দল তাদের গতিবিধির দিকে নজর রাখছিল। পুলিস তাদের আত্মীয়ের বাড়িতে হানা দেয়। তবে ধরা পড়ার ভয়ে অভিযুক্ত চারজনই এদিন দুর্গাপুর বাসস্ট্যান্ডে আসে। সেখান থেকেও তারা অন্যত্র পালিয়ে যাওয়ার ছক কষে। কিন্তু শেষমেষ পুলিসের জালে তারা ধরা পড়ে। পুলিসের এক আধিকারিক বলেন, মারধরে ধারালো কোনও অস্ত্র ব্যবহার করা হয়েছে। সেগুলি উদ্ধারের চেষ্টা করা হচ্ছে। পুলিস সুপার জানিয়েছেন, খুনের মামলা রুজু করে ঘটনার তদন্ত শুরু করা হয়েছে। খুনের পিছনে অন্য কোনও কারণ রয়েছে কিনা তাও খতিয়ে দেখা হবে। আজ বুধবার তাদের বাঁকুড়া আদালতে তোলা হবে। ধৃতদের বিরুদ্ধে যাতে কঠোরতম শাস্তির ব্যবস্থা করা যায় সেভাবেই তদন্ত করা হবে। মৃত শিক্ষকের বড় ছেলে সায়ন দত্তের দাবি, অভিযুক্তরা পরিকল্পনা করে এই কাণ্ড ঘটিয়েছে। ওদের চরম শাস্তি হোক।
 অভিযুক্তদের নিয়ে সাংবাদিক বৈঠকে বাঁকুড়ার পুলিস সুপার বৈভব তিওয়ারি।

6th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ