Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

ভয় যে আপনার রিমোট কন্ট্রোলেই

প্রাচীন একটি উপকথা। বাঘ তাড়া করেছে এক যুবককে। সে ছুটছে... প্রাণপণ। কিন্তু যুবক জানে, বাঘের সঙ্গে ছুটে সে পারবে না। অন্য কোনও একটা উপায় তাকে খুঁজতেই হবে। আচমকা তার চোখে এল একটি গাছ। পড়িমড়ি করে সে উঠে পড়ল গাছটায়। বাঘটা এসে থমকে গেল। খানিকক্ষণ গাছের গুঁড়ি আঁচড়াল। তারপর বসে পড়ল নীচে। অপেক্ষা। কতক্ষণ ওই মানুষটা থাকবে গাছে! নামতে তো হবেই। এদিকে যুবক বাবাজীবনের তো আর এক বিপদ। যে ডালের উপর সে চড়ে বসেছে, সেটি মোটেও সুবিধার ঠেকছে না। গোড়াটা মচমচ করছে, আর ধীরে ধীরে সেটি বেঁকে নেমে যাচ্ছে মাটির দিকে। বাঘটা উঠে দাঁড়িয়েছে। গন্ধ পেয়েছে সে। উপরের ডাল বহু দূর... নাগালের বাইরে। আছে বলতে পাশের একটা কুয়ো। উঁকি মেরে দেখল সে... একেবারে খটখটে। কিন্তু তার মধ্যেও দেখা যাচ্ছে বিষধরদের আনাগোনা। যুবকটি বুঝল, আর কিছু করার নেই। এটাই মেনে নিতে হবে। মৃত্যু সামনেই। হতাশ চোখে সে দেখল, ডালের কাছে একটা মৌচাক। তার থেকে টুপ টুপ করে মধু ঝরছে। সে আর কী করে, সেই মধুই সে অল্প অল্প করে খেতে শুরু করল। আর চেষ্টা করে কী হবে? মরতে তো হবেই... আগে না হয় একটু মধু খেয়ে নেওয়া যাক! 
নরেন্দ্র মোদি জমানায় আমাদের অবস্থাটা ওরকম। বাঘের ভয়ও আছে, সাপেরও। আর আমরা সব দেখেও মাথা গুঁজে পড়ে আছি। ঘুরে দঁাড়িয়ে প্রতিবাদ জানানোর অবস্থাটুকুও নেই। এক অদ্ভুত সম্মোহনে যেন বঁাধা পড়েছি। একটাই মন্ত্র আউড়ে যাচ্ছি, হীরকের রাজা ভগবান। গত পাঁচ বছরে ভারতের উপর কী ঝাপ্টাই না গিয়েছে! আর্থিক বৃদ্ধির হার তলানিতে, রেকর্ড বেকারত্ব, তেলের অবাঞ্ছিত দাম বৃদ্ধি, ধনী আর গরিব ছাড়া সমাজে আর কোনও শ্রেণি নেই... তারপরও আমরা হাসিমুখে সহ্য করছি। লড়াই করা এখন আর বোধহয় আমাদের ধাতে সয় না। একবার করে মাটিতে আছড়ে পড়ছি, তারপর কাতরাতে কাতরাতেই স্বপ্ন দেখছি—এবার নিশ্চয়ই মোদিজি ভালো কিছু করবেন। আচ্ছে দিন নিশ্চয়ই আসবে। কংগ্রেস এতদিন সরকারে থেকে সব মাটি করে দিয়েছে। একটু তো সময় দিতে হবে! সংস্কার করছেন তিনি। তাই তো নোট বাতিল! লাইনে দাঁড়িয়ে লোকে অসুস্থ হয়েছে, মারা গিয়েছে... তাতে কী? কত ছোট ছোট ব্যবসা বন্ধ হয়ে গিয়েছে। তারা কেউ পাগল হয়েছে, কেউ আত্মঘাতী। সংস্কারের জন্য এতটুকু স্যাক্রিফাইস তো করতেই হয়! আগের কোন প্রধানমন্ত্রী পাকিস্তানকে ঘরে ঢুকে মেরে এসেছে? ইন্দিরা গান্ধীর ব্যাপার আলাদা। তা ছাড়া কাউকে দেখান দেখি! উনি সার্জিক্যাল স্ট্রাইক করেন, নতুন ভারতের স্বপ্ন দেখান। তাই সময় তো দিতে হবে! এখন আবার নতুন ঝঞ্ঝাট—তালিবান ফিরে এসেছে। তাতে কী? ভক্তরা বাজারে নেমে পড়েছে... ‘মোদি থাকতে ভয় কী?’ এটাই যে এখন বিজেপির নতুন স্লোগান। এটাই নয়া গেরুয়া কর্মসূচি। আমরাও ভাবছি, নিশ্চয়ই মোদিজি তালিবানকে উচিত শিক্ষা দেবেন। 
এবার বোধহয় আমাদের চোখ দু’টো খোলার সময় এসেছে। তালিবান নিয়ে চতুর্দিকে চর্চা। সবাই ভাবছে, কেমন ঝড় না জানি আসতে চলেছে। কিন্তু একটা কথা বলুন তো, সন্ত্রাসবাদী হামলা কি ১৯৮৯ সালের আগে হয়নি? নাকি ২০০১ সালের পর থেমে গিয়েছিল? দু’টোর একটাও নয়। সন্ত্রাসবাদ হঠাৎ করে জন্মায় না। এর জন্ম দেন রাষ্ট্রনেতারা। নিজ নিজ প্রয়োজনে। তারপর তাকে লালন পালন করা হয়... দিনের পর দিন। এভাবেই কখনও জন্ম নেয় ওসামা বিন লাদেন, কখনও তালিবান, কখনও আবার আইসিস। কাশ্মীর তাদের লক্ষ্য নয়, একথা তালিবান বারবার জানিয়েছে। তারা বলেছে, ওটা ভারত-পাকিস্তানের নিজেদের ব্যাপার। তার মানে, তালিবান আচমকা ভারতের উপর হামলা চালাবে... এটা দিবাস্বপ্ন ছাড়া কিছু নয়! তবে হ্যাঁ, বাড়বাড়ন্ত হবে পাকিস্তানের। তালিবানের নেপথ্যে পাকিস্তান বা তাদের গুপ্তচর সংস্থা আইএসআইয়ের মদত যে রয়েছে, সেটা কিন্তু ধীরে ধীরে ফাঁস হচ্ছে। শক্তি বৃদ্ধি হচ্ছে জঙ্গিদের। কিন্তু ভারত যে কূটনৈতিক দিক থেকে একঘরে হয়ে যাচ্ছে! সে ব্যাপারে নরেন্দ্র মোদিজি কী করছেন? ওই চিরচরিত... লবডঙ্কা। বাংলায় একটা প্রবাদ আছে, শূন্য কলসি বাজে বেশি। বিজেপি জানে, যেখানে কাজ মগজাস্ত্রের, সেখানে দাদামশাইকে অবসর দিলে ভালো হয়। কিন্তু তা তো করা যাবে না! তাহলে উপায় কী? কেন, প্রোপাগান্ডা! মোদি থাকতে ভয় কী? বাজারে ইতিমধ্যেই আলোচনা শুরু হয়ে গিয়েছে... বিজেপি এটাকেই এবার কাজে লাগাবে। একটা যুদ্ধ যুদ্ধ ভাব। কিন্তু যুদ্ধ নয়। পাল্টা লড়াই ফিরিয়ে দেওয়া। কিন্তু লড়াই নয়। কামান না দাগলে দেশাত্মবোধ জাগিয়ে তোলা যায় না—এটাই নরেন্দ্র মোদির সারসত্য। আর অদ্ভুতভাবে, মানুষ এটা বিশ্বাসও করে? 
আসলে যা দেখা যাচ্ছে, তা নয়। বরং তার উল্টোটা। সোজা কথায় আপাত বিপরীতধর্মী। এর একটা খুব সুন্দর ইংরেজি রয়েছে—প্যারাডক্সিক্যাল। আমাদের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির জন্য এই শব্দটি দারুণ ব্যবহার করেছিলেন শশী থারুর। বিপুল জনমত নিয়ে ক্ষমতায় আসা, প্রতিশ্রুতির ফুলঝুরি এবং দিনের শেষে দেশবাসী হাতে কী পেল? লবডঙ্কা। বইয়ের পরতে পরতে এই ব্যাখ্যাটাই রেখেছিলেন শশী থারুর। এবং লেখনিতে ছিল তাঁর হতাশা... মানুষ কেন প্রতিরোধ করছে না! সেই হতাশা কিন্তু আজও রয়েছে। দেশবাসী আজও ফাইট ব্যাক করছে না। বুঝছে না, এই লড়াই আমাদের বেঁচে থাকার। 
কিন্তু প্রতিরোধ হবে কীভাবে? গণতান্ত্রিক প্রতিবাদের একমাত্র স্থান সংসদ ভবন। সেখানে আমরাই বিজেপিকে পাঠিয়েছি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতার ডালি সাজিয়ে। দুর্বল কংগ্রেস... বিরোধিতা মানে কিছু হই হট্টগোল। বা ওয়াক আউট। তার মাঝেও পাশ হয়ে যাচ্ছে বহু গুরুত্বপূর্ণ বিল। বিরোধী দলগুলি চাইছে না... তা বয়েই গেল! রিমোট কন্ট্রোল যে মোদিজির হাতে! তিনি যেমন চাইবেন, তেমনটাই হবে। বিজেপির এমপিদের তিনি হুইপ জারি করবেন, অধিবেশনে উপস্থিত থাকতেই হবে। কিন্তু তিনি 
নিজে থাকবেন না। হাজিরা দেবেন না অমিত শাহও। তাঁরা সব নিয়মের, সব হুইপের বাইরে। সমাজের ধাপে ধাপে সংরক্ষণের বোঝা বাড়বে। আর মোদিজি তখন ওলিম্পিকসে পদকজয়ীদের সঙ্গে সেলফি তুলবেন, তাঁদের কাউকে আইসক্রিম, কাউকে চুর্মা খাওয়াবেন। সমালোচনা? ভুলেও না। ওলিম্পিক গেমসের পদকজয়ীরা যে দেশের গর্ব! তাঁদের সময় তো দিতে হবে নাকি! অধিবেশন এমনিই চলবে, বিল আপনা থেকেই পাশ হবে। আর মানুষ অসহায়ভাবে দেখবে। আমরাই যে এঁদের সংসদে পাঠিয়েছি। 
তাই তো এরা বলার সাহস পায়, তেলের দাম 
বেশি মনে হলে আফগানিস্তানে চলে যাও। ওখানে পেট্রল-ডিজেল সস্তা। এই স্পর্ধা তাঁদের জুগিয়েছি আমরা। তারা পদে পদে বুঝিয়ে দেয়, চুপ! দেশ চলছে। আর এভাবেই চলবে। এটাই ভারতের নিয়তি। এঁরা একবার বলবেন, রাজ্যভাগে সরকারের সায় নেই। আবার এঁরাই তারপর ভোটব্যাঙ্কের কথা 
ভেবে বিচ্ছিন্নতাবাদের আগুনে ধুনো দেবেন। 
সময় এলে হাসিমুখে বলবেন, মাসিমা ভোটটা কিন্তু পদ্মেই দেবেন! কিন্তু সেই বিজেপি নেতা কি জানেন, মাসিমা অনেক আশায় উজ্জ্বলা গ্যাস নিয়েছিলেন। ভেবেছিলেন, এবার একটু সুরাহা হল। কিন্তু 
একটা সিলিন্ডারেই তাঁর সব মোহ ঘুচে গিয়েছিল। প্রতি মাসে বাড়ছে গ্যাসের দাম। সাড়ে আটশো টাকা ছাড়িয়েছে। নুন আনতে পান্তা ফুরোনোর ঘর। গ্যাস 
যে সেখানে বিলাসিতা! কিন্তু মাসিমা আজ 
আবার গ্যাস নেওয়ার কথা ভাবছেন। কেন জানেন? বাংলার মুখ্যমন্ত্রী ঘরে ঘরে মাসে ৫০০ টাকা করে দিচ্ছেন... লক্ষ্মীর ভাণ্ডার। এই ৫০০ টাকার সঙ্গে কিছু টাকা জুড়ে গ্যাসটা নেওয়া যাবে। 
আমরা সাধারণ মানুষ। মিটিং-মিছিল, বিক্ষোভ-আন্দোলনে নামলে আমাদের ঘর চলবে না। কিন্তু গণতন্ত্র আমাদের ফাইট ব্যাক করার সুযোগ দিয়েছে... নির্বাচন। মাসিমা তাঁর প্রতিবাদটা ওই যন্ত্রেই জানাবেন। এই নতুন ভারত তাঁর চাই না। মহাত্মা গান্ধী এই ভারত চাননি। যেখানে ধর্মের নামে, জাতপাতের নামে ভোটের নগ্ন রাজনীতি চলে। শাসক দলের কিছু চশমখোর হিন্দুত্বের নামে মানুষকে শাসায়। মোদিজি আপনি তো নিজেকে স্বামী বিবেকানন্দের ভক্ত বলে দাবি করেন! সেই মহাপুরুষের কাছে হিন্দুত্বের সংজ্ঞা কী ছিল জানেন? যার যা ধর্ম, যার যা বিশ্বাস, তাকে তার মতো করেই গ্রহণ করা। 
আগুনের মধ্যে বসে আছি আমরা। রিমোট কন্ট্রোলে চাপ বাড়ছে। আর তার জেরে গনগনে হয়ে উঠছে আঁচ। ধীরে ধীরে। সইয়ে সইয়ে। কিন্তু সময় এসে গিয়েছে। শরীর এখন পুড়ছে। এখনই ঝাঁপ দিতে হবে। কারণ আগুনের বাইরেই অপেক্ষা করে রয়েছে আচ্ছে দিন। এখনই সময় উল্টো স্লোগানের... ‘মোদি থাকতেই যে ভয়!’
24th  August, 2021
ড্রাগনের ছায়ায় সঙ্কটে
ভারতের প্রতিবেশী নীতি
মৃণালকান্তি দাস

ভারতের চোখে যে দেশ ছিল প্রকৃত বিশ্বস্ত বন্ধু, তালিবান উত্থানের পর তাও আজ অতীত। আর সব সম্পর্ক ভাঙনে আড়কাঠি হয়ে উঠেছে বেজিং। ড্রাগনের ছায়ায় সঙ্কটে ভারতের প্রতিবেশী নীতি। চীনের নজর এখন— ভারতীয় উপমহাদেশে প্রভাব বিস্তার, সীমা সম্প্রসারণ ও কূটনৈতিক লড়াই। বিশদ

সবচেয়ে ক্ষতি ভারতের ধর্মনিরপেক্ষতার
হারাধন চৌধুরী

ভারতের নিকটতম প্রতিবেশী নয় আফগানিস্তান। ইরান, তাজিকিস্তান, উজবেকিস্তান, তুর্কমেনিস্তান, পাকিস্তান ও চীনের মাঝে পাহাড়, মরুভূমি ও স্থল বেষ্টিত একটি দেশ আফগানিস্তান। তবু কাবুলের পতনে চিন্তার ভাঁজ মূলত ভারতেরই কপালে।
বিশদ

25th  August, 2021
পাকিস্তানের তালিবান মদত ব্যুমেরাং হবে
কুমারেশ চক্রবর্তী

১৫ আগস্ট ২০২১, কাবুলের সঙ্গে সঙ্গে ইসলামাবাদ এবং লাহোরে পালিত হল তালিবান বিজয়োৎসব। পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান বললেন, ‘দু’দশক পরে আফগানরা দেশকে বিদেশিমুক্ত করল।’ 
বিশদ

23rd  August, 2021
তাৎপর্য হারিয়েছে স্বাধীনতা দিবসের ভাষণ
পি চিদম্বরম

বিশ্ব নেতাদের সবচেয়ে প্রত্যাশিত ভাষণগুলির মধ্যে একটি হল মার্কিন কংগ্রেসে প্রেসিডেন্টের বাৎসরিক ভাষণটি (অ্যানুয়াল স্টেট অফ দি ইউনিয়ন)। কারণ আমেরিকার নীতিগুলির প্রভাব পড়ে অন্যান্য দেশের উপরেও।
বিশদ

23rd  August, 2021
লাদেনের ভূত আমেরিকার পিছু ছাড়বে না
হিমাংশু সিংহ

আমেরিকাকে একটাই প্রশ্ন তালিবানের সৃষ্টি কর্তা কে? অনেকেই বলে থাকেন আমেরিকার মদতে সৃষ্ট তালিবান ২০০১ সালে ফ্র্যাঙ্কেনস্টাইন হয়েই টুইন টাওয়ারে হামলা করে যোগ্য জবাবই দিয়েছিল। পেন্টাগনকে বুঝিয়ে দিয়েছিল আগুন নিয়ে খেলার পরিণাম।
বিশদ

22nd  August, 2021
ক্ষমতার বিকেন্দ্রীকরণ:
মমতার সাহসী পদক্ষেপ
তন্ময় মল্লিক

সিপিএম ৩৪ বছরে যা করতে পারেনি, তৃণমূলনেত্রী ক্ষমতা দখলের ১০ বছরের মাথায় সেটাই করে দেখালেন। ‘এক ব্যক্তি এক পদ’ নীতি কার্যকর করার জন্য তাঁর ‘টাইমিং’ অসাধারণ। একদিকে নির্বাচনে বিপুল সাফল্য, অন্যদিকে বিরোধীদের ছন্নছাড়া অবস্থা। বিশদ

21st  August, 2021
সোনার খোঁজে ভারতের মঞ্চ নির্ধারণ
অনুরাগ সিং ঠাকুর

আমাদের প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে নীরজ চোপড়াকে চুরমা দেওয়া, পিভি সিন্ধুকে আইসক্রিম খাওয়ানো, বজরং পুনিয়ার সঙ্গে হাসতে দেখা, রবি দাহিয়াকে আরও হাসতে বলা এবং মীরাবাই চানুর অভিজ্ঞতা শোনা প্রত্যেক ভারতীয়ের মুখে হাসি ফুটিয়েছে। টোকিওতে অংশ নেওয়া প্রতিটি ক্রীড়াবিদের সঙ্গে সময় অতিবাহিত করতে গিয়ে তিনি সকলকে সমানভাবে উৎসাহ দিয়েছেন। বিশদ

21st  August, 2021
তালিবানের সাফল্য ও আমেরিকার ভূমিকা
সমৃদ্ধ দত্ত

মাননীয় আমেরিকা, আপনাকে ধন্যবাদ। গত দেড় বছর ধরে করোনার জেরে সবথেকে বেশি ধাক্কা খেয়েছে বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রি। দর্শক নেই, প্লট নেই, বড় পর্দায় রুদ্ধশ্বাস মুহূর্ত তৈরি করা চিত্রনাট্যও নেই। অবশেষে আবার আপনি অবতীর্ণ হলেন একটা অনবদ্য প্লট ও সিনেমাটোগ্রাফি নিয়ে।
বিশদ

20th  August, 2021
আফগানরাই নিজেদের
রক্ষার জন্য লড়েনি
মৃণালকান্তি দাস

যাদের ঘাড়ে বন্দুক রেখে দেশ শাসন করা হয়েছে, তারাই যখন পালাচ্ছে, তখন তালিবানের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ অর্থহীন— এমনই একটি সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলেন প্রতিরক্ষা বাহিনীর সদস্যরা। তাঁরা বুঝতে পেরেছিলেন, বাঁচতে হলে তালিবানের সঙ্গে হাত মেলানোই শ্রেয়। বিশদ

19th  August, 2021
কোভিডের তৃতীয় ঢেউ সত্যিই
কি ভয়াবহ হতে চলেছে?
মৃন্ময় চন্দ

করোনার তৃতীয় ঢেউ সত্যিই কতটা উদ্বেগ বা আশঙ্কার, সে ব্যাপারে বিজ্ঞানীকুলও দ্বিধাগ্রস্ত। কোভিডের অব্যর্থ লক্ষ্যভেদী কোনও ওষুধ/চিকিৎসার অভাবে মাস্ক-ভ্যাকসিন-শারীরিক দূরত্ববিধির ত্রিশূলেই লুকিয়ে নভেলকরোনা বধের রণকৌশল।
বিশদ

18th  August, 2021
যে টাকা পকেটেই নেই,
সেটা ব্যয় করবেন মোদি!
সন্দীপন বিশ্বাস

লক্ষ লক্ষ কোটি টাকার প্রতিশ্রুতি দিতে এখন আর প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির মুখে আটকায় না। যে দেশে সরকারি কর্মীদের বেতন দিতে সরকারকে জাতীয় সম্পত্তি বেচতে হয়, রেল-স্টেশন-বিমানবন্দর, ছোটবড় কারখানা বেচতে হয়, সেখানে কথায় কথায় কী করে যে তিনি টাকার গপ্পো বলে মানুষকে সম্মোহিত করার ভুলভাল খেলা খেলেন, তা ভাবাই যায় না।
বিশদ

18th  August, 2021
কাবুলের পতন: ভারতের অসহায় বিদেশনীতি
শান্তনু দত্তগুপ্ত

তালিবান ঘুরে দাঁড়ানোর পর এখন শুধু সন্ত্রাসের আঁচ লক্ষ করা যাচ্ছে। অদূর ভবিষ্যৎ আর কী কী সঙ্কট ভারতের জন্য নিয়ে আসবে, তা এখন আন্দাজও করা যাচ্ছে না। ভারত ঘোষিত সন্ত্রাসবাদী বিরোধী। উত্তর এবং পশ্চিমে আমাদের ঘিরে থাকছে এমন তিন শত্রু দেশ, যারা হয় সন্ত্রাসবাদী, না হলে সন্ত্রাসে মদতদাতা। বিশদ

17th  August, 2021
একনজরে
‘লক্ষ্মীর ভাণ্ডার’ প্রকল্পে সুবিধা পাওয়ার জন্য মালদহে তিন লক্ষেরও বেশি আবেদনপত্র জমা পড়েছে। ‘দুয়ারে সরকার’ কর্মসূচির আওতায় প্রথম ন’দিনের শিবিরে ওই আবেদন জমা পড়েছে বলে ...

দেশজুড়ে সরকারি সংস্থা বিক্রির কড়া সমালোচনা চলছে। তবু মোদি সরকার অনড়। সিংহভাগ ক্ষেত্রেই সরকারের উপস্থিতি যে কমিয়ে আনা হবে, সরাসরি একথা জানিয়ে দিয়েছেন অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। বুধবার তিনি বলেছেন, দুটি ভাগে সরকারি সংস্থাকে বিভাজিত করা হচ্ছে। ...

হাওড়া সিটি পুলিস প্রায় ৪৫ কেজি নিষিদ্ধ চীনা মাঞ্জা উদ্ধার করল। মঙ্গল ও বুধবার জাগাছা থানার বিভিন্ন জায়গা থেকে উদ্ধার করা হয় এই বিপুল পরিমাণ সুতো। ...

দুয়ারের সরকারের ক্যাম্পে ছাতা মাথায় দাঁড়িয়ে আছেন মহিলারা। অন্যান্য লাইনে হুড়োহুড়ি থাকলেও শান্ত হয়েই প্রতীক্ষায় মহিলারা। অধিকাংশের মুখেই চওড়া হাসি। কোনও তাড়া নেই তাঁদের। কারণ ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

হঠাৎ নেওয়া সিদ্ধান্তে বিপদে পড়তে পারেন। চলচিত্র ও যাত্রা শিল্পী, পরিচালকদের শুভ দিন। ধনাগম হবে। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৭২৩ - অণুবীক্ষণ যন্ত্রের আবিষ্কারক ওলন্দাজ বিজ্ঞানী আন্তেনি ভান লিউভেনহুকের মৃত্যু
১৮৬৯ - রহস্য কাহিনীকার ও সম্পাদক দীনেন্দ্র কুমার রায়ের জন্ম
১৯১০: নোবেল জয়ী সমাজসেবী মাদার টেরিজার জন্ম
১৯২০ - মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে নারীদের ভোটাধিকার স্বীকৃত হয়
১৯২০: অভিনেতা ভানু বন্দ্যোপাধ্যায়ের জন্ম
১৯২৭ - ইন্ডিয়ান ব্রডকাস্টিং কোম্পানি কলকাতায় প্রথম বেতার সম্প্রচার শুরু করে
১৯৩৪: কবি ও গীতিকার অতুলপ্রসাদ সেনের মৃত্যু
১৯৪৩ - আজাদ হিন্দ ফৌজ আনুষ্ঠানিকভাবে গঠিত হয়
১৯৫৫ - সত্যজিত্ রায়ের চলচ্চিত্র ‘পথের পাঁচালী’র মুক্তি লাভ
১৯৫৬: রাজনীতিক মানেকা গান্ধীর জন্ম
১৯৬৮: চিত্র পরিচালক মধুর ভাণ্ডারকরের জন্ম 
২০০৩ - লেখক ও ঔপন্যাসিক বিমল করের মৃত্যু



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭৩.৩৭ টাকা ৭৫.০৮ টাকা
পাউন্ড ১০০.১১ টাকা ১০৩.৫৭ টাকা
ইউরো ৮৫.৫৯ টাকা ৮৮.৭১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮, ২০০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৫,৭৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৬, ৪৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৬৪, ০০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৬৪, ১০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

৯ ভাদ্র ১৪২৮, বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট ২০২১। চতুর্থী ২৯/৪৪ অপরাহ্ন ৫/১৪। রেবতী নক্ষত্র ৪২/৫১ রাত্রি ১০/২৯। সূর্যোদয় ৫/২০/৫২, সূর্যাস্ত ৫/৫৬/১২। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৫৩ গতে ৩/৩ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে পুনঃ ১০/২৩ গতে ১২/৫৪ মধ্যে। বারবেলা ২/৪৭ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৩৮ গতে ১/৪ মধ্যে।
৯ ভাদ্র ১৪২৮, বৃহস্পতিবার, ২৬ আগস্ট ২০২১। চতুর্থী অপরাহ্ন ৫/৩৪। রেবতী নক্ষত্র রাত্রি ১১/৫৫। সূর্যোদয় ৫/২০, সূর্যাস্ত ৬/০। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪৩ গতে ৩/৪ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৭/৩ মধ্যে ও ১০/১৯ গতে ১২/৪৪ মধ্যে। কালবেলা ২/৫০ গতে ৬/০ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৪০ গতে ১/৫ মধ্যে।
১৭ মহরম।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
তৃতীয় টেস্ট: প্রথম ইনিংসে ইংল্যান্ড ২৯৮/৩ (চা বিরতি) 

08:49:20 PM

কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই ফের কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে দ্বিতীয় বিস্ফোরণ

08:44:00 PM

কাবুল বিস্ফোরণে ১৩ জনের মৃত্যু, রয়েছে একাধিক শিশুও 

08:21:08 PM

করোনা: গত ২৪ ঘণ্টায় রাজ্যে আক্রান্ত ৭১৭, মৃত ৯ 

08:03:25 PM

কাবুল বিমানবন্দরের বাইরে বিস্ফোরণ, হতাহতের খবর পাওয়া যায়নি 

07:54:59 PM

কমতে পারে কোভিশিল্ড ভ্যাকসিনের দুটি ডোজের ব্যবধান: সূত্র 

06:01:10 PM