বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
কলকাতা
 

শহরে ২৪ কিমি পথে মাটির নীচ দিয়ে কেবল-ইন্টারনেটের তার
হরিশ মুখার্জির পর দ্বিতীয় পর্যায়ে
আরও ৫ রাস্তায় কাজ জোরকদমে

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: মাটির তলা দিয়ে নিয়ে যেতে হবে কেবল, ব্রডব্যান্ড ও ইন্টারনেটের তার। বছরখানেক আগে প্রথম পর্যায়ে হরিশ মুখার্জি রোডে সেই কাজ হয়েছে। এই পর্যায়ে শহরের আরও ২৪ কিলোমিটার রাস্তায় ফুটপাতে ভূগর্ভস্থ পাইপলাইন পাতা হচ্ছে। রাস্তায় তারের জঙ্গল সরিয়ে দৃশ্যদূষণ রুখতে এই পদক্ষেপ বলে জানিয়েছে কলকাতা পুরসভা।
দ্বিতীয় পর্যায়ে বেলভেডিয়ার রোড, জাজেস কোর্ট রোড, আলিপুর রোড, বেকার রোড ও আর পি গোয়েঙ্কা সরণি, শহরের এই পাঁচটি রাস্তায় পাইপলাইন পাতা হচ্ছে। এই কাজ রাস্তা খুঁড়ে হচ্ছে না। ফুটপাতের তলা দিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে মোটা আকারের পাইপ। প্রসঙ্গত দ্বিতীয়বার দায়িত্ব নেওয়ার পর কলকাতার মেয়র ফিরহাদ হাকিম কেবল, ইন্টারনেট ও ব্রডব্যান্ড সংযোগকারী সংস্থাগুলির সঙ্গে বৈঠক করে সরকারি নীতি স্পষ্ট করে দিয়েছিলেন। তখন জানিয়ে দিয়েছিলেন রাস্তার উপরে তারের জঞ্জাল রাখা যাবে না। তারপর ঠিক হয় শহরজুড়ে অব্যবহৃত তার কেটে ফেলা হবে। বাকি তার একত্র করে ট্যাগ লাগিয়ে দেওয়া হবে। হরিশ মুখার্জি রোডে এই কাজের জন্য পাইলট প্রজেক্ট হয়। সে কাজে সাফল্য মিলেছে বলে মনে করে পুরসভা। এবার দ্বিতীয় পর্যায়ের কাজ চলছে। 
পুরসভার এক আধিকারিক বলেছেন, বারবার ফুটপাত খোঁড়া আটকাতে মোটা আকারের পাইপ বসানো হচ্ছে। ৯ ইঞ্চি ব্যাসার্ধের দুটি পাইপলাইন পাতা হচ্ছে। সেই সঙ্গে ১০ থেকে ১৫ মিটার অন্তর একটি করে জায়গা থাকছে। এর ফলে কোনও সমস্যা দেখা দিলে সেই জায়গা দিয়ে তারগুলি ভিতরে ঢোকানো বা বের করা যাবে। পুরসভার আলোক বিভাগের মেয়র পারিষদ সন্দীপরঞ্জন বক্সি বলেছেন, ‘শহরের দৃশ্যদূষণ রোধ করাই আমাদের লক্ষ্য। মাটির নীচ দিয়ে তার নিয়ে যাওয়ার জন্য সংস্থাগুলি আংশিক খরচখরচা দিচ্ছে।’
এই প্রথম ‘ইনস্টলেশন  চার্জ’ বাবদ টাকা নেওয়ার নিয়ম চালু করেছে  পুরসভা। প্রথমে একলপ্তে ১৫ বছরের ভাড়ার টাকা নেওয়া হবে। এতদিন এই ধরনের খোঁড়াখুড়ির জন্য সংস্থাগুলিকে পুরসভার কাছে ‘কশন মানি’ জমা রাখতে হতো। কিন্তু সেই পদ্ধতি ছেড়ে ভাড়া হিসেবে টাকা নেওয়ার পরিকল্পনা হয়। মিটার পিছু বছরে নির্দিষ্ট ভাড়া নেওয়া হচ্ছে। বড় এবং ছোট সংস্থাগুলির জন্য অবশ্য ভাড়ার অঙ্ক এক নয়। হরিশ মুখার্জি রোড থেকে ১৫ কোটি টাকা আয় ধরা হয়েছিল। এবার এই পাঁচটি রাস্তা থেকে আরও বিপুল পরিমাণ অর্থ  পুর কোষাগারে আসতে পারে বলে মনে করছেন পুরকর্তারা। -নিজস্ব চিত্র

29th     March,   2023
 
 
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
রাজ্য
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ