বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
দক্ষিণবঙ্গ
 

লেভি বাবদ আয় বছরে ৮০ লক্ষ, বাজার দখল-যুদ্ধে পুরসভা ও জেলা পরিষদ

শ্রীকান্ত পড়্যা, তমলুক: রাজ্যের অন্যতম বড় পাঁশকুড়া পাইকারি সব্জি বাজার কার দখলে থাকবে, তা নিয়ে জেলা পরিষদ ও পুরসভার দড়ি টানাটানি চলছে। ওই বাজার থেকে বছরে ৮০লক্ষ টাকা লেভি আদায় হয়। এরকম একটি ‘গৌরী সেন’ বাজারের দখলের জন্য পুরসভা ও জেলা পরিষদের অনেকদিন ধরে ঠান্ডা লড়াই চলছে। রাজ্যের পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম জেলা পরিষদের এগজিকিউটিভ অফিসারকে চিঠি দিয়ে পাঁশকুড়া সব্জি বাজার পুরসভাকে হস্তান্তর করার নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু জেলা পরিষদ সিদ্ধান্ত নিয়েছে, পাঁশকুড়া সব্জি বাজার কোনও অবস্থায় পুরসভাকে দেওয়া হবে না। ফলে, পরিস্থিতি আরও জটিল হলে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।
পাঁশকুড়া স্টেশন বাজার গোড়া থেকেই জেলা পরিষদ ইজারা দেয়। সেখান থেকে সংগৃহীত অর্থ জেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিলে জমা পড়ে। যদিও রক্ষণাবেক্ষণের অনেকটাই পুরসভা করে থাকে। বাজার এলাকায় পরিষেবা প্রদান করে পুরসভা। পাঁশকুড়া পুরসভার মধ্যে বাজার এলাকাটি পড়ে। তাই পুরকর্তৃপক্ষ এই বাজারের দখল নিতে চাইছে। এজন্য তারা পুরমন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমকে চিঠি দেয়। সেই চিঠি পেয়ে পুরমন্ত্রী মাস কয়েক আগে জেলা পরিষদের নির্বাহী আধিকারিককে লিখিতভাবে ওই বাজার পুরসভাকে হস্তান্তর করতে বলেন। 
এদিকে জেলা পরিষদ নিজস্ব আয় বৃদ্ধির উপর জোর দিয়েছে। তাই পুরমন্ত্রীর চিঠি সত্ত্বেও পাঁশকুড়া সব্জি বাজার পুরসভাকে হস্তান্তর না করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে তারা। মঙ্গলবার জেলা পরিষদে সাধারণ সভায় ওই সিদ্ধান্তে সিলমোহর দেওয়া হয়। শুধু তাই নয়, জেলা পরিষদের অধীনে যেসব পুকুর আছে সেগুলি মৎস্য দপ্তরকে না ছাড়ার বিষয়েও রাজ্যকে চিঠি দিয়েছে জেলা পরিষদ। তাহলে নিজস্ব আয় কমে যাবে বলে জেলা পরিষদের সভাধিপতি উত্তম বারিক জানিয়েছেন।
ফেরিঘাট এবং পাঁশকুড়া সব্জি বাজার নিলাম করে প্রতি বছর দু’কোটি টাকার বেশি আয় করে জেলা পরিষদ। এই অবস্থায় ওই সব্জি বাজার হাতছাড়া হলে নিজস্ব আয়ে বিরাট প্রভাব পড়বে। জেলা পরিষদের আওতায় থাকা একাধিক পুকুর লিজে দেওয়া আছে। সেইসব পুকুর মৎস্যদপ্তরকে দেওয়া হলে জেলা পরিষদের নিজস্ব তহবিলে টান পড়বে। তাই সাধারণ সভার বৈঠকে ঠিক হয়েছে, ওইসব পুকুর ধরে রাখার জন্য রাজ্যকে চিঠি দেওয়া হবে।
পাঁশকুড়া পুরবোর্ডের চেয়ারপার্সন নন্দকুমার মিশ্র বলেন, পাঁশকুড়া স্টেশন বাজারকে আমাদের দেওয়ার জন্য দীর্ঘ লড়াই চলছে। এনিয়ে আমরা পুরমন্ত্রীর দ্বারস্থ হয়েছিলাম। পুরমন্ত্রী এরআগের জেলাশাসককে চিঠি দিয়েছিলেন। যদিও জেলা পরিষদ ওই বাজার কোনও অবস্থায় হস্তান্তর করতে চায় না বলে জানা যাচ্ছে। 
জেলা পরিষদের সভাধিপতি বলেন, গত বোর্ডের সময় পুরমন্ত্রী চিঠি দিয়েছিলেন। তবে, আমরা ওই বাজার পুরসভাকে হস্তান্তর করব না বলে সাধারণ সভার বৈঠকে ঠিক করেছি। আমাদের নিজস্ব তহবিলের আয় ঠিকঠাক রাখতেই এই সিদ্ধান্ত।

30th     November,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ