বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

সাইবার জালিয়াতির নয়া ফাঁদ ভুয়ো আইভিআর কল

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: দক্ষিণ কলকাতার অভিজাত আবাসনের এক মহিলার কাছে কিছুদিন আগে প্রি-রেকর্ডেড ভয়েস কল এসেছিল। মোবাইলের ট্রু কলারে ভেসে উঠেছিল একটি নামী বেসরকারি ব্যাঙ্কের নাম। তাতে বলা হয়, নির্দিষ্ট কিছু বোতামে ক্লিক করলে সরকারি প্রকল্পের সুবিধা পাওয়া যাবে। ওই মহিলা সেইমতো সংশ্লিষ্ট বোতামে ক্লিক করেন। তারপর নিমেষের মধ্যে তাঁর ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্ট থেকে গায়েব হয়ে যায় লক্ষাধিক টাকা।
হাওড়ার আরেক বাসিন্দা এমনই একটি কল পেয়েছিলেন। তাঁকে বলা হয়েছিল, আপনার ব্যাঙ্ক অ্যাকাউন্টে সন্দেহজনক একটি ডিভাইস থেকে লগ-ইন করার চেষ্টা হয়েছে। এর থেকে বাঁচতে মোবাইলের নির্দিষ্ট কয়েকটি বোতামে ক্লিক করতে হবে। তা করার পর একটি পাসওয়ার্ড পান তিনি। সেটি খোলার সঙ্গে সঙ্গে ফোনটি কেটে যায়। মিনিট খানেক পর তিনি দেখেন, তাঁর অ্যাকাউন্ট থেকে টাকা ওঠার মেসেজ ঢুকেছে ফোনে।
ভুয়ো ইন্টারঅ্যাকটিভ ভয়েস রেসপন্স বা আইভিআর কলের মাধ্যমে ফাঁদ পেতেছে সাইবার জালিয়াতরা। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই ব্যস্ত সময়ে বা অফিস টাইমে এই কলগুলি আসছে। এই প্রি-রেকর্ডেড ভয়েস কলের বিষয়ে সিংহভাগ মানুষের ধারণা নেই বললেই চলে। এই সুযোগকে কাজে লাগিয়ে লক্ষ লক্ষ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে প্রতারকরা। আইভিআর কলের ক্ষেত্রে ব্যাঙ্ক, সরকারি দপ্তর, কোনও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নাম ব্যবহার করছে সাইবার অপরাধীরা। মোবাইলের ট্রু কলারে ভেসে উঠছে আর্থিক প্রতিষ্ঠাগুলির নাম। তা দেখে অনেকেই আসল কল ভেবে রিসিভ করে ঠকে যাচ্ছেন।
রাজ্য পুলিসের সাইবার সেলের এক অফিসারের কথায়, ভুয়ো আইভিআর কলের জন্য বিশেষ ধরনের সফটওয়্যার ব্যবহার করছে প্রতারকরা। ব্যাঙ্ক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের কায়দায় তাদের সফটওয়্যারে থাকছে গ্রাহক কোন বোতাম টিপলে কী কী সুবিধা পাবেন। সেখানে অপশনও দেওয়া থাকছে। ওই ফোনের সব কথাই প্রি-রেকর্ডেড। ফোন রিসিভ করার পর গ্রাহক প্রথমেই শুনতে পাচ্ছেন, কোন আর্থিক প্রতিষ্ঠানের তরফে এই কল করা হয়েছে। বিভিন্ন সরকারি দপ্তরের নাম করে প্রি-রেকর্ডেড ভয়েস কলে বলা হচ্ছে, বিভিন্ন প্রকল্পে কী কী সুবিধা রয়েছে এবং তা পেতে গেলে কোন কোন বোতাম টিপতে হবে। প্রতারকদের ফাঁদে পা দেওয়ার পর অ্যাকাউন্ট নম্বর, পিন সহ বিভিন্ন নথি যে বোতামে রয়েছে, তা টিপতে বলা হচ্ছে। অনেকেই না বুঝে তা দিয়ে দিচ্ছেন।
তদন্তকারীদের কথায়, ব্যাঙ্ক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানের ক্ষেত্রে সাইবার জালিয়াতরা অ্যাকাউন্টে সন্দেহজনক লেনদেনের কথা বলছে। এর থেকে বাঁচতেই নির্দিষ্ট একটি বোতামে ক্লিক করতে বলছে তারা। তা টিপলেই ফোন নম্বর, ব্যাঙ্কের বিভিন্ন নথি জানতে চাওয়া হচ্ছে। সব তথ্য দেওয়ার পর আসছে একটি পাসওয়ার্ড। তাতে ক্লিক করা মাত্র ফোনটি কেটে যাচ্ছে। একইসঙ্গে ব্যাঙ্কের অ্যাকাউন্ট থেকে উধাও হয়ে যাচ্ছে টাকা। গত ছ’মাসে রাজ্য পুলিসের কাছে দু’শোর বেশি এমন অভিযোগ এসেছে। বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই অপরাধীরা ভিন রাজ্যের। 
সাইবার জালিয়াতদের হাত থেকে বাঁচতে তদন্তকারীদের পরামর্শ, এই ধরনের কলে অ্যাকাউন্ট বা অন্য নথি চাইলে সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্ক, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা সরকারি দপ্তরের নিজস্ব ওয়েবসাইটে গিয়ে আগে যাচাই করে নিন। পাশাপাশি অ্যাকাউন্টে স্ট্রং পাসওয়ার্ড ব্যবহার করুন। এমনকী মোবাইলে টু-স্টেপ ভেরিফিকেশন থাকাটাও জরুরি। তাছাড়া কোনও আর্থিক প্রতিষ্ঠান বা সরকারি দপ্তর কখনই ফোন করে অ্যাকাউন্টের নথি জানতে চায় না, এটা গ্রাহকদের মাথায় রাখা জরুরি।

4th     December,   2023
 
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ