বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

স্বাধীনতার পর থেকে আজও পিচ পড়েনি রাস্তায়

নিজস্ব প্রতিনিধি, চুঁচুড়া: বাসিন্দাদের দাবি বহু পুরনো। স্বাধীনতার পর থেকে এই রাস্তায় এক ফোঁটা পিচ পড়েনি। অথচ দু’টি গ্রামের মানুষকে দিনের পর দিন এই রাস্তাই ব্যবহার করতে হয়। সময়ের সঙ্গে বসতি ও জনসংখ্যা দু’টিই বেড়েছে। কিন্তু হুগলির মগরা-চুঁচুড়া ব্লকের দিগসুই গ্রাম পঞ্চায়েতের বেজপুকুরে রাস্তার হাল ফেরেনি। গান্নেগড় থেকে বেজপুকুর পর্যন্ত রাস্তাটি মাটি আর ধুলোয় ঢাকা। গান্নেগড়ের পুকুরের ধার থেকে শুরু হওয়া এই রাস্তা ধরেই ঘোষপাড়া ও বেজপুকুর গ্রামের মানুষকে পঞ্চায়েত অফিসে আসতে হয়। আবার, মগরায় যাওয়ার জন্য মূল সড়কের সঙ্গে সংযোগ রক্ষা করছে এই রাস্তা।
স্থানীয় দিগসুই-হোয়েরা পঞ্চায়েতের কর্তাদের দাবি, এই রাস্তা নির্মাণের জন্য আগেই ডিপিআর তৈরি করা হয়েছিল। বাজেট ধরা হয়েছিল ৪৫ লক্ষ টাকার। কিন্তু একটি রাস্তার জন্য এত টাকা খরচ করার সামর্থ্য পঞ্চায়েতের নেই। তাই রাস্তাটি আর তৈরি করাও হয়নি। পঞ্চায়েতের উপপ্রধান বীরেন্দু খাঁড়া বলেন, জেলা পরিষদ একটি প্রকল্পের আওতায় ঢুকিয়ে রাস্তাটি সংস্কারের পরিকল্পনা নিয়েছিল। কিন্তু অজানা কারণে তা শেষপর্যন্ত হয়নি। স্থানীয় বাসিন্দা ষাটোর্ধ্ব দুখীমণি মান্ডি বলেন, ছোটবেলা থেকেই কাদা মাড়িয়ে চলছি। কবে পাকা রাস্তায় হাঁটব, জানি না। হুগলি জেলা পরিষদের সভাধিপতি রঞ্জন ধাড়া বলেন, ওই রাস্তার বিষয়ে কিছু জানি না। পঞ্চায়েতের সঙ্গে কথা বলে পদক্ষেপ করা হবে। 
গ্রামবাসীদের অভিযোগ, বর্ষাকালে রাস্তায় পা ফেলা যায় না। সাইকেল বা বাইক নিয়ে যাতায়াত করার ঝুঁকি কেউ নেয় না। কারণ, পুরো রাস্তাটাই জলকাদায় ভর্তি থাকে। ঘোষপাড়া ও বেজপুকুর পঞ্চায়েত থেকে কার্যত বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। অথচ গান্নেগড় থেকে পঞ্চায়েত অফিসে যাওয়া বা পঞ্চায়েত অফিসের সামনের রাস্তা পাকা হয়ে গিয়েছে বহুকাল আগেই। মাত্র দেড় কিলোমিটার রাস্তা পিচ বা ঢালাই করতে অসুবিধা কোথায়? আসলে ঘোষপাড়া, বেজপুকুরের বাসিন্দাদের ক্ষোভ ক্রমেই বাড়ছে। 

22nd     February,   2024
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ