বিকিকিনি

প্রকৃতির টানে মুক্তেশ্বর

কমলিনী চক্রবর্তী: নৈনিতালের পাহাড়ি কোলাহল আর পর্যটকের ভিড় এড়িয়ে আমাদের গাড়ি চলেছে সোজা। বেশ খানিকটা চড়াই পথে ওঠার পর নিস্তব্ধ প্রকৃতির সন্ধান মিলল। ভারি মনোরম রাস্তা। চারদিকে পাইনের ঘন বন, তারই মাঝে পিচের মসৃণ পথ। আমরা চলেছি মুক্তেশ্বর। সেখানে কোলাহল তেমন নেই। আছে শুধু নিস্তরঙ্গ প্রকৃতির মাঝে অবসরযাপনের আনন্দ। 
পাহাড় যাঁরা ভালোবাসেন তাঁদের পক্ষে মুক্তেশ্বর ছুটি কাটানোর আদর্শ ঠিকানা। রোদ ঝলমলে সকালে এখান থেকে সারিবদ্ধ তুষারশৃঙ্গ দেখতে পাবেন। আর পড়ন্ত বিকেলে পাহাড়ের কোলে সূর্যাস্তের শোভা দেখলে তার রূপলাবণ্যে মুগ্ধ হবেন। সোনালি থেকে কমলা, তা থেকে গোলাপি হয়ে চুঁইয়ে পড়ে সূর্যের শেষ কিরণ শ্বেতশুভ্র পাহাড়ের ভাঁজে ভাঁজে। আকাশে মেঘের গায়েও সেই রঙের বিচ্ছুরণ ঘটে। রক্তিম হয় সাদা মেঘ। তারপর ঝুপ করে সন্ধে নামে। নিকষ কালো অন্ধকারে গা ঢাকা দেয় পাহাড়শৃঙ্গ। আর সেই অন্ধকারে আলোর মালা পরে সেজে ওঠে মুক্তেশ্বর গ্রাম। বাড়ির ছোট-বড় আলো জ্বলে উঠলে মনে হয় অজস্র জোনাকি যেন পাহাড়ময় আগুনে পাখা মেলে নেচে বেড়াচ্ছে অবিরাম। সূর্যাস্তের এই অপরূপ রূপ দেখার জন্য চৌলি কি জালি ভিউ পয়েন্ট আদর্শ। পাহাড়ের উপর একটা উঁচু টিলার মতো জায়গা। চারদিকে খোলা আকাশ আর পশ্চাতে পাইনের বন। এমন জায়গায় শুধু বসে থাকতেই ভালো লাগে। 
আমরা এবার রোড ট্রিপে কলকাতা থেকে গাড়ি নিয়ে চলেছি উত্তরাখণ্ড। সমতল পেরিয়ে গাড়ি পাহাড়ি পথ ধরতেই আকাশে বাতাসে এক ভিন্ন সুর বেজে উঠল। সেই সুরের তরঙ্গ ছড়িয়ে পড়ল হৃদয় জুড়ে। বাতাসের হলকা ক্রমশ হিমেল হতে শুরু করলে পথও বাঁকে বাঁকে উঠতে লাগল সমতল ছেড়ে পাহাড়ে। মুক্তেশ্বর পর্যন্ত পাহাড়ি পথ কোথাও চওড়া কোথাও বা বেশ সরু। তবে মোটামুটি মসৃণ। নৈনিতালের জলে বোটিংয়ের শোভা দেখতে দেখতে চলেছি আমরা। হাওয়ায় তিরতির করে কাঁপছে হ্রদের জল। তারই বুকে লাল, নীল, হলুদ, সবুজ — কত রঙের নৌকো। জলের উপর রঙের তরঙ্গ তুলে ভেসে বেড়ায় তারা। পর্যটকদের কোলাহলে মুখরিত হয় নৈনিতাল। পাড়ে বসে লেকের জলে উচ্ছ্বাসের ওঠানামা দেখতেও মন্দ লাগে না। আবার অনেকেই লেকের জল ও নৌকার ইতিউতি ভেসে বেড়ানোকে ব্যাকড্রপ করে সেলফি তুলতে মগ্ন হয়ে পড়েন।  
মুক্তেশ্বর পৌঁছতে দুপুর গড়িয়ে গেল। সরকারি হোটেলে চেক ইন করে দ্রুত লাঞ্চ সেরে পায়ে হেঁটে বেরিয়ে পড়লাম আশপাশের গ্রাম্য সৌন্দর্যের খোঁজে। কিলোমিটার খানেক চলার পর একটা ছোটখাট বাজার পড়ল। হাতে গোনা কয়েকটা রেস্তরাঁ, শপিং কমপ্লেক্স, কাঁচা বাজার ইত্যাদি জুড়ে লোকের ভিড় জমে রয়েছে। উত্তরাখণ্ডের লোকদের সহজ হাসি আর অলস দিনযাপন দেখতে বেশ লাগছিল। কোথাও কোনও তাড়াহুড়ো নেই। জীবন এখানে আপন খেয়ালে বয়ে চলেছে। তারই মাঝে দোকানিরা সাজসরঞ্জামের পসরা সাজিয়ে বিকিকিনিতে মেতে উঠেছেন কোথাও। হাতে তৈরি উলের পোশাক বিকোচ্ছে পর্যটকদের হাতে হাতে। গ্রামের মেয়েদের হাতে বোনা শাল, স্টোল, টুপি, মোজায় তাদের নাম লাগানো ট্যাগ। গ্রামীণ শিল্প উন্নয়নের প্রচেষ্টা।
জিম করবেট তাঁর ‘টেম্পল টাইগার’ বইতে মুক্তেশ্বরের উল্লেখ করেন। তাঁর কথায় এই গ্রামের বৈচিত্র্য লুকিয়ে রয়েছে ঘন পাইনের বনে। সেই বনের অন্দরে কন্দরে প্রকৃতির সঙ্গে আলাপ জমে উঠবে। মুক্তেশ্বরের গোল চৌকি বা মোড় থেকে কিলোমিটার দেড়েক নেমে গেলে বাঁ হাতে একটা কাঁচা রাস্তা নেমে গিয়েছে তরতর করে। মোটামুটি দশ কিলোমিটার ভাঙাচোড়া কাঁচা রাস্তা পেরিয়ে সেই পথ উঠেছে আলমোড়া হাইওয়ে-তে গিয়ে। কিন্তু অতদূর পায়ে হেঁটে যাওয়া অসম্ভব। তবে খানিক দূর ওই কাঁচা রাস্তা ধরে বন্য পথে পাইন, ওক, বার্চ গাছের সঙ্গী হতে পারেন। অনবদ্য এক অভিজ্ঞতার সাক্ষী থাকবেন। কাঁচা এই রাস্তার গায়ে রোদ লাগে না। নাম তাই ‘শীতলা’। একদিকে ঘন পাহাড়ি বন আর অন্য দিকে গভীর খাদ। তারই মাঝে কোনওক্রমে যেন শীতলা পথ নিজের জায়গা করে এগিয়ে চলেছে। পাইন আর ওক গাছের সূচের মতো পাতার ছিদ্র দেখে আপন মনে বনের সঙ্গে লুকোচুরি খেলছেন সূর্যদেব। পথ চলতে গিয়ে গায়ে হয়তো বা এক চিলতে রোদ এসে পড়বে হঠাৎ। আবার যে কে সেই ছায়াচ্ছন্ন অন্ধকারে ঘেরা বনপথ। সন্ধে নামলে এই পথেই তেন্দুয়া বের হয়। ‘বেশি দূর যাবেন না, সন্ধে ঘন হলে পথ ঠাহর করা মুশকিল হবে।’ পর্যটক দেখে সতর্ক করে দিলেন এক পাহাড়ি কাঠুরে। তারপর বনের পথে কাঠের বোঝা মাথায় কোথায় যে হারিয়ে গেলেন আর দেখতে পেলাম না।
মুক্তেশ্বরের হাওয়ার দাপট আগে বহুবার অনেকের কাছেই শুনেছিলাম। বেলা গড়িয়ে আসতেই তা মালুম হতে লাগল। তীব্র গতিতে ছুটে চলেছে হিমেল হাওয়া। রোদ ঝলমলে মুক্তেশ্বরের গায়ে হাওয়ার আঁচড় পড়ছে সারাক্ষণ। হাওয়ার শনশন শব্দের সঙ্গে বন্য পথের শুকনো পাতার খসখস মিলেমিশে এক অদ্ভুত অর্কেস্ট্রার সৃষ্টি করছে আমাদের কানে। ঘরের বন্ধ দরজা ছাপিয়ে সেই হাওয়া আমাদের মরমে এসে কড়া নাড়ছে। ইতিমধ্যে সন্ধে গাঢ় হয়েছে। রাস্তার মায়া কাটিয়ে কুমায়ুন বিকাশ নিগমের আস্তানায় ঘরবন্দি আমরা। নিস্তব্ধ প্রকৃতির মাঝে সঙ্গী শুধুই দমকা হাওয়ার দোলা। বারান্দার দরজায় কড়া নেড়ে নিজের অস্তিত্ব জানান দিয়ে যাচ্ছে সে। অনুভূতি প্রত্যক্ষ করতে এক ঝলক বাইরে বেরিয়েছিলাম, ও মা! আমাদের বারান্দার পাঁচিলের উপর জ্বলজ্বল করছে ও কার চোখ? তেন্দুয়া কি পাইন গাছ বেয়ে বারান্দায় এসে উঠল নাকি? এইসব সাত পাঁচ ভাবতে ভাবতেই আগন্তুক আমাদের উপস্থিতি টেরে পেয়ে উড়ে গাছের ডালে মিলিয়ে গেল। খয়েরি রোমশ লেজবিশিষ্ট আগুন্তুকটি তেন্দুয়া নয়, হিমালয়ান জায়েন্ট স্কুইরেল! দৈর্ঘ্যে একটা বিড়ালের চেয়ে অল্পই ছোট। ডিনারের সময় লজের ম্যানেজারের কাছে শুনলাম আমাদের কটেজের অতিথি হয়ে মাঝে মাঝেই পর্যটকদের দেখা দেয় এই কাঠবিড়ালি। 
মুক্তেশ্বর মহাদেবের মন্দির থেকেই গ্রামের নামকরণ। পাহাড়ি পথের গা বেয়ে সিঁড়ি উঠে গিয়েছে এঁকেবেঁকে কয়েক কিলোমিটার। পায়ে হাঁটা পথে সিঁড়ি বেয়ে পৌঁছে যাবেন মহাদেবের মন্দিরে। মন্দির দর্শনের পাশাপাশি পাখির চোখে গোটা গ্রাম দেখার সুযোগও হাতছাড়া করার নয়। আর ভাগ্য সহায় হলে ৩৬০ ডিগ্রি জুড়ে তুষারশৃঙ্গের শোভা মোহিত করবে আপনাকে। তবে বাঁদরের উপদ্রব প্রচণ্ড। তাই হাতে খাবার নিয়ে এ পথে না ওঠাই শ্রেয়। এছাড়াও আছে একটা জলপ্রপাত। হর্স শ্যু-এর মতো বাঁকানো এই ঝরনা সজোরে পাহাড় ছাপিয়ে খাদের গায়ে আছড়ে পড়ে জঙ্গলের পথে হারিয়ে যায়। গ্রীষ্মে তার তেজ ততটা প্রবল নয়। পর্যটকের ভিড় লেগেছে মুক্তেশ্বরের গায়ে। তবু আদ্যোপান্ত শহুরে হয়ে ওঠেনি এখনও এই পাহাড়ি গ্রামখানা। তাই নিস্তরঙ্গ প্রকৃতি আর নৈঃশব্দ্যের সন্ধানে যদি মন ব্যাকুল হয় তবে অবশ্যই উত্তরাখণ্ডের এই পাহাড়ি গ্রাম বেছে নিতে পারেন দিন দুয়েকের অবসর যাপনের জন্য। 
ছবি: আনন্দরূপ বিশ্বাস

  
1Month ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

মাতুলের থেকে বিত্তলাভ হতে পারে। কোনও বিষয়ের মানসিক উদ্বেগ কমবে। বিদ্যাচর্চায় বিশেষ শুভ।...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮২.৭৭ টাকা৮৪.৫১ টাকা
পাউন্ড১০৪.১৬ টাকা১০৭.৬৩ টাকা
ইউরো৮৮.০৭ টাকা৯১.১৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
22nd     June,   2024
দিন পঞ্জিকা