বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

উদ্বোধনের আগেই ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে বক্রেশ্বর পর্যটন কেন্দ্রের সরকারি রিসর্ট পার্ক

সৌরভ বড়াল, বক্রেশ্বর: উদ্বোধনের আগেই ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়েছে বক্রেশ্বর পর্যটন কেন্দ্রে নির্মিত নতুন কটেজ পার্ক। সেখানে থাকা ১০টির বেশি নবনির্মিত কটেজ এখন বেহাল অবস্থায় পড়ে রয়েছে। ঝোপ জঙ্গলে ভরে উঠেছে ওই পার্কের কয়েক বিঘা জায়গা। রাতের অন্ধকারে বেহাল রিসর্ট পার্ক সমাজবিরোধীদের আখড়া হয়ে উঠেছে। কোটি টাকা ব্যয়ে পর্যটকদের জন্য গড়া কটেজ পার্ক দিনের পর দিন অরক্ষিত থাকলেও কারও কোনও হেলদোল নেই বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় ক্ষুব্ধ সাধারণ মানুষ।
জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, চার বছর আগে বক্রেশ্বরের সার্বিক উন্নয়নের লক্ষ্যে ওই কটেজ পার্ক তৈরির উদ্যোগ নেওয়া হয়। সেখানে আগত পুণ্যার্থীদের জন্য মন্দির সংলগ্ন এলাকাতে সেটি গড়ে তোলা হয়। তৎকালীন বক্রেশ্বর উন্নয়ন পর্ষদের তত্ত্বাবধানে ও জেলা পরিষদের উদ্যোগে এই কটেজ পার্কের কাজ শুরু হয়েছিল। কয়েক বিঘা জায়গার উপর ১০টিরও বেশি আধুনিক সুবিধাযুক্ত কটেজ তৈরি করা হয়েছিল। তারপর সেই কটেজগুলি পর্যটন দপ্তরকে হস্তান্তর করা হয়েছিল। এই কাজ শেষ হওয়ার মুহূর্তে আচমকা গোটা প্রকল্পটি থমকে যায়। প্রতিটি কটেজে ফলস সিলিং, অ্যাটাচ বাথরুম সহ অন্যান্য নানা সুবিধা রাখা হয়েছিল। এখনও কাচের জানালা, জলের বেসিন, ইত্যাদি নানা সরঞ্জাম লাগানো রয়েছে। প্রতিটি কটেজ রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে নষ্ট হচ্ছে। ঝোপ জঙ্গলে ভরে উঠেছে গোটা কটেজ পার্ক। কটেজগুলিও ঢাকা পড়ে গিয়েছে ঝোপের মধ্যে।
সন্ধ্যা নামলে কটেজগুলির ক্যাম্পাসে ঢুকে সমাজবিরোধীরা মদ্যপান করছে বলে স্থানীয় মানুষের অভিযোগ। এলাকার বাসিন্দা কয়েকজন মহিলা প্রায় প্রতিদিন সেখানে শুকনো গাছের ডালপালা কেটে নিয়ে যাওয়ার জন্য ভিতরে প্রবেশ করেন। তাঁদের মধ্যে মালতি বাগদি, বন্দনা মাল বলেন, এখানে ছোট ছোট ঘর তৈরি করে মানুষের থাকার ব্যবস্থা করেছিল সরকার। এগুলি তৈরি করার পর থেকেই পড়ে আছে। কেউ দেখাশোনা করে না। সরকারের কোটি কোটি টাকার সম্পত্তি অবহেলায় পড়ে নষ্ট হচ্ছে। আমাদের অনেকের বসবাস করার মতো বাড়ি নেই। তাই এভাবে সরকারি টাকায় তৈরি করা ঘরগুলি পড়ে থাকতে দেখে আমাদের খারাপ লাগে।  
জেলা প্রশাসনের এক উচ্চপদস্থ আধিকারিক বলেন, এই কটেজগুলি দ্রুত সংস্কার করে যাতে ব্যবহারযোগ্য করে তোলা যায়, তার চেষ্টা করা হচ্ছে। পর্যটন দপ্তর এনিয়ে অনেক চেষ্টা করেছে। খুব শীঘ্রই এগুলির কোনও না কোনও ব্যবস্থা করা হবে। জেলা পরিষদের সভাধিপতি কাজল শেখ বলেন, বিষয়টি নিয়ে আগামী সপ্তাহেই বৈঠকে আলোচনা করব।

6th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ