Bartaman Patrika
বিশেষ নিবন্ধ
 

মমতা মডেলে উজ্জীবিত গোটা দেশ
মৃণালকান্তি দাস

বাংলার ভোটে দেশবাসীকে দু’টি বার্তা দিয়েছেন জননেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রথম বার্তা, আরএসএস-বিজেপি কোনও অজেয় শক্তি নয়। দ্বিতীয় বার্তা, মহাশক্তিধর এই রাজনৈতিক প্রতিপক্ষকে হারাতে কোনও রাজ্যে বহু দলের জোটও জরুরি নয়। মমতার এই বার্তা সাড়া ফেলেছে গোটা দেশেই। মমতার এই মডেল উজ্জীবিত করছে দেশের উত্তর-দ‌ক্ষিণের সব আঞ্চলিক দলকেও।
ধর্মীয় জাতীয়তাবাদ মানেই একটা তীব্র আবেগ, যার মূলে থাকে সাম্প্রদায়িক চেতনা। এই জাতীয়তাবাদ নিজের গোষ্ঠী ও সম্প্রদায়কেই শুধু গৌরবান্বিত করার চেষ্টা করে, সেই স্বার্থসিদ্ধির জন্য অন্য গোষ্ঠী, জাতি, দেশ বা সম্প্রদায়ের প্রতি অসহিষ্ণুতা ও ঘৃণার বীজ বোনে। নরেন্দ্র মোদি, অমিত শাহের লাগাতার অসহিষ্ণুতার অভিযান এবং ধর্মীয় জাতীয়তাবাদী আবেগের আড়ালে লুকনো বিদ্বেষকেই বাংলা ও বাঙালি প্রত্যাখ্যান করেছে এই ভোটে। একক জেদ আর সাহসে সেই ভয়ঙ্কর অভিযানকে থামিয়ে দেশজুড়ে তুমুল বিস্ময়ের জন্ম দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, যা গোটা দেশের কাছে এক মহান শিক্ষা। আঞ্চলিক দলগুলোও এর মধ্যে নতুন করে স্বপ্ন দেখা শুরু করেছে।
কে না জানে, বিজেপি একটা ক্যাডারভিত্তিক দল। তার ক্যাডারদের মুখ্য অস্ত্র হিন্দুত্ববাদ। ৮০ শতাংশ হিন্দু ধর্মাবলম্বীর দেশে এরকম এক শক্তিশালী বিশাল আয়তনের ক্যাডারভিত্তিক অভিযানকে মোকাবিলা সহজ কথা নয়। মমতা সেখানেই বিকল্প রাস্তা দেখিয়েছেন। তিনি সরাসরি সংঘাতে হাজির হয়েছেন মূলত ভাষাভিত্তিক জাতীয়তাবাদী উন্মাদনা নিয়ে। যাকে বলে, বাঙালি জাতিসত্তার রাজনৈতিক তাস! অমিত শাহরা যে অভিযানকে ধর্মীয় মেরুকরণের যুদ্ধে পরিণত করার চেষ্টা করেছিলেন, মমতা তাকে ‘বাঙালি’ জাতীয়তাবাদ দিয়ে সামলেছেন। মমতা বারবার বলেছেন, মোদি-অমিত শাহরা অনেকটা নাদির শাহের মতো আক্রমণ করতে এসেছে এবং বঙ্গসংস্কৃতিকে তছনছ করে দিতে চাইছে। এখানেই জোর ধাক্কা খেয়েছে বিজেপি।
বাঙালি সম্পর্কে হোমওয়ার্ক বা ব্যাকগ্রাউন্ড রিসার্চ-এর দুর্বলতাই বিজেপির বাড়া ভাতে ছাই ঢেলে দিয়েছে। ২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনে ১৮ আসনে জিতে এবং ১২২টি বিধানসভা কেন্দ্রে এগিয়ে থেকে যে পদ্মফুল ঘাসফুলের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছিল বলে মনে হচ্ছিল, তাদেরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ঘাড় ধরে পাঠিয়ে দিয়েছেন পরাজিতদের ডেরায়। এই বঙ্গে যে আজও মীরজাফর বা জগৎশেঠদের মতো ষড়যন্ত্রকারীদের ঘৃণা করা হয়, সেটা বিজেপি ভাবতেই পারেনি। আসলে মোদি-অমিত শাহরা পশ্চিমবাংলার মাটি চিনতেই পারেনি। তাই সারাক্ষণ ন্যক্কারজনক সাম্প্রদায়িক উসকানির মধ্যেই আটকে ছিল গেরুয়া শিবির। বিজেপি খুব খোলাখুলি এই তাসটি খেলেছিল ৭০ শতাংশ হিন্দু ভোট এককাট্টা করতে। পারেনি। রাম দিয়ে এখানে যাত্রাপালা হতে পারে, ভোট পাওয়া মুশকিল। বাংলার ভোট সামনে রেখে রবীন্দ্রনাথের দাড়ির নকল বানানো যায়, কিন্তু তাতে বাঙালির মনে বিন্দুমাত্র রেখাপাত করা সম্ভব নয়। ধর্মীয় জিগির তুলে সাম্প্রদায়িক মেরুকরণ ঘটানোও এখানে বড্ড কঠিন। ফলে মরিয়া প্রচেষ্টা সত্ত্বেও বাংলার ভোটারদের সামগ্রিক ভাবে ধর্মীয় মেরুকরণের দিকে টেনে নিয়ে যেতে পারেনি বিজেপি। যদি তাই হতো, তাহলে ৩০ শতাংশ সংখ্যালঘু ভোটের বিপরীতে দাঁড়িয়ে ‘হিন্দুত্ব’-এর জিগির তোলা দলটি এইভাবে খড়কুটোর মতো উড়ে যেত না। তাই আজ এটা দৃঢ়ভাবে বলা যায় যে, বাংলার জনগণ ভোটের মেশিনে বোতাম টেপার সময় হিন্দু-মুসলিম বিচার করেনি। ‘এক দেশ-এক জাতি’র যে স্লোগানে বহু সংস্কৃতির ভারতকে আরএসএস-বিজেপি এতদিন বাঁধতে চেয়েছে, সেই জবরদস্তির বিকল্প দেখিয়েছেন মমতা। প্রতিটি প্রান্তিক রাজ্যের সাংস্কৃতিক নিজস্বতার শক্তিই ফুটে উঠেছে মমতার ‘জয় বাংলা’ ধ্বনিতে। ঠিক এখানেই নয়া সম্ভাবনা দেখা শুরু করেছে ওড়িশা, পাঞ্জাব, উত্তরপ্রদেশ, মহারাষ্ট্রের মতো রাজ্যের আঞ্চলিক জাতীয়তাবাদীরা। তারা এখন দ্রুত আঞ্চলিক ভাষা, সংস্কৃতি ও অর্থনৈতিক ইস্যুগুলোতে সংঘবদ্ধ হওয়াকে রাজনৈতিক কৌশল হিসেবে বাড়তি গুরুত্ব দেবে, যা দেশের বৃহত্তর রাজনৈতিক ছক পাল্টে দিতে পারে।
ভারতের রাজনীতিতে সদ্য যুক্ত হওয়া এই ‘মমতা মডেল’ একইসঙ্গে বিজেপি ও কংগ্রেস উভয়ের জন্য সাংগঠনিক ও আদর্শগত সঙ্কটও তৈরি করবে। ‘মমতা মডেল’ নিয়ে বিজেপির সঙ্কটের জায়গা দু’টি। হিন্দুত্ববাদ হিন্দুসমাজকে ভোটবাক্সে নিয়ে আসার একমাত্র অস্ত্র হতে পারে না, একইসঙ্গে হিন্দুরা বিজেপির পুরোনো রাজনৈতিক পণ্যটিকে আর গ্রহণ করছে না—মমতা সেটা প্রমাণ করে দিয়েছেন। বিজেপি নেতারা ভাবতেই পারেনি, মসজিদ-মন্দিরের রাজনীতি এবং মুসলিম-খ্রিস্টান বিদ্বেষ প্রতিপ‌ক্ষের নতুন কোনও কৌশলের সামনে যে ভোঁতা হয়ে যেতে পারে। বিজেপি আদৌ তার জন্য প্রস্তুত ছিল না। আর দ্বিতীয়ত, গেরুয়া শিবির অমিত শাহের নির্বাচনী কৌশলবিদ্যাকে অপ্রতিরোধ্য হিসেবে ব্র্যান্ডিং করেছিল, মমতা সেই বিশ্বাস ভেঙে চুরমার করে দিয়েছেন। মমতা প্রমাণ করেছেন, সঠিক রণকৌশল গ্রহণ করে অসমযুদ্ধেও জেতা যায়। সঠিক রণকৌশল নেওয়া হলে নির্বাচন কমিশন, মিডিয়া, রাষ্ট্রীয় বিভিন্ন বাহিনীর বৈরিতা এবং অর্থশক্তিতে দুর্বল থেকেও শক্তিশালী প্রতিপক্ষকে মাটিতে নামিয়ে আনা যায়। জরুরি হল, আঞ্চলিক সংস্কৃতিকে বুঝে সরাসরি মেঠো জনসংযোগ। মানুষ চায় সংবেদনশীল ও সৎ প্রশাসন, সুষ্ঠু পরিষেবা ও কর্মের অধিকার। রাজনীতির কাছে মানুষের চাহিদা খুবই সামান্য। রাজনীতির পরিসরও সমাজের কাছে খুব অল্প। ধর্ম, সংস্কৃতি, শিক্ষা, সামাজিক জীবন, ব্যক্তিস্বাধীনতা—এসবই রাজনীতির পরিসরের বাইরে। তবু রাজনৈতিক দলগুলো এসবের মধ্যে ঢুকে তালগোল পাকিয়ে ফেলে, যা করেছে গেরুয়া শিবির।
অন্যদিকে, বিজেপিকে মোকাবিলায় রাজ্যে রাজ্যে কংগ্রেসকে সঙ্গে নেওয়ার অপরিহার্যতাকেও প্রশ্নের মুখে ফেলে দিয়েছেন মমতা। তাঁর জয় কংগ্রেস নেতৃত্বের রাজনৈতিক প্রজ্ঞাকেও আরেকবার প্রশ্নবিদ্ধ করছে। মমতাকে বাদ দিয়ে বামেদের সঙ্গে কেন নির্বাচনী আঁতাত করেছিল, তার একটা গ্রহণযোগ্য ব্যাখ্যা দেওয়া সোনিয়া গান্ধীর জন্য এখন দুরূহ হয়ে উঠেছে। স্পষ্ট হয়ে গিয়েছে, ‘মমতা মডেল’ আঞ্চলিক দলগুলোর কাছে কংগ্রেসের গুরুত্ব আরও কমাবে। পশ্চিমবঙ্গের বাইরে এর বড় প্রমাণ এবারের অসমের নির্বাচন। অসমে এনআরসি নিয়ে বিজেপি এবার অত্যন্ত কঠিন অবস্থায় ছিল। যে-কোনও আঞ্চলিক দল মমতার মতো অসমিয়া জাতীয়তাবাদী অবস্থান নিলে অসমের নির্বাচনী ফল ভিন্ন হতে পারত। মূলত কংগ্রেসের ব্যর্থতার কারণেই অসমে বিজেপি-বিরোধী শিবির জেতেনি এবার। আর তাই কংগ্রেসকে পিছনে সরিয়ে ‘মমতা মডেল’ গোটা দেশে মোদি-বিরোধী শিবিরের জন্য অক্সিজেনের এক খনি হিসেবে হাজির হয়েছে। যেখানে গুরুত্ব বাড়বে অঞ্চলভিত্তিক রাজনৈতিক কৌশলের।
তবে, মুখ্যমন্ত্রী খুব ভালো করেই জানেন, বিজেপির যে নীতি অর্থাৎ সাম্প্রদায়িকতা বা ধর্মকে কেন্দ্র করে রাজনীতি, তা সে যে ধর্মই হোক না কেন, সেই অসুস্থ রাজনীতিটা তো মরেনি! বরং এই প্রবণতাটা হয়তো ধীরে ধীরে আমাদের রাজ্যে বাড়বে বই কমবে না। বিজেপি নেতা জয়প্রকাশ মজুমদার এই ভোটের পরেই বলেছেন, ‘হ্যাঁ আমরা যা বলেছিলাম তা করতে পারিনি। তবে এটা ভুললে চলবে না যে আমরা ৩ থেকে বেড়ে ৭০ ছাড়িয়েছি— এই লাফটাও কিন্তু কম নয়।’ তার চেয়েও বড় কথা, উনি আরও বলছেন, ‘আজ বিজেপি আর তৃণমূলের মাঝখানে আর কেউ নেই। সংসদীয় বিরোধী বলতে এরাজ্যে আজ আর কংগ্রেস রইল না, যে-ক’জন বামপন্থী ছিলেন, তাঁরাও নিশ্চিহ্ন হয়ে গিয়েছেন। বিজেপি এরাজ্যে প্রধান বিরোধী নয়, একমাত্র বিরোধী।’ ফলে বোঝাই যায়, বিজেপির সর্বভারতীয় নেতাদের বিষাক্ত নিঃশ্বাস এখনও বাংলায় বইছে। সাম্প্রদায়িক হিংসার বয়ান তৈরির আপ্রাণ চেষ্টা চালাচ্ছে যাতে পশ্চিমবঙ্গে রাষ্ট্রপতি শাসন জারি করানো যায়। বিপুল অর্থব্যয়, এলোপাথাড়ি দলবদল, ভারতের নানা প্রান্ত থেকে নেতা-নেত্রী, বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীদের উড়ে এসে ভোট প্রচার, আইটি সেলের তীব্র উত্থান, মিডিয়ার সদাসজাগ নজর, সেফোলজিস্ট-রাজনীতি বিশেষজ্ঞদের তীক্ষ্ণ বিশ্লেষণ, ধর্মীয় বিভাজনের অঙ্ক—সব মিলিয়ে এই নির্বাচনের রেশ দ্রুত মিলিয়ে যাবে না, বরং আগামী দিনের সামাজিক-রাজনৈতিক বিন্যাসে গভীর ছাপ রেখে যাবে বলেই মনে হয়।
সব মিলিয়ে বাংলার ভোটের পর, ২০২৪-এর লোকসভা নির্বাচন আরও ইন্টারেস্টিং হয়ে উঠেছে। সমস্ত সরকারি এজেন্সিকে মাঠে নামিয়ে, বিজেপির গোটা ভোট-মেশিনারি এবং কয়েক হাজার কোটি টাকার বাজেট নিয়ে যেভাবে বাংলা দখলের ব্লু-প্রিন্ট তৈরি করা হয়েছিল, তা মমতা যে একাই ভেস্তে দিতে পারেন, সেটা বিজেপি স্বপ্নেও ভাবতে পারেননি। বঙ্গদখলে মরিয়া বিজেপি লড়াইটাকে করে তুলেছিল মমতা বনাম নরেন্দ্র মোদির। পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির পরাজয়, মমতার কাছে নরেন্দ্র মোদির হার হিসেবেই গোটা দেশ দেখছে। আর এইখানেই জাতীয় রাজনীতিতে নেত্রী হিসেবে মমতার গুরুত্ব রাতারাতি বেড়ে গিয়েছে বেশ কয়েক গুণ। মমতাই হয়ে উঠেছেন মোদির বিকল্প!
অপদার্থ, অনাচারী রাজা,
এবার গদি ছাড়ুন
সন্দীপন বিশ্বাস

নতুন সরকারের গায়ে কাদা ছিটিয়ে নয়া ফন্দি আঁটছে বিজেপি। রাজ্যজুড়ে হিংসা ছড়ানোর গোপন ছক চলছে। রাজ্যকে অশান্ত করার গোপন খেলায় সক্রিয় বিজেপির আইটি সেলও। বিজেপি সব সময় সোজা খেলায় হেরে গেলে বাঁকা পথে জেতার জন্য মরিয়া হয়ে ওঠে। রাজ্যে সেই উস্কানিই চলছে। বিশদ

12th  May, 2021
বিভাজনের উস্কানিতে
বাংলা বিকিয়ে যাবে না
শান্তনু দত্তগুপ্ত

বাংলা এখনও বিকিয়ে যায়নি। যাবে না। কোটি কোটি করদাতার রক্ত জল করা টাকায় হয়তো মোদিজির সেন্ট্রাল ভিস্তা প্রকল্প সফল হবে। কিন্তু সাম্প্রদায়িক উস্কানির অন্ধকারে বাংলাকে ডুবিয়ে দেওয়ার স্বপ্ন? হবে না। মোদিজি বরং মানসিকভাবে প্রস্তুত হতে থাকুন। বিশদ

11th  May, 2021
করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে সত্য মিথ্যা
প্রকাশ জাভরেকর

 

জানুয়ারির গোড়ার দিকে দেশে কোভিড পরিস্থিতির যথেষ্ট উন্নতি হয়েছিল। নতুন করে সংক্রমণও কমছিল। কিন্তু দেখা গেল, কেরলে সেই সময় সংক্রমণ বাড়তে শুরু করল। ওই রাজ্য থেকেই নতুন সংক্রমণের এক-তৃতীয়াংশের খবর আসছিল। ৬ জানুয়ারি কেন্দ্রীয় স্বাস্থ্যসচিব এক চিঠিতে রাজ্য সরকারকে দ্রুত পদক্ষেপ করার পরামর্শ দেন। বিশদ

11th  May, 2021
মোদি বনাম দিদি ও অন্য লড়াইগুলি
পি চিদম্বরম

ভারতীয় মিডিয়া সবে জাগতে শুরু করেছে। মানুষ তার ক্রোধের বহিঃপ্রকাশের জন্য প্রতিটা নির্বাচনকে হাতিয়ার করছে। দৃষ্টান্ত, উত্তরপ্রদেশের পঞ্চায়েত ভোট। ২০২১ সাল—আরও একটি নষ্ট বছরের জন্য মনোবল ফেরানোর জন্য যখন চেষ্টা করছি, ঠিক তখনই আশঙ্কায় কেঁপে উঠছি আগামী দু’টি বছরের কথা ভেবে—২০২২, ২০২৩ সালও নষ্ট হবে না তো! বিশদ

10th  May, 2021
বাংলা থেকেই কি মোদির শেষের শুরু
হিমাংশু সিংহ

মুসলিম ও হিন্দু দু’তরফেই বাংলায় প্রত্যাখাত হয়েছেন নরেন্দ্র মোদি। উল্টে নাক উঁচু বাম প্রগতিশীল সমাজও বিজেপিকে ঠেকাতে খোলা মনে মমতার নেতৃত্বে আস্থা রেখেছেন। মেরুকরণের বিষ ব্যুমেরাং হয়ে বিধ্বস্ত করেছে গেরুয়া দলকেই। প্রমাণ হয়ে গিয়েছে, মিথ্যার দ্বারা মহৎ কাজ হয় না। বিশদ

09th  May, 2021
স্বৈরাচারী কলুষিত প্রশাসনকে
হুঁশিয়ার করলেন রবীন্দ্রনাথ
জয়ন্ত কুশারী

রবীন্দ্রনাথই অন্যতম মহামানব যিনি ভাবীকালের পৃথিবীকে তাঁর অন্তর্দৃষ্টি দিয়ে চিনতে পেরেছিলেন। এটা অনস্বীকার্য যে বিবাদ বিদীর্ণ দেশ রাজনৈতিক মতাদর্শের বৈষম্য, অর্থনৈতিক স্তরবিন্যাসের বৈচিত্র্য, প্রগতির বিভিন্ন মানকে স্বীকার করে নিয়েও সামগ্রিক ক্রমোন্নতির পথ থেকে বিচ্যুত হননি। বিশদ

09th  May, 2021
সাধু সাবধান, ভাবিয়া করিও কাজ
তন্ময় মল্লিক

‘বদল হবে, বদলাও হবে’। নির্বাচনের আগে দিলীপ ঘোষ থেকে সায়ন্তন বসুদের এটাই ছিল জনপ্রিয়তম স্লোগান। ‘বদলা নেওয়ার’ হুমকির পাশাপাশি চোখা চোখা ডায়ালগের ফুলঝুরি ফুটত। প্রতিযোগিতায় এঁটে উঠতে পারেননি অনুব্রত মণ্ডলও। ‘ডাটিয়ে পগার পার করে দেব’ বলার পর অনুব্রতবাবু ‘খেলা হবে’তেই আটকে ছিলেন। বিশদ

08th  May, 2021
করোনা ঠেকাতে প্রতিরক্ষা
মন্ত্রকের উদ্যোগ
রাজনাথ সিং  

মহামারীর বর্তমান পরিস্থিতি ভারত মোকাবিলা করছে ঐক্যবদ্ধভাবে। সশস্ত্র বাহিনী দেশকে জয়ী করতে নানান উদ্যোগ নিয়েছে। বাহিনীর সদস্যদের রয়েছে অদম্য মনোভাব। যে-কোনও প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবিলা করার মানসিকতায় তাঁরা পূর্ণ। বিশদ

08th  May, 2021
গণদেবতার আশীর্বাদ
মৃণালকান্তি দাস

শেষ বিচারে বঙ্গসমাজ বিজেপির আইডেনটিটি পলিটিকস তত্ত্বকে আমল দেয়নি। বাঙালিয়ানা বিসর্জন দিয়ে বিজেপির হিন্দু-হিন্দি-হিন্দুস্তান মার্কা ভারতীয়ত্বকে আপন করে নিতে চায়নি। বহুত্ববাদ, বৈচিত্র্য ও বিবিধকে আঁকড়ে ধরে একদর্শী মতবাদকে তফাতে ঠেলেছে। দিনের শেষে এই রাজনৈতিক সংঘাত তাই রূপ নিয়েছে এক সামাজিক ও সাংস্কৃতিক লড়াইয়ে।
বিশদ

07th  May, 2021
প্রশ্নের মুখে নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা
সঞ্জয় মুখোপাধ্যায়

ভোট পর্ব মিটতে না মিটতে করোনা রোধে আঁটসাঁট বিধিনিষেধ। মাত্র এক দেড় মাসের মধ্যে নির্বাচন কমিশনের স্বেচ্ছাচারী ভোট পরিচালনায় রাজ্যব্যাপী সর্বত্র করোনা ছড়িয়ে গেছে। এমন অভিযোগ উঠে এসেছে কেবলমাত্র রাজনৈতিক দলের মধ্য থেকে নয়, খোদ মাদ্রাজ হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি সঞ্জীব বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছ থেকেও। বিশদ

06th  May, 2021
রাজধর্ম পালনের শপথ
হারাধন চৌধুরী

কোভিড পরিস্থিতি আপনারা দায়িত্ব নিয়ে যদি এতটা খারাপ না করে ফেলতেন, তাহলে অবশ্যই বলতাম, মোদি-শাহ-নাড্ডা বাংলায় আসুন। আজই সুযোগ। মুখ্যমন্ত্রী পদে মমতার শপথের হ্যাটট্রিক। দেখে যান রাজধর্ম পালনের শপথ কীভাবে নিতে হয়। বিশদ

05th  May, 2021
মোদি হাওয়া নেই... ছিলও না 
শান্তনু দত্তগুপ্ত

বাঁদরের হাতে লোডেড রিভলভার ধরিয়ে দিলে কী হয়? উত্তরের জন্য কোনও পুরস্কার নেই। কিন্তু যে ব্যক্তি এই মহান কর্মটি করে, তার মানসিক সুস্থতা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে বাধ্য। নিশ্চিতভাবে তার মাথার ব্যামো আছে। আমাদের আর্থ-সামাজিক কাঠামোটাও কতকটা তেমন। 
বিশদ

04th  May, 2021
একনজরে
দলের নির্দেশে নন্দীগ্রাম গ্রাম পঞ্চায়েতের প্রধান পদ থেকে ইস্তফা দিলেন বনশ্রী খাঁড়া। তিনি সম্পর্কে রাজ্যের মন্ত্রী শিউলি সাহার মা। বিধানসভা ভোটে বনশ্রীদেবী তৃণমূলের হয়ে সেভাবে প্রচারে নামেননি বলে দলীয় নেতৃত্বের অভিযোগ। সেজন্য তাঁকে অবিলম্বে ইস্তফা দিতে নির্দেশ দিয়েছিল দল। ...

শেষ পর্যন্ত বিস্তর টানাপোড়েনের পর আলোচনায় বসতে চেয়ে শ্রী সিমেন্ট কর্তারা বুধবার চিঠি দিল ইস্ট বেঙ্গল ক্লাবকে। ওই চিঠিতে এসসি ইস্ট বেঙ্গলের সিইও শিবাজি সমাদ্দার বলেছেন, ‘অবিলম্বে আলোচ্য বিষয়গুলি জানান।’ ...

করোনার সংক্রমণ এড়িয়ে সুরক্ষিতভাবে বাড়িতে বসেই গয়না কেনার সুযোগ করে দিচ্ছে সেনকো গোল্ড অ্যান্ড ডায়মন্ডস। অক্ষয় তৃতীয়া ও ঈদ উপলক্ষে থাকছে হরেক অফারও। ...

বাড়ির উঠোনে বেড়া দিয়ে ঘেরা ছোট্ট ঘর। সেখানে রান্না করছিলেন গৃহবধূ দীপালি সর্দার। পাশের মাটির ঘরের নিকনো বারান্দায় রাখা ফোন হঠাৎই বেজে উঠল। রান্না ফেলে ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম ( মিত্র )
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

আত্মীয়স্বজন, বন্ধু-বান্ধব সমাগমে আনন্দ বৃদ্ধি। চারুকলা শিল্পে উপার্জনের শুভ সূচনা। উচ্চশিক্ষায় সুযোগ। কর্মক্ষেত্রে অযথা হয়রানি। ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

১৬৩৮ - সম্রাট শাহজাহানের তত্ত্বাবধায়নে দিল্লির লাল কেল্লার নির্মাণ কাজ শুরু
১৮৩৬ - ভারততত্ত্ববিদ স্যার চার্লস উইলকিন্সের মৃত্যু
১৮৮৭ - বাঙালি কবি, সাহিত্যিক, সাংবাদিক এবং প্রবন্ধকার রঙ্গলাল বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৮৫৭: ম্যালেরিয়ার জীবাণু আবিষ্কারক রোনাল্ড রসের জন্ম
১৯১৮: নৃত্যশিল্পী বালাসরস্বতীর জন্ম
১৯৪৭: কবি সুকান্ত ভট্টাচার্যের মৃত্যু
১৯৫৬: আর্ট অফ লিভিং ফাউন্ডেশনের প্রতিষ্ঠাতা তথা আধ্যাত্মিক নেতা শ্রীশ্রী রবিশঙ্করের জন্ম
১৯৬২: ভারতের দ্বিতীয় রাষ্ট্রপতি হিসাবে শপথ নিলেন সর্বপল্লি রাধাকৃষ্ণাণ
১৯৬৭: ভারতের তৃতীয় রাষ্ট্রপতি হিসাবে শপথ নিলেন জাকির হোসেন
১৯৯৫ - প্রথম নারী হিসেবে ব্রিটিশ বংশদ্ভূত এলিসনের অক্সিজেন ও শেরপা ছাড়াই এভারেস্ট জয়
২০০০ - ভারতের লারা দত্তের বিশ্বসুন্দরী শিরোপা লাভ
২০০৫ - বিশিষ্ট সঙ্গীতিশিল্পী উৎপলা সেনের মৃত্যু
২০১১: পশ্চিমবঙ্গের বিধানসভা নির্বাচনে বিপুল জয় তৃণমূল কংগ্রেসের



ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭২.৬৭ টাকা ৭৪.৬৮ টাকা
পাউন্ড ১০১.৯৯ টাকা ১০৫.৫১ টাকা
ইউরো ৮৭.৪৯ টাকা ৯০.৭১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৪৮,৪৫০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৪৫,৯৫০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৪৬,৬৫০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৭১,৬০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৭১,৭০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

২৯ বৈশাখ ১৪২৮, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১। দ্বিতীয়া অহোরাত্র। রোহিণী নক্ষত্র অহোরাত্র। সূর্যোদয় ৫/১/১৪, সূর্যাস্ত ৬/৪/৩৬। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪০ গতে ২/৫১ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৪৬ মধ্যে পুনঃ ১০/১৫ গতে ১২/৫২ মধ্যে। বারবেলা ২/৪৯ গতে অস্তাবধি। কালরাত্রি ১১/৩৩ গতে ১২/৫৫ মধ্যে। 
২৯ বৈশাখ ১৪২৮, বৃহস্পতিবার, ১৩ মে ২০২১। দ্বিতীয়া রাত্রি ৩/৩৬। রোহিণী নক্ষত্র শেষরাত্রি ৪/৮। সূর্যোদয় ৫/১, সূর্যাস্ত ৬/৬। অমৃতযোগ রাত্রি ১২/৪০ গতে ২/৫০ মধ্যে। মাহেন্দ্রযোগ দিবা ৬/৪৬ মধ্যে ও ১০/১৫ গতে ১২/৫১ মধ্যে। কালবেলা ২/৫০ গতে ৬/৬ মধ্যে। কালরাত্রি ১১/৩৪ গতে ১২/৫৬ মধ্যে। 
৩০ রমজান।

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
শিবপুরে জমা জলে বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে বালকের মৃত্যু
কলকাতার পর এবার হাওড়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে মৃত্যুর ঘটনা ঘটল আজ ...বিশদ

07:43:56 PM

দুর্গাপুরে  দিদিকে গুলি, অভিযুক্ত ভাই
দুর্গাপুরে  দিদিকে গুলি করে খুনের চেষ্টার অভিযোগ ভাইয়ের বিরুদ্ধে। আজ, ...বিশদ

05:17:18 PM

ধনেখালিতে ট্রেন থেকে পড়ে মৃত্যু বিহারের দম্পতির
স্ত্রী জ্যোতিকে নিয়ে কলকাতায় শ্বশুরবাড়ি আসছিলেন বিহারের দ্বারভাঙ্গার বাসিন্দা সৌরভ ...বিশদ

04:07:09 PM

স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে এবার উঠতে পারবেন স্বাস্থ্যকর্মীরাও
রেলকর্মীদের জন্য ‘স্টাফ স্পেশাল’ ট্রেনে এবার থেকে উঠতে পারবেন স্বাস্থ্যকর্মীরাও। ...বিশদ

03:35:34 PM

গঙ্গায় মৃতদেহ ভেসে আসতে পারে, শুরু নজরদারি
উত্তরপ্রদেশ এবং বিহারের গঙ্গায় ভাসতে দেখা গিয়েছে অসংখ্য মৃতদেহ। আশঙ্কা, ...বিশদ

03:29:57 PM

পিছিয়ে গেল পরীক্ষা
করোনার জেরে পিছিয়ে গেল ইউপিএসসি-র প্রিলিমিনারি পরীক্ষা। ইউপিএসসি-র প্রিলিমিনারি হওয়ার ...বিশদ

03:17:14 PM