বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

বারাসতের নবপল্লীতে শিবমন্দিরে পুজো। -নিজস্ব চিত্র

ফের যাদবপুর, অধ্যাপকের বিরুদ্ধে ছাত্রীর শ্লীলতাহানির অভিযোগ 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: ফের খবরের শিরোনামে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয়! ফের উঠল শ্লীলতাহানির অভিযোগ। এবার বিশ্ববিদ্যালয়ের এক অধ্যাপকের বিরুদ্ধে শ্লীলতাহানির অভিযোগ তুলে কর্তৃপক্ষকে চিঠি দিলেন স্নাতকোত্তরের প্রথম বর্ষের এক ছাত্রী। একই সঙ্গে তাঁর অভিযোগ, পরীক্ষা চলাকালীন তাঁকে অন্যায়ভাবে বাধা দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে আবার পরীক্ষায় বসার আবেদনও জানিয়েছেন ওই ছাত্রী। পাশাপাশি ইমেলে তিনি একই অভিযোগ জানিয়েছেন যাদবপুর থানা, ইউজিসি এবং রাজ্য মহিলা কমিশনের কাছে। অভিযুক্ত অধ্যাপক অবশ্য যাবতীয় অভিযোগ উড়িয়ে দিয়েছেন। ছাত্রীর অভিযোগ পেলেও তার সারবত্তা নিয়ে সংশয়ে রয়েছে যাদবপুর বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক সমিতি (জুটা)।
ঘটনার সূত্রপাত ১৯ ফেব্রুয়ারি। সেদিন পরীক্ষা চলাকালীন টোকাটুকির সন্দেহে ওই অধ্যাপকের নির্দেশে হলের মধ্যে ছাত্রছাত্রীদের সামনেই তাঁর দেহ তল্লাশি করা হয় বলে অভিযোগ। তাতে আপত্তিকর কিছু মেলেনি। ২১ ফেব্রুয়ারি পরীক্ষা চলাকালীন ইনভিজিলেটরের দায়িত্বে থাকা এক মহিলা গবেষক তাঁকে লেখা থামাতে বলে ওই অধ্যাপকের চেম্বারে নিয়ে যান। সেখানে ওই অধ্যাপক তাঁর সঙ্গে দুর্ব্যবহার করে হাত ধরে বের করে দিতে চান। এমনকী, তাঁর হাতে কালি ছিটিয়ে সেটি ধুয়ে আসতে বলেন। প্রমাণ করার চেষ্টা করেন, ওই ছাত্রী হাতে উত্তর লিখে এনেছিলেন। একই অভিযোগ ওই অধ্যাপক বিভাগীয় প্রধানের কাছেও করেছেন। ছাত্রীর দাবি, ওই বিষয়ের প্রবেশিকায় ১০০-তে ৯০ নম্বর পেয়ে তিনি প্রথম হয়েছিলেন। নিজেকে মেধাবী ও পরিশ্রমী বলে দাবি করেছেন তিনি। তাঁর প্রশ্ন, মাস্টার ডিগ্রির পরীক্ষার উত্তর কি হাতে লিখে আনা যায়? যদিও একটি প্রশ্নটি কেটে দিয়ে তাঁকে পরীক্ষা দিতে দেওয়া হয়। কিন্তু সময়ের অভাবে এবং মানসিকভাবে বিপর্যস্ত হয়ে তিনি আর ভালোভাবে পরীক্ষা দিতে পারেননি।
প্রশ্ন উঠছে, কেন অধ্যাপকের এই আচরণ? ছাত্রীর দাবি, প্রথম থেকেই অধ্যাপকের কুনজর ছিল তাঁর উপরে। বিভাগীয় দুই সিনিয়র ছাত্র তাঁকে এমন ইঙ্গিত দিয়ে বলেছিলেন, অধ্যাপকের দাবি মেনে নিলে কোনও সমস্যা হবে না। অভিযোগপত্রে ওই দুই ছাত্রের নামও উল্লেখ করেছেন তিনি। বিভাগীয় প্রধান অবশ্য ছাত্রীকে সহযোগিতা করেছেন বলেই তাঁর দাবি।
যদিও জুটার দাবি, ওই অধ্যাপক পরীক্ষার দায়িত্বেই ছিলেন না বলে তারা জেনেছে। ছাত্রীকে অভিযুক্ত অধ্যাপকের চেম্বারে নয়, বিভাগীয় প্রধানের ঘরে নিয়ে গিয়েছিলেন ওই গবেষিকা। অন্য দুই অধ্যাপকের সঙ্গে চেম্বারের বাইরে, করিডরে ছিলেন অভিযুক্ত। এ ব্যাপারে অনেক প্রত্যক্ষদর্শীও রয়েছে বলে তাদের দাবি। জুটার সাধারণ সম্পাদক পার্থপ্রতিম রায় বলেন, আমাদের দাবি, বিষয়টি ইন্টারনাল কমপ্লেইন্টস কমিটিতে (আইসিসি) তোলা হোক। তদন্তের পরে বিষয়টি জানা যাবে। অন্যদিকে, যে দু’জন ছাত্রের বিরুদ্ধে ওই ছাত্রী অভিযোগ করেছেন, তাঁরাও পাল্টা বলেছেন, ওই ছাত্রীর সঙ্গে তাঁদের বিগত পাঁচ-ছ’দিনের মধ্যে কোনও কথাই হয়নি। 

23rd     February,   2024
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ