বর্তমান পত্রিকা : Bartaman Patrika | West Bengal's frontliner Newspaper | Latest Bengali News, এই মুহূর্তে বাংলা খবর
রাজ্য
 

উত্তরকাশী বিপর্যয়ের পর সেবক-রংপো রেলের টানেল নিয়ে প্রশ্ন উঠছে

কৌশিক ঘোষ, কলকাতা: সড়ক ও রেল পরিবহণ ব্যবস্থা সম্প্রসারণ করতে গোটা হিমালয়জুড়ে বহু টানেল তৈরির কাজ চলছে। পশ্চিমবঙ্গ-সিকিমের সংযোগকারী ৪৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সেবক-রংপো রেললাইনের ৩৮ কিলোমিটার যাবে টানেলের মধ্য দিয়ে। মোট ১৭টি টানেল থাকবে এই রেললাইনে। উত্তরকাশীর সাম্প্রতিক  বিপর্যয়ের পর এই ধরনের টানেলের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে। ভূ-বিশেষজ্ঞরা বলছেন, গোটা হিমালয় এলাকায় ভূমিকম্পের নিরিখে সবথেকে বিপজ্জনক ৫ নম্বর ‘সিসমিক জোনের’ মধ্যে পড়ায় এই ধরনের টানেল নির্মাণের সময় প্রযুক্তির যথাযথ ব্যবহার করে বিশেষ সতর্কতা ও ব্যবস্থা নেওয়ার প্রয়োজন আছে। প্রচুর ভূমিকম্প হয় এই এলাকায়। কম্পন মাত্রা খুব বেশি না হলে অনেক সময় তা অনুভব করা যায় না। কিন্তু ভূগর্ভস্থ পাথরের উপর প্রভাব পড়ে ভূমিকম্পের। বিশেষ করে ‘নরম’ পাথরের উপর, হিমালয়ে যা প্রচুর আছে।  ভূগর্ভে আলোড়ন ও নড়াচড়ায় পাথর ভঙ্গুর, গুঁড়ো হয়ে যায়। ফলে টানেল বিপর্যয় হওয়ার আশঙ্কা থাকে। 
জিওলজিক্যাল সার্ভে অব ইন্ডিয়ার (জিএসআই) অবসরপ্রাপ্ত  ডিরেক্টর শিখেন্দ্র দে জানিয়েছেন, হিমালয়ের উপর দিয়ে ‘মেইন সেন্ট্রাল থ্রাস্ট’ (এমসিটি) এলাকা গিয়েছে। লক্ষ লক্ষ বছর আগে  ইউরেশিয়ান প্লেটের সঙ্গে ইন্ডিয়া প্লেটের  সংঘাতস্থল ছিল এটা।  ইউরেশিয়ান প্লেটটি উঠে পড়ে ইন্ডিয়ান প্লেটের উপর। এখনও ভূগর্ভে দু’টি প্লেটের মধ্যে নিরন্তর সংঘাত চলছে। এর জন্য হিমালয় এলাকা বেশি ভূমিকম্প প্রবণ। এমসিটি সংলগ্ন এলাকা ভূমিকম্পের নিরিখে খুবই স্পর্শকাতর। উত্তরকাশীতে যে জায়গায় টানেল বিপর্যয় হয়েছে, তার কাছাকাছি দিয়ে এমসিটি গিয়েছে। প্রাক্তন জিএসআই কর্তা জানিয়েছে, প্রকাশিত বিভিন্ন তথ্য অনুযায়ী উত্তরকাশীর  টানেলটি  যে জায়গায় তৈরি করা হয়েছিল, সেখানে ‘মেটা-সিল্টস্টোন’, ‘ফাইলাইটিস’ জাতীয় তুলনামূলক দুর্বল পাথর আছে। ভূমিকম্পের জেরে দুর্বল পাথরের বেশি ক্ষতি হয়। পাথর দুর্বল হয়ে পড়লে ক্ষতির আশঙ্কা থাকে সেখানকার টানেলের। 
পূর্বে অরুণাচল থেকে পশ্চিমে লাদাখ-তিব্বত পর্যন্ত হিমালয়জুড়ে এমসিটি অবস্থান করছে। গ্রানাইটের মতো কঠিন পাথরের পাশাপাশি নরম পাথরও রয়েছে হিমালয়জুড়ে। ফলে গোটা হিমালয়ে যেখানে টানেল নির্মাণ করা হচ্ছে, সেখানেও বিপদের আশঙ্কা থাকছে বলে বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন। 
হিমালয় বিশেষজ্ঞ ভূতত্ত্ববিদ নবীন জুয়ালও জানিয়েছেন, উত্তরকাশীর টানেল তৈরির আগে আরও বিস্তারিত সমীক্ষা করার প্রয়োজন ছিল। তবে যে সমীক্ষাটি চালানো হয়েছিল, তার রিপোর্টে বলা হয়েছিল, টানেল এলাকায় মাত্র ২০ শতাংশ পাথর খুব মজবুত। বাকি পাথর সাধারণ, খারাপ বা খুব খারাপ মানের। ভূ-বিশেষজ্ঞরা বলছেন, হিমালয়ের প্রত্যন্ত এলাকায় যাতায়াত সুগম করার জন্য‌ টা঩নেল তৈরি করতে গেলে নির্মাণের সময় বিশেষ ব্যবস্থা নেওয়া প্রয়োজন।

3rd     December,   2023
 
 
কলকাতা
 
দেশ
 
বিদেশ
 
খেলা
 
বিনোদন
 
আজকের দিনে
 
রাশিফল ও প্রতিকার
ভাস্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
এখনকার দর
দিন পঞ্জিকা
 
শরীর ও স্বাস্থ্য
 
বিশেষ নিবন্ধ
 
সিনেমা
 
প্রচ্ছদ নিবন্ধ