বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

নববর্ষের প্রস্তুতি। শুক্রবার কুমোরটুলিতে তোলা নিজস্ব চিত্র।

রোগী বাড়িতে, বিল চড়ছে হাসপাতালের, চুরি ঠেকাতে স্বাস্থ্যসাথী প্রকল্পে নজরদারি চালাবে এআই প্রযুক্তি

বিশ্বজিৎ দাস, কলকাতা: রামকুমার জানা কোনওদিন হাসপাতালে ভর্তিই হননি। তবে একবার  মেদিনীপুর শহরের এক নার্সিংহোমে গিয়েছিলেন ডাক্তার দেখাতে। সঙ্গে রেখেছিলেন স্বাস্থ্যসাথী কার্ড। কিন্তু সেখানে তাঁর আঙুলের ছাপ সংগ্রহ করে যে এতবড় কাণ্ড ঘটানো হবে, ঘূণাক্ষরে টের পাননি ছাপোষা গৃহস্থ রামকুমার। নার্সিংহোমে যেন তাঁর ‘ভূত’ ভর্তি ছিল! তিনি বাড়িতে থাকলেও তাঁরই অপারেশন হয়ে গেল! কাঁড়ি কাঁড়ি টাকার বিল জমা পড়ল স্বাস্থ্যসাথীর ঘরে! তা খুঁটিয়ে দেখতে গিয়ে মাথায় হাত কর্তাদের! এ যে দিনেদুপুরে চিটিংবাজি! অতঃপর জরিমানা করা হল ওই নার্সিংহোমকে। 
এই ধরনের দুর্নীতিবাজ হাসপাতাল-নার্সিংহোমকে সবক শেখাতে এবার সরকারের ‘হাতিয়ার’ আর্টিফিশিয়াল ইন্টালিজেন্স বা কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা। স্বাস্থ্যদপ্তরের এক পদস্থ কর্তার দাবি, এক ঢিলে তিন পাখি মারতে এই অত্যাধুনিক প্রযুক্তির সাহায্য নেওয়া হচ্ছে। এর মাধ্যমে ভুয়ো রিপোর্ট ও জাল কাগজপত্র ধরা পড়বে। হাসপাতালে রোগী ভর্তি না থাকলেও তাঁর নামে বিল হলে জানা যাবে সহজেই। এমনকী, বড় ডাক্তারবাবুর নাম করে ভর্তি করিয়ে জুনিয়র চিকিৎসককে দিয়ে অপারেশন করালে তাও চিহ্নিত হবে। 
কীভাবে সম্ভব এই নজরদারি? ধরা যাক, সাবিত্রী মল্লিক স্বাস্থ্যসাথী কার্ডে ভর্তির জন্য চিকিৎসা সংক্রান্ত কাগজপত্র জমা দিয়েছেন। অসাধু চক্র  ফটোশপের সাহায্যে সেই কাগজে অন্য নাম বসিয়ে ফের তা জমা করে দেয় স্বাস্থ্যসাথী ব্রাঞ্চে। এরকম ‘কেস’ হাতেনাতে ধরে ফেলবে এআই। অপটিক্যাল ক্যারেকটার টেকনোলজি বা ওসিআর স্ক্যান জানিয়ে দেবে, নীলমণি হাঁসদার নামে যে রিপোর্ট জমা পড়েছে, হুবহু সেই রিপোর্ট পাঁচ মাস আগে জমা পড়েছিল। রোগীর নাম ছিল সাবিত্রী মল্লিক! ইতিমধ্যে জিও কো-অর্ডিনেট (অক্ষাংশ, দ্রাঘিমাংশ সহ ত্রিমাত্রিক অবস্থান) ব্যবহার করা শুরু হয়েছে স্বাস্থ্যসাথীর নার্সিংহোমে। সেই সঙ্গে তাদের স্বাস্থ্যসাথী অ্যাপ দেওয়া হয়েছে। সেখানে রোগীর ভর্তি ও ছুটির সময় এবং অপারেশনের আগে ও পরের ছবি আপলোড করতে হবে। রোগী আদৌ সেখানে ভর্তি না থাকলে চারটি ছবি দেওয়া যাবে না পোর্টালে। সেক্ষেত্রে ভুয়ো বিলও জমা করা যাবে না। 
তাছাড়া, বড় ডাক্তারবাবুর নামে ভর্তি করিয়ে তুলনামূলক কম অভিজ্ঞ চিকিৎসককে দিয়ে অপারেশনের অভিযোগ ওঠে মাঝেমধ্যে। এই ঘটনা ঠেকাতে স্বাস্থ্যসাথীতে অপারেশন করা সরকারি প্র্যাকটিসিং ডাক্তার এবং প্রাইভেট ডাক্তারদের একটি অ্যাপ দিচ্ছে রাজ্য। সেখানে থাকছে লোকেশন অ্যাকসেস। কে, কবে কোন রোগীর অপারেশন করলেন বা করবেন, তার বিস্তারিত তথ্য থাকছে। প্রায় সাড়ে সাত হাজার চিকিৎসককে এই অ্যাপের মাধ্যমে নজরদারির আওতায় রেখেছে সরকার। 

3rd     March,   2024
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ