Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

রাজ্য মেধাতালিকা ও প্রান্তিক সুন্দরবন
সুব্রত চট্টোপাধ্যায়

অনেকেই বলাবলি করেন: রাজ্যের মেধাতালিকায় কোথায় আর সুন্দরবন। কথাটা ঠিক নয়। ক্ষেত্রসমীক্ষা বলছে—মেধাতালিকায় সে-মাথায় দার্জিলিং তো এ-মাথায় সুন্দরবন। সদ্য বের হল জয়েন্টের মেধাতালিকা। পঞ্চম স্থানে অর্ক দাস। অর্কের শিকড় আসলে সুন্দরবন সন্নিহিত অঞ্চলে। খোদ সুন্দরবনের জ্ঞানপীঠ বিদ্যায়তনে ওর প্রাথমিক শিক্ষাগ্রহণ। মা সুন্দরবনের মেয়ে, বাবার মাস্টারিও এখানে। মে-তে প্রকাশিত উচ্চমাধ্যমিক শিক্ষা সংসদ ও মাদ্রাসা বোর্ডের মেধাতালিকায় এবার বাঁকুড়া-বীরভূমদের ভিড়েও সুন্দরবন। এমনকী কলকাতা যেখানে পেল একটি, সেখানে সুন্দরবন পেল দুটি জায়গা—দ্বিতীয় ও অষ্টম। কাকদ্বীপ সুন্দরবন আদর্শ বিদ্যামন্দিরের মাসুম আখতার দ্বিতীয় (৪৯৬), কাউতলা আর কে এ হাইয়ের আদিত্য বসু অষ্টম (৪৮৮)। মাসুম মাধ্যমিকে ছিল ৪র্থ স্থানে। ২০১৬-তেও ওর স্কুলের সৌরজ্যোতি-রাতুল পঞ্চম ও নবম স্থানে। ওদিকে মাদ্রাসা শিক্ষা বোর্ডের ফাজিলে ক্যানিং ২-এর বনমালীপুর এ জে এস সিনিয়র মাদ্রাসার হাসানুর রহমান মেধাতালিকায় দ্বিতীয়। গতবারে ইনজামুল লস্কর পঞ্চম। অবাক হবেন—এই স্কুলের আবুল কালাম ২০০৭-এ আলিম পরীক্ষায় ছিল মেধাতালিকার শীর্ষে। সুন্দরবন শীর্ষেও তাহলে?
আসলে কি জানেন, অঞ্চলটি এখনও কিছুটা হলেও পিছিয়ে। এখানে রেজাল্ট করা মুখের কথা নয়। এক মেহনতি প্রক্রিয়া। শহরের ছেলেমেয়েরা যেখানে থাকে রাজপ্রাসাদে, সেখানে এখানকার পড়ুয়ারা থাকে রায়মঙ্গল হাতানিয়া-দোয়ানিয়াদের মতো ভয়ঙ্করদের পাশে। পড়তে পড়তে ওদের একটা মন পড়ে থাকে নদীর দিকে—কখন যে বাঁধটা ভেঙে যাবে। আর ভাঙলেই ওদের বইখাতা ভেসে যায়, উড়ে যায় পড়ার ঘরের চালাটাও। ঘোড়ামারা, জি-প্লট, মৌসুনির পড়ুয়াদের সর্বক্ষণ কাটে টেনশনে। শহর ও বাঁকুড়া-বীরভূমদের এসব হ্যাপা নেই। ওদের সাফল্যের রসায়নটাই আলাদা। পড়ো আর মার্কস তোলো। স্কুলে ল্যাব, লাইব্রেরি, সযত্ন ক্লাস, ইউনিট টেস্ট, মকটেস্ট। সাবজেক্ট পিছু অঢেল টিউশনি, হাতের কাছে ‘পাথ ফাইন্ডার’-ও। ওদের সঙ্গে পাল্লা দেবে সুন্দরবন? তাও দিচ্ছে। কখনও খালি পেটে, কখনও পান্তা খেয়ে। এদের বাবা মা’রা কেউ দিনমজুর, কেউ সেলসম্যান, কেউ ভ্যান চালায়, কারুর মুদির দোকান, তেলে ভাজার দোকান। কোথায় পাবে এরা টিউশনির টাকা! তবু সব কিছু ওভারকাম করে এরা তুলছে স্টার মার্কস, এমনকী ১০০-য় ১০০। ১৯ ব্লকের (মোট ১৯ ব্লক নিয়ে সুন্দরবন) সেরা ১৯ স্কুলসহ আরও ২১টি (মোট দাঁড়াচ্ছে ৪০টি) স্কুল নিয়ে তৈরি একটি সমীক্ষায় দেখা যায় এরা কতখানি উচ্চফলনশীল। ৯০ ছাপিয়েও মার্কস তুলছে অনিমেষ-সুমন (দেবনগর এম ডি হাই), পূর্ণিমা-রাখী (ট্যাংরাখালি পিজেপি হাই /ক্যানিং-১), কুণাল (শ্রীফলতলা সি কে হাই, মথুরাপুর-২), নীলেন্দু (খানসাহেব আবাদ হাই, সাগর) এবং আরও আরও অনেকেই। এখানে ১০০ তে ১০০ মার্কস তোলার প্রথম রেকর্ড করেছে সাহেবখালি নিত্যানন্দ হাইয়ের (হিঙ্গলগঞ্জ ব্লক) সেদিনের (১৯৬১) পুঁচকে শুকদেব গায়েনের অঙ্কে ১০০। আমৃত্যু তার অঙ্ক চর্চা। লোকে বলত, সুন্দরবনের কে সি নাগ। পরে পরে ১০০ তুলল ভূদীপ্ত (ছোট সেহারা হাই), অমর (ছোট মোল্লাখালি এম সি বিদ্যাপীঠ), হালে পেয়েছে সাগির (ঈশ্বরীপুর মর্জিনা বিদ্যাপীঠ), তৌসিক (টাকি আর কে মিশন), সুচেতা (হাড়োয়া পিজি হাই), সৌরভ (হিঙ্গলগঞ্জ হাই) যথাক্রমে অঙ্কে জীবনবিজ্ঞানে। সেরা দশদের মতোই এদের কাজ। তাছাড়া একেই বলে দারিদ্র্যকে তুড়ি মারা। মেধাতালিকার বাইরে থেকেও এদের এটা মেধারই পরিচয়। দুলদুলি মঠবাড়ি ডিএন হাইয়ের সুকান্ত রাজ্যে তুলল সেবার (১৯৯৫) ইতিহাসে সর্বোচ্চ মার্ক ৯২। এই স্কুলেরই আরেক উল্লেখ্য ক্যারেক্টর রবীন্দ্রনাথ গায়েন। সে দিনের (২০০১) এই কিশোর আজকের রবীন্দ্রনাথ গায়েন, প্রেসিডেন্সি ইউনিভার্সিটির পদার্থবিজ্ঞান বিভাগ সামলাচ্ছেন। দিনমজুর বাবার পয়সায় মানুষ। গাঙ পেরিয়ে স্কুলে যেতেন। পেলেন বিজ্ঞানী মণিলাল ভৌমিক মেধা অনুসন্ধান বৃত্তি। রেজাল্টের জোরে।
সুন্দরবনের কপাল খুলেছিল ১৯৫৮ সালে। স্কুল ফাইনালে টাকি রাষ্ট্রীয় হাই স্কুলের (হাসনাবাদ ব্লক) অজিত কুমার মণ্ডল সেবার রাজ্যে একাদশ স্থানে। এই প্রথম মেধাতালিকায় সুন্দরবন। ১৯৬২-তে এই স্কুলের রামপ্রসাদ সেনগুপ্ত একাদশ শ্রেণীতে রাজ্যে ৭ম স্থানে। পরের বছর জাতীয় পুরস্কারে ভূষিত মনোতোষ মিত্র। এছাড়া ললিত ঘোষ, চন্দন দাশগুপ্ত, তাপস চন্দ এখানকার কৃতী ছাত্র। ১৯৬৯ হিঙ্গল ব্লকের দুই কিশোর শ্যামল সরকার (যোগেশগঞ্জ হাই, ৪র্থ স্থান, ৭৫১), ও তপন ঘোষ (কনকনগর এসডি হাই, ৭ম স্থান, ৭০৭) কাদা জল ঘেঁটে স্কুলে আসতে আসতে কখনও কি ভেবেছিল যে, একজন হয়ে যাবে আই এ এস অফিসার, আরেকজন যাবে বেলুড় আর কে মিশনে ইকনমিক্স পড়াতে? রাজাবাজার সায়েন্স কলেজে এখন ক্লাস নিচ্ছেন অতিথি অধ্যাপক হিমাংশু রাউত। কিশোর হিমাংশু পাথরপ্রতিমা কেদারনাথ রামানন্দ হাই-এ ক্লাস এইটেই ড্রপ আউট। সংসারে টানাটানি। অবশেষে সেরা দশে নবম (মার্কস ৬৮০)। ১৯৭২-এ। মশারি নেই, বিছানা নেই, গোটা তিনেক টাকা আর একজোড়া চপ্পল ধার করে পড়তে গেল বেলঘরিয়া আর কে মিশনে। দেখেছেন কি এমন জীবন? ক্ষেত্র সমীক্ষায় দেখা যাচ্ছে, সুন্দরবনে ‘সেরা দশে’ দাঁড়িয়ে মোট ১৯টি ব্লকের ৯টি—হাসনাবাদ, হিঙ্গলগঞ্জ, ক্যানিং-২, পাথরপ্রতিমা, সাগর (মনসাদ্বীপ আর কে মিশন হাই, প্রবীর গোল দিগন্ত দাস), কাকদ্বীপ, জয়নগর-১ (দঃ বারাসাত আচার্য শিবদাস হাই, বিশ্বজিৎ দাস), জয়নগর ২ (নিমপীঠ আর কে হাই, তারাশঙ্কর-রামশঙ্কর), মথুরাপুর ২। অবশিষ্ট ব্লকের স্কুলগুলোতে ছড়িয়ে ছিটিয়ে অজস্র মেধা। যেমন, ক্যানিং ডেভিড সেগুন, বাসন্তী হাই, রাঙ্গাবেলিয়া হাই, গোসাবা আর আর আই, মথুরাপুরের কৃষ্ণচন্দ্র হাই, সন্দেশখালির কালীনগর হাই, কুলতলির জামতলা ভগবানচন্দ্র হাই, নামখানা এম ডি হাই, জয়গ্রাম হাই, বামনপুকুরিয়া হাই। জয়গ্রাম হাইয়ের এক মেধাবী (১৯৪২-এ উত্তীর্ণ) আজকের বিখ্যাত ডাক্তার অনুপম দাশগুপ্ত। নামখানা এম ডি হাই-এ হস্টেলে মেধাবীদের রেখে সকাল-বিকেল-রাতে কোচের ব্যবস্থা। মাসুম আদিত্যদের প্রধান শিক্ষক শক্ত হাতে হাল ধরে আছেন যদিও শিক্ষক-ছাত্রের অনুপাতটা ১:৪০ নয়। টাকি আর কে মিশনে পড়াশোনা যথেষ্ট ভালো। সেরা দশে এখানে এ পর্যন্ত তিনজন। সায়ন্তন-অনীশ (২০১৪), রমিত (২০১৫) এখানে যথাক্রমে পঞ্চম, ষষ্ঠ, দশম হয়েছে। স্কুলের নজর মেধা তৈরির দিকেই। আবুল কালাম (ক্যানিং-২, মেধাতালিকার শীর্ষে) নিজের স্কুলে শিক্ষকতা করছেন। অর্থাৎ ১ম হওয়া এক মেধাবীর কাছে পড়ুয়ারা পাঠ নিতে পারছে।
অনেকটাই অতএব স্পষ্ট যে, মেধাতালিকায় অনেকখানি জুড়েই সুন্দরবন। সব শেষে বলি, এখানকার মেধাবীদের মেধা এবং ক্ষমতাকে কি সুন্দরবন উন্নয়নের কাজে লাগানো যায় না? এখানে তাঁরা একটা জুতসই প্রজেক্ট করতে পারেন। বিশেষ করে নদী-বাঁধের ওপর। সুন্দরবন উন্নয়ন পর্ষদেও এঁদের রাখা যেতে পারে। তবেই এঁদের মেধার সার্থকতা।
01st  July, 2019
ঘোষণা ও বাস্তব
সমৃদ্ধ দত্ত

ভারত সরকারের অন্যতম প্রধান একটি প্রকল্পই হল নদী সংযোগ প্রকল্প। দেশের বিভিন্ন নদীকে পরস্পরের সঙ্গে যুক্ত করে দেওয়া হবে। যাতে উদ্বৃত্ত জলসম্পন্ন নদী থেকে বাড়তি জল শুকনো নদীতে যেতে পারে। প্রধানমন্ত্রী বারংবার এই প্রকল্পের প্রয়োজনীয়তার কথা বলেন। গোটা প্রকল্প রূপায়ণ করতে অন্তত ১ লক্ষ কোটি টাকা দরকার। এদিকে আবার বুলেট ট্রেন করতেও ১ লক্ষ ৮০ হাজার কোটি টাকা খরচ হচ্ছে! আধুনিক রাষ্ট্রে অবশ্যই দুটোই চাই। কিন্তু বাস্তব প্রয়োজনের ভিত্তিতে বিচার করলে? কোনটা বেশি জরুরি? বিশদ

মোদি সরকারের নতুন জাতীয় শিক্ষানীতি দেশকে কোন দিকে নিয়ে চলেছে
তরুণকান্তি নস্কর

 কেন্দ্রীয় মানব সম্পদ উন্নয়ন দপ্তর থেকে সম্প্রতি জাতীয় শিক্ষানীতি-২০১৯-এর যে খসড়া প্রকাশিত হয়েছে তার যে অংশ নিয়ে সংবাদ মাধ্যমে হই চই পড়েছিল তা হল বিদ্যালয় স্তরে ত্রি-ভাষা নীতির মাধ্যমে অ-হিন্দিভাষী রাজ্যে জোর করে হিন্দি চাপানোর বিষয়টি। তামিলনাড়ুর মানুষের প্রবল আপত্তিতে তা কেন্দ্রীয় সরকার প্রত্যাহার করে নিয়েছে।
বিশদ

11th  July, 2019
কেন তেরোজন অর্থনীতিবিদ অখুশি হবেন?
পি চিদম্বরম

প্রধান অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. অরবিন্দ সুব্রামনিয়ন পাঁচ বছর আগে তাঁর প্রথম অর্থনৈতিক সমীক্ষা (ইকনমিক সার্ভে ২০১৪-১৫) পেশ করে বলেছিলেন, ‘‘ভারত একটা সুন্দর জায়গায় (সুইট স্পট) পৌঁছে গিয়েছে—জাতির ইতিহাসে এটা বিরল—এইভাবে শেষমেশ দুই সংখ্যার মধ্যমেয়াদি বৃদ্ধির কৌশলে ভর করে এগনো যাবে।’’
বিশদ

08th  July, 2019
জলের জন্য হাহাকার আমাদের কি একটুও ভাবাচ্ছে!
শুভা দত্ত

আমাদের এখনও তেমন অসুবিধে হচ্ছে না। কারণ, কলকাতা মহানগরীতে এখনও পানীয় হোক কি সাধারণ কাজকর্ম সারার জলের অভাব ঘটেনি। ঘটেনি কারণ আমাদের জল জোগান যে মা গঙ্গা, তিনি এখনও বহমান এবং তাঁর বুকের ঘোলা জলে এখনও নিয়ম করে বান ডাকে, জোয়ার-ভাটা খেলে।
বিশদ

07th  July, 2019
এক বাস্তববাদী রাজনীতিকের নাম শ্যামাপ্রসাদ
হারাধন চৌধুরী

 নরেন্দ্র মোদির দ্বিতীয় সরকার নিয়ে বিজেপি তিন দফায় ভারত শাসনের দায়িত্ব পেল। কংগ্রেসকে বাদ দিলে ভারতের আর কোনও রাজনৈতিক দল এই কৃতিত্ব অর্জন করতে পারেনি। ২০১৯-এর লোকসভার ভোটে বিজেপি ক্ষমতা অনেকখানি বাড়িয়ে নিয়েছে। ২০১৪-র থেকে বেশি ভোট পেয়েছে এবং তিনশোর বেশি আসন দখল করেছে।
বিশদ

06th  July, 2019
চাকরি ও পরিকাঠামো উন্নয়নে প্রত্যাশিত দিশা দেখাতে পারল না নির্মলা সীতারামনেরও বাজেট
দেবনারায়ণ সরকার

 লোকসভা নির্বাচনের আগে গত ফেব্রুয়ারিতে বর্তমান বছরের (২০১৯-২০) অন্তর্বর্তী বাজেট পেশ করা হয়েছিল। নির্বাচনে বিপুল জয়ের পরে বর্তমান অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন দ্বিতীয় মোদি সরকারের বর্তমান অর্থবর্ষের পূর্ণাঙ্গ বাজেট পেশ করলেন। এই বাজেটে আয় ও ব্যয় অন্তর্বর্তী বাজেটে যা ধরা হয়েছিল সেটাই অপরিবর্তিত রইল।
বিশদ

06th  July, 2019
চীনা ঋণের ‘নাগপাশ’
মৃণালকান্তি দাস

বৈদেশিক ঋণের পাহাড় কীভাবে একটা দ্রুত বিকাশশীল অর্থনীতির চাকাকে স্তব্ধ করে দিতে পারে, শ্রীলঙ্কা তার ক্ল্যাসিক দৃষ্টান্ত। হামবানতোতা বন্দরকে ৯৯ বছরের লিজে চীনের কাছে হস্তান্তরে বাধ্য হওয়ার পর সেই ধারণাই আরও জোরালো হয়েছে। শ্রীলঙ্কার অর্থনীতিবিদ উমেশ মোরামুদালি লিখেছেন, শ্রীলঙ্কার বৈদেশিক ঋণের চেহারা আসলে যা ভাবা হচ্ছে, তার চেয়েও অনেক বেশি সাঙ্ঘাতিক। চীনের ঋণ একা দায়ী নয়। হামবানতোতা বন্দর নির্মাণের জন্য চীনের এক্সিম ব্যাঙ্ক থেকে শ্রীলঙ্কা যে ঋণ নিয়েছিল তার জন্য প্রতিবছর যে টাকা শোধ করতে হচ্ছে, সেটা শ্রীলঙ্কার মোট বার্ষিক ঋণ পরিশোধের ৫ শতাংশও নয়। অন্যভাবে বললে, হামবানতোতা আসলে হিমশৈলের চূড়ামাত্র।
বিশদ

05th  July, 2019
জি-টোয়েন্টির মঞ্চে ভারতের সফল কূটনীতি
গৌরীশঙ্কর নাগ 

বাস্তবিকই তাই। দ্বিতীয়বার জিতে প্রধানমন্ত্রী মোদি তাঁর বিপুল জনসমর্থনকে ভারতের বহির্বাণিজ্য ও কূটনৈতিক নেটওয়ার্ককে মজবুত করার কাজে নিযুক্ত করেছেন। ইতিমধ্যে তাঁর দ্বিতীয়বার শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানে বিমস্টেকের অন্তর্গত সকল সদস্য রাষ্ট্র ও সাংহাই কোয়াপারেশন অর্গানাইজেশনের এখনকার সভাপতি কিরঘীজ রাষ্ট্রপতিকে আমন্ত্রণ জানিয়ে তিনি মোক্ষম চাল দিয়েছেন। 
বিশদ

04th  July, 2019
অ্যাঞ্জি, আয়লান ও মানবিকতার হত্যা
শান্তনু দত্তগুপ্ত

 আরও একটা ছবি...। মর্মান্তিক বললেও কম। আর সেটাই গোটা দুনিয়ার চোখে আঙুল দিয়ে ফের দেখিয়ে দিল, মানবিকতার থেকে অর্থনীতির গুরুত্ব আজ অনেক বেশি। কালো টি-শার্ট, কালো শর্টস পরা শরীরটা মুখ থুবড়ে পড়ে রয়েছে কাদায়। আগাছার মধ্যে। টি-শার্টটা একটু উঠে। তার ফাঁক থেকে দেখা যাচ্ছে ছোট্ট আর একটা শরীর। ২৩ মাসের অ্যাঞ্জির।
বিশদ

02nd  July, 2019
এক জাতি, এক নির্বাচন, অনেক ভীতি
পি চিদম্বরম

 প্রধানমন্ত্রীকে আপনার বাহবা দিতে হবে যে সাধারণ মানুষের চিত্তবিক্ষেপ ঘটিয়ে দেওয়ার মতো ইস্যুগুলো তিনি খাড়া করে দিতে পারেন। তিনি এই বিষয়ে বাজি ধরেন যে বিরোধীরা বহু কণ্ঠে প্রতিক্রিয়া জানাবে এবং সেগুলি সবসময় অকাট্য বা যুক্তিনির্ভর হবে না।
বিশদ

01st  July, 2019
অশান্তি ঠেকাতে পুলিসের একাংশের ভূমিকা অশান্তি বাড়িয়ে দিচ্ছে না তো?
শুভা দত্ত

  পুলিসি দক্ষতা এবং সময়ানুগ সক্রিয়তা বজায় থাকলে অনায়াসে অনেক কিছুই সহজে মিটে যায় বা নিয়ন্ত্রণ করা যায়। প্রাণও বাঁচে। কিন্তু, মার ঠেকাতে গিয়ে যদি পুলিসই প্রাণঘাতী মারমুখী হয়ে ওঠে তবে তো বিপদ। সেই বিপদের আভাস মিলেছে। যতদূর খবর, বিপদ যাতে বাড়তে না পারে তার জন্য প্রয়োজনীয় ব্যবস্থাও নিচ্ছে মমতা সরকার।
বিশদ

30th  June, 2019
কাটমানি ও শুদ্ধিকরণ
তন্ময় মল্লিক

এক ফোঁটা গোচোনা যেভাবে গোটা বালতির দুধ নষ্ট করে দেয়, তেমনই তৃণমূলের মাতব্বরদের কাটমানি খেয়ে ফুলে ফেঁপে ঢোল হয়ে ওঠা মুখ্যমন্ত্রীর সমস্ত ভালো কাজে কেরোসিন ঢেলে দিয়েছে। তাই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কাটমানির মূলেই কুঠারাঘাত করেছেন। তাঁর এই ‘শুদ্ধিকরণ’ প্রক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে সম্পন্ন হলে ২০২১ সালটা হবে ইতিহাস সৃষ্টির বছর। রচিত হবে ঘুরে দাঁড়ানোর লড়াইয়ের ইতিহাস।
বিশদ

30th  June, 2019
একনজরে
 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বৃহস্পতিবার প্রয়াত হলেন পাঁচ ও ছয়ের দশকে বাংলার অন্যতম সেরা লেগ স্পিনার সৌমেন কুণ্ডু (৭৭)। গত পাঁচ দিন ধরে অসুস্থ হয়ে হাসপাতালে ছিলেন তিনি। সৌমেন কুণ্ডু বাংলা ও রেলের হয়ে রনজি ট্রফি খেলেছেন। ...

লখনউ, ১১ জুলাই (পিটিআই): দেশের বিরোধী-শাসিত রাজ্যগুলিতে সরকারকে ফেলার চেষ্টা করছে বিজেপি। বৃহস্পতিবার ট্যুইটারে এই অভিযোগ করলেন বিএসপি সুপ্রিমো মায়াবতী। একই সঙ্গে ‘দলবদলু’ বিধায়কদের সদস্যপদ ...

 বিএনএ, চুঁচুড়া: ডাক্তারের গাফিলতিতে রোগীর মৃত্যু হয়েছে, এই অভিযোগে বৃহস্পতিবার রোগীর বাড়ির লোকজন বিক্ষোভ দেখালেন পাণ্ডুয়া গ্রামীণ হাসপাতালে। অবিলম্বে ডাক্তারকে গ্রেপ্তার করতে হবে বলে তাঁরা দাবি করেন। পরে বিশাল পুলিস বাহিনী ঘটনাস্থলে গিয়ে অবস্থা নিয়ন্ত্রণে আনে। ...

 নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: রাজ্যের প্রতি বঞ্চনার প্রতিবাদ জানাতে দিল্লিতে বিধায়কদের সর্বদলীয় প্রতিনিধিদল পাঠানোর বিষয়টি সরকার বিবেচনা করছে। বৃহস্পতিবার বিধানসভায় রাষ্ট্রায়ত্ত শিল্প সংস্থা বিক্রি করে দেওয়ার কেন্দ্রীয় সরকারের সিদ্ধান্তের পরিবর্তনের দাবিতে আনা একটি প্রস্তাব নিয়ে আলোচনার সময় পরিষদীয়মন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় এই ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

বেশি বন্ধু-বান্ধব রাখা ঠিক হবে না। প্রেম-ভালোবাসায় সাফল্য আসবে। বিবাহযোগ আছে। কর্ম পরিবেশ পরিবর্তন হতে ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৮২৩: কলকাতা বন্দর থেকে ছাড়ল ভারত নির্মিত প্রথম বাষ্পচালিত জাহাজ ‘ডায়না’
১৯০০:অভিনেতা ছবি বিশ্বাসের জন্ম
১৯০৪: চিলির নোবেলজয়ী কবি পাবলো নেরুদার জন্ম
১৯০৯: চিত্র পরিচালক বিমল রায়ের জন্ম
১৯৬৫: ক্রিকেটার সঞ্জয় মঞ্জরেকরের জন্ম
১৯৭২: গুগলের কর্ণধার সুন্দর পিচাইয়ের জন্ম
১৯৯১: ফুটবলার হামেস রডরিগেজের জন্ম
১৯৯৭: পাকিস্তানি শিক্ষা আন্দোলনকর্মী মালালা ইউসুফজাইয়ের জন্ম
১৯৯৯: অভিনেতা রাজেন্দ্রকুমারের মৃত্যু
২০১২: কুস্তিগীর ও অভিনেতা দারা সিংয়ের মূত্যু
২০১৩: অভিনেতা প্রাণের মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৬৭.৫৫ টাকা ৬৯.২৪ টাকা
পাউন্ড ৮৪.১০ টাকা ৮৭.২৪ টাকা
ইউরো ৭৫.৬৬ টাকা ৭৮.৫৯ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৫,২০৫ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৩,৪০০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৩,৯০০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৩৮,৩০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৩৮,৪০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৭ আষা‌ঢ় ১৪২৬, ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, একাদশী ৪৮/৪০ রাত্রি ১২/৩১। বিশাখা ২৭/১৪ দিবা ৩/৫৭। সূ উ ৫/৩/১৩, অ ৬/২০/৫৩, অমৃতযোগ দিবা ১২/৮ গতে ২/৪৮ মধ্যে। রাত্রি ৮/২৯ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে পুনঃ ৩/৩৮ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৮/২২ গতে ১১/৪২ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/১ গতে ১০/২১ মধ্যে।
২৬ আষাঢ় ১৪২৬, ১২ জুলাই ২০১৯, শুক্রবার, একাদশী ৫৩/৮/৩৭ রাত্রি ২/১৮/৩৩। বিশাখানক্ষত্র ৩৪/৮/৪১ সন্ধ্যা ৬/৪২/৩৪, সূ উ ৫/৩/৬, অ ৬/২৩/৬, অমৃতযোগ দিবা ১২/৯ গতে ২/৪৯ মধ্যে এবং রাত্রি ৮/৩০ মধ্যে ও ১২/৪৬ গতে ২/৫৫ মধ্যে ও ৩/৩৭ গতে ৫/৩ মধ্যে, বারবেলা ৮/২৩/৬ গতে ১০/৩/৬ মধ্যে, কালবেলা ১০/৩/৬ গতে ১১/৪৩/৬ মধ্যে, কালরাত্রি ৯/৩/৬ গতে ১০/২৩/৬ মধ্যে।
৮ জেল্কদ
এই মুহূর্তে
রাজাবাজারে গুলি চালনার ঘটনায় ধৃত ১ 

06:47:00 PM

চৌবাগা খালে বাস উল্টে জখম বেশ কয়েকজন 

06:32:34 PM

মুর্শিদাবাদের প্রদীপপাড়ায় তৃণমূল পঞ্চায়েত প্রধানের স্বামীকে গুলি করে খুন

04:06:59 PM

৮৭ পয়েন্ট পড়ল সেনসেক্স 

03:59:16 PM

রিজার্ভ ব্যাঙ্কের নির্দেশ মেনে এনইএফটি, আরটিজিএস, আইএমপিএস-এর চার্জ প্রত্যাহার করল এসবিআই 

03:16:50 PM

দিল্লিতে বান্ধবীকে ছুরি মারার অভিযোগ এক ব্যক্তির বিরুদ্ধে

02:54:00 PM