Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ফ্যাক্টর নারীশক্তি, গ্যারান্টিও
শান্তনু দত্তগুপ্ত

জওহরলাল নেহরুর হাতে সময় যে বেশি নেই, তার আভাস অনেক আগে থেকেই পেয়েছিলেন কংগ্রেসের ‘বস’রা। তাই বছর দুয়েক ধরে নিজেদের গুছিয়ে নিতে পেরেছিলেন। বরং সময় দেননি লালবাহাদুর শাস্ত্রী। কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? উত্তরটা খুব দ্রুত খুঁজতে হয়েছিল শীর্ষ নেতৃত্বকে। অনেক হিসেব কষে কংগ্রেসের সভাপতি কামরাজ যখন ইন্দিরা গান্ধীর নাম প্রস্তাব করলেন, দলের একটা বড় অংশ বেঁকে বসতে চাইল। কামরাজ জানতেন এমনটা হবে। তাই আগে থেকেই ঘুঁটি সাজিয়ে রেখেছিলেন। দেশের অধিকাংশ রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের দিয়ে সেই প্রস্তাবে সিলমোহর দেওয়ার আয়োজন সেরে রেখেছিলেন কামরাজ। ফলে গুলজারিলাল নন্দাকে টপকে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে কুর্সি দখল করেন ইন্দিরা। গুলজারিলাল নন্দার ব্যাপারে কামরাজের ব্যাখ্যা ছিল, ‘হি উইল রুইন দ্য পার্টি’। কিন্তু ইন্দিরা-বিরোধীরা তখন কামরাজকে বলেছিলেন, ‘শি উইল রুইন দ্য কান্ট্রি’। শোনেননি কামরাজ। ইন্দিরাও জানতেন, তাঁর এই যাত্রাপথ খুব সহজ হবে না। নিজেকে জনগণের সামনে প্রতিষ্ঠা করতে হবে। তার জন্য সবার আগে সমাধান করতে হবে খাদ্য সঙ্কটের। আর সেইসঙ্গে পাবলিককে বোঝাতে হবে, ইন্দিরা ছাড়া বিকল্প নেই। কৌশল নিলেন প্রিয়দর্শিনী—মাসে একবার করে জাতির উদ্দেশে ভাষণ... ইন্দিরার ‘মন কী বাত’।
নরেন্দ্র মোদি কংগ্রেস-মুক্ত ভারত গড়ার জন্য দিনরাত এক করে ফেলতে পারেন, ইন্দিরাকে কিন্তু তিনি মুছে ফেলতে পারেননি। পারবেনও না। প্রতি পদক্ষেপে মোদি মনে করিয়েছেন ইন্দিরাকে। এবারও তাঁর পিছনে ছুটে চলেছেন মোদি। তৃতীয় ইনিংস। তাহলেই স্পর্শ করে ফেলবেন দেশের প্রথম মহিলা প্রধানমন্ত্রীর রেকর্ড। তিনটি শর্ত মেনে চলতেন ইন্দিরা—১) আগ্রাসন, ২) মানুষের সঙ্গে নিরন্তর যোগাযোগ রেখে যাওয়া, ৩) পাকিস্তান বিরোধিতা। তিনি জানতেন, সরকারের যাবতীয় খামতি এই তিন ফর্মুলাই ঢেকে দেবে। নরেন্দ্র মোদি খুব ভালো শিক্ষার্থী। ইন্দিরার থেকে এগুলো সযত্নে তুলে নিয়েছেন তিনি। নিতে পারেননি একটি আদর্শ... দেশবাসী সমস্যায় পড়লে প্রধানমন্ত্রীর কর্তব্য তাদের পাশে দাঁড়ানো। শুধু মুখে বলে নয়, পদক্ষেপ নিয়ে। কুর্সিতে বসার পরই আকাশে কালো মেঘ হয়ে দেখা দিয়েছিল খাদ্যসঙ্কট। দেশের কোণায় কোণায় খাবারের হাহাকার, মানুষ পথে নেমে পড়ছে, শুরু হয়েছে আন্দোলন, খাবারের দাবিতে বিক্ষোভ দেখাতে নেমে জুটছে পুলিসের গুলি। ইন্দিরা বুঝেছিলেন, বিদেশি সাহায্য না পেলে এই পরিস্থিতি থেকে মুক্তি সম্ভব নয়। সেই প্রথম আমেরিকার সঙ্গে শুরু হল ভারতের হৃদ্যতা। মূল সাহায্যটা মার্কিন সরকারই করল। কিন্তু পাল্টা একটি শর্তের মাধ্যমে। মার্কিন ডলারের তুলনায় টাকার দাম কমাতে হবে। খাদ্যসঙ্কট থেকে বাঁচার জন্য অন্য কোনও উপায় ইন্দিরার হাতে ছিল না। দেশের রাজনীতি তোলপাড় হয়ে গেলেও সেই শর্তই মেনেছিলেন ইন্দিরা। ১৯৬৬ সালের ৬ জুন—ইন্দিরার ভারত ঘোষণা করল, মার্কিন ডলারের নিরিখে ৫৭ শতাংশ অবমূল্যায়ন ঘটছে ভারতীয় মুদ্রার। অর্থাৎ এক মার্কিন ডলার হচ্ছে সাড়ে ৭ টাকা। ভারতীয় মুদ্রার দাম কমল, কিন্তু দুর্ভিক্ষের ভারতে খাবারের জোগান এল। 
ইন্দিরার বহু কৌশল নিখুঁত ফটোকপি করে নিয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। মন কী বাত, পাবলিককে কানেক্ট করা, একনায়কতান্ত্রিক গণতন্ত্র এবং বিরোধীদের অভিযোগ মতো ‘অঘোষিত ইমার্জেন্সি’। কিন্তু মানুষের স্বার্থে ইন্দিরা গান্ধীর মতো কোন পদক্ষেপটা নিয়েছেন মোদিজি? করোনাকালের আগে থেকেই আর্থিক সঙ্কটে ভুগছে দেশ। মহামারী বিদায় নিয়েছে, কিন্তু ভাগ্য ফেরেনি ভারতবাসীর। খাদ্যপণ্যের মূল্যবৃদ্ধি নিয়ন্ত্রণে আসার যে কোনও লক্ষণ নেই, সেটা রিজার্ভ ব্যাঙ্কও স্বীকার করছে। মানছেন না শুধু মোদিজি। তিনি বলে বেড়াচ্ছেন, সব নিয়ন্ত্রণে আছে। তাহলে যে মধ্যবিত্ত ১০ বছর আগে ২৮ টাকায় চাল কিনত, সেই চালই এখন তাঁকে ৬৫ টাকা কেজিতে কিনতে হয় কেন? 
জওহরলাল নেহরু তাঁর মেয়েকে জাতীয় রাজনীতিতে একটা বড়সড় ‘পুশ’ দিয়েছিলেন। কিন্তু সেই রকেট কিছুদূর যেতেই থমকে গিয়েছিল। ইন্দিরা জানতেন, এবার নিজস্ব জ্বালানি লাগবে। আর তার জন্য বাবার ছায়া থেকে বেরিয়ে আসতে হবে তাঁকে। এখানে প্রশ্ন হল, বাবার ছায়া থেকে বেরিয়ে কেন? নেহরুর লেগাসি তো চিরকাল বয়েছেন ইন্দিরা। প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে তাঁর সুযোগও বাবার হাত ধরে। তাহলে ছায়া থেকে বেরনো কেন? কারণ নেহরুর মৃত্যুর পর ইন্দিরা হাড়ে হাড়ে বুঝেছিলেন, শুধুমাত্র বাবার নাম থাকলেই হবে না। সেটাই বরং তাঁকে ব্যাকফুটে ঠেলে দেবে। তাই নিজের জমি বানাতে হবে। নেহরুর জুতো থেকে পা বের করে ভাবতে হবে। সেটাই করেছিলেন ইন্দিরা। তাই যে কয়েকজন মহিলা ভারতীয় রাজনীতির ফ্যাক্টর হয়ে দাঁড়িয়েছিলেন, নিঃসন্দেহে তাঁদের প্রথম নাম ইন্দিরা।
মোদিজি কিন্তু ইন্দিরার ছায়া থেকে বেরিয়ে আসতে পারেননি। বলা ভালো, আসতে চাননি। ইন্দিরার বেলায় যদি নেহরুর সিঁড়ি থাকে, মোদির জন্য লিফটের ব্যবস্থা করেছে সঙ্ঘ। তাই গোধরা কাণ্ডের পরও মুখ্যমন্ত্রী পদ থেকে ইস্তফা দিতে হয়নি তাঁকে। প্রধানমন্ত্রী হওয়ার পরও পথ তাঁর মসৃণই ছিল। তিনি বুঝেছিলেন, সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণ নিজের হাতে তুলে নিতে হবে। গণতন্ত্র থাকবে, কিন্তু রাশ থাকবে একজনের মুঠোয়। কোন ফর্মুলায়? ইন্দিরার। আর যদি জোটের গলায় লাগাম পরাতে হয়? তাহলে অবশ্য ইন্দিরা নন, তাঁর পুত্রবধূ... সোনিয়া গান্ধী। 
নেহরুর মৃত্যুর পর বিস্তর কাটাছেঁড়া হয়েছিল ইন্দিরাকে নিয়ে। জওহরলাল নেহরু প্রধানমন্ত্রী পদে ‘ইন্দু’কে বসানোর জন্য কামরাজকে বলে গেলেও সেই পথে হাঁটেননি কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সভাপতি। ইন্দিরা সবটা দেখেছিলেন, বুঝেছিলেন এবং তা সত্ত্বেও বিবাদে যাননি। কোনও পক্ষ না নিয়ে শুরু করেছিলেন প্রতীক্ষা। সঠিক সময়ের। কিন্তু ইন্দিরা ভাবেননি, ৩০ বছর পর তাঁর পুত্রবধূকে নিয়েও কাটাছেঁড়া শুরু হবে। কংগ্রেসের অন্দরে। বাইরেও। একটি ইস্যু মাথাচাড়া দিয়ে কংগ্রেসকে ভেঙে টুকরো টুকরো করে দেবে—বিদেশিনী। শাশুড়ির ভয়াবহ মৃত্যু থেকে ধাতস্থ হতে সময় লেগেছিল সোনিয়ার। কিন্তু স্বামীকেও এভাবে হারাতে হবে! দুঃস্বপ্নেও ভাবেননি তিনি। কয়েকদিন আগেই ২৩তম বিবাহবার্ষিকী ছিল তাঁদের। তেহরানের রেস্তরাঁয় ডিনার সেরেছিলেন দু’জন। ছেলেমেয়ে অ্যাডাল্ট হয়েছে। ছেলে হার্ভার্ড থেকে পড়াশোনা শেষ করে ফিরছে। বুড়ো হওয়ার দিকে এগিয়ে চলেছেন তাঁরা... সময়টা উপভোগ করছিলেন দু’জনই। এলটিটিই হানায় সেই সময় যে হঠাৎ ফুরিয়ে গেল! শরীরের টুকরোগুলো এক জায়গায় করার সময় রাজীবের হাসিমুখটা মনে পড়ছিল সোনিয়ার। ফিরে এসেছিল ছোটবেলার সেই সঙ্গী... হাঁপানি রোগটা। জন্মভূমিতে ফিরে যেতে পারতেন, কিন্তু যাননি। ভারতই যে তাঁর নিজের দেশ হয়ে গিয়েছিল। কংগ্রেসের সভানেত্রীর পদের জন্য তাঁকে প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল ’৯১ সালেই। ফিরিয়ে দিয়েছিলেন সোনিয়া। হতে চাননি প্রধানমন্ত্রীও। সময়ের প্রয়োজন ছিল তাঁর। কয়েকটা বছর। অপেক্ষা করছিলেন তিনিও। সঠিক সময়ের। সীতারাম কেশরীর বিরুদ্ধে যখন বিদ্রোহ বাড়ছে... একে একে দল ছাড়ছেন মাধবরাও সিন্ধিয়া, এন ডি তিওয়ারি, পি চিদম্বরমরা... হাল ধরেছিলেন তিনি। গুছিয়ে উঠতে কয়েকটা বছর। তারপর ২০০৪ সালের মাস্টারস্ট্রোক। জোট সরকারের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে তিনিই ছিলেন অটোমেটিক চয়েজ। কিন্তু না। প্রত্যাখ্যান করলেন সোনিয়া। চমকে উঠল গোটা বিশ্ব। মনমোহন সিংকে বসালেন ক্ষমতার মাউন্ট এভারেস্টে। দ্বিতীয়বার নারীশক্তি হল ভারতীয় রাজনীতির নেপথ্য-পরিচালক। ‘ফ্যাক্টর’ও।
কংগ্রেসে সীতারাম কেশরীর বিরুদ্ধে বিদ্রোহের আঁচে আরও একজন সেই সময় দল ছেড়েছিলেন। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বাবা, মা, শাশুড়ি... নামজাদা কোনও হাত তাঁর মাথায় আশীর্বাদের মতো ছিল না। বিদেশি কোনও বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রিও ছিল না ঝুলিতে। সামান্য নিম্নবিত্ত ঘর থেকে উঠে আসা দলীয় কর্মী। সম্বল বলতে মাটির সঙ্গে যোগ, আর অসম্ভব টেনাসিটি। লেগে থাকার ক্ষমতা। শেষ না দেখা পর্যন্ত হাল ছাড়তেন না তিনি। এখনও ছাড়েন না। কংগ্রেস থেকে বেরিয়ে বিশ্বস্ত কয়েকজন সঙ্গীকে নিয়ে তৈরি করলেন তৃণমূল কংগ্রেস। স্বপ্ন দেখলেন, ‘সিপিএমের অপশাসন থেকে মুক্ত করব বাংলাকে’। বছরের পর বছর কেটে গেল, স্বপ্ন সফল হল না। সিপিএম একের পর এক আঁকাবাঁকা স্লোগান তৈরি করল মমতার নামে। তিনি তাও হাল ছাড়লেন না। পাঁচ বছরের মধ্যে ২৩৫ আর ৩৫-এর ফারাক ঘুচে গেল। সেই সিপিএম এখন বাংলা বিধানসভায় শূন্য। আর মমতা জাতীয় রাজনীতিতে মহিলা হিসেবে ‘তৃতীয় ফ্যাক্টর’। আজ থেকে ৩০ বছর আগে তিনি মিশে যেতেন অজানা অচেনা ভিড়ের মাঝে। আজও যান। তখনও সাধারণ মানুষের জন্য তাঁর গলা গর্জে উঠত, আজও ওঠে। এখনও রাস্তার পাশে যন্ত্রণায় কাতর কোনও মুখ দেখতে পেলে গাড়ি থেমে যায় বাংলার মুখ্যমন্ত্রীর। ১০ বছর বাংলার ক্ষমতায় থেকে সামাজিক সুরক্ষায় তাঁর অবদান কন্যাশ্রী, রূপশ্রী, ২ টাকা কেজি চাল, লক্ষ্মীর ভাণ্ডার, স্বাস্থ্যসাথী। বহু বছর আগে তিনি বুঝেছিলেন, রাজনীতিতে নেতা নেত্রীদের থেকেও বড় ফ্যাক্টর ভোটার। আরও নিখুঁতভাবে বললে মহিলারা। ১৯৭১ সালে মাত্র ৪৮ শতাংশ মহিলা ভোট দিয়েছিলেন। ১৯৮৪ সালেই পরিসংখ্যানটা পৌঁছে গিয়েছিল ৬০ শতাংশে। আর তার জন্য দায়ী ছিলেন শুধুই ইন্দিরা গান্ধী। তাঁর মৃত্যু। ১৯৯১ সালে কিন্তু আবার মহিলা ভোট নেমে গিয়েছিল ৫০ শতাংশে। ট্রেন্ডটা বদলাতে শুরু করে ২০০০ সালের পর। ২০১৪ সালে মোদি যখন প্রথমবার ক্ষমতায় আসেন, সেবার পুরুষদের ৬৭.১ শতাংশ ভোট দিয়েছিলেন, আর মহিলা ৬৫.৩ শতাংশ। মহিলারা যে ভোটের সবচেয়ে বড় ফ্যাক্টর, সেটা নরেন্দ্র মোদি বুঝেছেন একুশে বাংলার বিধানসভা ভোটের পর। শুধুমাত্র মহিলা ভোটই তাঁদের ২০০ পারের স্বপ্ন ধুলোয় মাখিয়ে দিয়েছে। তাই তিনি মহিলা সংরক্ষণ বিল পাশ করিয়েছেন, এই ভোটের পুরো ফোকাস নিয়ে গিয়েছেন মা-বোনদের উপর। মমতার কথায় তাঁর দলের নেতারা নাক সিঁটকাতে পারেন, তাঁকে অনুসরণ করার ব্যাপারে কোনও ধন্দ তাঁরা রাখেন না। প্রকল্প থেকে আগ্রাসী প্রচার, মমতাকে আদর্শ না করলে হালে পানি পাওয়া মুশকিল। তাই মুখে লক্ষ্মীর ভাণ্ডারকে ভিক্ষার টাকা বলেন, আর জিতে এলে ওটাই ৩ হাজার করে দেওয়ার প্রচার চালান। আম আদমি যদি প্রশ্ন করে, কোনটা মিথ্যা? তাহলে কি খুব অপরাধ হবে? মানুষ যদি মোদিজিকে জিজ্ঞেস করে গত ১০ বছরে কটা চাকরি হয়েছে, মানুষের মাথাপিছু আয় আদৌ বেড়েছে কি না, কিংবা আপনি দুটো ইনিংসে মন্দির বানানো ছাড়া আর কী করেছেন, তার উত্তর তৈরি আছে তো?
বাংলায় সভা করতে আসছেন মোদিজি। লাগাতার। তাঁর সভামঞ্চের সামনের দিকে বসানো হচ্ছে মহিলাদের, ঠিক মমতার মতো। এরপরও প্রশ্ন থাকছে—কোনটা স্বতঃস্ফূর্ত? সন্দেশখালির নির্যাতিতাদের কথা বলছেন প্রধানমন্ত্রী, তাঁদের প্রতিনিধিকে প্রার্থী করছেন। কিন্তু ভাবছেন না মহিলা অস্ত্রে মমতা ফ্যাক্টরকে জব্দ করা যাবে তো? চেষ্টা তাঁরা করছেন। করতেই পারেন। কিন্তু ফাঁক থেকে যাবে। কারণ, খেলাটা মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় অনেক আগে শুরু করে দিয়েছেন। আপনারা যখন মাঠে নামছেন, অগ্নিকন্যার তখন পিচে হাত সেট হয়ে গিয়েছে। অনুসরণ হোক বা অনুকরণ, দিনের শেষে মানুষ ভাববেই... কী পেলাম, আর কার থেকে পেলাম। 
মমতা একটা কথা বলেন, মনে করবেন ৪২টা আসনেই প্রার্থী আমি। এখন মোদিও সেই কথা বলছেন। অনুসরণ? আসলে মোদি জানেন, প্রভাব বিস্তার করতে হবে। ফর্মুলা যারই হোক না কেন। ইন্দিরা নেই, সোনিয়া অসুস্থ, বাকি থাকলেন মমতা। এই টালিচালার বাসিন্দাকে আটকাতেই হবে। তৃতীয় ইনিংসের দম্ভে তিনি কিন্তু  দেখতে পাচ্ছেন না যে, ঝড় উঠে গিয়েছে। বাংলায়। আর দিল্লিতেও। মমতা আসরে নেমে পড়েছেন। রোগজীর্ণ শরীরে ঝলসে উঠেছেন সোনিয়া গান্ধীও। এখন ফ্যাক্টর?
বিপন্ন গণতন্ত্র।
09th  April, 2024
ধর্মতন্ত্রের মুদ্রাদোষ ও রবীন্দ্রনাথের শিক্ষা
মৃণালকান্তি দাস

কবিগুরুকে নিয়ে রাজনীতির তাড়না নতুন কিছু নয়। তাঁকে ছাড়া নাকি বাঙালি মনন ধরা দেয় না। তাই সব রঙের রাজনেতাই সেই তাড়না বোধ করে এসেছেন। মোদি-অমিত শাহরাও চেষ্টার ত্রুটি রাখেননি। বিশদ

মোদি কার ‘অবতার’, হিরণ্যকশিপু না হিটলার?
সন্দীপন বিশ্বাস

নির্বাচন এখন একেবারে শেষ লগ্নে এসে পৌঁছেছে। পুরো নির্বাচনী প্রচারে বারবার প্রধানমন্ত্রীর তাল কেটেছে। এক এক পর্যায়ের নির্বাচনের পর তিনি মুখ খুললেই নানা বিতর্কিত কথা বেরিয়ে এসেছে। তাই নিয়ে মানুষের মনে এক তিক্ত অনুভূতির জন্ম হয়েছে। বিশদ

29th  May, 2024
৪০০ পার: মিথ? নাকি মিথ্যা?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

মিথ, আর মিথ্যার মধ্যে ফারাক কতটা? কালজয়ী একটি মিথের কথা বলা যাক। সম্রাট নিরো সম্পর্কে। বলা হয়, রোম যখন ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছিল, সম্রাট নিরো তখন বেহালা বাজাচ্ছিলেন। বিশদ

28th  May, 2024
সমস্যা আজও জাতপাত আর বৈষম্য
পি চিদম্বরম

যতক্ষণ না রাজনৈতিক দলগুলি স্বীকার করে যে ভারতীয় রাজনীতি এবং অর্থনীতির দুটি নির্ণায়ক হল—জাতি এবং বৈষম্য—দারিদ্র্য, বৈষম্য এবং নিপীড়নের মূলে আমরা আঘাত হানতে পারব না। ‘উন্নয়ন’ নিয়ে বিজেপি যে কাহিনি ফাঁদে, কংগ্রেসের ইস্তাহার তার কালো দিকগুলির প্রতি দৃষ্টি আকর্ষণ করেছে, ওইসঙ্গে রেখেছে জনগণের কাছে কয়েকটি প্রতিশ্রুতিও।
বিশদ

27th  May, 2024
ভোট মিটবে, ফল বেরবে, ঘা শুকবে না
হিমাংশু সিংহ

বাকি আর মাত্র এক দফা। আরও কত কী দেখতে হবে! আরও কত নোংরা খেলা। ষড়যন্ত্র, বিভেদ এবং সমাজের বাটোয়ারা। ভোট মিটে সরকার গড়া হবে, কিন্তু গত তিন মাসের গভীর ক্ষত, দগদগে ঘা সহজে শুকবে না। বিশদ

26th  May, 2024
মমতার খুঁত ধরে জিততে পারবেন মোদি?
তন্ময় মল্লিক

প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির ভাষণ শুনলে এটা লোকসভা না বিধানসভার নির্বাচন, তা নিয়ে বিভ্রান্তি তৈরি হবেই। লোকসভা নির্বাচনে সাধারণত দেশের ও আন্তর্জাতিক স্তরের বিষয় প্রাধান্য পায়। কিন্তু ১০ বছর প্রধানমন্ত্রী থাকার পরেও মোদিজি বাংলায় এসে স্থানীয় বিষয়গুলিকেই গুরুত্ব দিচ্ছেন।
বিশদ

25th  May, 2024
বিজ্ঞাপনী যুদ্ধ বনাম ভোটারদের মনস্তত্ত্ব
সমৃদ্ধ দত্ত

২০০৪ সালের জানুয়ারি মাসের ৬ তারিখ প্রথমবার দিল্লির লোদি এস্টেটে গিয়েছিল টিম। মতিলাল ভোরা, জয়রাম রমেশ, অম্বিকা সোনি, সলমন খুরশিদ, সোনিয়া গান্ধীরা উপস্থিত। তাঁদের দেখেই বোঝা যাচ্ছে ক্লান্ত, প্রায় বিধ্বস্ত এবং কিছুটা অসহিষ্ণুও। বিশদ

24th  May, 2024
বাঙালি বিদ্বেষের বিষাক্ত রেপ্লিকা!
মৃণালকান্তি দাস

বিজেপি বদলায়নি। কৈলাস বিজয়বর্গীয় চিঁড়ে খেতে দেখে বাংলাদেশি চিনে ফেলেছিলেন। তারপর ছাড়ানো হয়েছে পেঁয়াজের এক একটি খোসা। বেরিয়ে পড়েছে হিন্দুত্ববাদী নগ্নতার আরও কদর্যরূপ। ধর্মান্ধতার নিরিখে বিজেপি যে শুধু অহিন্দু বিদ্বেষী নয়, একইসঙ্গে অহিন্দি বিদ্বেষীও তা তারা প্রকাশ্যে হাজির করেছে। বিশদ

23rd  May, 2024
ভোটের দফার সঙ্গে বাড়ছে মমতার গুরুত্ব
হারাধন চৌধুরী

‘ইন্ডিয়া’ জোট মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উদ্যোগে তৈরি। নামকরণও তাঁর। এহেন ‘মহাজোট’কে গেরুয়া শিবির কখনও ‘ইন্ডিয়া’ বলে ডাকেনি, পরিবর্তে ‘ইন্ডি’ নামেই কটাক্ষ করেছে, যার সঙ্গে সংস্কৃত ‘পিণ্ড’ শব্দের কথ্যরূপ ‘পিণ্ডি’র মিল রয়েছে। বিশদ

22nd  May, 2024
উত্তরপ্রদেশ নিয়ে বিজেপি শঙ্কায় কেন?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

কথায় কথায় উত্তরপ্রদেশের এক বিজেপি নেতা ঘনিষ্ঠ মহলে বলেই ফেললেন, ‘৮০টার মধ্যে ৫০টা সিট তো পাব।’ তাতেও যে তিনি খুব আত্মবিশ্বাসী, তেমনটা নয়। সবচেয়ে বড় চমকের জায়গা হল সংখ্যাটা। ৫০। বিশদ

21st  May, 2024
মহিষের উপর উত্তরাধিকার কর
পি চিদম্বরম

লোকসভা নির্বাচন নিয়ে এই যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াই চলছে সেখানে সবচেয়ে বিতর্কিত বিষয় কোনটি? যুদ্ধের এক পক্ষে নরেন্দ্র মোদি এবং তাঁর কয়েকজন মিত্র আর উল্টো দিক থেকে একটি বহুমুখী চ্যালেঞ্জ ছুড়ে দিচ্ছেন রাহুল গান্ধী এবং বিভিন্ন রাজ্যভিত্তিক শক্তিশালী ও স্বাধীন সেনাপতিগণ। বিশদ

20th  May, 2024
মোদিজি, গন্ধটা কিন্তু বেশ সন্দেহজনক!
হিমাংশু সিংহ

কোনও দল, কোনও নেতা কিংবা সংগঠন কখন নির্বাচন চলাকালীন কেঁচে গণ্ডূষ করে ফেলে? বারবার কথা বদলায়? যাকে ছুড়ে ফেলে দিচ্ছিলেন, তাকেই আবার বুকে টেনে নেন? সহজ উত্তর, পায়ের তলার মাটি টালমাটাল হলে, কিংবা অনিশ্চয়তার আশঙ্কায় আচমকা বেড়ে গেলে বুকের ধড়ফড়ানি। বিশদ

19th  May, 2024
একনজরে
দিল্লি হিংসা মামলায় জামিন পেলেন ছাত্রনেতা শারজিল ইমাম। রবিবার রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় তাঁর জামিন মঞ্জুর করেছে দিল্লি হাইকোর্ট। যদিও এখনই জেল থেকে বেরতে পারবেন না জওহরলাল ...

 বিজেপির সভা-সমিতিতে প্রায়শ দেখা যায়, শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের ছবিতে শ্রদ্ধার্ঘ্য নিবেদন করে কর্মসূচি শুরু হচ্ছে। তাঁর জন্ম ও মৃত্যুদিনে বিশেষ কর্মসূচিও পালন করে বিজেপি। ...

২০১২-১৩ মরশুম। উয়েফা চ্যাম্পিয়ন্স লিগে ‘অল জার্মান’ ফাইনালে বায়ার্ন মিউনিখের কাছে হেরে স্বপ্নভঙ্গ হয়েছিল বরুসিয়া ডর্টমুন্ডের। ...

চলতি মাসের শুরুতেই লোকসভা নির্বাচনের প্রচারে উঠে এসেছিল পাকিস্তান প্রসঙ্গ। পড়শি দেশের পূর্বতন ইমরান খান সরকারের এক মন্ত্রীর বক্তব্যকে হাতিয়ার করে বিরোধীদের বিরুদ্ধে সুর চড়িয়েছিলেন ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

একাধিক সূত্রে অর্থাগম হতে পারে। উপস্থিত বুদ্ধি ও যথাযথ ব্যবস্থাগ্রহণে কর্মে বাধামুক্তি ও উন্নতি। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭৪৪: ইংরেজ লেখক আলেক্সজান্ডার পোপের মৃত্যু
১৭৭৮: ফ্রান্সের লেখক এবং দার্শনিক ভলতেয়ারের মৃত্যু
১৮৫৯: প্রথমবার বেজে ওঠে ইংল্যান্ডের বিগ বেন ঘড়ি
১৮৯৯:- কলকাতার ঘরে ঘরে বৈদ্যুতিক সরবরাহ শুরু
১৯১২: বিমান আবিষ্কারক উইলবার রাইটের মৃত্যু
১৯১৯: জালিয়ানওয়ালাবাগ হত্যাকাণ্ডের প্রতিবাদে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘নাইট’ উপাধি ত্যাগ
১৯৪০: জগমোহন ডালমিয়ার জন্ম
১৯৪৫: অভিনেতা ধৃতিমান চট্টোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯৪৯: ব্রিটিশ ক্রিকেট তারকা বব উইলিসের জন্ম
১৯৫০: অভিনেতা পরেশ রাওয়ালের জন্ম
১৯৫৩: নিউজিল্যান্ডের হিলারি ও নেপালের তেনজিংয়ের এভারেস্ট শৃঙ্গ জয়
১৯৮৭: ভারতের ২৫তম রাজ্যের স্বীকৃতি পেল গোয়া
২০১৩: চিত্র পরিচালক ঋতুপর্ণ ঘোষের মৃত্যু 



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৮২.৪০ টাকা ৮৪.১৪ টাকা
পাউন্ড ১০৪.৪৩ টাকা ১০৭.৯১ টাকা
ইউরো ৮৮.৭৭ টাকা ৯১.৯১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৭৩,০০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৭৩,৩৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৬৯,৭৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৯৪,৭৫০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৯৪,৮৫০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৬ ‌জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০২৪। সপ্তমী ১৭/০ দিবা ১১/৪৪। ধনিষ্ঠা নক্ষত্র ৬/২৮ দিবা ৭/৩১। সূর্যোদয় ৪/৫৫/৫৫, সূর্যাস্ত ৬/১২/৫। অমৃতযোগ দিবা ৩/৩১ গতে অস্তাবধি। রাত্রি ৬/৫৪ গতে ৯/৪ মধ্যে পুনঃ ১১/৫৫ গতে ২/৪ মধ্যে পুনঃ ৩/৩০ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ প্রাতঃ ৫/৪৮ মধ্যে পুনঃ ৯/২১ গতে ১১/৭ মধ্যে। বারবেলা ২/৫৩ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৩৪ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। 
১৬ ‌জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১, বৃহস্পতিবার, ৩০ মে, ২০২৪। সপ্তমী দিবা ১০/৫৮। ধনিষ্ঠা নক্ষত্র দিবা ৭/১০। সূর্যোদয় ৪/৫৬, সূর্যাস্ত ৬/১৪। অমৃতযোগ দিবা ৩/৪১ গতে ৬/১৪ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৫ গতে ৯/১১ মধ্যে ও ১২/০ গতে ২/৬ মধ্যে ও ৩/৩০ গতে ৪/৫৬ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৫/৪৮ মধ্যে ও ৯/২৪ গতে ১১/১২ মধ্যে। কালবেলা ২/৫৪ গতে ৬/১৪ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৩৫ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। 
২১ জেল্কদ।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
পাটনায় একটি বহুতলে আগুন, অকুস্থলে দমকল

29-05-2024 - 08:12:00 PM

বিধানসভায় সিপিএম-এর ভোট যাবে বিজেপিতে: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

29-05-2024 - 06:30:00 PM

১০০ দিনের কাজের টাকা দিচ্ছে না কেন্দ্র: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

29-05-2024 - 06:28:00 PM

সব কিছু বিক্রি করে দিচ্ছে বিজেপি: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

29-05-2024 - 06:27:09 PM

ইন্ডিয়াকে সমর্থন করবে তৃণমূল: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

29-05-2024 - 06:27:00 PM

মোদি মিথ্যা কথা বলে প্রচার করছেন: মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

29-05-2024 - 06:26:03 PM