বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

ভবিষ্যৎ ক্রেডিট কার্ডে চলতি বছরে  ১৫ কোটি টাকা ঋণ দেবে প্রশাসন

নিজস্ব প্রতিনিধি, সিউড়ি: চলতি বছরে বীরভূমের ৬৫০ জনকে ভবিষ্যৎ ক্রেডিট কার্ড প্রকল্পে ১৪ কোটি টাকা ঋণ দেওয়া হবে। ইতিমধ্যেই ২৫০ জনকে প্রায় পাঁচ কোটি টাকার ঋণ দেওয়া হয়েছে। জেলা শিল্পদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, দুয়ারে সরকারে জমা পড়া আবেদনের ভিত্তিতে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ক এই ঋণ দিয়েছে। যা বেকার যুবক-যুবতীদের স্বনির্ভর করতে অনেকখানি সাহায্য করবে। 
জেলা শিল্পদপ্তরের জেনারেল ম্যানেজার সৌমেন দত্ত বলেন, মুখ্যমন্ত্রীর ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় এই প্রকল্পটির রাজ্যে শুরু হয়েছে। মূলত বেকার যুবক-যুবতীদের কথা ভেবেই এই ঋণের ব্যবস্থা করা। যে বা যাঁরা ঋণ নেবেন তাঁরা যে কোনও ব্যবসার জন্য ঋণ নিতে পারেন। চাষবাসের কাজেও তা ব্যবহার করতে পারেন। আশা করি যে লক্ষ্যমাত্রা নেওয়া হয়েছে তা আমরা পূরণ করতে পারব। 
প্রশাসন সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, মোট ৬ হাজার ৫২টি আবেদন জমা পড়েছে। এর মধ্যে ৬৫১ জনকে প্রাথমিকভাবে ১৪ কোটি ৯৪ লক্ষ টাকা ঋণ দেবে ব্যাঙ্ক। ইতিমধ্যেই ২৫০ জনকে ৪ কোটি ৯৭ লক্ষ টাকা ঋণ দেওয়া হয়ে গিয়েছে। ১৭৬৫টি আবেদন ত্রুটির কারণে বাতিল হয়েছে। মূলত, আবেদন করার পদ্ধতিতে গাফিলতি ছিল বলেই আবেদনগুলি বাতিল হয়েছে বলে দাবি আধিকারিকদের। কিছু ক্ষেত্রে নথির ত্রুটির কারণেও তা বাতিল হয়েছে। তাছাড়া ৩২৮৫টি আবেদন খতিয়ে দেখার কাজ চলছে। 
এই প্রকল্পে একজন সর্বোচ্চ ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ নিতে পারেন। প্রকল্পের সুবিধা নিতে প্রশাসনের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কাছে আবেদন করলে তারা ব্যাঙ্কের সঙ্গে যোগাযোগ করে প্রয়োজনীর ঋণ পাইয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করে দেবে। এতে ছাড়ও পাওয়া যাবে। হাঁস-মুরগি চাষ, পশুপালন, যে কোনও ছোট ব্যবসার ক্ষেত্রে এই সুবিধা মিলবে। আবার কেউ চাইলে হস্তশিল্প তৈরির জন্যও এই ঋণ পেতে পারেন। ছাগল প্রতিপালনের জন্য ভবিষ্যৎ ক্রেডিট কার্ড প্রকল্পে সুবিধা নেওয়া বীরভূমের এক চাষি মৃন্ময় দাস বলেন, শেষ দুয়ারে সরকারে আবেদন করেছিলাম। ঋণ শোধ করলে দশ শতাংশ পর্যন্ত ছাড় মিলবে বলে জানতে পেরেছি। এতে আমাদের অনেকটাই সুবিধা হবে। ইচ্ছা থাকলেও শুরুতে টাকার অভাবে বড় কিছু পরিকল্পনা করা সম্ভব হয়না। ঋণ এখনও হাতে পাইনি। হাতে পেলে নিজের ১০ কাঠা জমিতে ঘাস চাষ ও তার পাশেই একটি ফার্ম তৈরি করব। ফার্মের একপাশে মুরগি চাষও করা যাবে। এতে আশা করি লাভের মুখ দেখব। আরেক উপভোক্তা সুনীল মণ্ডল বলেন, আমি দু’লক্ষ টাকা ঋণ পেয়েছি। আবেদনের সময় জানাতে হয়েছিল কী কারণে ঋণ নিতে চাই। তা উল্লেখ করে আবেদন জমা করতে এই সুবিধা পেয়েছি। রাজ্য সরকারকে ধন্যবাদ এমন প্রকল্প আমাদের জন্য ভাবার জন্য। গ্রামের প্রান্তিক মানুষদের জন্য এটি সত্যিই অত্যন্ত প্রয়োজনীয় একটি প্রকল্প।

6th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ