মুর্শিদাবাদ ও বীরভূমে ঝিরঝিরে বৃষ্টি
আলুতে ধসার প্রকোপের শঙ্কা, ক্ষতির মুখে সর্ষেও

নিজস্ব প্রতিনিধি, সিউড়ি ও বহরমপুর: পশ্চিমী ঝঞ্ঝার কারণে রবিবার ভোর থেকেই আকাশের মুখ ভার। বীরভূম ও মুর্শিদাবাদে ঝিরঝিরে বৃষ্টিও চলছে। অসময়ের বৃষ্টি ও প্রতিকূল আবহাওয়ায় আলু চাষিদের মাথায় হাত পড়েছে। এরকম আবহাওয়ায় আলুর জমিতে ধসা রোগের প্রকোপের আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়াও আর্দ্র আবহাওয়ায় সর্ষেচাষেও ক্ষতির আশঙ্কা করছেন অনেকে। পাশাপাশি ছোলা, পেঁয়াজ, ফুলকপি, বাঁধাকপি, আলু, মসুর ডাল, খেসারি ডালের ফলনে প্রভাব পড়বে। বারবার প্রাকৃতিক দুর্যোগের জেরে ক্ষতির শিকার হওয়ায় তিতিবিরক্ত চাষিরা। 
এমনিতে দুর্গাপুজোর পর ব্যাপক বৃষ্টিতে চাষিদের মাথায় হাত পড়েছিল। বিঘার পর বিঘা ধানজমি জলের নীচে চলে যায়। তারপর আলুবীজ লাগানোর সময়েও জমিতে জল দাঁড়িয়ে থাকায় অনেক জমির আলুবীজ পচে নষ্ট হয়ে যায়। তবুও সবকিছু উপেক্ষা করে চাষিরা আলু ও সর্ষে লাগান। শীত পড়ার সঙ্গে আলুগাছের বৃদ্ধি হতে থাকে। কিন্তু বীরভূম, মুর্শিদাবাদ সহ আশপাশের জেলাগুলিতে এদিন ভোর থেকেই ঝিরঝিরে বৃষ্টি শুরু হয়েছে। আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাস পেয়ে বীরভূম জেলা কৃষিদপ্তর আগেভাগেই চাষিদের সতর্ক করেছে। 
জেলা কৃষিদপ্তর সূত্রে জানা গিয়েছে, বীরভূম জেলায় এবার ২১হাজার হেক্টর জমিতে আলু চাষ হয়েছে। মূলত নলহাটি-১, রামপুরহাট-১,  ময়ূরেশ্বর-১ সহ আশেপাশের ব্লকগুলিতে আলু, সর্ষে চাষ হয়েছে। ধান ওঠার পর আলু ছাড়াও অনেকে চাষি সর্ষে চাষও করেছেন। এমনিতে বৃষ্টির কারণে অনেক দেরিতে রবি ফসল চাষ হয়েছে। বিঘার পর বিঘা জমিতে আলু রয়েছে। বেশিরভাগ জমিতেই আলু তুলতে এখনও অনেক দেরি। এই অবস্থায় বৃষ্টির ফলে স্যাঁতস্যাঁতে আবহাওয়ায় আলুতে নাবি ধসার আশঙ্কা রয়েছে। এছাড়াও সর্ষের ডাঁটায় বৃষ্টির জল লাগায় মরিচা রোগের আশঙ্কা থেকেই যাচ্ছে। ফসলের জমিতে যাতে জল না জমে সেজন্য আগেভাগে কিছু চাষি নালা কেটে জল বের করার ব্যবস্থা করেছেন। পাশাপাশি রাজ্য সরকারের শস্যবিমায় বীরভূমে খুব অল্প আলু চাষিই আবেদন করেছিলেন। আলুতে মাত্র ৭৫০জন চাষি শস্যবিমার জন্য আবেদন করেছেন। বিমা না থাকায় এখন অনেকেই আঙুল কামড়াচ্ছেন। জেলার আলুচাষি গোবিন্দ রুইদাস বলেন, আর দু’দিন বৃষ্টি হলে জমির আলু জমিতেই থেকে যাবে। এবার ফলনও ভালো হবে বলে মনে হচ্ছে না। বীরভূমের উপ কৃষি অধিকর্তা (প্রশাসন) একেএম মিনাজুর আহসান বলেন, শেষ পাওয়া খবর পাওয়া পর্যন্ত মাত্র দু’মিলিমিটারের মতো বৃষ্টি হয়েছে। কিন্তু আবহাওয়া খুব স্যাঁতস্যাঁতে রয়েছে। রবিবার সারাদিনই কুয়াশার মতো বৃষ্টি হয়েছে। এতে আলুর নাবিধসার আশঙ্কা থাকছে। তেমনই সর্ষে সহ অনান্য সব্জির ক্ষেত্রেও ক্ষতি হতে পারে। কয়েকদিন আগে কৃষিদপ্তর থেকে কী কী কীটনাশক স্প্রে করতে হবে, তা নিয়ে চাষিদের আগাম জানিয়ে দেওয়া হয়েছে।
মুর্শিদাবাদ জেলা পরিষদের কৃষি কর্মাধ্যক্ষ শাহনাজ বেগম বলেন, আলুতে ধসা রোগ দেখা দেবে বলে মনে হচ্ছে। এইসময় বৃষ্টি, কুয়াশা ও এই আর্দ্র আবহাওয়া আলুর ফলনে ব্যাপক প্রভাব ফেলবে। এছাড়া সর্ষে, ছোলা, পেঁয়াজ, ফুলকপি, বাঁধাকপি, আলু, মসুরডাল, খেসারি ডাল চাষের ক্ষেত্রেও এই বৃষ্টি অত্যন্ত ক্ষতিকর।
30Months ago
কলকাতা
রাজ্য
দেশ
বিদেশ
খেলা
বিনোদন
ব্ল্যাকবোর্ড
শরীর ও স্বাস্থ্য
বিশেষ নিবন্ধ
সিনেমা
প্রচ্ছদ নিবন্ধ
আজকের দিনে
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
mesh

চল্লিশের ঊর্ধ্ব বয়সিরা সতর্ক হন, রোগ বৃদ্ধি হতে পারে। অর্থ ও কর্ম যোগ শুভ। পরিশ্রম...

বিশদ...

এখনকার দর
ক্রয়মূল্যবিক্রয়মূল্য
ডলার৮৩.১৭ টাকা৮৪.২৬ টাকা
পাউন্ড১০৬.৯৩ টাকা১০৯.৬০ টাকা
ইউরো৯০.০০ টাকা৯২.৪৪ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
*১০ লক্ষ টাকা কম লেনদেনের ক্ষেত্রে
দিন পঞ্জিকা