বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

আজ বৃষ্টিহীন মেঘলা দিন, কাল থেকেই নামতে পারে তাপমাত্রা

নিজস্ব প্রতিনিধি, কলকাতা: বঙ্গোপসাগরের ঘূর্ণিঝড় ‘মিগজাউম’ দুর্বল হয়ে  ঘূর্ণাবর্ত  হিসেবে  ছত্তিশগড়-বিদর্ভের দিকে চলে গিয়েছে। তবুও বৃহস্পতিবার গোটা দিনের বৃষ্টিতে দুর্যোগ পরিস্থিতির সৃষ্টি হল কলকাতা-সহ দক্ষিণবঙ্গের সর্বত্র। 
আবহাওয়া দপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছিল, বৃহস্পতিবার হালকা থেকে মাঝারি মাত্রায় বৃষ্টি হবে। কিন্তু বুধবার রাত থেকেই বৃষ্টির মাত্রা বাড়তে শুরু করে। বৃহস্পতিবার রাতের দিকে বৃষ্টি কিছুটা কমে। ৪০-৫০ মিলিমিটার (মিমি), এমনকী তারও বেশি পরিমাণ বৃষ্টি হয়েছে কোনও কোনও জেলায়। কলকাতায় বিকেল পর্যন্ত ২৪ ঘণ্টার মধ্যে প্রায় ২৫ মিমি বৃষ্টি হয়েছে। তবে আজ শুক্রবার থেকে আবহাওয়ার উন্নতি হবে। 
আলিপুর আবহাওয়া অফিসের অধিকর্তা গণেশ দাস জানান, আজ আকাশ মেঘলা থাকলেও বৃষ্টি হওয়ার সম্ভাবনা কম। আগামী কাল শনিবার থাকবে রোদ ঝলমলে। কমতে শুরু করবে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা। আগামী সপ্তাহে কলকাতায় সর্বনিম্ন তাপমাত্রা কমে ১৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশপাশে চলে যাবে। তখন মধ্য-ডিসেম্বরে অবশেষে শহরবাসী শীতের আমেজ পাবেন। এমনটাই আশা করছেন আবহাওয়াবিদরা। 
বৃহস্পতিবার কলকাতায় ভোরে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা (১৯.৯ ডিগ্রি) স্বাভাবিকের থেকে ৩ ডিগ্রি বেশি ছিল। মেঘলা আকাশ ও বৃষ্টির কারণে দুপুরে সর্বোচ্চ তাপমাত্রা (২১.১ ডিগ্রি) স্বাভাবিকের থেকে ৭ ডিগ্রি কম ছিল। দু’টি তাপমাত্রার মধ্যে ফারাক ছিল মাত্র ২ ডিগ্রি। অসময়ের বৃষ্টি বৃহস্পতিবার দক্ষিণবঙ্গে এতটা বেশি হল কেন? ব্যাখা দিয়েছেন আবহাওয়াবিদরা। দুর্বল হয়ে পড়া ঘূর্ণিঝড়ের সিস্টেম থেকে প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টি ভরা মেঘ ঝাড়খণ্ড-ছত্তিশগড়ের দিক থেকে দক্ষিণবঙ্গের দিকে চলে আসে। এজন্যই পশ্চিমাঞ্চলের জেলাগুলিতে তুলনামূলকভাবে বেশি বৃষ্টি হয়েছে। রাজ্য কৃষিদপ্তর সূত্রের খবর, দুপুর পর্যন্ত ঝাড়গ্রামে ৬১.৫ মিমি, পুরুলিয়ায় ৪৪.৮ মিমি, বাঁকুড়ায় ৪১.১ মিমি বৃষ্টি রেকর্ড হয়েছে। বৃষ্টি হয়েছে দক্ষিণবঙ্গের সব জেলাতেই। দুপুর পর্যন্ত বৃষ্টি কম হয় উপকূলবর্তী পূর্ব মেদিনীপুর ও দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলায়। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে মেঘ আসা ছাড়া বেশি বৃষ্টি হওয়ার আরও দু’টি কারণ জানিয়েছেন আবহাওয়া অধিকর্তা—বাংলাদেশ থেকে ঘূর্ণাবর্ত পর্যন্ত একটি নিম্নচাপ অক্ষরেখা ছিল। দখিনা বাতাস সক্রিয় থাকায় প্রচুর জলীয় বাষ্প ঢোকে। দখিনা বাতাসের জন্য কলকাতা, সংলগ্ন এলাকায় বেশি বৃষ্টি হয়েছে।

8th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ