Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

দেশে কোনও গরিব মানুষ নেই, পরবর্তী চমক?
পি চিদম্বরম

‘আর গরিব নয়, ভারত দারিদ্র্য দূর করে ফেলেছে’—অবাক হবেন না, যদি একদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে খবরের কাগজে এমন একটা ফাটাফাটি শিরোনামের উপর নজর পড়ে আপনার। আপনাকে এটাই বিশ্বাস করাতে চায় নীতি আয়োগ। পরিকল্পনা কমিশনের ন্যায় একটা সমীহ করার মতো প্রতিষ্ঠানকে সরকারের বশংবদ মুখপাত্রে পরিণত করা হয়েছে। প্রথমত, সংস্থাটি এই ঘোষণা করেছে যে, বহুমাত্রিকভাবে দরিদ্র মানুষ মোট জনসংখ্যার মাত্র ১১.২৮ শতাংশ। এই সংস্থার সিইও এবার ঘোষণা করেছেন তাঁর নয়া ‘আবিষ্কার’—ভারতে দরিদ্র মানুষ আর মোট জনসংখ্যার ৫ শতাংশের বেশি নয়!
ন্যাশনাল স্যাম্পল সার্ভে অফিস (এনএসএসও) তাদের হাউসহোল্ড কনজাম্পশন এক্সপেন্ডিচার সার্ভে (এইচসিইএস) রিপোর্ট প্রকাশ করেছে। তার ভিত্তিতেই এমন এক বিস্ময়কর দাবি করে বসেছেন নীতি আয়োগের সিইও। এইচসিইএস কিছু আনন্দদায়ক বিস্ময় প্রকাশ করেছে, কিন্তু তারা কোনওভাবেই এই সিদ্ধান্তে পৌঁছয়নি যে ভারতে দরিদ্রদের শতাংশ হার ৫-এর বেশি নয়।
তথ্যে নজর 
এইচসিইএস করা হয় ২০২২ সালের আগস্ট থেকে ২০২৩-এর মধ্যে জুলাই  পর্যন্ত। সমীক্ষকরা তথ্য সংগ্রহ করেন ৮,৭২৩টি গ্রাম এবং ৬,১১৫টি শহুরে ব্লক থেকে। গ্রাম (৬০ শতাংশ) এবং শহর ( ৪০ শতাংশ) মিলিয়ে তাতে পরিবারের সংখ্যা ছিল ২,৬১,৭৪৫। আমরা ধরে নিচ্ছি, নমুনাগুলি প্রয়োজনমতোই প্রতিনিধিত্বমূলক ছিল এবং সমীক্ষার পদ্ধতিটিও ছিল পরিসংখ্যানগতভাবে যথাযথ। উদ্দেশ্য ছিল—বর্তমান মূল্যে (নমিনাল প্রাইস) মাসিক মাথাপিছু ব্যয় (এমপিসিই) নির্ধারণ করা। প্রতিটি ব্যক্তির গড়পড়তা মাসিক ব্যয় ছিল:
মিডিয়ান এক্সপেন্ডিচার মানে মোট জনসংখ্যার ৫০ শতাংশের মাথাপিছু ব্যয়। আর সেটা গ্রাম ভারতে ৩,০৯৪ টাকা এবং শহরাঞ্চলে ৪,৯৬৩ টাকার বেশি নয়। নীচের দিকের ৫০ শতাংশের খবর, ধাপে ধাপে নেওয়া যাক। এইচসিইএস রিপোর্টের ৪ নম্বর স্টেটমেন্ট থেকে নীচের পরিসংখ্যান পাওয়া যাচ্ছে:
একদম নীচের দিকের ২০ শতাংশের উপর নজর করা যাক। সেখানে গ্রামীণ এলাকায় খাদ্য এবং অন্য জিনিসের জন্য একমাসে মোট ব্যয় মাত্র ২,১১২ টাকা বা দৈনিক ৭০ টাকা। নীতি আয়োগ কি দায়িত্ব নিয়ে এই দাবি করছে যে মানুষগুলো গরিব নয়? একইভাবে, শহরাঞ্চলে যার মাসিক খরচ ৩,১৫৭ টাকা বা দৈনিক ১০০ টাকা, গরিব নয় সেই মানুষটাও! আমি বলি কী—এক-একজন নীতি আয়োগ অফিসারের হাতে সরকার ২,১০০ টাকা করে ধরিয়ে দিক। তারপর গ্রামীণ এলাকায় গিয়ে একমাসের জন্য তাঁদের বসবাস করতে বলুক। অতঃপর, ফিরে এসে জানান, কতটা ‘ধনী’র মতো সেখানে কাটিয়েছেন তাঁরা।
পর্যবেক্ষণের বাস্তব 
পারিবারিক ভোগব্যয় সমীক্ষায় (এইচসিইএস) প্রকাশ, গ্রামীণ এলাকায় খাদ্যের জন্য ভোগব্যয়ের অংশ ৪৬ শতাংশ এবং শহরাঞ্চলে ৩৯ শতাংশে নেমে এসেছে। এটি সম্ভবত ঠিক। কারণ আয়/ব্যয় ক্রমে বেড়ে গেলেও খাদ্যের জন্য খরচের মূল্য উল্লেখ করার মতো বাড়ছে না। অন্যান্য তথ্যে দীর্ঘ-পর্যবেক্ষণের বাস্তবতা ধরা পড়েছে। তফসিলি জাতি এবং তফসিলি জনজাতি হল দরিদ্রতম সামাজিক গোষ্ঠী। তাদের অবস্থান গড়ের নীচেই। ওবিসি শ্রেণি রয়েছে গড়ের কাছাকাছি। এই তিন শ্রেণির বাইরের লোকজনের আর্থিক অবস্থাটা গড়ের উপরে।
রাজ্যভিত্তিক তথ্যেও পর্যবেক্ষণের বাস্তবতা ধরা পড়েছে। সবচেয়ে গরিব মানুষগুলো ছত্তিশগড়, ঝাড়খণ্ড, ওড়িশা, মধ্যপ্রদেশ, উত্তরপ্রদেশ, পশ্চিমবঙ্গ এবং মেঘালয়ে বসবাস করেন। এই রাজ্যগুলোর গ্রামাঞ্চলের মানুষের  এমপিসিই বা মাথাপিছু মাসিক ব্যয়ের পরিমাণ জাতীয় গড়ের নীচে। এমপিসিই’র আলোচনায়, শহরাঞ্চলের সর্বভারতীয় গড় রাজ্যে রাজ্যে ফারাক সামান্যই। এই রাজ্যগুলিতে অনেক বছর যাবৎ বিজেপি এবং অন্য একাধিক অকংগ্রেসি সরকার ছিল। গুজরাতে বিজেপির শাসন কায়েম রয়েছে ১৯৯৫ সাল থেকে। এত গাওনা-বাজনার পরও কিন্তু গুজরাতের হাল একেবারে গড়পড়তাই—সেখানকার মানুষ জাতীয় গড় আঁকড়েই বেঁচে আছে। সর্বভারতীয় গড়ের সঙ্গে গুজরাতের গ্রামীণ (৩,৭৯৮ টাকা বনাম ৩,৭৭৩ টাকা) এবং শহুরে (৬,৬২১ টাকা বনাম ৬,৪৫৯ টাকা) এলাকার তুলনাটা স্রেফ এইরকম।
নজর গরিবদের উল্টো দিকে 
যে বিষয়টা আমাকে ভাবাচ্ছে তা হল, ভারতে দরিদ্ররা মোট জনসংখ্যার ৫ শতাংশের বেশি নয়! এই দাবির তাৎপর্য এই যে, দরিদ্ররা একটি বিলুপ্তপ্রায় জনজাতি। অতএব, এবার আমাদের মনোযোগ ও উদ্যোগ মধ্যবিত্ত এবং ধনীদের দিকে ঘুরে যাবে। এই দাবি সত্য হলে—
 সরকার কেন ৮০ কোটি মানুষকে প্রতিমাসে বিনামূল্যে ৫ কেজি খাদ্যশস্য দিচ্ছে? যাই হোক, মোট এমপিসিই’র মাত্র ৪.৯১ শতাংশ (গ্রামীণ) এবং ৩.৬৪ শতাংশ (শহরে) খাদ্যশস্য ও তার বিকল্পগুলির জন্য লাগে।
• দরিদ্রের সংখ্যা ৫ শতাংশের বেশি না-হলে পঞ্চম জাতীয় পরিবার স্বাস্থ্য সমীক্ষায় (এনএফএইচএস-৫) কেন নীচের উদ্বেগজনক তথ্যগুলো ধরা পড়েছে?
শতাংশ
৬-৫৯ মাসের যেসব শিশু 
রক্তাল্পতার শিকার    ৬৭.১
১৫-৪৯ বছরের যেসব নারী 
রক্তাল্পতার শিকার    ৫৭.০
৫ বছরের নীচের যে শিশুরা 
স্টান্টেড (বৃদ্ধিবন্ধ)    ৩৫.৫
৫ বছরের নীচের যে শিশুরা 
ওয়েস্টেড (নষ্টস্বাস্থ্য)    ১৯.৫

• দিল্লির রাস্তায় যেসব শিশু ভিক্ষাপাত্র হাতে ঘুরে বেড়ায়, নীতি আয়োগ কি তাদের দিক থেকে চোখ বন্ধ করে রেখেছে? এই সংস্থা কি এও জানে না যে, হাজার হাজার মানুষ গৃহহীন এবং তারা ফুটপাতে কিংবা সেতুর নীচে ঘুমোতে বাধ্য হয়?
• মনরেগায় নাম লেখানো সক্রিয় শ্রমিকের সংখ্যা ১৫ কোটি ৪০ লক্ষ কেন? উজ্জ্বলার বেনিফিসিয়ারিরা কেন বছরে গড়ে চারটিও সিলিন্ডার কিনতে পারেন না? তাঁরা সিলিন্ডার কিনছেন সারা বছরে গড়ে মাত্র ৩.৭টি! 
নীতি আয়োগ যদি ধনীদের সেবা করতে চায় আপত্তি নেই, কিন্তু গরিবদের নিয়ে মশকরা বন্ধ করুক তারা। আসলে, দারিদ্র্য দূরীকরণে সফল হতে না-পেরেই সরকার তার দৃষ্টিপথ থেকে গরিবদের হটাবার জন্য আপ্রাণ চেষ্টা করে যাচ্ছে। 
• লেখক সাংসদ ও ভারতের প্রাক্তন অর্থমন্ত্রী। মতামত ব্যক্তিগত
04th  March, 2024
লক্ষ্মীর ভাণ্ডার বনাম ছাপ্পান্ন ইঞ্চির ভাঁওতা
সন্দীপন বিশ্বাস

নমস্কার, আমি আপনার ব্যাঙ্কের ম্যানেজার বলছি। আপনার অ্যাকাউন্টে একটু আগে একটা বিদেশি লটারির পুরস্কার বাবদ ১৫ লক্ষ টাকার পুরস্কার ঢুকেছে। কিন্তু অ্যাকাউন্টে একটা সমস্যা থাকায় টাকাটা ঢুকছে না। আপনার কাছে একটা ওটিপি নম্বর যাচ্ছে, সেটা আমাকে বলে দিলেই আপনার অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা ঢুকে যাবে।  বিশদ

লক্ষ্য উত্তরবঙ্গ: মমতার প্রকল্প আছে, মোদির?
শান্তনু দত্তগুপ্ত

রাস্তাঘাটে আম জনতার সঙ্গে কথা বলছেন সঞ্চালক। প্রত্যেকের জন্য প্রশ্ন একটিই, গত ১০ বছরে নরেন্দ্র মোদি সরকারের এমন তিনটি কাজ বলুন, যার মাধ্যমে আপনি সরাসরি উপকৃত হয়েছেন।
বিশদ

16th  April, 2024
এক জাতি, এক নির্বাচন: সন্দেহজনক তত্ত্ব
পি চিদম্বরম

ইস্তাহার হল একটি লিখিত ঘোষণা। তাতে থাকে মানুষের কাছে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলি সম্পর্কে কিছু ইচ্ছা এবং মতামত। এই প্রসঙ্গেই মনে আসে ১৭৭৬ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতার ঘোষণা এবং ১৯৪৭-এর ১৪-১৫ আগস্ট জওহরলাল নেহরুর সেই বিখ্যাত ‘ভাগ্যদেবতার সঙ্গে অভিসারের সংকল্প’ ভাষণের মতো দৃষ্টান্তগুলি।
বিশদ

15th  April, 2024
৪০০ নামুমকিন, তবু মরিয়া ‘গোয়েবলস’
হিমাংশু সিংহ

নির্বাচন কত বড় ‘মাইন্ড গেম’ তার অকাট্য প্রমাণ এবারের লড়াই। নরেন্দ্র মোদি জানেন, কোনও অঙ্কেই ৪০০ আসন জেতা সম্ভব নয়। দক্ষিণ ভারত না সাথ দিলে ৩০০ অতিক্রম করাও কঠিন। উত্তর ভারতে দু’-চারটে রাজ্যে হিসেব না মিললে ২০০-র আগেই কিংবা সামান্য ওপরে থমকে যেতে পারে বিজেপির রথ। বিশদ

14th  April, 2024
আমে-দুধে মেশায় আইএসএফ এখন ‘আঁটি’
তন্ময় মল্লিক

ডুবন্ত মানুষ বাঁচার আশায় খড়কুটোকেও আঁকড়ে ধরে। একুশের নির্বাচনে সেই আশায় ডুবন্ত সিপিএম আইএসএফকে আঁকড়ে ধরেছিল। বাংলার রাজনীতিতে টিকে থাকার জন্য ব্রিগেডের জনসভায় অধীর চৌধুরীকে সরিয়ে দিয়ে আইএসএফ নেতা আব্বাস সিদ্দিকীর হাতে মাইক্রোফোন তুলে দিয়েছিলেন মহম্মদ সেলিম। বিশদ

13th  April, 2024
অশ্বমেধের ঘোড়া বনাম এক নারীর লড়াই
সমৃদ্ধ দত্ত

মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক জীবন ৫০ বছরে পা দিল। ৫০ বছর ধরে তাঁর রাজনৈতিক ও সামাজিক উত্থান এক চমকপ্রদ ঐতিহাসিক রেফারেন্স। বিশেষত পুরুষতান্ত্রিক ভারতীয় রাজনীতিতে এক নারী হিসেবে ক্রমে শীর্ষে পৌঁছনো প্রায় বিরল। বিশদ

12th  April, 2024
ইতিহাসমেধ যজ্ঞের শেষ পরিণতি কী?
মৃণালকান্তি দাস

সদ্য ক্ষমতায় বসা নরেন্দ্র মোদি সরকারের মানবসম্পদ উন্নয়ন মন্ত্রী তখন স্মৃতি ইরানি। ২০১৪-র অক্টোবর মাস। দিল্লির মধ্যপ্রদেশ ভবনে মন্ত্রীকে ডেকে এনে প্রায় সাত ঘণ্টা বৈঠক করেছিলেন আরএসএস নেতারা। বৈঠকে সুরেশ সোনি, দত্তাত্রেয় হোসাবোলে ছাড়াও শিক্ষাক্ষেত্রের সঙ্গে যুক্ত সঙ্ঘের বিভিন্ন শাখার নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।
বিশদ

11th  April, 2024
অর্থ পরে, আগে আস্থা ফেরান মোদি
হারাধন চৌধুরী

পূর্ববর্তী দুটি লোকসভা নির্বাচনের আগে নরেন্দ্র মোদি প্রতিশ্রুতি দিয়ে বাজিমাত করেছিলেন। এবার তাঁর প্রচারের ক্যাচলাইন ‘গ্যারান্টি’। কখনও কখনও তিনি শুধু ‘গ্যারান্টি’তেই থেমে নেই, ‘গ্যারান্টিরও গ্যারান্টি’ দিচ্ছেন! পুরো শরীরী ভাষা উজাড় করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলে চলেছেন, ‘আজ পুরা হিন্দুস্থান জানতা হ্যায়, দুনিয়া ভি মানতা হ্যায়, মোদি কি গ্যারান্টি মতলব গ্যারান্টি পুরা হোনে কি গ্যারান্টি!’
বিশদ

10th  April, 2024
ফ্যাক্টর নারীশক্তি, গ্যারান্টিও
শান্তনু দত্তগুপ্ত

জওহরলাল নেহরুর হাতে সময় যে বেশি নেই, তার আভাস অনেক আগে থেকেই পেয়েছিলেন কংগ্রেসের ‘বস’রা। তাই বছর দুয়েক ধরে নিজেদের গুছিয়ে নিতে পেরেছিলেন। বরং সময় দেননি লালবাহাদুর শাস্ত্রী। কে হবেন প্রধানমন্ত্রী? বিশদ

09th  April, 2024
বিপন্ন সাংবিধানিক নৈতিকতা
পি চিদম্বরম

দুর্নীতির অভিযোগে একজন কর্তব্যরত মুখ্যমন্ত্রীকে গ্রেপ্তার একইসঙ্গে আইনি, রাজনৈতিক এবং সাংবিধানিক সমস্যা। এটা আরও এমন একটা বিষয় যা সংবিধানের লিখিত বয়ানবহির্ভূত এবং এর সঙ্গে জড়িয়ে গিয়েছে সাংবিধানিক নৈতিকতার দিক। 
বিশদ

08th  April, 2024
ডায়মন্ডহারবারে বিজেপি’র প্রার্থী নেই কেন?
হিমাংশু সিংহ

মুখে বড় বড় কথা, লড়াই করার নেতা নেই, দমও নেই। শনিবার দুপুরে এই লেখা যখন লিখছি তখনও ডায়মন্ডহারবারে প্রার্থীই ঘোষণা করতে পারেনি রাজ্যের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি। রণেভঙ্গ দিয়েছেন সিপিএমের মদতপুষ্ট নৌশাদ সিদ্দিকিও। বিশদ

07th  April, 2024
বেলাগাম হও, নম্বর বাড়াও
তন্ময় মল্লিক

‘বিধায়কের সম্পত্তির সঙ্গে উপার্জনের কোনও সঙ্গতি নেই। তার হিসেব আমার কাছে এসে গিয়েছে। কীভাবে এত সম্পত্তি, তা নিয়ে তদন্ত শুরু হবে। তিনি হয়তো তিহারে যেতে পারেন। এই হুঁশিয়ারির পর বিধায়ক যদি চুপ করে যান তাহলে আমাদের কিছু বলার নেই।’ বিশদ

06th  April, 2024
একনজরে
আর মাত্র চারদিন বাদে ভোটগ্রহণ। শেষ মুহূর্তে প্রচার তুঙ্গে তামিলভূমে। ভোটারদের চোখ টানতে ও মনে পেতে নিত্য নতুন অদ্ভুত উপায়ে প্রচারে নামছেন প্রার্থীরা। এই জাল্লিকাট্টুর ...

বিধাননগর হাসপাতাল মোড়ের কাছে  দুই ব্যক্তি গল্প করছেন। ধীরেন রায় নামে একজন বলছেন, দেখলেন তো তৃণমূলের মিছিলে ভিড়। কিসের লোভে লোকগুলো ঘুরছে বলুন তো? ...

গৃহবন্দি অবস্থায় তাঁর স্ত্রী বুশরা বিবিকে বিষ দেওয়া হচ্ছে। কয়েকদিন আগেই এমন অভিযোগ করেছিলেন পাকিস্তানের প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। তারপরই তাঁকে বাসভবন থেকে রাওয়ালপিন্ডির আদিয়ালা কারাগারে স্থানান্তরিত করার আর্জি জানিয়ে উচ্চ আদালতের দ্বারস্থ হয়েছিলেন বুশরা। ...

 ফুটবলের মক্কা কলকাতা। তিন প্রধানকে ঘিরে সমর্থকদের অফুরান আবেগ ময়দানের ইউএসপি। ফুটবলের মতো মেট্রো রেলও বঙ্গ সংস্কৃতির ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

পেশা ও ব্যবসায় অর্থাগমের যোগটি অনুকূল। বিপরীত লিঙ্গের প্রতি আকর্ষণ বৃদ্ধি পেতে পারে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব হিমোফিলিয়া দিবস
হাজব্যান্ড অ্যাপ্রিসিয়েশন ডে
১৬২৯ - প্রথম বাণিজ্যিক মাছের খামার চালু
১৭৮১ - ওয়ারেন হেস্টিংস কলকাতায় প্রথম মাদ্রাসা স্থাপন করেন
১৭৯০- মার্কিন বিজ্ঞানী বেঞ্জামিন ফ্রাঙ্কলিনের মৃত্যু
১৮৫৩ - নাট্যকার ও নাট্য অভিনেতা রসরাজ অমৃতলাল বসুর জন্ম
১৮৯৯ - কলকাতায় প্রথম বিদ্যুৎ সরবরাহ শুরু
১৯২৭- প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী চন্দ্রশেখরের জন্ম
১৯৭১- স্বাধীনতা ঘোষণা করল বাংলাদেশ, গঠিত হল অস্থায়ী মুজিবনগর সরকার
১৯৭২- শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার মুথাইয়া মুরলীধরনের জন্ম
১৯৭৪ - ইংরেজ গায়িকা, অভিনেত্রী ও ফ্যাশন ডিজাইনার ভিক্টোরিয়া বেকহ্যামের জন্ম
১৯৭৫- ভারতের দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি সর্বপল্লী রাধাকৃষ্ণানের মৃত্যু
১৯৮৩- এস এল ভি-৩ রকেটের সাহায্যে ভারত মহাকাশে পাঠাল দ্বিতীয় উপগ্রহ ‘রোহিনী’ আর এস ডি-২



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৮৩.০৩ টাকা ৮৪.১২ টাকা
পাউন্ড ১০২.৫৫ টাকা ১০৫.১৬ টাকা
ইউরো ৮৭.৪৮ টাকা ৮৯.৮৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৭৩,৮৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৭৪,২০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৭০,৫৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৮৩,৫০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৮৩,৬০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৪ বৈশাখ, ১৪৩১, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪। নবমী ২৪/৫০ দিবা ৩/১৫। অশ্লেষা নক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৫/১৮/৩৩, সূর্যাস্ত ৫/৫৩/৫৪। অমৃতযোগ প্রাতঃ ৬/৫৯ মধ্যে পুনঃ ৯/২৯ গতে ১১/১১ মধ্যে পুনঃ ৩/২৩ গতে ৫/৪ মধ্যে। রাত্রি ৬/৪০ গতে ৮/৫৬ মধ্যে পুনঃ ১/৩০ গতে উদয়াবধি। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪২ গতে ৩/২৩ মধ্যে। রাত্রি ৮/৫৬ গতে ১০/২৮ মধ্যে। বারবেলা ৮/২৮ গতে ১০/২ মধ্যে পুনঃ ১১/৩৭ গতে ১/১১ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৭ গতে ৩/৫৩ মধ্যে।  
৪ বৈশাখ, ১৪৩১, বুধবার, ১৭ এপ্রিল ২০২৪। নবমী সন্ধ্যা ৫/৩৫। পুষ্যা নক্ষত্র দিবা ৭/৫৫। সূর্যোদয় ৫/১৯, সূর্যাস্ত ৫/৫৫। অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৭ মধ্যে ও ৯/২৩ গতে ১১/৭ মধ্যে ও ৩/২৭ গতে ৫/১১ মধ্যে এবং রাত্রি ৬/৪৭ গতে ৯/০ মধ্যে ও ১/২৩ গতে ৫/১৮ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ১/৪৩ গতে ৩/২৭ মধ্যে এবং রাত্রি ৯/০ গতে ১০/২৭ মধ্যে। কালবেলা ৮/২৮ গতে ১০/৩ মধ্যে ও ১১/৩৭ গতে ১/১২ মধ্যে। কালরাত্রি ২/২৮ গতে ৩/৫৪ মধ্যে। 
৭ শওয়াল।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
রামনবমীর শুভেচ্ছা মুখ্যমন্ত্রীর
রামনবমীর শুভেচ্ছা জানালেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। আজ তিনি এক্স হ্যান্ডলে ...বিশদ

10:17:10 AM

হাওড়ায় বিজেপি প্রার্থী রথীন চক্রবর্তীর উপস্থিতিতেই অস্ত্র হাতে রামনবমীর মিছিল

10:14:09 AM

ছাদে বাইক চালকের দেহ নিয়ে ১৮ কিমি
মোটর সাইকেলের সঙ্গে গাড়ির মুখোমুখি সংঘর্ষে বাইক চালক ছিটকে পড়েছিলেন ...বিশদ

09:50:26 AM

একদিনের বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত দুবাই
একদিনের বৃষ্টিতে বিপর্যস্ত দুবাই শহর। মঙ্গলবারের বিপুল বৃষ্টিপাত ছাড়িয়ে গিয়েছে ...বিশদ

09:45:28 AM

পিএলআ‌ই: প্রিমিয়াম আগাম জমার সুযোগ
পোস্টাল জীবন বিমা (পিএলআ‌ই) এবং গ্রামীণ পোস্টাল জীবন বিমায় (আরপিএলআ‌ই) ...বিশদ

09:36:44 AM

সোনার দরে নয়া রেকর্ড
ফের নয়া রেকর্ড গড়ল সোনা। গত শুক্রবার কলকাতায় ‘৯৯৯’ বিশুদ্ধতার ...বিশদ

09:17:49 AM