বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 


 

বর্ষবরণের প্রস্তুতি। শনিবার উত্তর কলকাতায় তোলা নিজস্ব চিত্র।

পানীয় জলের সমস্যা দূর হবে শহরবাসীর, আশ্বাস মেয়রের

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: আগামী বছর কলকাতা পুরসভার বাজেট ঘাটতিশূন্য হতে পারে। সাম্প্রতিক পুর বাজেট অধিবেশনে সমাপ্তি ভাষণে তেমনটাই ইঙ্গিত দিয়েছেন কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম। পাশাপাশি, ফিরহাদ এও জানিয়েছেন, শহরবাসীর পানীয় জলের সমস্যার পুরোপুরি সমাধানই তাঁর আশু লক্ষ্য। সেই সঙ্গে শহরের নিকাশি ব্যবস্থার উন্নয়ন সহ পুর পরিষেবার কোনও কাজেই ‘ঘাটতি’ রাখতে চান না তিনি। স্বাভাবিকভাবেই, সেই উন্নয়নের কাজে বরাদ্দ বাড়াতে বাড়তি অর্থের প্রয়োজন। ফলে, আগামী পুর-বাজেট ‘উদ্বৃত্ত’ হলেই সেটা সম্ভব। 
কিন্তু, কোন পথে পুর-কোষাগারে ‘লক্ষ্মীলাভ’ হবে? বাজেটের আলোচনায় সেটিও উঠে এসেছে। জানা গিয়েছে, কলকাতা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ভিতরে রয়েছে কলকাতা পুরসভা পরিচালিত একটি সুলভ শৌচালয়। আগে সেটি পরিচালনা ও রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব বণ্টন থেকে তিন মাসে ৮৮ হাজার টাকা পেত কলকাতা পুরসভা। সম্প্রতি, সেটির দায়িত্ব পুনর্বণ্টন করা হয়। টেন্ডারে প্রায় সাড়ে ১০ লক্ষ টাকা (তিন মাসে) পর্যন্ত দর উঠেছে। তিন বছরের চুক্তিতে আগে যেখানে প্রায় ১১ লক্ষ টাকা আয় হতো, সেখানে নয়া টেন্ডারে পুরসভা পাবে ১ কোটি ২৬ লক্ষ টাকা। অন্যদিকে, পুরসভার ৩ নম্বর বরোয় ৯টি সুলভ শৌচালয় থেকে তিন মাসে মাত্র ৬৬ হাজার টাকা আয় হতো পুরসভার। নতুন দায়িত্ব বণ্টনের পর সেখান থেকেই ৪ লক্ষ ৬৬ হাজার টাকা (তিন মাস অন্তর) ঘরে আসবে। ফিরহাদ হাকিম কীভাবে আয় বাড়িয়ে পুরসভার আর্থিক হাল ফেরানোর চেষ্টা চালাচ্ছেন, সেই কথা বোঝাতে গিয়ে বাজেট অধিবেশনে এই তথ্য তুলে ধরেন কলকাতার ৩ নম্বর বরো চেয়ারম্যান অনিন্দ্য রাউত। মেয়র পারিষদ দেবাশিস কুমারও তথ্য দিয়ে ব্যাখ্যা করেছেন, কীভাবে পার্কিং বা বিজ্ঞাপন বিভাগ থেকে বাড়তি আয়ের পথ প্রশস্ত হয়েছে। এবার আগামী অর্থবর্ষের (২০২৪-২৫) জন্য ১১২ কোটি টাকার ঘাটতি বাজেট পেশ করেছেন মেয়র। বছরের পর বছর ঘাটতি বাজেট হলে উন্নয়নের কাজ কীভাবে হবে, তা নিয়ে মুখর বিরোধী বাম-বিজেপি। তারই পরিপ্রেক্ষিতে জবাবি বাজেট ভাষণে আগামী বছরে ঘাটতি শূন্য বাজেট পেশ করার ইঙ্গিত দেন ফিরহাদ। মেয়র বলেন, নানা দিক থেকে আয় বাড়ানো হচ্ছে। পার্কিং লটগুলির দায়িত্ব সামলানোর জন্য বিভিন্ন সংস্থাকে দায়িত্ব দেওয়া হবে। তার জন্য টেন্ডার করা হয়েছে। সেই প্রক্রিয়া সমাপ্ত হলে ৩৩৪ কোটি টাকা আয় হবে। ফলে ১১২ কোটি ঘাটতি মিটে অনেকটা টাকাই হাতে থাকবে বলে আশা করা যায়। আবার, নয়া বিজ্ঞাপন নীতি চালু করে বার্ষিক ১০০ কোটি টাকার বেশি আয় করার লক্ষ্যমাত্রার কথা জানান ফিরহাদ।

22nd     February,   2024
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ