বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

আটকে থাকা ১২টি বিল নিয়ে ফের কৈফিয়ত তলব রাজভবনের, চিঠি গেল বিধানসভাতেও

প্রীতেশ বসু ও রাহুল চক্রবর্তী: কলকাতা: রাজ্য-রাজভবন দ্বন্দ্বে যোগ হল নতুন মাত্রা। বিধানসভায় পাশ হওয়া বিল দিনের পর দিন আটকে রাখা নিয়ে ফের চাপানউতোর শুরু হয়েছে দু’তরফে। গত ২৯ নভেম্বর রাজভবনের তরফে নবান্ন এবং বিধানসভায় পাঠানো চিঠিকে ঘিরেই নতুন করে বিতর্কের সূত্রপাত হয়েছে। সূত্রের খবর, রাজভবনের সিনিয়র স্পেশাল সেক্রেটারি ওই চিঠি দিয়েছেন। বিধানসভায় পাশ হওয়া ১২টি বিলে ছাড়পত্র দিতে ফের রাজ্যের কৈফিয়ত তলব করা হয়েছে তাতে। বিষয়টি নিয়ে ইতিমধ্যে সরব হয়েছে রাজ্যের শাসক দল। এ ব্যাপারে নবান্নের কী অবস্থান হবে, তা নিয়ে শীর্ষমহলে আলোচনা শুরু হয়েছে বলে খবর।     
নভেম্বরের গোড়ায় ২২টি বকেয়া বিল নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন খোদ বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। তারপর বিলগুলির বর্তমান অবস্থা ব্যাখ্যা করে প্রেস বিজ্ঞপ্তি জারি করেছিল রাজভবন। সেখানে জানানো হয়েছিল, ২২টির মধ্যে ১২টি বিল নিয়ে রাজ্য সরকারের সংশ্লিষ্ট দপ্তরের সঙ্গে আলোচনা প্রয়োজন। এবারও সেই ১২টি বিল নিয়েই রাজ্যকে চিঠি দিয়েছে রাজভবন। মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদীকে চিঠি দেওয়ার পাশাপাশি তার প্রতিলিপি পাঠানো হয়েছে বিধানসভার সচিবকেও। ‘দি ওয়েস্ট বেঙ্গল (প্রিভেনশন অব লিনচিং) বিল-২০১৯’, ‘দি হাওড়া মিউনিসিপ্যাল কর্পোরেশন (অ্যমেন্ডমেন্ট) বিল-২০২১’ এবং ‘দি ওয়েস্ট বেঙ্গল ট্যাক্সেশন ট্রাইব্যুনাল (অ্যমেন্ডমেন্ট) বিল-২০২২’-এর মতো নানা গুরুত্বপূর্ণ বিষয় রয়েছে ১২টি ফাইলের মধ্যে। এসব বিলে রাজ্যপাল সম্মতি দেওয়ার আগে রাজ্যের সঙ্গে আলোচনা প্রয়োজন বলে চিঠিতে জানানো হয়েছে। বিলগুলি ছাড়তে রাজ্যের প্রতিনিধিদের জরুরি ভিত্তিতে আলোচনার ব্যবস্থা করতেও আবেদন করা হয়েছে। রাজভবনের একাধিক প্রশ্নের ব্যাখ্যা মিললে বিলগুলি অনুমোদন পেতে পারে—সেকথাও বলা হয়েছে চিঠিতে।      
প্রসঙ্গত, পাঞ্জাবের রাজ্যপাল কোনও কারণ ছাড়াই বিল অনুমোদনে বিলম্ব করছেন—এই অভিযোগে সম্প্রতি সুপ্রিম কোর্টের দ্বারস্থ হয়েছিল সেখানকার আপ সরকার। সেই মামলায় রীতিমতো শীর্ষ আদালতের হুঁশিয়ারির মুখে পড়তে হয়েছিল সেখানকার রাজ্যপাল বনওয়ারিলাল পুরোহিতকে। এই পরিস্থিতিতে পশ্চিমবঙ্গের পরিষদীয় মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়ের প্রশ্ন, ‘পাঞ্জাবের রাজ্যপালের মতো অবস্থায় যাতে পড়তে না হয়, তার জন্যই কি রাজভবন নবান্ন ও বিধানসভাকে চিঠি দিয়ে রাখছে?’ তিনি আরও বলেন, ‘বিলগুলি আটকে থাকায় রাজ্যের মানুষের সমস্যা বাড়ছে। আমরা ভেবেছিলাম, এবার অনুমোদন দিতেই উনি চিঠি পাঠিয়েছেন। কিন্তু এ তো গোটা প্রক্রিয়াকে আরও বিলম্বিত করার ফরমান।’

4th     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ