বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

মতুয়াগড়ে নাগরিকত্বের প্রতিশ্রুতি ভঙ্গের প্রচার অক্সিজেন জোগাচ্ছে জোড়াফুলকে

প্রীতেশ বসু, গাজোল: পূরণ হয়নি নাগরিকত্বের প্রতিশ্রুতি। এই প্রতিশ্রুতির উপর ভর করেই উনিশের নির্বাচনে মতুয়া ভোটে থাবা বসিয়েছিল গেরুয়া শিবির। বনগাঁ কেন্দ্রে জিতে শান্তনু ঠাকুর হন নরেন্দ্র মোদির মন্ত্রিসভার রাষ্ট্রমন্ত্রী। গত পাঁচবছরে সরকার উচ্চবাচ্য করেনি। ঠিক এই ভোটের মুখে এসে কার্যকর করা হয়েছে নাগরিকত্ব সংশোধনী আইন (সিএএ)। আর এটা দেখিয়েই মতুয়াগড়ে নিজেদের ভোট মার্জিন ধরে রাখতে মরিয়া পদ্ম শিবির। তবে, নির্বাচনী আবহে সিএএ কার্যকর করাকেই তুরুপের তাসের মতো কাজে লাগাচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেস। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের দল শতমুখে বলছে, এটা আসলে নাগরিকত্ব দেওয়ার নামে ভোটের আগে বিজেপির নতুন ‘ভাঁওতাবাজি’। তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এবং দলের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় প্রতিটি জনসভায় এই নিয়ে সোচ্চার হচ্ছেন। তবে নজিরবিহীন বিষয় হল, জলপাইগুড়ি থেকে ২৪ পরগনার মতুয়াঅধ্যুষিত এলাকার দুয়ারে দুয়ারে পৌঁছে এই ইস্যুকে তুলে ধরা হয়েছে তাদের তরফে। আর এই কাজের দায়িত্ব পেয়ে সংশ্লিষ্ট নয়টি জেলায় ছুটে বেড়াচ্ছেন ‘দিদির দূত’—তৃণমূলের রাজ্যসভার সাংসদ এবং মতুয়াদের মুখ মমতাবালা ঠাকুর। 
মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষ বসবাস করেন বাংলার অনেকগুলি জেলায়। তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য, দুই ২৪ পরগনা, নদীয়া, পূর্ব বর্ধমান, হুগলি, মালদহ, জলপাইগুড়ি, দুই দিনাজপুর প্রভৃতি। এই জেলাগুলির অনেকগুলি বিধানসভা কেন্দ্র এলাকায় ভোটের ফলাফল নির্ভর করে মতুয়া সম্প্রদায়ের মানুষের মর্জির উপর। রাজ্যে এই সম্প্রদায়ের মানুষের সংখ্যা এক কোটির বেশি। আর তৃণমূল দলনেত্রীর এই বার্তাই একেবারে তৃণমূল স্তরে পৌঁছে দিচ্ছেন মমতাবালা।
প্রথম পর্যায়ে, জলপাইগুড়ি লোকসভা কেন্দ্রের মতুয়াঅধ্যুষিত পাড়ায় পাড়ায় গিয়ে প্রচার সেরেছেন মমতাবালা ঠাকুর। তিনি পৌঁছেছেন জলপাইগুড়ির সুকান্তনগর, বিবেকানন্দপল্লি, ধাপগঞ্জ, কচুয়া বোয়ালমারি, নগর-বেরুবাড়ি,  ক্রান্তি, পূর্ব-সংঘপাড়া, দক্ষিণ-চেংমারি, চৌরঙ্গি ও ধনতলায়। মতুয়া পরিবারের দুয়ারে দুয়ারে গিয়ে তিনি বুঝিয়ে এসেছেন, সিএএ আসলে মোদিজির আরও একটি ভাঁওতাবাজি। 
মমতাবলা ঠাকুর জানান, আমি দিদির নির্দেশেই এই প্রচার চালাচ্ছি। এর আগের কোনও নির্বাচনে আপনাকে তো এভাবে পাড়ায় পাড়ায় পৌঁছে প্রচার করতে দেখা যায়নি? তাহলে এবার কেন? বিজেপি বারবার আমাদের ঠকিয়ে ভোট নিয়ে চলে যাবে, তা হতে পারে না। তাই আমরা মানুষকে বোঝাচ্ছি, সিএএ আসলেই গেরুয়া ভাঁওতা। নাগরিকত্বের জন্য আদপেই সিএএ’র প্রয়োজন নেই। 
জলপাইগুড়ির পরে মমতাবালা বালুরঘাট এবং দুই দিনাজপুরের পাড়ায় পাড়ায় প্রচারের জন্য পৌঁছে যান। বালুরঘাটে ডাঙাপাড়া ফরেস্ট, কদমতলি, হরিশ্চন্দ্রপুর ও হরিরামপুরে গিয়েও প্রচার চালিয়েছেন তিনি। তিনি গিয়েছেন মালদহ উত্তর কেন্দ্রের জগজীবনপুর, পার্বতীডাঙা, শিমলা, খুটাদহ, মুদিপুকুর, খকসন ও হরিশঙ্করপুর এলাকায়। শনিবার মালদহ জেলার দুটি সভাতেই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখা গিয়েছে, মতুয়াদের কথা তুলে ধরতে তিনি নির্দেশ দিয়েছেন মমতাবালাকে। রবিবার মমতাবাল পৌঁছে গিয়েছেন হুগলি জেলায়। একইভাবে তিনি প্রচার চালাবেন দক্ষিণবঙ্গের মতুয়াঅধ্যুষিত অন্য জেলাগুলিতেও। বিভিন্ন এলাকায় তাঁর সঙ্গে প্রচারে যাচ্ছেন স্থানীয় প্রার্থীরাও। 
ওয়াকিবহাল মহলের মতে, মতুয়া ভোট পাওয়ার ক্ষেত্রে এই প্রচার অভিযান অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। মতুয়াদের সংগঠন ‘শান্তিহরি মতুয়া ফাউন্ডেশন’ স্বাধীন প্রার্থী দিয়েছে বারাসত, বনগাঁ এবং কৃষ্ণনগরে। সেই ক্ষেত্রেও মমতাবালার এই প্রচার কাজে দেবে বলেই তাঁদের মত।

22nd     April,   2024
 
 
অক্ষয় তৃতীয়া ১৪৩১
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ