Bartaman Patrika
সম্পাদকীয়
 

এনআরসির উদ্দেশ্য হয়তো সাধু, উদ্বেগ প্রয়োগ নিয়েই

মানুষের বেঁচে থাকার জন্য প্রয়োজন খাদ্য, বস্ত্র ও বাসস্থানের। আর রাজনৈতিক নেতাদের টিকে থাকার জন্য লাগে ইস্যু। জবরদস্ত ইস্যুই রাজনীতির প্রধান খোরাক। রাজনৈতিক দলের তৈরি ইস্যুতে আমরা আলোড়িত হয়, উৎফুল্ল হই, আবার উদ্বিগ্নও হই। এই ইস্যুকে ঘিরেই তৈরি হয় জনমত, এই ইস্যুই রাজনৈতিক দলগুলির ভাগ্য নির্ধারণ করে। তাই রাজনীতিতে ইস্যু এক অতীব মহার্ঘ বস্তু। সম্প্রতি এমনই এক জবরদস্ত ইস্যু আমাদের সামনে এসে পড়েছে। যাকে ঘিরে দেশজুড়ে তোলপাড় চলছে। ইস্যুটি যে এনআরসি বা জাতীয় নাগরিকপঞ্জি, তা বলা নিস্প্রয়োজন। কারণ প্রতিটি বাড়িতেই শুরু হয়েছে কাগজপত্র ঘাঁটাঘাঁটি। পূর্বপুরুষের দলিল দস্তাবেজ। পরিবারের বড়দের দৌড়ঝাঁপ দেখে বাড়ির শিশুরাও বুঝতে পারছে, একটা ভয়ানক কিছু হতে চলেছে। শুধু উপলব্ধিই নয়, ভয়ঙ্কর ঘটনাও ঘটে যাচ্ছে। অনেকেই দিনভর দৌড়ঝাঁপ করেও কাগজপত্র জোগাড় করতে পারছেন না। পরিবার নিয়ে পথে বসার আশঙ্কায় পালিয়ে যাওয়ার রাস্তা নিচ্ছেন। কেউ কেউ করছেন আত্মহত্যা।
এখন প্রশ্ন হচ্ছে, স্বাধীনতা লাভের ৭২ বছরের মাথায় দাঁড়িয়ে এনআরসির প্রয়োজন হয়ে পড়ল কেন? হঠাৎ করে পরিবারের ‘বার্থ সার্টিফিকেট’ নিয়ে এমন টানাহ্যাঁচড়ার কি সত্যিই খুব প্রয়োজন ছিল?
জাতীয় নাগরিকপঞ্জি অবশ্যই গর্বের বিষয়। বহু উন্নত দেশেই নাগরিক পঞ্জি আছে। সুতরাং ভারতেও নাগরিকপঞ্জি হলেও হয়তো ভালোই হবে। পাশাপাশি একথাও ঠিক, অনুপ্রবেশ ঠেকানো দরকার। কারণ উন্নয়নের পথে অনুপ্রবেশ মস্ত বড় বাধা। আর অন্যের বোঝা কেই বা বইতে চায়? তাই অনুপ্রবেশ ঠেকানো গেলে এবং অনুপ্রবেশকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিলে ভারতের মাটির ও সম্পদের উপর অবশ্যই চাপ কমবে। তাতে উপকৃত হবে এদেশের মানুষ। কিন্তু, সেটা করতে গিয়ে যদি নতুন করে অস্থিরতার সৃষ্টি হয়, তৈরি হয় মানুষে মানুষে বিভেদ! তাহলে তা প্রয়োগের আগে দু’বার নয়, দশবার ভাবা প্রয়োজন। শুধু উদ্দেশ্য সাধু হলেই চলবে না, পথটাও ভালো হওয়া দরকার।
এতদিন যা ছিল রাজনীতির ভাষা, এখন তা সরকারি সিদ্ধান্তের সিলমোহর পেয়ে গিয়েছে। কারণ রাজ্যসভায় দাঁড়িয়ে ভারতের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ জানিয়ে দিয়েছেন, গোটা দেশজুড়ে হবে এনআরসি। তবে, ধর্মের ভিত্তিতে এনআরসি নয়। তিনি আরও জানিয়ে দিয়েছেন, নাগরিকত্ব সংশোধনী বিলও আনা হবে। সেই বিলে ঠিক কী কী থাকবে তা এখনও সেভাবে স্পষ্ট নয়। তবে এর আগে অমিত শাহ জানিয়েছিলেন, বাংলাদেশ, পাকিস্তান, আফগানিস্তান থেকে এদেশে আসা হিন্দু, শিখ, খ্রিস্টান, জৈন, পার্সিদের নাম এনআরসি থেকে বাদ পড়লেও চিন্তার কিছু নেই।
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর উল্লেখ করা ধর্মের মধ্যে মুসলিম নেই। আর সেটা ঘিরেই শুরু হয়েছে জল্পনা এবং আশঙ্কা।
অসমে এনআরসি করতে গিয়ে দেখা গিয়েছে, নাগরিকপঞ্জির বাইরে ১৯ লক্ষ মানুষ থেকে গিয়েছেন। তার মধ্যে প্রায় ১২ লক্ষই হিন্দু। ফলে এনআরসি ইস্যুতে মুসলিমদের পাশাপাশি হিন্দু ভোটাররাও আতঙ্কিত হতে শুরু করেছেন। আর তাতেই নাকি গেরুয়া ভোট ব্যাঙ্ক টলমল। সেই জন্যই ‘বিশেষ ছাড়’-এর অফার হিসেবে বাজারে আসছে ‘নাগরিকত্ব সংশোধনী বিল’।
এনআরসি আঁচে ঝলসেছে অসম। সেই উত্তাপ এসে লেগেছে প্রতিবেশী রাজ্য পশ্চিমবঙ্গেও। আরও বেশি করে লাগার কারণ ২০২১ সালে বিধানসভা ভোট। সেই ভোটে এনআরসি ইস্যু যে বাজার কাঁপাবে, তা
আর বলার অপেক্ষা রাখে না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আগেই
জানিয়ে দিয়েছেন, এনআরসি ইস্যুতে এরাজ্যে সংখ্যালঘুদের গায়ে আঁচ লাগতে দেবেন না। বুধবার রাজ্যসভায় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর দেশজুড়ে এনআরসির ঘোষণায় মমতা রীতিমতো হুঙ্কার ছেড়ে জানিয়ে দিয়েছেন, বাংলায় এনআরসি নয়। সুতরাং লড়াই শুরু। ইস্যুও তৈরি। আচ্ছে দিন, বালাকোটের পর এবার এনআরসি। দেশের ও রাজ্যের অর্থনীতি, উন্নয়ন, শিক্ষা,
স্বাস্থ্য তোলা থাক আলমারিতে। লড়াইয়ের ইস্যু পরিবারের বার্থ সার্টিফিকেট এবং অবশ্যই ধর্ম।
22nd  November, 2019
গোদের উপর বিষফোঁড়া 

এখন বাজার করতে যাওয়া আর গিলোটিনে মাথা দেওয়া একই ব্যাপার। বাজার মানেই তপ্ত কড়াই। পিঁয়াজ কিনলে আলু কেনার পয়সা থাকে না। আলু কিনলে ফুলকুপি কেনার পয়সা থাকে না। ফুলকপি কিনলে ধনেপাতা কেনার পয়সা থাকে না। এই নিত্য ছেঁকা খাওয়ার অবস্থার মধ্যেই এল দুঃসংবাদ। আরও এক ছেঁকা। 
বিশদ

ধ্যান-জপের অপরিহার্য্যতা 

জপ-ধ্যানাদি সম্বন্ধে একটা সন্দেহ কাহারও কাহারও মনে থাকিতে পারে। আচার্য্যদেব ফোন সময়ে বলিয়াছেন—সকলে জপ করে কাঠের মালায়, তিনি জপ করেন জাতিগঠনের মালায়—কোন দুর্ব্বল মুহুর্তে ইহার ব্যাখ্যা কেহ কেহ নিজের সুবিধা মতো করিয়া নিতে পারে। মনে হইতে পারে, আচার্য্যদেব জাতিগঠনের কাজকে জপ-ধ্যানের চাইতে উচ্চ স্থান দিয়াছেন। 
বিশদ

02nd  December, 2019
বন্ধ হোক পেঁয়াজের দাদাগিরি

চলতি সপ্তাহেই সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছে পেঁয়াজ। কালোবাজারি রুখতে সরকারের এনফোর্সমেন্ট ব্রাঞ্চ রয়েছে। নজরদারির জন্য রয়েছে টাস্ক ফোর্স। কিন্তু, সেসবকে কলা দেখিয়ে খুচরো বাজারে চলছে ‘পেঁয়াজের দাদাগিরি’। পরিস্থিতি এমনই যে, আপেলের মতো দামি ফলকে হারিয়ে মহার্ঘ তকমা ছিনিয়ে নিয়েছে সে। 
বিশদ

02nd  December, 2019
আর্থিক সঙ্কট, মোদির চ্যালেঞ্জ 

রাজনীতির ময়দানে একের পর এক ধাক্কা সামাল দেওয়ার ফুরসত নেই, তারই মধ্যে নরেন্দ্র মোদির কাছে আরও বড় চ্যালেঞ্জ নিয়ে এল দেশের অর্থনীতি। কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন ‘সমস্যা কিছু রয়েছে ঠিকই, তবে আর্থিক মন্দা নয়।  বিশদ

01st  December, 2019
আগুনখেলায় হাতও পুড়ল, মুখও বাঁচল না

 কথায় আছে—অতি দর্পে হতা লঙ্কা। এটা শুধু কথার কথা নয়, দেশে-কালে, ইতিহাসে বারবার তা প্রমাণিত সত্য। ঔদ্ধত্য আকাশ ছুঁয়ে ফেললেই তার পতন অনিবার্য। যেমনটা দেখা যাচ্ছে সাম্প্রতিক আমাদের দেশের রাজনীতিতে। সেই কারণেই লোকসভা ভোটে দু’কূল ছাপানো ফলাফলের পর থেকে বিজেপি নিজেকে সর্বশক্তিমান ভাবতে শুরু করেছিল। বিশদ

30th  November, 2019
সরকারের ভুল সিদ্ধান্তের মাশুল গুনতে হয় জনগণকেই 

এতদিন যা ছিল মানুষের মনে, বৃহস্পতিবার সেটাই এল সরকারের মুখে। সংসদে দাঁড়িয়ে কেন্দ্রীয় শ্রমমন্ত্রী সন্তোষকুমার গঙ্গওয়ার স্বীকার করে নিয়েছেন, নোট বাতিলের পর দেশে বেকারের সংখ্যা বৃদ্ধি পেয়েছে।  বিশদ

29th  November, 2019
গড়পড়তা

গত শনিবার সাত সকালে দ্বিতীয়বার মুখ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ নিলেন দেবেন্দ্র ফড়নবিশ। পিছন পিছন শপথ নিলেন উপমুখ্যমন্ত্রী অজিত পাওয়ার। তাঁদের শপথ বাক্য পাঠ করালেন রাজ্যপাল ভগৎ সিং কোশিয়ারি। বলা হল, ৩০ নভেম্বরের মধ্যে সংখ্যাগরিষ্ঠতার প্রমাণ দেবেন ফড়নবিশ।
বিশদ

28th  November, 2019
ক্ষোভ প্রশমনের দাওয়াই 

অবসরপ্রাপ্ত বহু মানুষ স্বস্তিতে নেই। সন্তানের বেকারত্ব, নিজের রোগব্যাধি, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্যবৃদ্ধিসহ নানা সমস্যায় জেরবার তাঁরা। কর্মজীবনে তিলে তিলে সঞ্চয় করা অর্থের সুদের টাকায় অনেকের পক্ষে সংসার চালানোটা এখন মুশকিল হয়ে দাঁড়াচ্ছে।  বিশদ

27th  November, 2019
আপাতত জল্পনার স্বর্গরাজ্য 

মাঝরাতেই শিবির বদল শারদ পাওয়ারের ভাইপোর। রাতের অন্ধকারে মহারাষ্ট্রের রাজনীতিতে নাটকীয় পরিবর্তনের অন্যতম প্রধান চরিত্র হয়ে উঠলেন এনসিপি নেতা অজিত পাওয়ার। কোন অজিত পাওয়ার? ফড়নবিশ যাঁকে দুর্নীতির দায়ে জেলে পাঠিয়েছিলেন। অতঃপর সেই অজিতের হাত ধরেই মহারাষ্ট্রে ফের সরকারে বিজেপি। 
বিশদ

25th  November, 2019
ঐতিহাসিক ‘গোলাপি’ টেস্ট

 অবশ্যই ঐতিহাসিক। দিনরাতের টেস্ট ম্যাচের পরিধিতে ঢুকে পড়ল ভারত। সৌজন্যে, সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়। ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব নেওয়ার পরই তিনি বুঝিয়ে দিয়েছিলেন, বদল আসতে চলেছে তাঁর হাত ধরে। ভারতের ক্রিকেটে।
বিশদ

24th  November, 2019
আবার শিল্পে সুসময় আসুক

পশ্চিমবঙ্গে শিল্প-বিকাশের ক্যালেন্ডারটি থমকে গিয়েছিল বাম আমলেই। একরোখা শ্রমিক আন্দোলনের জেরে ধীরে ধীরে স্তব্ধ হয়ে গিয়েছিল কারখানার চিমনিগুলি। ধনতন্ত্রের অবসানে শ্রমিক শ্রেণীর নেতৃত্বে রাষ্ট্র গঠনের আফিমে বুঁদ করে মজদুর খেপিয়ে এক এক করে শিল্পপতিদের রাজ্যছাড়া করেছে সিপিএম। যার ফলে দমবন্ধ হয়ে মৃত্যু হয়েছে বঙ্গের শিল্প সম্ভাবনার। 
বিশদ

23rd  November, 2019
জলাশয় ধ্বংসে শাস্তিটাও কাম্য

 ভারতে সবচেয়ে ঘনবসতিপূর্ণ রাজ্যগুলির মধ্যে শীর্ষস্থানে রয়েছে পশ্চিমবঙ্গ। জনবসতির ঘনত্ব এখানে ক্রমবর্ধমান, নানা কারণে। স্বভাবত বসতি কেন্দ্রীভূত হওয়ার প্রবণতা কলকাতাকে ঘিরেই। কারণটি সোজা। পূর্ব ভারতের ভিতরে আধুনিক জীবনযাপনের সবচেয়ে বেশি সুযোগ কলকাতাতেই মেলে।
বিশদ

21st  November, 2019
বছরভর নজরদারি প্রয়োজন 

সাধারণ মানুষ বিশেষত গরিব মধ্যবিত্ত শ্রেণী এই মুহূর্তে যে সমস্যাটিতে জেরবার হচ্ছে তা হল সাম্প্রতিক বাজার দর। দেশের বর্তমান আর্থিক পরিস্থিতিতে এমনিতেই মানুষের ক্রয়ক্ষমতা কমেছে। হাতে নগদ টাকার অভাব।   বিশদ

20th  November, 2019
শ্রীলঙ্কায় ‘চীনবন্ধু’র জয় ভারতের পক্ষে অনুকূল হবে না 

ভোটে জিতে শ্রীলঙ্কায় প্রেসিডেন্ট পদে আসীন হলেন গোতাবায়া রাজাপাকসে। আমরা শ্রীলঙ্কার মহিন্দা রাজাপাকসেকে জানি। ইনি হলেন তাঁর দাদা। ভালো মার্জিনে জিতে গোতাবায়া ক্ষমতায় এলেও একমাত্র সিংহলী আর বৌদ্ধরা ছাড়া সেই দ্বীপভূমি রাজ্যে আর কেউ তেমন আনন্দে নেই। কেননা গোতাবায়ার অতীত ইতিহাস তেমন উজ্জ্বল নয়।  
বিশদ

19th  November, 2019
বিমার অর্থের অবিবেচক লগ্নি

চিটফান্ডে টাকা রেখে বিপুল সংখ্যক সাধারণ মানুষ তাদের সঞ্চয় খুইয়েছেন। সেই পথে আর যেতে চান না কেউই। অগত্যা ভারতীয় জীবন বিমা নিগম (এলআইসি) ছিল সঞ্চিত অর্থ লগ্নি করার সহজ পথ। সবাই জানেন, সরকারি বিমা সংস্থায় অন্তত টাকা মার যাওয়ার ভয় নেই। তাই এলআইসিতে আম জনতা টাকা রাখেন নিরাপদ মনে করেই। 
বিশদ

18th  November, 2019
ভারতের নারীশক্তির যুক্তিতে আবার বেআব্রু পাকিস্তান

 মার্গারেট থ্যাচার বলেছিলেন, যদি কোনও কাজ নিয়ে কিছু বলতে হয়, একজন পুরুষকে বলুন। আর যদি কোনও কাজ সম্পূর্ণ করতে হয়, বলে দেখুন একজন মহিলাকে। শুক্রবার ভারতের নারীশক্তির যে দাপট আন্তর্জাতিক মঞ্চ দেখল, তা পৃথিবীর অন্তিম লগ্ন পর্যন্ত মনে রাখবে পাকিস্তান। বিশদ

17th  November, 2019
একনজরে
সংবাদদাতা, গাজোল: শীত এখনও সেভাবে না পড়লেও মাল্টার জন্য এখন থেকেই অপেক্ষা শুরু হয়ে গিয়েছে মালদহে। অনেকটা কমলালেবুর মতোই দেখতে এই ফল বিগত দুয়েকবছর ধরে ...

 ন্যাশনাল স্টক এক্সচেঞ্জে যেসব সংস্থার শেয়ার গতকাল লেনদেন হয়েছে শুধু সেগুলির বাজার বন্ধকালীন দরই নীচে দেওয়া হল। ...

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বিধায়ক এলাকা উন্নয়ন তহবিলে বরাদ্দ অর্থ বৃদ্ধির দাবি উঠল বিধানসভায়। সোমবার প্রশ্নোত্তর পর্বে বিরোধী কংগ্রেস এবং সিপিএমের কয়েকজন বিধায়ক এই প্রসঙ্গটি তোলেন। সেই সময় টেবিল চাপড়িয়ে অর্থ বরাদ্দ বাড়ানোর প্রস্তাবকে সমর্থন করতে দেখা যায় তৃণমূল কংগ্রেসের কয়েকজন ...

সংবাদদাতা, কুমারগ্রাম: উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দপ্তর আলিপুরদুয়ার শহরের ইন্ডোর স্টেডিয়ামের পাশে অত্যাধুনিক ব্যায়ামাগার তৈরির কাজ শুরু করছে। এই কাজ অনেকটাই এগিয়ে গিয়েছে। জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা গিয়েছে, এটির কাজ সম্পূর্ণ হয়ে গেলে আলিপুরদুয়ার জেলা ক্রীড়া সংস্থার হাতে তা তুলে দেওয়া হবে।  ...




আজকের দিনটি কিংবদন্তি গৌতম
৯১৬৩৪৯২৬২৫ / ৯৮৩০৭৬৩৮৭৩

ভাগ্য+চেষ্টা= ফল
  • aries
  • taurus
  • gemini
  • cancer
  • leo
  • virgo
  • libra
  • scorpio
  • sagittorius
  • capricorn
  • aquarius
  • pisces
aries

দীর্ঘদিনের পরিশ্রমের সুফল আশা করতে পারেন। শেয়ার বা ফাটকায় চিন্তা করে বিনিয়োগ করুন। ব্যবসায় ... বিশদ


ইতিহাসে আজকের দিন

বিশ্ব প্রতিবন্ধী দিবস
১৮৮২: চিত্রশিল্পী নন্দলাল বসুর জন্ম
১৮৮৯: বিপ্লবী ক্ষুদিরাম বসুর জন্ম
১৯৫৬: সাহিত্যিক মানিক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মৃত্যু
১৯৭৯: হকির জাদুকর ধ্যানচাঁদের মৃত্যু
১৯৮২: কবি বিষ্ণু দে’র মৃত্যু
২০১১: অভিনেতা দেব আনন্দের মৃত্যু





ক্রয়মূল্য বিক্রয়মূল্য
ডলার ৭০.৯৪ টাকা ৭২.৬৫ টাকা
পাউন্ড ৯১.০৫ টাকা ৯৪.৩৪ টাকা
ইউরো ৭৭.৬১ টাকা ৮০.৬১ টাকা
[ স্টেট ব্যাঙ্ক অব ইন্ডিয়া থেকে পাওয়া দর ]
পাকা সোনা (১০ গ্রাম) ৩৮,৪৮০ টাকা
গহনা সোনা (১০ (গ্রাম) ৩৬,৫১০ টাকা
হলমার্ক গহনা (২২ ক্যারেট ১০ গ্রাম) ৩৭,০৬০ টাকা
রূপার বাট (প্রতি কেজি) ৪৪,৪০০ টাকা
রূপা খুচরো (প্রতি কেজি) ৪৪,৫০০ টাকা
[ মূল্যযুক্ত ৩% জি. এস. টি আলাদা ]

দিন পঞ্জিকা

১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, সপ্তমী ৪২/৫৩ রাত্রি ১১/১৪। ধনিষ্ঠা ২০/২৯ দিবা ২/১৭। সূ উ ৬/৪/৫৩, অ ৪/৪৭/২৯, অমৃতযোগ দিবা ৬/৪৬ মধ্যে পুনঃ ৭/২৯ গতে ১১/৪ মধ্যে। রাত্রি ৭/২৭ গতে ৮/২০ মধ্যে পুনঃ ৯/১৩ গতে ১১/৫২ মধ্যে পুনঃ ১/৩৯ গতে ৩/২৫ মধ্যে পুনঃ ৫/৫২ গতে উদয়াবধি, বারবেলা ৭/২৫ গতে ৮/৪৫ মধ্যে পুনঃ ১২/৪৭ গতে ২/৭ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/২৭ গতে ৮/৬ মধ্যে। 
১৬ অগ্রহায়ণ ১৪২৬, ৩ ডিসেম্বর ২০১৯, মঙ্গলবার, সপ্তমী ৪২/৪৮/৩২ রাত্রি ১১/১৩/৪৯। ধনিষ্ঠা ২২/৪৯/২৩ দিবা ৩/১৪/৯, সূ উ ৬/৬/২৪, অ ৪/৪৭/৫২, অমৃতযোগ দিবা ৭/০ মধ্যে ও ৭/৪২ গতে ১১/১৩ মধ্যে এবং রাত্রি ৭/৩২ গতে ৮/২৬ মধ্যে ও ৯/২০ গতে ১২/১ মধ্যে ও ১/৪৯ গতে ৩/৩৬ মধ্যে ও ৫/২৪ গতে ৬/৭ মধ্যে, কালবেলা ১২/৪৭/১৯ গতে ২/৭/৩০ মধ্যে, কালরাত্রি ৬/২৭/৪১ গতে ৮/৭/৩০ মধ্যে। 
৫ রবিয়স সানি  

ছবি সংবাদ

এই মুহূর্তে
শহরে এটিএম জালিয়াতি, আরও ১৪টি অভিযোগ দায়ের 
যাদবপুরের পর এবার চারু মার্কেট থানা এলাকা। শহরে ফের জাঁকিয়ে ...বিশদ

05:13:00 PM

বাংলায় এনআরসি হবে না, ধর্মের ভিত্তিতে ভাগাভাগি করা যাবে না: মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় 

04:06:10 PM

বুলবুল: রাজ্যকে আর্থিক সাহায্য পাঠাল কেন্দ্র
বুলবুল-এ ক্ষতিগ্রস্ত রাজ্য হিসাবে পশ্চিমবঙ্গকে আর্থিক সাহায্য পাঠাল কেন্দ্র। রাজ্যকে ...বিশদ

03:42:00 PM

আগামী ২ দিন বসবে না বিধানসভা অধিবেশন
রাজভবনে আটকে রয়েছে বিল । সেখান থেকে বিল না আসায় ...বিশদ

03:36:00 PM

বাগুইআটি উড়ালপুলে ফাটল আতঙ্ক 
বাগুইআটি উড়ালপুলে একটি ফাঁককে ঘিরে আতঙ্ক। উড়ালপুলে ফাটল দেখা দিয়েছে ...বিশদ

02:56:51 PM

বাসন্তীতে তৃণমূল কর্মী খুন 
দক্ষিণ ২৪ পরগনার বাসন্তীতে এক তৃণমূল কর্মীকে গুলি করে খুন ...বিশদ

02:13:31 PM