বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

রাতেই ৫০ লক্ষ টাকার গাছ কেটে লুট, রিপোর্ট

নিজস্ব প্রতিনিধি, আসানসোল: রাতের অন্ধকারে ৫০ লক্ষ টাকার কাঠ লুট! বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর থেকে রীতিমতো চালান কেটে বেরিয়েছিল সেই কাঠ। অথচ তার কোনও অনুমোদন ছিল না বনদপ্তরের। গাছ বাবদ এক টাকাও জমা পড়েনি বিশ্ববিদ্যালয়ে। কাজি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের কাঠ চুরিকাণ্ডের তদন্তে এমনই চাঞ্চল্যকর তথ্য উঠে এল। এক্সিকিউটিভ কাউন্সিলের অনুমোদন নিয়ে গাছ চুরির অভিযোগ খতিয়ে দেখতে ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি গঠন করেছিল বিশ্ববিদ্যালয়। তারই রিপোর্ট জমা পড়েছে। সেখানে মিলেছে অভিযোগের সত্যতা। কমিটির সেই বিস্ফোরক রিপোর্ট পাঠানো হচ্ছে উচ্চ শিক্ষাদপ্তর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য তথা রাজ্যপালের কাছে। কর্তৃপক্ষ চাইছে উচ্চ পর্যায়ের তদন্তের নির্দেশ দিক ঊধ্বর্তন কর্তৃপক্ষ।
কাজি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য দেবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, ‘ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটির রিপোর্ট আমাদের হাতে এসেছে। সেখানে প্রায় ৫০ লক্ষ টাকার গাছ চুরির অভিযোগের প্রমাণ মিলেছে। আমরা রিপোর্ট উচ্চ শিক্ষাদপ্তর ও আচার্যর কাছে পাঠাচ্ছি। নিশ্চয়ই তাঁরা প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেবেন।’ 
চলতি বছরের একটা বড় অংশজুড়ে উত্তাল ছিল কাজি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয়। তৎকালীন উপাচার্য ও রেজিস্ট্রার দ্বন্দ দিয়ে যার সূত্রপাত। তারপরই উঠে আসে বিশ্ববিদ্যালয় চত্বর থকে গাছ চুরির অভিযোগ। সেই অভিযোগ তুলেছিলেন রেজিস্ট্রারের পক্ষে দাঁড়ানো আন্দোলনকারীরা। তাঁদের দাবি ছিল, রাতের অন্ধকারকে কাজে লাগিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকার গাছ চুরি হয়েছে। অভিযোগও জানিয়েছিলেন সর্বত্র। পরে তৎকালীন উপাচার্য সাধন চক্রবর্তীকে সরিয়ে দেওয়া হয়। দেবাশিস বন্দ্যোপাধ্যায় দায়িত্ব নেওয়ার পরই ঘটনার তদন্ত করতে তৎপর হন। গঠন করা হয় ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি। বর্তমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষর দাবি, তদন্ত করতে গিয়ে তাঁদের একটি চালান হাতে আসে। সেটি ছিল গাছ বোঝাই গাড়ির চালান। বিশ্ববিদ্যালয়ে তৎকালীন এক আধিকারিক সেই চালানে সইও করেছেন। সেই চালান দেখেই রাতে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে কাঠ বোঝাই গাড়ি বের করার অনুমতি দেন নিরাপত্তারক্ষীরা। সেই আধিকারিক এখনও বিশ্ববিদ্যালয়ে কর্মরত বলে সূত্রে খবর। 
রিপোর্টটি প্রকাশ্যে আসতেই জোর চর্চা। প্রশ্ন উঠছে, লক্ষ লক্ষ টাকার গাছ চুরির রিপোর্ট পেয়ে কী পদক্ষেপ নেবেন আচার্য? অনেকেই আশা করছেন, তৎকালীন যারা ক্ষমতাশীন ছিলেন তাঁদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা হবে। গাছ চুরির পাশাপাশি নিয়ম ভেঙে পদোন্নতি সহ নানা অভিযোগ নিয়ে সরব হয়েছিলেন সেই সময়ের আন্দোলনকারীরা। সেই সব অভিযোগেরও কী প্রমাণ মিলবে? তা নিয়েও বিশ্ববিদ্যালয়ের একটি মহল উৎসুক। রক্তচাপ বাড়ছে অন্য পক্ষেরও।

6th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ