বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

দলুয়াখাকি: অবশেষে গ্রেপ্তার ৩
 

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা ও সংবাদদাতা, বারুইপুর: অবশেষে এক সপ্তাহের মাথায় জয়নগরের দলুয়াখাকিতে ঘরবাড়ি ভাঙচুর ও অগ্নিসংযোগের ঘটনায় তৃণমূলের তিন কর্মীকে গ্রেপ্তার করল পুলিস। ধৃতদের নাম নজরুল মণ্ডল, আকবর ঢালি, আমানুল্লাহ জমাদার। তাদের প্রত্যেকের বাড়ি দলুয়াখাকিতে। যদিও এই গ্রেপ্তারির খবর শুনে খুশি নয় আক্রান্তদের পরিবার। তাঁদের দাবি, যাদের গ্রেপ্তার করা হয়েছে, তারা চুনোপুটি। বড় মাথারা এখনও অধরা। সোমবার ধৃতদের বারুইপুর আদালতে তোলা হয়। পুলিস পাঁচদিনের হেফাজত চাইলেও, আদালত তিনদিন পুলিসি হেফাজত দিয়েছে। এদিকে, এদিন সিপিএমকে শর্তসাপেক্ষে দলুয়াখাকিতে ত্রাণ নিয়ে ঢোকার অনুমতি দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। দুর্গতদের ত্রাণ সামগ্রী বিতরণের জন্য সিপিএমের পক্ষ থেকে মামলা দায়ের করেন আইনজীবী সায়ন চক্রবর্তী। পুলিসের বিরুদ্ধে অতি সক্রিয়তার অভিযোগ করে বিচারপতি রাজাশেখর মান্থার এজলাসে মামলা করেন তিনি। আদালত বলেছে, দলের মোট চারজন ত্রাণ নিয়ে যেতে পারবেন। তাঁদের সঙ্গে থাকবেন চারজন পুলিস অফিসার। 
গত সোমবার বামনগাছির তৃণমূল নেতা সাইফুদ্দিন লস্কর খুন হওয়ার পর দলুইখাকি গ্রামে ভাঙচুর এবং অগ্নিসংযোগের অভিযোগ ওঠে তৃণমূলের বিরুদ্ধে। সেই ঘটনায় জড়িতরা এতদিন পলাতক ছিল। বিভিন্ন জায়গায় অভিযান চালিয়েও কারও খোঁজ পাওয়া যাচ্ছিল না। অবশেষে রবিবার মোবাইল ফোনের টাওয়ার ট্র্যাক করে জানা যায়, জয়নগরের নুলিকাটা এলাকায় তিনজন লুকিয়ে রয়েছে। ওইদিনই সেখানে হানা দিয়ে একটি বাড়ি থেকে তিনজনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পুলিস জানিয়েছে, এই তিনজন অগ্নিসংযোগ ও ভাঙচুরের ঘটনায় জড়িত। তবে এই ঘটনায় এখনও অনেকেরই নাগাল পাননি তদন্তকারী অফিসাররা। পুলিসের একটি সূত্র বলছে, মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় তাদের ট্র্যাক করা যাচ্ছে না। যদিও অন্যপথে তাদের ধরার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পুলিস। 
তিনজনের গ্রেপ্তারি নিয়ে কী বলছেন আক্রান্তরা? মাজিদা লস্কর নামে এক মহিলা বলেন, নেতাদের সঙ্গী ছিল এই তিনজন। যাদের নির্দেশে এই কাজ করা হয়েছে, তাদের ধরা হচ্ছে না কেন? মঞ্জিলা লস্কর নামে আরেক আক্রান্তের কথায়, গ্রামে হামলা চালিয়েছে তৃণমূলের নেতারাই। তাঁদের না ধরে কয়েকজন কর্মীকে ধরা হয়েছে মাত্র। এদিকে, পুলিস সূত্রে জানা গিয়েছে, দলুয়াখাকি গ্রামে হামলা চালানোর পিছনে তৃণমূলের এক পঞ্চায়েত সদস্যের হাত রয়েছে। এদিকে, কংগ্রেস, সিপিএমের পর এবার গ্রামে ঢোকার মুখে আটকানো হল ‘আমরা আক্রান্ত’দেরও। অম্বিকেশ মহাপাত্রের নেতৃত্বে কয়েকজন এদিন গ্রামে ঢোকার চেষ্টা করেন। কিন্তু তাঁদের মনসাতলার কাছে পুলিস আটকে দেয়।

21st     November,   2023
 
 
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ