বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

২২৫ টাকার হিসেব মেলাতেই কেটে গেল মূল্যবান ১৮ বছর! অবশেষে আইনি লড়াইয়ে জিতলেন বাস কন্ডাক্টর

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মাত্র ২২৫ টাকার হিসেব মেলাতে কেটে গেল জীবনের মূল্যবান ১৮টি বছর! আইনি লড়াইয়ের দীর্ঘসূত্রিতায় বহু দীর্ঘশ্বাস চেপে রেখেই চোয়াল আরও শক্ত করেছিলেন পেশায় বাস কন্ডাক্টর উত্তম ঠাকুর। বহু চড়াই উতরাই শেষে অবশেষে রায় গেল তাঁর পক্ষে।  
বরানগরের বাসিন্দা উত্তম ঠাকুর সিএসটিসির কাশীপুর ডিপোতে কর্মরত ছিলেন। ২০০৫ সালের এক সকালে বাস নিয়ে বেরনর সময় দেখেন, তাঁর কাছে খুচরো পয়সা নেই। এই পরিস্থিতিতে যাত্রীদের অসুবিধার কথা ভেবে চালকের কাছ থেকে ৫০০ টাকার একটি নোট খুচরো করে নিয়েছিলেন। ভেবেছিলেন পরে হিসেব মিলিয়ে দেবেন। কিন্তু মাঝপথে সিএসটিসি-র ভিজিল্যান্স টিম চেকিংয়ের জন্য বাসে ওঠে। দেখে কন্ডাক্টরের টিকিট ব্যাগে ২২৫ টাকা বেশি রয়েছে। টিকিট বিক্রির টাকার অঙ্কের সঙ্গে বাড়তি টাকার গরমিল ধরা পড়তেই ব্যাগ বাজেয়াপ্ত করে উত্তমবাবুকে শো-কজ করা হয়। উত্তম যদিও জানিয়েছিলেন চালকের থেকে ৫০০ টাকার নোট খুচরো করিয়েছিলেন। চালককে জিজ্ঞাসা করলেই সব স্পষ্ট হয়ে যাবে। কিন্তু অভিযোগ, চালককে বক্তব্য পেশের কোনও সুযোগ না দিয়েই উত্তমবাবুর বিরুদ্ধে বিভাগীয় তদন্তের নির্দেশ দিয়েছিল সিএসটিসি কর্তৃপক্ষ। শেষে একতরফা ব্যবস্থা নিয়ে উত্তমবাবুর বেতন অনেকটা কমিয়ে দেওয়ার পাশাপাশি তাঁকে একাধিক বৈধ ভাতা থেকেও বঞ্চিত করা হয় বলে অভিযোগ। 
এই নির্দেশের বিরুদ্ধে প্রথমে সিএসটিসি’র চেয়ারম্যানের কাছে আবেদন জানান উত্তমবাবু। কিন্তু কোনও সুরাহা না হওয়ায় শেষে ২০০৬ সালে কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন। হাইকোর্ট সিএসটিসি’র নির্দেশ বহাল রাখার নির্দেশ দেয়। সেই নির্দেশ চ্যালেঞ্জ করে ফের আবেদন জানান উত্তমবাবু। বিচারপতি পার্থসারথি চট্টোপাধ্যায়ের এজলাসে উত্তমবাবুর হয়ে সওয়াল করেন আইনজীবী আশীষকুমার চৌধুরী। তিনি দাবি করেন, পশ্চিমবঙ্গ সার্ভিস রুলের ৫২ নম্বর ধারা না মেনে একতরফাভাবে ওই সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিএসটিসি কর্তৃপক্ষ। এরপর একাধিকবার আদালত উত্তম ঠাকুরের বিরুদ্ধে জারি করা সিএসটিসি’র ওই নির্দেশনামা সংক্রান্ত ফাইল আদালতে পেশ করতে নির্দেশ দেয়। তবে পরিবহণ দপ্তর তা আদালতে পেশ করতে পারেনি। দপ্তরের আইনজীবী নয়নচাঁদ বিহানি শুনানিতে দাবি করেন, সমস্ত নিয়ম মেনেই মামলাকারীর বিরুদ্ধে ওই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। কিন্তু ফাইল না মেলার উপযুক্ত জবাব তিনি দিতে পারেননি। 
সব পক্ষের বক্তব্য শোনার পর বিচারপতি চট্টোপাধ্যায় নির্দেশে জানিয়ে দেন, উত্তম ঠাকুরের বিরুদ্ধে যে পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছিল তা বেআইনি। ২০০৫ সাল থেকে বেতন থেকে যে অর্থ কাটা হয়েছে তা তিন মাসের মধ্যে ফিরিয়ে দিতে হবে। সেই সঙ্গে অবিলম্বে তাঁকে আগের বেতন পরিকাঠামোয় ফিরিয়ে দিতে হবে। পাশাপাশি কোনও ভাতা থেকেও বঞ্চিত করা যাবে না।

14th     April,   2024
 
 
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ