বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 


 

বর্ষবরণের প্রস্তুতি। শনিবার উত্তর কলকাতায় তোলা নিজস্ব চিত্র।

কোন্নগরে শিশু খুন: বান্ধবীর সঙ্গে কথা বলিয়ে দেওয়ার ঘনঘন আর্জিতে তিতিবিরক্ত পুলিস

নিজস্ব প্রতিনিধি, চুঁচুড়া: ও খেয়েছে? কতটা খেয়েছে? রাতে ঘুমিয়েছে তো? শরীর কেমন আছে? পরস্পরের প্রতি উৎকণ্ঠায় এমন গুচ্ছ প্রশ্নের মুখে জেরবার হুগলি জেলা পুলিস। জিজ্ঞাসাবাদ করবে কী, দুই নারীর নিরন্তর প্রশ্নবাণের মুখে পড়তে হচ্ছে তাঁদেরই। ওই দুই নারী কোন্নগরের শিশুসন্তানকে হত্যায় গ্রেপ্তার হওয়া মা শান্তা শর্মা ও তাঁর বান্ধবী ইফফাত পারভিন। মনোবিদের পরামর্শে দু’জনকে দুই থানায় রেখেছে পুলিস। বৃহস্পতিবারই দু’জনকে ‘বিচ্ছিন্ন’ করা হয়েছে। আর তারপর শুক্রবার সকাল থেকেই দুই নারীর এহেন নানান প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে। আর আছে, প্রতি ১০-১৫ মিনিট অন্তর একটাই আর্জি—‘একটু কথা বলিয়ে দেবেন? দিন না প্লিজ’।
প্রত্যক্ষদর্শী পুলিস কর্মীদের সূত্রে জানা গিয়েছে, শান্তা শর্মার মুখে স্বামীর কথা শোনা যায়নি। খুন হওয়া সন্তানের জন্য চোখে সামান্য জলও দেখা যায়নি। এমনকী নেই বিলাপও। অথচ বান্ধবী খেল কী না, ঠিক আছে কী না, লক্ষবার সেই প্রশ্ন তাঁর মুখে শোনা যাচ্ছে। একইভাবে ইফাফাতকেও ঘনিষ্ঠ বান্ধবী শান্তাকে নিয়ে প্রবল উদ্বেগে থাকতে আর নিরন্তর প্রশ্ন করতে দেখা যাচ্ছে। দু’জনকে আলাদা থানায় রাখার পর থেকে কথা বলার জন্য আকুতি পুলিকে চমকে দিয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক পুলিস অফিসার বলেন, দু’জনেই ঠিকঠাক খেয়েছেন। খাবার নিয়ে তাঁদের কোনও বায়ানাক্কা, আগ্রহও দেখা যায়নি। কিন্তু ‘বিশেষ বান্ধবী’ কেমন আছে জানতে প্রতি মুহূর্তে উৎকণ্ঠা দেখা গিয়েছে। দু’জনকে পৃথক থানায় রাখার ২৪ ঘণ্টাও পার হয়নি, অথচ হাজার বার কথা বলিয়ে দেওয়ার জন্য দু’জনেই নাগাড়ে আবেদন, নিবেদন করে যাচ্ছেন।
ইতিমধ্যেই পুলিস তদন্তে অনেকটা অগ্রসর হয়েছে। তবে জেরার মুখে দু’জনকে গ্রেপ্তার হওয়ার দিনের মতো আর ভেঙে পড়তে দেখা যায়নি। যতটা শক্ত ইফফাত পারভিন, ততটাই শান্তা শর্মা। পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, ৮ বছরের শিশু শ্রেয়াংশুর খুনের ঘটনায় নতুন একাধিক তথ্য সামনে এসেছে। জানা গিয়েছে, সম্প্রতি ছেলেকে নগ্ন করে বেত দিয়ে পেটাতে শুরু করেছিলেন মা শান্তা। এনিয়ে পুলিস প্রশ্ন করলে সপাটে জবাব দিয়েছেন ওই মহিলা। তিনি বলেছেন, ছেলে পড়াশোনা করছিল না। শাসন করতে হবে তো।  কিন্তু প্রশ্ন নগ্ন করেই মার কেন? তদন্তকারীদের একাংশের মতে, পুরুষের প্রতি বিদ্বেষ থেকেই ওই রকম আচরণ করতেন শান্তা। যদিও শান্তার স্বামী পঙ্কজ শর্মা শুক্রবার জানিয়েছেন, ছেলেকে অস্বাভাবিক মারধরের কোনও ঘটনা তাঁর চোখে পড়েনি। যদিও তিনি দীর্ঘসময় বাড়িতে থাকতেন না, সেকথাও জানিয়েছেন। পুলিস সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, ছোট্ট শ্রেয়াংশুর মধ্যে সম্প্রতি মানসিক অস্থিরতা তৈরি হয়েছিল। সেই ঘটনা মায়ের বিশেষ সম্পর্ককে কেন্দ্র করে, নাকি ওই শিশুকে মানসিক ভারসাম্যহীন করতে ওষুধ প্রয়োগ করা হচ্ছিল, উত্তর খুঁজছে পুলিস।  

24th     February,   2024
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ