বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর

ঘাটালে বোরো ধানে ঝলসা রোগের
আক্রমণের আশঙ্কা, কপালে ভাঁজ চাষিদের

 

সংবাদদাতা, ঘাটাল: ঘাটাল মহকুমায় বোরো ধান গাছে ঝলসা রোগ লাগছে। ফলে চাষিদের কপালে চিন্তার ভাঁজ পড়েছে। কারণ, এমনিতেই চলতি আর্থিক বছরে টানা বৃষ্টি, বার বার নিম্নচাপ এবং ঝড়ে ধারাবাহিক ভাবে চাষিদের নানা রকম ফসলের ক্ষতি হয়েছে। এই বোরো মরশুমে ধান চাষটা এতদিন পর্যন্ত ঠিক-ঠাক চললেও দু’-একদিন হল ধান গাছের পাসকাঠি বের হওয়ার সময় ঝলসা রোগ দেখা যাওয়ায় ধানের সঠিক ফলন নিয়ে সংশয় দেখা দিয়েছে। বিষয়টি স্বীকার করেছেন ঘাটাল মহকুমা সহকারী কৃষি অধিকর্তা (প্রশাসন) শ্যামাপদ সাঁতরা। তিনি বলেন, আমরাও মহকুমার বিভিন্ন মাঠ পরিদর্শন করে দেখতে পাচ্ছি এই কয়েক দিনের মধ্যেই ১০-১২ শতাংশ ধান গাছে ওই ঝলসা রোগ লেগে গিয়েছে। তিনি বলেন, এটি ধানের একটি ছত্রাক ঘটিত রোগ। দিনে গরম এবং রাতে ঠান্ডা এই ধরনের আবহাওয়াতে এই রোগটি বেশি দেখা যায়। এই রোগে ধান গাছ আক্রান্ত হলে গাছের পাতাতে মাকুর মতো দেখতে বাদামী দাগ-দাগ দেখা যায়। দাগগুলোর মাঝখানটা ছাই রঙের এবং ধারগুলো বাদামি। যখনই ওই ধরনের অনেকগুলি দাগ পর পর জুড়ে যাবে তখনই পাতাই ঝলসে যাবে।  তাই এই রোগকে ঝলসা রোগ বলা হয়। এই রোগে ধান গাছ আক্রান্ত হলে ধানের ফলন যে ঠিক মতো হবে না। তাই কৃষিদপ্তর এখন থেকেই চাষিদের সতর্ক হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।
কৃষিদপ্তর জানাচ্ছে, তবে এখন থেকেই যদি চাষিরা এনিয়ে সচেতন হতে পারেন তাহলে এই ঝলসা রোগের হাত থেকে ধানকে অতি সহজেই বাঁচানো যাবে। এর জন্য শ্যামাপদবাবু চাষিদের কয়েকটি পরামর্শও দিয়েছেন। মহকুমা সহকারী কৃষি অধিকর্তা (প্রশাসন) বলেন, এই মুহূর্তে জমিতে কোনও নাইট্রজেন সার, ভিটামিন বা এনজাইম হরমোন ব্যবহার করা যাবে না। দরকার হলে পটাশ দেওয়া যেতে পারে। প্রত্যেক দিন সূর্য ওঠার আগে একটি লম্বা দড়ি নিয়ে জমির দু’দিকে দু’জন ধানগাছের উপর সেই দড়ি টেনে গাছ থেকে সমস্ত শিশির ঝরিয়ে ফেলতে হবে। দ্বিতীয়ত, কার্বেনডাজিম ৫০ শতাংশ প্রতি লিটার জলে এক গ্রাম বা ট্রাইসাইক্লোজেল ৫০ শতাংশ প্রতি লিটারে আধ গ্রাম করে দিয়ে সাতদিন ছাড়া মোট দু’বার করে ধানজমিতে স্প্রে করতে হবে। তাহলে এই রোগ থেকে ধানজমিকে মুক্ত রাখা যাবে।
এই মহকুমায় প্রায় ২২ হাজার হেক্টর জমিতে ধান চাষ হয়। এই মরশুমে ধানের ফলন হয় এক লক্ষ ১০ হাজার মেট্রিক টন। এখন  থেকে চাষিরা এনিয়ে সতর্ক না হলে ধানের ফলন অনেকটাই মার খাবে বলে কৃষিদপ্তর আশঙ্কা করছে।

14th     March,   2022
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ