বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

স্টুডেন্টস ক্রেডিট কার্ডে ৬৮ কোটি ৮২ লক্ষ টাকার লোন

নিজস্ব প্রতিনিধি, বর্ধমান: পূর্ব বর্ধমানে স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড থেকে পড়ুয়ারা ৬৮কোটি ৮২ লক্ষ ৪৮ হাজার ৬৯৯টাকা লোন পেয়েছেন। এই প্রকল্পে রাজ্যের বহু জেলাকে পিছনে ফেলে দিয়েছে পূর্ব বর্ধমান। প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, ৩৫১৩জন পড়ুয়া উচ্চশিক্ষার জন্য লোন পেয়েছেন। আর কয়েকদিনের মধ্যে আরও ২২৮জন লোন পেয়ে যাবেন। জেলাশাসক পূর্ণেন্দু মাজী বলেন, ব্যাঙ্কগুলি যাতে লোন অনুমোদন করে তারজন্য আমরা বিশেষ অভিযান চালিয়েছিলাম। কী কারণে লোন দেওয়া হচ্ছে না তা জানতে চাওয়া হয়েছিল। কোনও নথি দরকার হলে তা দেওয়া হয়েছিল। ব্যাঙ্কগুলি সহযোগিতা করেছে। আগামী দিনেও তারা একইভাবে লোন অনুমোদন করবে বলে আশা করছি। অনেক পড়ুয়া আবেদন করেছেন। সেগুলি যাচাই করা হচ্ছে। 
জেলা প্রশাসনের এক আধিকারিক বলেন, এই প্রকল্পে লোন দেওয়া নিয়ে ব্যাঙ্কগুলি প্রথমদিকে গড়িমসি করছিল। একাধিকবার তাদের সঙ্গে বৈঠক করা হয়েছিল। তারপর সরকারি আধিকারিকরা পালা করে ব্যাঙ্কে যান। তার সুফল পাওয়া গিয়েছে। আশা করা যায় কয়েকদিনের মধ্যে আরও কয়েকশো পড়ুয়া লোন পেয়ে যাবেন। পূর্ব বর্ধমান জেলা পরিষদের শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ শান্তনু কোনার বলেন, এরাজ্যে উচ্চশিক্ষা পেতে এখন আর কারও সমস্যা হয় না। সরকার বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে পড়ুয়াদের আর্থিক সহায়তা করে। স্কুলে পড়ার সময় ছাত্রছাত্রীরা কন্যাশ্রী, ঐক্যশ্রী প্রকল্প থেকে আর্থিক সহযোগিতা পান। আবার উচ্চশিক্ষার জন্য তাঁরা ১০লক্ষ টাকা পর্যন্ত লোন পান। সাধারণ বাড়ির ছেলে-মেয়েরাও এখনও ডাক্তারি বা ইঞ্জিনিয়ারিং পড়ার সুযোগ পাচ্ছেন।
সান্ত্বনা দাস নামে এক ছাত্রী বলেন, স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ড থেকে লোন পেতে বহুবার ঘুরতে হয়েছে ঠিকই, কিন্তু এই প্রকল্প না থাকলে উচ্চশিক্ষা পেতাম না। বেঙ্গালুরুতে নার্সিং নিয়ে পড়াশোনা করছি। তারজন্য দু’লক্ষ টাকা লোন পেয়েছি। আমার পরিচিত আরও দু’জনও এই প্রকল্প থেকে সুবিধা পেয়েছে। প্রশাসন সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, এই প্রকল্পে পড়ুয়ারা চার শতাংশ সুদে লোন পান। ৪০ বছর বয়স পর্যন্ত স্টুডেন্ট ক্রেডিট কার্ডের জন্য আবেদন করা যাবে।  প্রকল্পের সুবিধা পাওয়ার জন্য উপভোক্তাদের এরাজ্যের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে। মাধ্যমিক পাশের পর কার্ডের জন্য আবেদন করা যাবে। লোন নেওয়ার ১৫ বছরের মধ্যে তা শোধ করতে হবে। প্রশাসন সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, মধ্যবিত্ত এবং নিম্নবিত্ত পরিবারের ছাত্রছাত্রীদের কথা ভেবে এই প্রকল্প চালু করা হয়। একসময় ইচ্ছে থাকলেও অর্থের অভাবে বহু মেধাবী পড়ুয়ার পড়াশোনা থমকে যেত। অনেক অভিভাবক চড়া সুদে লোন নিয়ে ছেলেমেয়েদের পড়াতেন। কিন্তু এই প্রকল্প চালু হওয়ার পর তাঁদের সেই চিন্তা দূর হয়েছে।

6th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ