বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
অমৃতকথা
 

জীবন্মুক্তি ও বিদেহমুক্তি

এইরূপ ‘অহং ব্রহ্মাস্মি’ জ্ঞান বা আত্মস্বরূপ সাক্ষাৎকার না হওয়া পর্যন্ত জ্ঞানযোগীর পক্ষে একনিষ্ঠ সাধন অত্যাবশ্যক। জ্ঞানযোগের সাধনপ্রণালী এইরূপ: শ্রবণ (সমগ্র বেদান্তশাস্ত্রের অদ্বিতীয় ব্রহ্মবস্তুতে যে তাৎপর্য তাহা পুনঃপুনঃ শুনিয়া উহার যাথার্থ্য অবধারণ), মনন (পঠিত ও শ্রুত বিষয় বেদান্তবেদ্য অনুকূল যুক্তিদ্বারা অনবরত অনুচিন্তন), নিদিধ্যাসন (বিজাতীয় দেহাদি জ্ঞানরহিত অদ্বিতীয় ব্রহ্মবস্তুসম্বন্ধে সজাতীয় জ্ঞানের প্রবাহ)। ইহার চরম অবস্থাই সমাধি। এই সমাধিলাভের উপায়রূপে যম-নিয়মাদি অষ্টাঙ্গ যোগ অনুষ্ঠিত হয়। যম (অহিংসা সত্য অস্তেয় ব্রহ্মচর্য ও অপরিগ্রহ), নিয়ম (শৌচ সন্তোষ তপস্যা স্বাধ্যায় ও ঈশ্বরপ্রণিধান), আসন (সিদ্ধ পদ্ম স্বস্তিক প্রভৃতি), প্রাণায়াম (প্রাণাদি বায়ু নিগ্রহের উপায় রেচক পূরক কুম্ভক), প্রত্যাহার (ইন্দ্রিয়সমূহকে উহাদের বিষয় হইতে ফিরাইয়া আনা), ধারণা (অদ্বিতীয় ব্রহ্মবস্তুতে অন্তরিন্দ্রিয় সন্নিবেশ) এবং ধ্যান (অদ্বিতীয় ব্রহ্মবস্তুতে অন্তরিন্দ্রিয় বৃত্তিসমূহকে একমুখীকরণ)। এইসকল সাধন অভ্যাস করিলে প্রথমে সবিকল্প এবং পরে  নির্বিকল্প সমাধি লাভ হয়। জ্ঞাতা জ্ঞান ও জ্ঞেয় প্রভৃতি বিকল্পের লয়কে অপেক্ষা না করিয়া অদ্বিতীয় ব্রহ্মবস্তুতে তদাকারাকারিত চিত্তবৃত্তির অবস্থিতিকে সবিকল্প সমাধি বলে। জ্ঞাতা জ্ঞান ও জ্ঞেয় প্রভৃতি ভেদের লয়কে অপেক্ষা করিয়া অদ্বিতীয় ব্রহ্মবস্তুতে তদাকারাকারিত চিত্তবৃত্তির অতিশয় একভাবে অবস্থিতিই নির্বিকল্প সমাধি। নির্বিকল্প সমাধি লাভের পথে লয় বিক্ষেপ কষায় ও রসাস্বাদ—এই চারিটি বিঘ্ন আছে। অখণ্ডব্রহ্মবস্তুকে অবলম্বন না করিয়া চিত্তবৃত্তির নিদ্রাকে লয়, অখণ্ডব্রহ্মবস্তুকে অবলম্বন না করিয়া চিত্তবৃত্তির অন্য বিষয় অবলম্বনকে বিক্ষেপ, রাগাদি বাসনাদ্বারা চিত্তবৃত্তির স্তব্ধভাবজন্য অখণ্ডব্রহ্মবস্তুর অবলম্বনকে কষার এবং অখণ্ডব্রহ্মবস্তুকে অবলম্বন না করিয়া সবিকল্পক আনন্দ আস্বাদনকে রসাস্বাদ বলে। চিত্তকে সম্বুদ্ধ করিলে লয়রূপ বিঘ্ন এবং অধ্যবসায় দ্বারা চিত্তকে একাগ্র করিলে বিক্ষেপ অন্তর্হিত হয়। চিত্তের স্তব্ধভাব দূর করাই কষায় দোষ এবং রসাস্বাদ না করিয়া প্রজ্ঞাদ্বারা নিঃসঙ্গ হওয়াই রসাস্বাদ-বিঘ্ন দূর করিবার উপায়।
সকল বিঘ্ন দূর করিয়া নির্বিকল্প সমাধিভূমিতে উপস্থিত হইলে জ্ঞানযোগী জীবন্মুক্ত হন এবং দেহান্তে বিদেহমুক্তি লাভ করেন। তিনি অখণ্ড শুদ্ধ ব্রহ্মজ্ঞানদ্বারা সকল অজ্ঞানের নাশ করিয়া আপনাকে স্বরূপতঃ অখণ্ড শুদ্ধ তুরীয় ব্রহ্মরূপে প্রত্যক্ষ দেখেন। ইহার ফলে তাঁহার অজ্ঞান ও ইহার কার্যস্বরূপ সঞ্চিত কর্ম এবং সংশয় বিপর্যয়াদি বিনষ্ট হয় এবং তিনি জীবিতাবস্থায় সকল বন্ধন হইতে মুক্ত হন। জীবন্মুক্ত ব্যক্তি সমাধি হইতে ব্যুত্থিত অবস্থায় ইন্দ্রজালের রহস্যবিদের ন্যায় জগৎকে ইন্দ্রজালবৎ মিথ্যা দেখেন। তিনি পূর্ব পূর্ব বাসনাজাত ক্রিয়মাণ কর্মসমূহ নিরপেক্ষ দ্রষ্টার ন্যায় দেহত্যাগের পূর্ব পর্যন্ত ভোগ করেন। ‘যোগবাশিষ্ঠ’ মতে জীবন্মুক্ত জাগ্রৎ অবস্থায়ও সুষুপ্তবৎ বাহ্যবস্তু দেখেন না। দ্বৈতবস্তুকেও তিনি অদ্বৈত দেখেন বলিয়া তাঁহার ভোগকে ভোগ এবং দেখাকে দেখা বলা যায় না।
স্বামী সুন্দরানন্দের ‘যোগচতুষ্টয়’ থেকে     

28th     November,   2023
 
 
কলকাতা
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ