বিকিকিনি

মংপুতে রবীন্দ্রনাথ

রবীন্দ্রতীর্থ বলা যায় মংপু-কে। নির্জনতায় ঘেরা এই পাহাড়ি গ্রামের বর্ণনায় প্রীতম সরকার।

‘এ পথে আমি-যে গেছি বার বার, ভুলি নি তো একদিনও...।’ বাস্তবিকই কবি একবার দু’বার নয়, পর পর চারবার মংপুর পথে পাড়ি দিয়েছেন। এরকম একটি জায়গায় যাওয়ার ইচ্ছা আমার মনে বেশ কিছুদিন সযত্নে লালিত ছিল। কালিম্পং যাওয়ার পথে, সেই সুযোগ আসতেই একদম চোখ কান বুজে আত্মসমর্পণ করলাম মংপুর কোলে।
শিলিগুড়ি থেকে আমাদের গাড়ি সিকিমের পথে চলেছে রিম্বি হয়ে। রিম্বি বাজার থেকে মংপু পাহাড়টি স্পষ্ট দেখা যায়। মংপুর উচ্চতা প্রায় কার্শিয়াংয়ের কাছাকাছি। দু’পাশের নিসর্গ বর্ণনার জন্য বরং ফিরে যাওয়াই যায় মৈত্রেয়ী দেবীর বেশ কিছু লেখায়। 
মংপুতে পা দিয়ে কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তাঁর অনুভূতি জানিয়েছিলেন মৈত্রেয়ী দেবীকে। পাহাড়ের সৌন্দর্য বর্ণনা করে তিনি বলেছেন, আকাশের কোল থেকে সবুজ বন্যা নেমে এসেছে। মৈত্রেয়ী দেবীর সময়ের মংপুর সঙ্গে আজকের মংপুর যে বিরাট পরিবর্তন হয়েছে, তা বোধহয় নয়। মংপু আজও বড়ই নিরিবিলি। পাহাড় এখানে খোলামেলা, মেঘ, কুয়াশা, রোদ্দুর পালাক্রমে খেলা করে চলেছে পরস্পরের সঙ্গে।
মংপুর বড় আকর্ষণ একদিকে সিঙ্কোনা বাগান, অন্যদিকে রবীন্দ্রনাথ। কবিগুরুর স্মৃতিবিজড়িত বাড়িটি এখন রবীন্দ্রভবন। এই বাড়িতেই একসময় মৈত্রেয়ী দেবী বাস করতেন। তাঁর স্বামী ডঃ মনোমোহন সেন ছিলেন কুইনোলজিস্ট অর্থাৎ কুইনাইন বিশেষজ্ঞ, পরবর্তীকালে তিনি কুইনাইন ফ্যাক্টরির ডিরেক্টর হন। মংপুর সঙ্গে সিঙ্কোনা চাষ নিবিড়ভাবে যুক্ত। অনেকের ধারণা চা গাছের পাতার মতো বোধহয় সিঙ্কোনার পাতা দিয়ে কুইনাইন তৈরি হয়। আসলে কুইনাইন তৈরি হয় সিঙ্কোনা গাছের ছাল দিয়ে। এই কুইনাইনের ফ্যাক্টরিটি রবীন্দ্রভবনের বিপরীত দিকে রয়েছে। কিন্তু সেখানে আমাদের প্রবেশ অধিকার নেই। রবীন্দ্র সংগ্রহশালায় প্রবেশ করতে টিকিট কাটতে হল। জনপ্রতি টিকিটের দাম ২৫ টাকা। 
আমরা তিনজন, মানে সস্ত্রীক আমি এবং আমাদের একমাত্র কন্যা এসে দাঁড়ালাম রবীন্দ্রভবন, বা বলা ভালো রবীন্দ্র সংগ্রহশালার সামনে। কাচের দরজা-জানালা দেওয়া দুধ সাদা বাড়ি। সংগ্রহশালার প্রবেশপথের বাঁ দিকে রয়েছে কবির পাথরের আবক্ষ মূর্তি। বাংলোটির চারদিকে সবুজ গাছপালা, রঙিন ফুলে সজ্জিত। সুন্দর পাহাড়ে ঘেরা প্রাকৃতিক পরিবেশটি এক লহমায় মনকে বিহ্বল করে তুলেছে। সবুজ ঘাসের লন পেরিয়ে লম্বা টানা বারান্দা। বারান্দাতেই একটি চেয়ারে সাদা চাদরের উপর কবিগুরুর ছবি। সামনে ফুলের অর্ঘ্য, জ্বলছে সুগন্ধি ধূপ। এই জায়গাটিতে কবি প্রতিদিন ভোরবেলা একমনে বসে ধ্যানে করতেন। ওই জায়গার দেওয়ালে একটি তিন ফুট লম্বা ও আড়াই ফুট চওড়া তাম্রফলক লাগানো রয়েছে।  ফলকটি প্রতিষ্ঠা করেছিলেন শ্রীযুক্ত মনোমোহন সেন, কবির এই বাড়িতে আগমনের স্মৃতিকে স্মরণীয় করে রাখার জন্য।
বাড়িটিকে ধুয়ে মুছে যত্ন করে অত্যন্ত আন্তরিকতার সঙ্গে কবির স্মৃতিগুলিকে পর্যটকদের কাছে যিনি ঘুরিয়ে দেখান, তিনি হলেন নেপালি কেয়ারটেকার শিশির রাউত। আমাদেরও দেখালেন। শিশিরবাবুর নিজের মুখেই শুনলাম, ওঁর ঠাকুরদা ভীমনাথ রাউত এক সময় ছিলেন কবির পালকিবাহকদের একজন। ঠাকুরদার কাছে থেকেই কবিগুরুর সম্পর্কে শুনে গুরুদেবকে নিজের অস্থিমজ্জায় মিশিয়ে নিয়েছেন এই পাহাড়ি মানুষ শিশিরবাবু। ওঁদের ব্যক্তিগত উদ্যোগে ভবনটির রক্ষণাবেক্ষণ চলছে। শিশির রাউতের সঙ্গে পরিচয় না হলে বুঝতেই পারতাম না কবির প্রতি এই মানুষটির ভক্তি বা অনুরাগ কতটা!
শিশিরবাবু আমাদের নিয়ে বিভিন্ন ঘরে রাখা কবির ব্যবহৃত জিনিসগুলি দেখাচ্ছেন আর বর্ণনা করে চলেছেন। কখনও চোখ বুজে রবীন্দ্র কবিতা আউড়ে যাচ্ছেন, কখনও বা গেয়ে উঠছেন পাহাড়ি টানে পাহাড়ি উচ্চারণে রবীন্দ্রসঙ্গীতের কয়েক লাইন। একটি পেপার ওয়েট আমাদের হাতে দিয়ে নিখুঁতভাবে গেয়ে উঠলেন ‘একটুকু ছোঁয়া লাগে’, দু’-চার কলি গাওয়ার পর বললেন কবির স্পর্শ রয়েছে এই পেপার ওয়েটটিতে। তিনি ঘুরিয়ে ঘুরিয়ে আমাদের দেখালেন বাঁ দিকের ছোট ঘরটি। কাচ দিয়ে ঘেরা ঘরে রয়েছে লেখার টেবিল, চেয়ার, এখানে বসে লেখালিখি, ছবি আঁকা, পড়াশোনা করতেন। তন্ময় হয়ে বসে চেয়ে থাকতেন দূরে মৌনীস্তব্ধ পাহাড়ের দিকে।
রয়েছে কবির ব্যবহৃত খাট যেটি আধশোয়া বা শোয়া দুই অবস্থাতেই ব্যবহার করা যেত। রয়েছে বায়োকেমিক্সের বাক্স, রং তুলি। সেসময়ের সংবাদপত্র, পাণ্ডুলিপি, অসংখ্য চিত্র, চিঠিপত্র ইত্যাদি। দেখলাম, পাহাড়ি ঠান্ডায় কবিগুরুর স্নান করার জন্য তৈরি অদ্ভুত স্নানের জায়গাটি। সুন্দরভাবে গরম জল ঠান্ডা জল আসা যাওয়ার ব্যবস্থা রয়েছে। আধুনিক চিন্তাভাবনায় তৈরি একটি বাথটব। শিশিরবাবুর গলায় আবার শুনলাম, ‘দাঁড়িয়ে আছো তুমি আমার গানের ওপারে।’ দেখলাম, রবীন্দ্রনাথের প্রিয় ক্যামেলিয়া গাছটি। ‘সপ্তপর্ণী’ (যে ছাতিম 
গাছের নাম দিয়েছিলেন কবিগুরু) দেখালেন শিশিরবাবু। এখনও রয়েছে গাছটি। 
কবির বড় প্রিয় ছিল এই মংপু। প্রথমবার যখন তিনি মংপুতে এসেছিলেন, তখন প্রায় পনেরো দিন কাটিয়েছিলেন মংপুর ‘সুরেল বাংলো’তে। পরে মৈত্রেয়ীদেবীর এই বাড়িতে এসে ওঠেন। এরপর থেকে কবিগুরু যতবার মংপুতে এসেছেন, এখানেই উঠেছেন। সুরেল বাংলো মংপু থেকে তিন কিলোমিটার উপরে। যদিও এখন সেই বাংলোর ভগ্নদশা। আমাদের সেখানে যাওয়ার ইচ্ছা হয়নি। ১৯৪০-এর এপ্রিলে চতুর্থবার মংপুতে আসেন। সেবার ২৫ বৈশাখের জন্মোৎসব পাহাড়ি প্রতিবেশীদের সাহায্যে এই বাড়িতে অনুষ্ঠিত হয়েছিল। প্রায় তিনশো পাহাড়ি মানুষ সেদিন কবিগুরুর জন্মদিনের উৎসবে যোগ দিয়েছিলেন। ‘জন্মদিন’ নামক তিনটি কবিতা সেইদিন রচনা করেছিলেন। সেদিনই মংপুতে এই বাড়িতে বসে লেখা কবিতা ‘জন্মদিন’ সরাসরি থেকে রেডিও মারফত আকাশবাণী সম্প্রচার করেছিল। সেকথাও দেখলাম একটি পাথরে খোদাই করে লেখা রয়েছে। শিশিরবাবু বললেন, ‘গুরুদেব মংপুতে এই বাড়িতে বসেই অনেকগুলো কবিতা লিখেছিলেন। যেমন ক্যামেলিয়া, নবজাতক, সানাই, আকাশপ্রদীপ এবং ছেলেবেলা-র মতো বেশ কয়েকটি কবিতা লিখেছিলেন’। যে চেয়ারে বসে মংপুর পাহাড়ি শোভা দেখতে দেখতে রবীন্দ্রনাথ তাঁর জন্য নির্দিষ্ট করা ঘরে কবিতা লিখতেন, সেই চেয়ারটিও দেখলাম বিশেষ ডিজাইনে তৈরি করা কাঠের চেয়ার। চেয়ারের হাতলগুলো গোল ধরনের। যেসব প্রাকৃতিক রং দিয়ে রবীন্দ্রনাথ ছবি আঁকতেন, এখনও সেগুলো ঘরের মধ্যেই সাজিয়ে রাখা রয়েছে। 
আজ যে মংপু তীর্থস্থানে পরিণত হয়েছে সেটি বোঝা যায় রবীন্দ্রনাথের লেখার টেবিলের উপর যে স্মারক খাতাখানি রয়েছে তার পাতা ওল্টালেই। খাতাটি চীনা, জাপানি, জার্মান ও ফরাসি নানা ভাষার পর্যটকদের লেখায় ভর্তি হয়ে রয়েছে। তবুও একটা বড় প্রশ্ন থেকে যায়। যতটা পাদপ্রদীপের আলোয় মংপুর আসার কথা ছিল ততটা কি আসতে পেরেছে? মংপুকে ছেড়ে যেতে যেতে ভাবি, অরণ্যনিসর্গ পাহাড়ি ঢালে ছোট ছোট বাড়ি, মেঘ কুয়াশা, রংবেরঙের ফুল, নিটোল নির্জনতা সব নিয়ে মংপু কিন্তু যে কোনও জনপ্রিয় পাহাড়ি অঞ্চলকে টক্কর দিতে পারে অথচ পর্যটন কেন্দ্র হিসাবে গড়ে তোলার কোনও প্রচেষ্টাই এখনও পর্যন্ত গ্রহণ করা হয়নি। তাই অন্যান্য পাহাড়ি শহরের তুলনায় মংপু কিছুটা ব্রাত্যই থেকে গিয়েছে। 
কীভাবে যাবেন: হাওড়া বা শিয়ালদা থেকে বেশ কিছু উত্তরবঙ্গে যাওয়ার ট্রেন প্রতিদিন সকাল, দুপুর, রাতে ছাড়ে। সেই ট্রেনে চেপে নিউ জলপাইগুড়ি রেলস্টেশন থেকে সড়কপথে মংপু আসা যায়। আকাশপথে বাগডোগরা হয়েও মংপুতে আসা যায়। 
কোথায় থাকবেন: মংপুতে থাকতে পারেন সিঙ্কোনা প্লানটেশন বাংলোতে। এছাড়া যোগীঘাট, সিটং, ঘালেটার বা কালিম্পং প্রভৃতি জায়গায় থেকে মংপু ঘুরে দেখে নেওয়া যায়।
                               ছবি: লেখক
1Month ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

মাতুলের থেকে বিত্তলাভ হতে পারে। কোনও বিষয়ের মানসিক উদ্বেগ কমবে। বিদ্যাচর্চায় বিশেষ শুভ।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৭৭ টাকা৮৪.৫১ টাকা
পাউন্ড১০৪.১৬ টাকা১০৭.৬৩ টাকা
ইউরো৮৮.০৭ টাকা৯১.১৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
22nd     June,   2024
দিন পঞ্জিকা