Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

সতর্কতার সময়
সমৃদ্ধ দত্ত

বাদশাহ জালালউদ্দিন আকবর, মিয়াঁ তানসেনের গানে মুগ্ধ হয়ে তাঁকে বললেন, আপনার মতো কলাকার হাজার বছরে একটিই জন্মায়, এরকম গান ভূভারতে আর কেউ গাইতেই পারে না বলে আমার বিশ্বাস। তানসেন সেটা শুনে বললেন, আলমপনা, আমার গুরুর স্বামী হরিদাস জীবিত থাকতে এমন কথা বলবেন না। তাঁর গানের পাশে আমার গান তো তুচ্ছ। আকবর বললেন, বটে! তাহলে তো তাঁর গান শুনতে হচ্ছে। অবিলম্বে তাঁকে জানাও আমি তাঁর গান শুনতে অতীব উৎসূক। দরবারে কবে তাঁর গান হবে একটা ইন্তেজাম করা হোক। তানসেন বললেন, জাঁহাপনা আপনি তো দীন দুনিয়ার মালিক। কিন্তু আপনার যিনি মালিক তাঁকে নিবেদন করেই আমার গুরু গান করেন। তিনি তো দরবারে আসবেন না। গান তো দূরের কথা। তাঁর গান শুনতে হলে তাঁর পর্ণকুটিরেই যেতে হবে। আকবর সেটা শুনে দ্বিরুক্তি না করে গিয়েছিলেন স্বামী হরিদাসের গান কুটিরের বাইরে দাঁড়িয়ে শুনতে। এরকম একটি মোগল পেন্টিংও আছে। যেখানে দেখা যাচ্ছে আকবর আর তানসেন জোড়হস্তে দাঁড়িয়ে রয়েছেন, আর স্বামী হরিদাস গান করছেন। আকবর নির্দেশ দিয়েছিলেন ওই গানের কথাগুলো বিভিন্ন ভাষায় অনুবাদ করে অন্য ভাষাতেও যেন শোনানোর ব্যবস্থা হয়। এই সংস্কৃতির আদানপ্রদানের সবথেকে বড় যে উদাহরণ পাওয়া যায় সেটি সঙ্গীতের দুনিয়ায়। প্রবাদপ্রতীম উচ্চাঙ্গসঙ্গীত শিল্পী ভাস্কর বুয়া কট্টর ব্রাহ্মণ সন্তান হয়েও উস্তাদের জন্য নিজে বাজার করে মাংস রান্না করে খাওয়াতেন। আবার খ্যাতনামা সঙ্গীতরচয়িতা কাবুলি পাঠান স্বপ্নে কৃষ্ণদর্শন পেয়েছিলেন। তারপর আফগানিস্তান থেকে মথুরায় এসে ‘রসখান’ নাম নিয়ে বহু ভজন রচনা করলেন।
ভারতের এক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অক্সফোর্ডে বেড়াতে গিয়ে একবার নীরদ সি চৌধুরীর সঙ্গে দেখা করে হিন্দুত্ব নিয়ে আলোচনা করতে আগ্রহী হয়েছিলেন। নীরদ সি জানতে চেয়েছিলেন, মহাশয়ের কি সংস্কৃত ভাষা জানা আছে? সংস্কৃতে হিন্দুশাস্ত্রগুলো পাঠের অভ্যাস নিশ্চয়ই আছে? নেই শুনে, নীরদ সি বলেছিলেন, তাহলে অন্য আলোচনা হোক। অর্থাৎ যে ব্যক্তি সংস্কৃতই জানেন না, তাঁর সঙ্গে হিন্দুত্ব নিয়ে নীরদ সি কথা বলতে মোটেই উৎসাহী নন। অথচ নীরদ সি চৌধুরীকে সকলেই জানেন ইংরেজিপ্রিয় এক ভারতীয় ব্রিটিশ হিসেবেই। আদতে তিনি ছিলেন সংস্কৃতেও পারঙ্গম। ঠিক যেমন ছিলেন রামমোহন রায়, যেমন ছিলেন বিদ্যাসাগর। তাঁরা ইংরেজি ও সংস্কৃত দুটিতেই পটু ছিলেন।
অর্থাৎ ভারতীয় সংস্কৃতির সনাতন ধারাটি হল দিবে আর নিবে, মিলিবে মেলাবে। কিন্তু সেই সংস্কৃতি থেকে আমাদের সরিয়ে এনেছে অসহিষ্ণুতা আর স্বল্পবিদ্যা। আর সবথেকে বেশি জায়গা করে নিয়েছে বিদ্বেষ। রাজনৈতিক প্রতিপক্ষের প্রতি বিদ্বেষ। আর ধর্মীয় সম্প্রদায়গত বিদ্বেষ। এই দুটি ক্রমবর্ধমান। কারণ অত্যন্ত স্পষ্ট। দ্রুতহারে শিক্ষা, সংস্কৃতির চর্চা ও অনুশীলন কমে যাচ্ছে। তাহলে সামাজিক জীবনের দৈনন্দিন কী নিয়ে আবর্তিত হবে? সেই জায়গাটা নিয়েছে রাজনীতি আর ধর্মীয় বিদ্বেষ। তাই নিরন্তর আলোচনা, চর্চা আর মোবাইলে আলাপচারিতায় সবথেকে বেশি জায়গা করে নেয় এই দুটি বিষয়। অন্য বিষয় নিয়ে অনেকক্ষণ ধরে সময় অতিবাহিত করা কিংবা আলোচনা চালিয়ে যাওয়ার সমস্যা হল অন্য বিষয়ে চর্চাই নেই। বই পড়া, গান শোনা, আন্তর্জাতিক ইস্যু, বিশ্ব রাজনীতি কিছুরই চর্চা নেই। তাই আজকাল দেখা হলে কিংবা কোনও হাই হ্যালো শুরু হওয়ার কিছুক্ষণের মধ্যেই তৃতীয় বা চতুর্থ বাক্য হিসেবে উঠে আসে রাজনীতি এবং তারপর তার হাত ধরেই সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষ।
ধর্মীয়, সাংস্কৃতিক ও সামাজিক ঐতিহ্য থেকে যে সমাজ দূরে সরে যায়, তার অবক্ষয় ত্বরান্বিত হয়। মূল্যবোধ প্রায় থাকেই না। সেক্ষেত্রে দেখা যায় অপসংস্কৃতিই মূলস্রোতের সংস্কৃতিতে পরিণত হচ্ছে। এবং স্বল্পজ্ঞান অথবা অল্পবিদ্যা সত্যিকারের ভয়ঙ্করীতে পর্যবসিত হয়। তাই আগে যেসব আচরণের জন্য সমাজ লজ্জাবোধ করত, এখন সেই আচরণকেই বুক বাজিয়ে সিংহভাগ শ্রেণী জাস্টিফাই করে। লক্ষ্য করলে দেখা যাবে আজকাল প্রকাশ্যে পাবলিক প্লেসে কিংবা সোশ্যাল মিডিয়াতে গোটা দুনিয়া দেখছে জেনেও অনায়াসে অশালীন শব্দ খুব দম্ভের সঙ্গে ব্যবহার করা হয়। রুচিহীন ব্যবহার, তুমুল উচ্চকিতভাবেই গালিগালাজ করা হয় প্রকাশ্যেই তর্কে জয়ী হতে কিংবা অত্যন্ত স্বাভাবিক আলাপচারিতায়। যেন ওটা একটা স্মার্টনেস। ঠিক একইভাবে নেতানেত্রীদের মুখেও অহরহ শোনা যায় এরকমই অশালীন, রুচিহীন শব্দের প্রকাশ। কেন? কারণ একটি সমাজে ক্রমেই ঠিক সেরকম রাজনীতিই জনপ্রিয় হয়ে ওঠে, সেই সমাজটি আসলে যেমন। তাই এই যে কথায় কথায় যে কোনও অপসংস্কৃতি, অবক্ষয় কিংবা হিংসা আবহের জন্য কখনও সরকার,কখনও দল, কখনও পুলিস, কখনও নেতামন্ত্রীদের দোষ দেওয়া হয়, সেসবই হল নিজেদের আড়াল করার প্রয়াস। আসলে সমাজের সিংহভাগ ভিতরে ভিতরে ওরকমই হয়ে গিয়েছে। আর তাই এই নেতানেত্রীরা কিংবা এই রাজনীতি একটা বড় অংশের মানুষের কাছে গ্রহণযোগ্য হয়ে উঠছে। আমরা নিজেরা চরম অসহিষ্ণু। কিন্তু সেই একই অসহিষ্ণুতার ছাপ নেতানেত্রীর মধ্যে দেখলে গর্জে উঠি। বুঝি না, আমাদের মনের ছাপটাই আসলে রাজনীতিতে পড়েছে।
আমাদের রাজ্যে রাজনৈতিক ও ধর্মীয় বিদ্বেষ এতটাই ভাবনার রন্ধ্রে ঢুকে পড়েছে যে, প্রতিটি হিংসাত্মক ঘটনায় দুটি জিনিস আগে সকলে সন্ধান করে। কোন দল ও কোন ধর্মের মানুষ আক্রমণকারী কিংবা আক্রান্ত। সন্দেশখালি, ক্যানিং, কোচবিহার, ডায়মন্ডহারবার যেখানেই রাজনৈতিক সংঘর্ষ হোক, প্রতিটি ঘটনাকে আজকাল সাম্প্রদায়িক রূপ দেওয়ার প্রবল চেষ্টা চলে। রাজনৈতিক দলগুলিও সম্প্রদায়গতভাবেই রাজনীতির ফায়দা তোলার চেষ্টা করে বলাই বাহুল্য। রাজনৈতিক বিদ্বেষ কেমন? অপছন্দের নেতানেত্রীকে যেকোনও ঘটনার জন্যই দায়ী করার প্রবণতা। ধর্ষণ হয়েছে? উনি দায়ী। দুর্ঘটনা হয়েছে? উনি দায়ী। সন্ত্রাস হয়েছে? উনি দায়ী। ডাক্তার, উকিল, সরকারি কর্মী, শিক্ষকদের আন্দোলন চলছে? উনি দায়ী। চাকরি নেই? উনি দায়ী। চাকরি চলে গেল? উনি দায়ী। গণপিটুনি? উনি দায়ী। আর একইভাবে সাম্প্রদায়িক বিদ্বেষের প্রবণতাটিই এরকমই। যে কোনও ঘটনা, দুর্ঘটনা, অপরাধ হলে তো বটেই, সবথেকে বিপজ্জনক হল কোনও ঘটনা না ঘটলেও সাম্প্রদায়িক প্ররোচনা ছড়ানোর জন্য উস্কানিমূলক মিথ্যা গুজব ছড়ানো হয়। এবং কোনও এক সম্প্রদায়কে দাগিয়ে দেওয়া হয়।
এই যে বিদ্বেষের বীজ এবং সেটা যাতে অন্যদের মধ্যেও আরও বেশি করে ছড়িয়ে পড়ে সেটা মনেপ্রাণে চাওয়া, এর শেষতম লক্ষ্যটি কি? ধরা যাক বিদ্বেষের কারণে লাগাতার দাঙ্গা লাগানোর চেষ্টা করা হয়। নানাবিধ সত্যি, অর্ধসত্য, মিথ্যা মিশিয়ে। এভাবে কখনও বসিরহাট, কখনও ভাটপাড়া, কখনও ডায়মন্ডহারবারে বিচ্ছিন্নভাবে এলাকাগতভাবে মাঝেমধ্যেই সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা হয়। আবার এরকম অনেক দাঙ্গার খবর ছড়ানো হয় যার কোনও সোর্স নেই। একমাত্র সোর্স হোয়াটস অ্যাপ আর ফেসবুকে ফরওয়ার্ড করা মেসেজ। লক্ষ্য করা যাচ্ছে বিগত বেশ কয়েকবছর ধরে এভাবে সারাক্ষণ পশ্চিমবঙ্গ নানাভাবে অশান্ত হয়েই থাকছে। রাজনৈতিক সংঘর্ষ দিকে দিকে। দাঙ্গা। মিছিল। মিছিলে মিছিলে সংঘাত। যে কোনও একটা ঘটনাকে কেন্দ্র করেই দেখা যাচ্ছে তুলকালাম হচ্ছে। এভাবেই একদিন এরকম ছোট ছোট লিটমাস টেস্টের পর যদি বিদ্বেষের সম্প্রসারণের ফলে গোটা রাজ্যেই দাঙ্গা শুরু হয়? গৃহযুদ্ধ। গোটা রাজ্যে যদি আগুন জ্বলে তখন প্রত্যেকটি মানুষের ঘরেই সেই আগুন ঢুকে যাবে। যে সম্প্রদায়ের মানুষই হোক প্রত্যেকের স্থান হবে শুধুমাত্র নিজের ঘরে আতঙ্কে বসে থাকা। অথবা ঘর থেকে পালিয়ে গিয়ে কিংবা বাস্তচ্যূত হয়ে কোনও এক সরকারি আশ্রয় শিবির। কিংবা মন্দির কিংবা মসজিদে আশ্রয়। এসব বেদনাময় ভয়ঙ্কর চিত্র অতীতে বহুবার ভারত ও বাংলা দেখেছে। তাই ছবির মতো বিবরণ দেওয়া যায় যে দাঙ্গা হলে কী হতে পারে। চাকরি, ব্যবসা, জীবিকা, ছেলেমেয়ের স্কুল কলেজ সব বন্ধ হয়ে যাবে অনির্দিষ্টকালের জন্য। দাঙ্গাকারী সর্বদাই হয় সুবিধাবাদী কিছু অপরাধী আর লুম্পেনরা। স্রেফ টাকা পয়সা লুণ্ঠন, মহিলাদের ওপর অত্যাচার আর নির্বিচারে হত্যা। এটাই যে কোনও দাঙ্গার শেষ কথা। দাঙ্গা করে কাউকে টাইট দেওয়া যায়নি আজ পর্যন্ত। কারণ দাঙ্গা মানেই হল সব পক্ষের মানুষের মৃত্যু আর সম্পত্তিহানি। আর সবথেকে বড় কথা শান্তিপূর্ণ এক সুস্থ জীবনযাপন ধ্বংস হয়ে যাওয়া। তাই আমাদের এখন ভাবতে হবে হঠাৎ করে চারদিকে এরকম মাত্রাহীন অশান্তি কেন? কেন গোটা দেশের তাবৎ ন্যাশনাল মিডিয়ায় আমাদের রাজ্যকে লাগাতার হিংসাশ্রয়ী, আইনশৃঙ্খলা না থাকা একটা রাজ্য হিসেবে প্রতিভাত করা হচ্ছে? এরকম কেনই বা ঘটছে অবিরত?
আমাদের সচেতনতার অভাব আর ধর্মীয় ও রাজনৈতিক বিদ্বেষকে কাজে লাগিয়ে আমাদের শর্তহীনভাবে অলক্ষ্যে ভাড়া করে নেয় রাজনৈতিক দল। সোশ্যাল মিডিয়ায় রাজনৈতিক দলের হয়ে বিনা পয়সার আর্মি হিসেবে কাজ করি। আমাদের পছন্দের দলের হয়ে তাদের অ্যাজেণ্ডা প্রচার করি, শেয়ার করি, ফেক নিউজ ফরওয়ার্ড করি। লাভ হয় রাজনীতির। এ রাজ্যকে আইনশৃঙ্খলাহীন প্রমাণ করে আমাদের ব্যক্তিগত লাভ কী হবে? বরং আমাদের উচিত সর্বদাই চেষ্টা করা যাতে আইনশৃঙ্খলার অযথা সন্দেহজনকভাবে অবনতি না হয়। লক্ষ্য রাখতে হয়। নজরদারি করতে হয়। নিজেদের স্বার্থে। কারণ এ হল আমাদের জন্মভূমি। রাজনীতি, সরকার, শাসক, বিরোধীদের ভবিষ্যৎ ভোটের হাতে ছেড়ে দেওয়াই যুক্তিযুক্ত। আজ নয় কাল তো বিধানসভার ভোট হবেই। তখনই দেখা যাবে মানুষ কাকে ভোট দেয়। যাকে অপছন্দ তাকে হারিয়ে দেবে মানুষ। গণতন্ত্রের এটাই নিয়ম। তার আগে এই যে নিরন্তর অবিরত অস্থিরতা, অরাজকতা আর নৈরাজ্য চলছে এটায় নিশ্চিতভাবে রাজনৈতিক দলগুলির লাভক্ষতি হতে পারে। আমাদের কিন্তু বিন্দুমাত্র লাভ নেই। কারণ আমি যে দলেরই হই ট্রেন অবরোধের সময় আমিও আটকে যাই। ইন্টারনেট বন্ধ থাকলে আমারও কাজের ক্ষতি হয়। দাঙ্গা হলে যে অটোয় আগুন লাগানো হবে সেই অটোতে আমার ছেলেমেয়েও থাকতে পারে। তাই অনেক বোকা হয়েছি। এবার না হয় একটু স্বার্থপর হয়ে নিজের স্বার্থ দেখি। সবার আগে নিজেরা নিশ্চিত করি যাতে আমাদের এইসব পারস্পরিক ঘৃণা আর বিদ্বেষের সুযোগে অন্য কেউ আগুন না জ্বালায়। মনে রাখতে হবে ’৭৬-এর মন্বন্তরে বাংলাকেই ভুগতে হয়েছে, ১৯৪৩ সালের দুর্ভিক্ষ বাংলাতেই হয়েছে। দেশভাগে ক্ষতবিক্ষত হয়েছি আমরাই। গুজরাত, মহারাষ্ট্র, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ কিংবা দক্ষিণ ভারতের গায়ে এসবের একটুও আঁচ লাগেনি। শুধু বারংবার জখম হয়েছে এই বাঙালি জাতি। দাঙ্গায় বারংবার ধ্বংসের মুখে দাঁড়িয়েছে এই বাংলাই। কেন্দ্রীয় সরকারের আর্থিক বঞ্চনার লাগাতার শিকার বরাবর বাংলা। সুতরাং আবার বাংলা অশান্ত হবে, আর বাকি ভারত মজা দেখবে এটা কি কাম্য? সমাজের প্রতি অবশ্যই উদাসীন থাকবো না আমরা। সচেতন নাগরিক থাকবো। সরকারের সবরকম অনাচার, অন্যায়ের তীব্র প্রতিবাদ করাই উচিত। আবার বিরোধীদের দায়িত্বজ্ঞানহীন আন্দোলনেরও নিন্দা করা উচিত। সবই করা দরকার নাগরিক হিসেবে। শুধু সতর্ক থাকতে হয় যে আমাদের কেউ ইউজ করছে না তো? যে দলই হোক তারা নিজেদের ফায়দার জন্য আমাদের কাজে লাগাচ্ছে না তো? আমাদের সারাদিন উত্তেজিত রাখতে মাঝেমধ্যেই কিছু না কিছু ঘটনার মাধ্যমে শুধুই উস্কানি দেওয়া হচ্ছে না তো! ঠিক যেমন ইলেকট্রনিকস গ্যাজেটস, মোবাইলে মাঝেমধ্যেই রিচার্জ করা হয়! আমরা আসলে কিছু অচেনা মানুষের কাছে সেরকমই নিছক দম দেওয়া যন্ত্র নই তো?
14th  June, 2019
বিধানসভা ভোট কিন্তু হবে মমতাকে দেখেই
শান্তনু দত্তগুপ্ত 

ইন্দিরা গান্ধীর টার্গেট ছিল একটাই। যেভাবে হোক সিপিএমের কোমর ভেঙে দিতে হবে। তিনি মনে করতেন, সিপিএম আসলে সিআইএ’র মদতপুষ্ট। ঠিকঠাক সুযোগ পেলে পূর্ববঙ্গ এবং পশ্চিমবঙ্গে সশস্ত্র আন্দোলন করিয়ে বৃহত্তর বাংলা গঠন করে ফেলবে। কাজেই বাংলা কংগ্রেস এবং সিপিআই পছন্দের তালিকায় থাকলেও সিপিএমকে মোটে বরদাস্ত করতে পারতেন না ইন্দিরা।
বিশদ

ডাক্তারবাবুদের গণ-ইস্তফা নজিরবিহীন,
কিন্তু তাতে কি হাসপাতাল সমস্যা মিটবে?

 এ-কথাও তো সত্যি যে, হাসপাতালের পরিকাঠামোগত উন্নয়নে বা ডাক্তারবাবুদের যথাযথ নিরাপত্তা বিধানে তাঁর সদিচ্ছা আছে এবং ইতিমধ্যেই তার যথেষ্ট প্রমাণ মিলেছে। এই অচলাবস্থা কাটাতে প্রবীণদের বৈঠকে ডেকে মুখ্যমন্ত্রী সমাধানসূত্র খুঁজছেন— সেটাও কি ওই সদিচ্ছারই নামান্তর নয়? বিশদ

16th  June, 2019
নরেন্দ্র মোদির মালদ্বীপ সফর এবং ভারত মহাসাগরে ভারতের নতুন রণনীতি
গৌরীশঙ্কর নাগ

 মোদিজির এই দ্বীপপুঞ্জ-সফর কেবলমাত্র হাসি বিনিময় ও করমর্দনের রাজনীতি হবে না, বরং এর প্রধান অ্যাজেন্ডাই হল প্রতিরক্ষা ও নিরাপত্তা ব্যবস্থাকে মজবুত করা। তবে সেটা করতে গিয়ে ভারত যেন দ্বীপপুঞ্জের অভ্যন্তরীণ রাজনীতিতে অযথা হস্তক্ষেপ না করে বসে। কিন্তু তার অর্থ এই নয় যে, ভারত মালদ্বীপকে সন্ত্রাসবাদের নয়া ‘আঁতুড়ঘর’ হতে দেবে। কারণ ইতিমধ্যেই আমরা দেখেছি পাকিস্তান, আফগানিস্তান এমনকী মধ্যপ্রাচ্য থেকেও জেহাদি নেটওয়ার্কের কারবার মালদ্বীপেও পৌঁছে গিয়েছে। এই র‌্যাডিক্যালিজমের একমাত্র দাওয়াই হল অর্থনৈতিক উন্নয়ন ও তার সহায়ক শক্তি হিসেবে রাজনৈতিক স্থিরতা।
বিশদ

15th  June, 2019
ক্ষমতার ‘হিন্দি’ মিডিয়াম
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 উত্তর ভারতের সঙ্গে দক্ষিণের সীমারেখা। আর তার কারিগর আমরাই। আমাদের কাছে সাউথ ইন্ডিয়ান মানে মাদ্রাজি। দক্ষিণ ভারতের লোকজন নারকেল তেল খায়, অদ্ভুত ওদের উচ্চারণ, লুঙ্গি পরে বিয়েবাড়ি যায়... হাজারো আলোচনা। উত্তর ভারত মানে বিষম একটা নাক উঁচু ব্যাপার। আর দক্ষিণ মানেই রসিকতার খোরাক। তাই ওদের একটু ‘মানুষ’ করা দরকার। কীভাবে সেটা সম্ভব? হিন্দি শেখাতে হবে। বিশদ

13th  June, 2019
বারুদের স্তূপের উপর পশ্চিমবঙ্গ
হিমাংশু সিংহ

সংসদীয় রাজনীতিতে কিছুই চিরস্থায়ী নয়। কারও মৌরসিপাট্টাই গণতন্ত্রে বেশিদিন টেকে না। সব সাজানো বাগানই একদিন শুকিয়ে যায় কালের নিয়মে। ইতিহাস কয়েক বছর অন্তর ফিরে ফিরে আসে আর ধুরন্ধর শাসককে চরম শিক্ষা দিয়ে তাঁকে, তাঁর ক্ষমতাকে ধুলোয় লুটিয়ে দিয়ে আবার ফকির করে দিয়ে যায়। সব ক্ষমতা এক ভোটে বিলীন। ধূলিসাৎ। আর এখানেই মহান গণতন্ত্রের জিত আর চমৎকারিত্ব। আর সেই দিক দিয়ে ২৩ মে-র ফল এই পশ্চিমবঙ্গের রাজনীতিকেও আবার এক মহান সন্ধিক্ষণের দিকেই যেন ঠেলে দিয়েছে। ‘বিয়াল্লিশে বিয়াল্লিশ’ হয়নি, ‘২০১৯ বিজেপি ফিনিশ’—তাও হয়নি। উল্টে সারাদেশে বিজেপি থ্রি-নট-থ্রি (অর্থাৎ ৩০৩টি) আসন জিতে তাক লাগিয়ে দিয়েছে ভোট-পণ্ডিতদের।
বিশদ

11th  June, 2019
মোদিজি কি ‘সবকা বিশ্বাস’ অর্জন করতে পারবেন?
পি চিদম্বরম

 নরেন্দ্র মোদি এবার যে জনাদেশ পেয়েছেন তা অনস্বীকার্যভাবে বিপুল। যদিও, অতীতে লোকসভা নির্বাচনে একটি পার্টি ৩০৩-এর বেশি আসন জেতার একাধিক দৃষ্টান্ত আছে। যেমন ১৯৮০ সালে ইন্দিরা গান্ধী ৩৫৩ এবং ১৯৮৪ সালে রাজীব গান্ধী ৪১৫ পেয়েছিলেন।
বিশদ

10th  June, 2019
 বিজেপি এ রাজ্যের বিধানসভা ভোটকে
কঠিন চ্যালেঞ্জ মনে করছে কেন?
শুভা দত্ত

 কয়েকদিনের মধ্যে বেশ কয়েকটি মর্মান্তিক খুনের ঘটনা ঘটে গেল রাজ্যের উত্তর থেকে দক্ষিণে। তাই আজও একই প্রসঙ্গ দিয়ে এই নিবন্ধ শুরু করতে হচ্ছে। গত সপ্তাহেই লিখেছিলাম, ভোটফল প্রকাশের পর রাজ্যের বেশ কিছু এলাকায় যেন একটা হিংসার বাতাবরণ তৈরি হয়েছে।
বিশদ

09th  June, 2019
ইচ্ছে-ডানায় নাচের তালে
অতনু বিশ্বাস

এ বছরের সিবিএসই পরীক্ষার ফল বেরতে দেখা গেল, প্রথম হয়েছে দু’টি মেয়ে। একসঙ্গে। ৫০০-র মধ্যে তারা পেয়েছে ৪৯৯ করে। দু’জনেই আবার আর্টসের ছাত্রী। না, পরীক্ষায় আজকাল এত এত নম্বর উঠছে, কিংবা আর্টস বিষয় নিয়েও প্রচুর নম্বর তুলে বোর্ডের পরীক্ষায় র‍্যাঙ্ক করা যায় আজকাল—এগুলোর কোনওটাই আমার আলোচনার বিষয়বস্তু নয়।
বিশদ

08th  June, 2019
ভারতের রাজনীতিতে ‘গেম মেকার’
মৃণালকান্তি দাস

মেধাবী হলেই যে পড়ুয়ার জন্য মোটা বেতনের চাকরি নিশ্চিত, তার কোনও গ্যারান্টি নেই। শুধু প্রতিভা থাকলে আর পরিশ্রমী হলেই হবে না, উপযুক্ত প্রশিক্ষণ এবং ঠিকঠাক ‘গাইড’ না পাওয়ায় পড়ুয়ারা আজ আর সরকারি চাকরির লক্ষ্যভেদ করতে পারেন না।
বিশদ

07th  June, 2019
অবিজেপি ভোটে বাজিমাত
বিজেপির, এবং তারপর...
মেরুনীল দাশগুপ্ত

আলোড়ন! নিঃসন্দেহে একটা জবরদস্ত আলোড়ন উঠেছে। লোকসভা ভোটফল প্রকাশ হওয়া ইস্তক সেই আলোড়নের দাপটে রাজ্য-রাজনীতি থেকে সাধারণের অন্দরমহল জল্পনা-কল্পনা, বিবাদ-বিতর্ক, আশা-আশঙ্কায় যাকে বলে রীতিমতো সরগরম! পথেঘাটে আকাশে বাতাসে যেখানে সেখানে ছিটকে উঠছে উৎকণ্ঠা নানান জিজ্ঞাসা।
বিশদ

06th  June, 2019
কর্ণাটক পুরনির্বাচন: আবার উল্টালো ভোটফল
শুভময় মৈত্র 

নির্বাচনে ভোটফল নিয়ে কখন যে কী ঘটছে তার ব্যাখ্যা পাওয়া যাচ্ছে না মোটেই। মানুষ অবশ্যই মত বদলাবেন। সে স্বাধীনতা তাঁদের আছে। সে জন্যেই তো ভোটফল বদলায়। নাহলে সংসদীয় গণতন্ত্রের কোনও অর্থই থাকে না।  
বিশদ

04th  June, 2019
বাংলায় রামবোকামির মরশুম
হারাধন চৌধুরী 

আমার মামার বাড়ি ভারত-বাংলাদেশের একটি সীমান্ত গ্রামে। বলা বাহুল্য, আমার মায়ের জন্ম দেশভাগের অনেক আগে। স্বভাবতই তাঁর স্মৃতির অনেকখানি জুড়ে ছিল অখণ্ড ভারতীয় গ্রামদেশ ও তার সংস্কৃতি। ১৯৪৭-এ মায়ের শৈশবের গ্রামের উপর দিয়েই ভাগ হয়ে গিয়ে ভারতের ভূগোল এবং ইতিহাস খুলেছিল এক নতুন অধ্যায়। 
বিশদ

04th  June, 2019
একনজরে
 সৌম্যজিৎ সাহা  কলকাতা: রাজ্যে ক্রমশ কমছে ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের আসন। গতবার যেখানে ৩১ হাজারের বেশি আসন ছিল, এবার তা আরও কমে হয়েছে ২৯ হাজার ৬৫৯টি আসন। প্রাথমিক হিসেবে এই তথ্য মিলেছে। যদিও এখনও দু’টি কলেজ এবং কয়েকটি বিষয়ের আসন যুক্ত হওয়ার ...

  ফিলাডেলফিয়া ও লোয়া, ১৭ জুন (এপি): মার্কিন মুলুকে ফের বন্দুকবাজের হামলা। পার্টি চলাকালীন ফিলাডেলফিয়ায় গুলিবিদ্ধ হয়ে মৃত্যু হল এক পড়ুয়ার। জখম হয়েছে আরও ৮ জন। রবিবার রাত সাড়ে ১০টার কিছুটা আগে সাউথ সেভেনটি স্ট্রিট এবং রিড বার্ড স্ট্রিটের কাছে ...

  মুম্বই, ১৭ জুন (পিটিআই): ৬৭ কোটি ৬৫ লক্ষ টাকা ঋণ পরিশোধ করতে ব্যর্থ হওয়ায় বিড়লা সূর্য সংস্থার ডিরেক্টর যশোবর্ধন বিড়লাকে ইচ্ছাকৃত ঋণখেলাপি ঘোষণা করল ইউকো ব্যাঙ্ক। রবিবার এ বিষয়ে জনস্বার্থে নোটিস জারি করেছে তারা। ...

সংবাদদাতা, কালনা: কালনা ফেরিঘাটের এবার নিলাম হতে অনলাইনে। ইতিমধ্যে কালনা পুরসভার তরফে অনলাইনে নিলামের বিজ্ঞপ্তি জারি করা হয়েছে। ১১ জুলাই নিলামের দিন ধার্য করা হয়েছে। পুরসভার পক্ষ থেকে নিলাম দর রাখা হয়েছে বাৎসরিক ৫০ লক্ষ টাকা।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

উচ্চতর বিদ্যায় সাফল্য আসবে। প্রেম-ভালোবাসায় আগ্রহ বাড়বে। পুরনো বন্ধুর সঙ্গে সাক্ষাতে আনন্দলাভ হবে। সম্ভাব্য ক্ষেত্রে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৯৩৬- রুশ সাহিত্যিক ম্যাক্সিম গোর্কির মৃত্যু
১৯৮৭- পরিচালক হীরেন বসুর মৃত্যু
২০০৫- ক্রিকেটার মুস্তাক আলির মৃত্যু
২০০৯- প্রখ্যাত সরোদ শিল্পী আলি আকবর খানের মৃত্যু  





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৮.৯৯ টাকা ৭০.৬৮ টাকা
পাউন্ড ৮৬.৩৪ টাকা ৮৯.৫৫ টাকা
ইউরো ৭৬.৭৯ টাকা ৭৯.৭৬ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৩,৩২৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩১,৬১৫ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩২,০৯০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৭,১০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৭,২০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৩ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ১৮ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, প্রতিপদ ২৩/৫৮ দিবা ২/৩১। মূলা ১৭/১৬ দিবা ১১/৫০। সূ উ ৪/৫৬/০, অ ৬/১৮/৫৪, অমৃতযোগ দিবা ৭/৩৬ মধ্যে পুনঃ ৯/২৩ গতে ১২/৩ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৮ গতে ৪/৩১ মধ্যে। রাত্রি ৭/১ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৮ গতে ২/৬ মধ্যে, বারবেলা ৬/৩৭ গতে ৮/১৭ মধ্যে পুনঃ ১/১৮ গতে ২/৫৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/৩৯ গতে ৮/৫৮ মধ্যে। 
২ আষাঢ় ১৪২৬, ১৮ জুন ২০১৯, মঙ্গলবার, প্রতিপদ ২২/২২/৩৮ দিবা ১/৫২/৩৩। মূলানক্ষত্র ১৭/২৭/২৯ দিবা ১১/৫৪/৩০, সূ উ ৪/৫৫/৩০, অ ৬/২১/২৮, অমৃতযোগ দিবা ৭/৪০ মধ্যে ও ৯/২৭ গতে ১২/৮ মধ্যে ও ৩/৪২ গতে ৪/৩৫ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৫ মধ্যে ও ১২/২ গতে ২/৯ মধ্যে, বারবেলা ৬/৩৬/১৫ গতে ৮/১৬/৫৯ মধ্যে, কালবেলা ১/১৯/১৩ গতে ২/৫৯/৫৮ মধ্যে, কালরাত্রি ৭/৪০/৪৩ গতে ২/৫৯/৫৯ মধ্যে। 
মোসলেম: ১৪ শওয়াল 
এই মুহূর্তে
বিশ্বকাপ: আফগানিস্তানকে ১৫০ রানে হারাল ইংল্যান্ড

10:48:34 PM

স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে নিরাপত্তা, চালু কলকাতা পুলিসের হেল্প লাইন 
গতকাল মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশ পাওয়ার পর স্বাস্থ্য ক্ষেত্রে নিরাপত্তা জনিত সমস্যার ...বিশদ

09:48:24 PM

বিশ্বকাপ: আফগানিস্তান ৮৬/২ (২০ ওভার) 

08:17:00 PM

দার্জিলিং পুরসভায় প্রশাসক নিয়োগ করল রাজ্য সরকার 

08:08:39 PM

জাপানে বড়সড় ভূমিকম্প, মাত্রা ৬.৫, জারি সুনামি সতর্কতা 

07:34:58 PM

বিশ্বকাপ: আফগানিস্তান ৪৮/১ (১০ ওভার) 

07:05:00 PM